আমানুল হক (নৃত্যশিল্পী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নৃত্যগুরু

আমানুল হক
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
পেশানৃত্যশিল্পী
পুরস্কারএকুশে পদক

আমানুল হক হলেন একজন বাংলাদেশী নৃত্যশিল্পী। নৃত্যকলায় তার অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০১৬ সালে তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে।[১]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

আমানুল হক ঘনশ্যাম দাস লক্ষ্মণ বিজয় এবং তার স্ত্রী নীলিমা নিকট ভারতনাট্যম, কুচিপুড়ি, এবং মণিপুরি নৃত্যের তালিম গ্রহণ করেন।[২] ১৯৫৯ সালে তিনি পাকিস্তানের করাচিতে ঘনশ্যাম আঞ্জারিয়ার নৃত্যশিল্পী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থার আহ্বায়ক[৩]

১৯৬৩ সালে হক পাকিস্তানের ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভলপমেন্ট ব্যাংকে যোগ দেন, পাশাপাশি সঙ্গীত ও নৃত্যের অনুশীলন চালিয়ে যান।[২]

১৯৬৪ সালে হক পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম ব্যক্তি হিসেবে করাচি টেলিভিশনে নৃত্যে অংশগ্রহণ করেন। তিনি নীলা পর্বত চলচ্চিত্রের নৃত্য পরিচালক হিসেবেও কাজ করেন। ১৯৬৬ সালে তিনি বারীণ মজুমদারের সঙ্গীত কলেজে যোগ দেন। পরবর্তীতে তিনি সাংস্কৃতিক সংগঠন "ক্রান্তি"তে যোগদান করেন।

কাজ[সম্পাদনা]

  • জ্বলছে আগুন খেতে খামারে (১৯৬৭)
  • মুখী মাতারা
  • কাবেরি তীরে
  • কুসুমের স্বপ্ন
  • বিক্ষোব্ধ ৭ জুন
  • ব্যাটল অব বাংলাদেশ
  • এই দেশ এই মাটি আমার[২]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "PM hands Ekushey Padak 2016"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭ 
  2. Kamal, Nashid। "Life's Lyrics : Amanul Huq"দ্য ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭ 
  3. ""Dancers in the country should work collectively""দ্য ডেইলি স্টার। এপ্রিল ২৮, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭ 
  4. "আমানুল হককে সংবর্ধনা"দৈনিক সমকাল। ১৬ মার্চ ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. "President for evaluating rural talents"দ্য ডেইলি স্টার। ডিসেম্বর ৩১, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭ 
  6. "A blend of classical, contemporary and folk dance"দ্য ডেইলি স্টার। জানুয়ারি ৩, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৭