অলিম্পিকে বাংলাদেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অলিম্পিকে
বাংলাদেশ
Flag of Bangladesh.svg
আইওসি কোডBAN
এনওসিবাংলাদেশ অলিম্পিক সংস্থা
ওয়েবসাইটwww.nocban.org
পদক
স্বর্ণ
রৌপ্য
ব্রোঞ্জ
মোট
গ্রীষ্মকালীন অংশগ্রহণ
২০১৬ গ্রীষ্ম অলিম্পিকে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত দশটি গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে, কখনো শীতকালীন অলিম্পিক গেমসে অংশগ্রহণ করেনি।

২০১৬ সালে সিদ্দিকুর রহমান প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন[১] এবং সেবারই প্রথম বাংলাদেশ সাতজন প্রতিযোগীকে অলিম্পিকে পাঠায় যা অন্যান্য বছরের তুলনায় সর্বোচ্চ। সাধারণত ওয়াইল্ড কার্ড প্রক্রিয়ায় দেশটি গেমসে প্রতিনিধি পাঠায়।[২] অলিম্পিকে একটিও পদক জিততে না পারা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ সবচেয়ে জনবহুল দেশ।[৩]

বাংলাদেশ অলিম্পিক সংস্থার প্রধান ওয়ালী উল্লাহ বলেন যে, বাংলাদেশের দুর্বল অর্থনীতি গেমসে তার খারাপ ফলাফলের জন্য দায়ী।[২]

পদক সারণী[সম্পাদনা]

গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের পদক[সম্পাদনা]

গেমস ক্রীড়াবিদ স্বর্ণ রৌপ্য ব্রোঞ্জ মোট ক্রম
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭২ মিউনিখ অংশগ্রহণ করেনি
কানাডা ১৯৭৬ মন্ট্রিল
সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৮০ মস্কো
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৮৪ লস অ্যাঞ্জেলেস
দক্ষিণ কোরিয়া ১৯৮৮ সিউল
স্পেন ১৯৯২ বার্সেলোনা
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৬ আটলান্টা
অস্ট্রেলিয়া ২০০০ সিডনি
গ্রিস ২০০৪ এথেন্স
চীন ২০০৮ বেইজিং
যুক্তরাজ্য ২০১২ লন্ডন
ব্রাজিল ২০১৬ রিও
জাপান ২০২০ টোকিও
ফ্রান্স ২০২৪ প্যারিস ভবিষ্যতে অনুষ্ঠিতব্য
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২০২৮ লস অ্যাঞ্জেলেস
মোট

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Golfer Siddikur Rahman becomes first Bangladesh player to qualify for Olympics"। ১৩ জুলাই ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০১৭ 
  2. "Bangladesh's Preparation for Beijing Olympics in Full Swing" (বেইজিং অলিম্পিকের জন্য বাংলাদেশের প্রস্তুতি পুরোদমে চলছে)। (ইংরেজি ভাষায়) সিনহুয়া। ১৫ জুন, ২০০৮
  3. "The 10 Most Populous Countries To Never Win An Olympic Medal" [কখনো অলিম্পিক পদক জয় করেনি এমন সবচেয়ে জনবহুল ১০টি দেশ]। BuzzFeed Community (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • "Bangladesh" [বাংলাদেশ] (ইংরেজি ভাষায়)। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি। 
  • "Bangladesh" [বাংলাদেশ] (ইংরেজি ভাষায়)। Sports-Reference.com। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫