অভিজিৎ রায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অভিজিৎ রায়
জন্ম(১৯৭১-০৯-১২)১২ সেপ্টেম্বর ১৯৭১[১]
বাংলাদেশ
মৃত্যু২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫(2015-02-26) (বয়স ৪২)
ঢাকা, বাংলাদেশ
পেশাসমালোচক, বিজ্ঞান লেখক, এলজিবিটি অধিকার-কর্মী
ভাষাবাংলা, ইংরেজি
জাতীয়তাবাংলাদেশি, মার্কিন
শিক্ষাজৈব চিকিৎসা প্রকৌশলে পিএইচডি
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানবাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়
সাহিত্য আন্দোলনপ্রথাবিরোধিতা, মুক্তচিন্তা, নাস্তিক্যবাদ, সমকামী আন্দোলন
দাম্পত্যসঙ্গীরাফিদা আহমেদ বন্যা
সন্তানতৃষা আহমেদ (কন্যা)[২]
আত্মীয়অজয় রায় (পিতা)
শেফালী রায় (মাতা)[৩]
ওয়েবসাইট
www.mukto-mona.com

অভিজিৎ রায় (১২ সেপ্টেম্বর ১৯৭১- ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)[১] একজন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বাংলাদেশী-মার্কিন প্রকৌশলী, লেখক ও ব্লগার।[৪] তিনি বাংলাদেশের মুক্ত চিন্তার আন্দোলনের সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি বাংলাদেশে সরকারের সেন্সরশিপ এবং ব্লগারদের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদের সমন্বয়কারক ছিলেন। তিনি পেশায় একজন প্রকৌশলী হলেও তার স্ব-প্রতিষ্ঠিত ওয়েবসাইট মুক্তমনায় লেখালেখির জন্য অধিক পরিচিত ছিলেন। ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে একুশে বইমেলা থেকে বের হওয়ার সময় অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা তাকে কুপিয়ে হত্যা ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা কে আহত করে।[৫][৬] বাংলাদেশী জঙ্গী সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিম এই হামলার দায় স্বীকার করেছিল।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

অভিজিৎ রায়ের জন্ম হয় ১৯৭১ সালের ১২ সেপ্টেম্বর আসামের শিবনগরে নাজিরা ম্যাটার্নিটি সেন্টারে। সেসময় তার পিতা অজয় রায় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত ছিলেন।

অভিজিৎ রায় ঢাকার উদয়ন প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে ঢাকা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উচ্চমাধ্যমিকের পাঠ সম্পন্ন করেন। এরপর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যন্ত্র কৌশলে স্নাতক ডিগ্রী প্রাপ্ত এবং উচ্চ শিক্ষার জন্য বাংলাদেশ ছাড়ার আগে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হিসেবে কাজ করেছিলেন।[৭][৮][৯] তিনি সিঙ্গাপুরের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতকোত্তর এবং ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন করেন।[১০] ২০০০ খ্রিষ্টাব্দে তিনি সেখান থেকে আটলান্টা, জর্জিয়ায় যান এবং বাংলাদেশে ফিরে আসা না পর্যন্ত সেখানে একজন প্রকৌশলী হিসাবে কাজ করতেন।[১][১১][১২] অভিজিৎ রায়ের পিতা ড. অজয় রায় একুশে পুরস্কার বিজয়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞানের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক।[১৩]

ব্যক্তি কর্মজীবন[সম্পাদনা]

অভিজিৎ রায়ের প্রথম স্ত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যুর পর ২০০৭ সালে অভিজিৎ রাফিদা আহমেদ বন্যা নামে একজন মুক্তমনা লেখিকাকে বিবাহ করেন। বন্যা নিজেও পূর্ববিবাহিতা ছিলেন। বিবাহবিচ্ছেদের পরে তার অভিজিতের সাথে বিবাহ হয়। বন্যার প্রথম দাম্পত্য জীবনে তৃষা নামে একজন কন্যা সন্তান ছিল।

অভিজিৎ রায়ের মৃত্যুর পর তার স্ত্রী বন্যা আহমেদ কিছুদিন বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যান এবং অভিজিৎ রায় ও বন্যা আহমেদের স্মৃতিবিজড়িত ফ্লোরিডার বাড়িটি বিক্রি করে অন্যত্র চলে যান।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

পেশায় তিনি একজন প্রকৌশলী ছিলেন। তবে তিনি নিয়মিত ব্লগ ও বিজ্ঞান বিষয়ক লেখালেখি করতেন। তিনি মোট ১০টি বই প্রকাশ করেন। বিজ্ঞান, নাস্তিকতাবাদ, বাস্তববাদ, সন্দেহবাদ ও যৌক্তিকতার ওপর ভিত্তি করে রচিত অবিশ্বাসের দর্শন এবং বিশ্বাসের ভাইরাস নামক তার দুটি বাংলা বই পাঠক মহলে বহুমুখী সমালোচনা লাভ করে।[১৪][১৫]

মুক্তমনা ব্লগ[সম্পাদনা]

তিনি ২০০১ সালের দিকে সমমনা কয়েকজন লেখকদের নিয়ে মুক্তমনা নামক একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন।[১৬] তিনি এই ওয়েবসাইটের আটজন নিয়ন্ত্রকদের একজন ছিলেন।[১৭] এই ওয়েবসাইটটি দ্য ববস সেরা অনলাইন পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়।[১৮][১৯] ২০০৭ সালে মুক্তবুদ্ধি, নাস্তিকতা, বিজ্ঞানমনস্কতার প্রসার আর মানবাধিকার ও সমকামীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখার প্রেক্ষিতে মুক্তমনা ওয়েবসাইট শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্মৃতি পদক অর্জন করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

অভিজিত তার ব্যক্তিগত আদর্শভিত্তিক রচনাগুলির জন্য ডানপন্থী ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এর সমর্থকদের নিকট থেকে হত্যার হুমকি পেয়েছিলেন।[২০] রকমারি.কম নামক বাংলাদেশের অনলাইন কেনাকাটা করার ওয়েবসাইটের মালিক ইসলামী মৌলবাদীদের পক্ষ থেকে হত্যার হুমকি পাওয়ার পর থেকে এই ওয়েবসাইট অভিজিতের বই বিক্রি করা বন্ধ করে দেয়[২১][২২]

প্রতিবাদ[সম্পাদনা]

বহু বাংলাদেশী নাস্তিক ব্লগার ২০১৩ শাহবাগ আন্দোলনকে সমর্থন করে। একই বছর ইসলামের অবমাননার কারণে ইসলামি দলগুলো নাস্তিক ব্লগারদের ফাঁসির দাবি জানিয়ে শাপলা চত্বরে আন্দোলনের ডাক দেয়।[২৩][২৪] ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ই ফেব্রুয়ারি আহমেদ রাজীব হায়দার কট্টরপন্থী সন্ত্রাসী দ্বারা খুন হন।[১৮] দ্য ববস সেরা অনলাইন পুরস্কার প্রাপ্ত ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিন আনোয়ার আল-আওলাকি দ্বারা প্রভাবিত চার যুবক দ্বারা আক্রান্ত হন।[২৫] শফিউল ইসলাম নামক একজন সমাজবিদ্যার অধ্যাপক ইসলামী মৌলবাদীদের দ্বারা নিহত হন।[২৬] মহিউদ্দিনের ব্লগ বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন দ্বারা বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং ইসলামমুহাম্মাদের সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্যের অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।[২৭][২৮] বাংলাদেশ সরকার বহু ব্লগারদের গ্রেপ্তার করে এবং এক ডজনের মতো ওয়েবসাইট ও ব্লগ বন্ধ করে দেয়।[৪] হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ[২৯], অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল[৩০], রিপোটার্স উইদাউট বর্ডার্স[৩১], কমিটি টু প্রোটেক্ট জার্নালিস্ট[৩২] ইত্যাদি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি বাংলাদেশের ব্লগারদের গ্রেপ্তারের ঘটনাসমূহের তীব্র নিন্দা জানায়।

অভিজিৎ রায় পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম ছাড়াও সেন্টার ফর ইনক্যুয়ারি[১৬] এবং ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানিস্ট অ্যান্ড এথিক্যাল ইউনিয়ন[৩৩] প্রভৃতি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির নিকট সমর্থনের আবেদন জানান। তিনি ঢাকা, নিউ ইয়র্ক সিটি, ওয়াশিংটন ডিসি, লন্ডন, অটোয়া প্রভৃতি শহরে বন্দী ব্লগারদের সমর্থনের জন্য আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ সংগঠিত করেন।[৩৪][৩৫] সালমান রুশদি, তসলিমা নাসরিন, মুহম্মদ জাফর ইকবাল, হেমন্ত মেহতা, মারিয়াম নামাজি, অনু মুহাম্মদ, কাইয়ুম চোধুরী, অজয় রায়, রামেন্দু মজুমদার প্রভৃতি প্রথীতযশা ধর্মনিরপেক্ষ বুদ্ধজীবীরা বন্দী ব্লগারদের সমর্থনে সর্বসমক্ষে মতপ্রকাশ করে অভিজিতের সঙ্গে যোগ দেন।[৩৬]

হত্যা[সম্পাদনা]

২০১৫ খ্রিষ্টাব্দে অভিজিৎ একুশে বইমেলা চলাকালীন ঢাকা যাত্রা করেন।[৩৭] ২৬শে ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যাবেলায় তিনি ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা একটি রিকশায় করে একুশে বইমেলা থেকে বাড়ি ফেরার সময়[৪] সাড়ে আটটা নাগাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের নিকটে অপরিচিত দুস্কৃতিকারীদের দ্বারা আক্রান্ত হন। সাক্ষীদের মতে, দুইজন দুষ্কৃতিকারী তাদের থামিয়ে রিকশা থেকে নামিয়ে রাস্তায় ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাদের কোপাতে থাকেন।[৩৮][৩৯] অভিজিতের মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়। তার স্ত্রীর কাঁধে ধারালো অস্ত্রের আঘাত লাগে এবং বাম হাতের আঙুলগুলি দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়।[১৩] উভয়কে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ নিয়ে যাওয়া হলে অভিজিৎ রাত সাড়ে দশটা নাগাদ মৃত্যুবরণ করেন। রাফিদা আহমেদ বন্যা চিকিৎসার পর বেঁচে যান।[৪০]

অভিজিতের মৃত্যুর একদিন পরে আনসার বাংলা-৭ নামক একটি সংঘঠন[৪১] এবং উপমহাদেশীয় আল কায়েদা শাখা [৪২]এই হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে। অভিজিতের পিতা অজয় রায় ২৭শে ফেব্রুয়ারি শাহবাগ থানায় হত্যার অভিযোগ দায়ের করেন।[৪৩]

১লা মার্চ অভিজিতের মৃতদেহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে অপরাজেয় বাংলা ভাস্কর্যের নিকট রাখা হয়, যেখানে বিভিন্ন ক্ষেত্রের মানুষ তাকে শেষ শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন।[৪৪] অভিজিতের ইচ্ছানুসারে তার মৃতদেহ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাশাস্ত্রের গবেষণার জন্য প্রদান করা হয়।[৪৫]

২রা মার্চ র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান ফারাবি শফিউর রহমান নামক একজনকে সন্দেহমূলকভাবে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের সন্দেহানুসারে, ফারাবি বিভিন্ন ব্যক্তিকে অভিজিতের অবস্থান, পরিচয় ও পরিবারের ছবি সম্বন্ধে তথ্য দিয়েছিলেন।[৪৬] ফারাবি অভিজিতকে বিভিন্ন সময় ব্লগ এবং ফেসবুকের মত সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইটে ঢাকা পৌঁছলে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দিয়েছিলেন।[৪৭][৪৮] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের অনুরোধে বাংলাদেশ সরকার এই হত্যাকাণ্ডের তদন্তের জন্য ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের নিকট হতে সাহায্য নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।[৪৯] ৬ই মার্চ ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের চার সদস্যের দল বাংলাদেশের গোয়েন্দা দলের সাথে মিলিত ভাবে হত্যার স্থানটি পর্যবেক্ষণ করে প্রমাণ সংগ্রহ করেন।[৫০][৫১]

লেখালেখি[সম্পাদনা]

অভিজিৎ রায় ইন্টারনেট, ম্যাগাজিন এবং দৈনিক পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত লিখতেন। তার লেখার বিষয় ছিলো আধুনিক বিজ্ঞান, নাস্তিকতা, সমকামিতা এবং দর্শন। মৃত্যুর পূর্বে প্রকাশিত তার ১০টি বইগুলো হল-

  • আলো হাতে চলিয়াছে আঁধারের যাত্রী’ (২০০৫)
  • মহাবিশ্বে প্রাণ ও বুদ্ধিমত্তার খোঁজে (২০০৭)
  • স্বতন্ত্র ভাবনা : মুক্তচিন্তা ও বুদ্ধির মুক্তি (২০০৮)
  • সমকামিতা: একটি বৈজ্ঞানিক এবং সমাজ-মনস্তাত্ত্বিক অনুসন্ধান (২০১০)
  • অবিশ্বাসের দর্শন (২০১১)
  • বিশ্বাস ও বিজ্ঞান (২০১২)
  • ভালবাসা কারে কয় (২০১২)
  • শূন্য থেকে মহাবিশ্ব (২০১৪)
  • বিশ্বাসের ভাইরাস (২০১৪)
  • ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো: এক রবি-বিদেশিনীর খোঁজে (২০১৫)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১] মুক্তমনা অভিজিৎ জীবনবৃত্তান্ত
  2. Ray Sanchez (১ মার্চ ২০১৫)। "Prominent Bangladeshi-American blogger Avijit Roy killed" (ইংরেজি ভাষায়)। সিএনএন। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  3. "শেষ শ্রদ্ধার পর অভিজিতের মরদেহ বাসায়"প্রথম আলো 
  4. "American atheist blogger hacked to death in Bangladesh"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  5. "ব্লগার অভিজিৎ রায়কে কুপিয়ে হত্যা"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  6. "Assailants hack to death writer Avijit Roy, wife injured" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা: bdnews24.com। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  7. "Avijit epitomises spirit of humanity" (ইংরেজি ভাষায়)। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  8. "Bangladeshis protest after atheist writer Avijit Roy hacked to death"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  9. "Engineers vehicles of civilization, militancy its enemy: Inu"বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০৩-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  10. খান, মোজাম্মেল হোসেন (২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "A Shocking Crime"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  11. Rishi Iyengar। "Bangladesh Authorities Arrest Suspect in American Blogger's Murder"টাইম (পত্রিকা) (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৫ 
  12. Sam Matthew, Kieran Corcoran। "The moment American blogger's wife was left covered in blood next to her husband's mutilated body after he was hacked to death by Muslim militants for insulting Islam and 'in retaliation for U.S. strikes on ISIS'"ডেইলি মেইল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  13. "Blogger Avijit hacked to death on DU campus"New Age (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  14. Lizzie Dearden (২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "American-Bangladeshi atheist blogger Avijit Roy hacked to death by suspected Islamist extremists"The Independent (ইংরেজি ভাষায়)। 
  15. http://www.telegraphindia.com/1150228/jsp/foreign/story_5950.jsp
  16. অভিজিৎ রায় (১ মার্চ ২০১৩)। "No Flag Large Enough to Cover the Shame – Guest Post from Dr. Avijit Roy" (ইংরেজি ভাষায়)। Center for Inquiry। 
  17. "Mukto-Mona moderators"Mukto-Mona (ইংরেজি ভাষায়)। ২ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  18. "Activist, blogger and DW Bobs nominee Avijit Roy killed in Dhaka" (ইংরেজি ভাষায়)। Deutsche Welle। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  19. "Islam-kritischer Blogger ermordet" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  20. "Islamic death threats over books by Avijit Roy"The Free Thinker (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ মার্চ ২০১৪। ১ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৫ 
  21. "Bangladesh online bookstore drops author after death threats" (ইংরেজি ভাষায়)। ucanews.com। ১৮ মার্চ ২০১৪। ১৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৫ 
  22. "Radical lslamists threaten Bangladeshi American Writer Avijit Roy"Policy Research Group Strategic Insight (ইংরেজি ভাষায়)। ৬ এপ্রিল ২০১৪। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  23. "Hardline Muslims rally in Bangladesh amid shutdown"USA Today (ইংরেজি ভাষায়)। Associated Press। ৬ এপ্রিল ২০১৩। 
  24. Farid Ahmed (৮ এপ্রিল ২০১৩)। "Bangladesh Islamists rally for blasphemy law" (ইংরেজি ভাষায়)। CNN 
  25. Staff correspondent (২ এপ্রিল ২০১৩)। "4 held over attempt to kill blogger"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  26. "Bloggers on hit-list posted by supposed Islamist group in Bangladesh" (ইংরেজি ভাষায়)। ১৯ নভেম্বর ২০১৪। 
  27. "Bangladesh gags award-winning blogger" (ইংরেজি ভাষায়)। Deutsche Welle। ২৫ মে ২০১৩। 
  28. "Blogger granted bail on health grounds" (ইংরেজি ভাষায়)। Reporters without Borders। ৭ আগস্ট ২০১৩। 
  29. "Bangladesh: Crackdown on Bloggers, Editors Escalates"Human Rights Watch। ১৫ এপ্রিল ২০১৩।  "the government is abandoning any serious claim that it is committed to free speech," said Brad Adams, Asia director at Human Rights Watch."
  30. "Bangladesh: Further information: Detained editor alleges torture" (ইংরেজি ভাষায়)। Amnesty International। ১৭ এপ্রিল ২০১৩। Blogger Asif Mohiudeen, arrested on 3 April for allegedly posting blasphemous comments online, remains in detention and at risk of torture 
  31. "Call for detained blogger's immediate release" (ইংরেজি ভাষায়)। Reporters without Borders। ১১ এপ্রিল ২০১৩। Reporters Without Borders condemns the baseless judicial proceedings brought against the detained blogger Asif Mohiuddin, who could be tried and convicted on a charge of blasphemy and "hurting religious sentiments" at his next hearing 
  32. "Attacks on the Press – Bangladesh" (ইংরেজি ভাষায়)। Committee to Protect Journalists। ফেব্রু ২০১৪। 
  33. "Humanists appalled at the murder of secular activist and writer Avijit Roy" (ইংরেজি ভাষায়)। iheu.org। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  34. "Atheists Rally Around Jailed Bangladeshi Bloggers"The Huffington Post (ইংরেজি ভাষায়)। ২৫ এপ্রিল ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০১৩ 
  35. Avijit Roy (৮ মে ২০১৩)। "The Struggle of Bangladeshi Bloggers" (ইংরেজি ভাষায়)। skeptic। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০১৩ 
  36. "The Struggle of Bangladeshi Bloggers" (ইংরেজি ভাষায়)। skeptic। ৮ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০১৩ 
  37. "Writer Avijit Roy hacked dead, wife hurt near TSC"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  38. "American atheist blogger hacked to death in Bangladesh"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  39. "US-Bangladesh blogger Avijit Roy hacked to death" (ইংরেজি ভাষায়)। BBC। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  40. Avijit Roy slain
  41. "Ansar Bangla-7 claims Avijit killing responsibility"প্রথম আলো (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  42. "Local Al-Qaeda Claims February Murder of US Citizen in Bangladesh: Intelligence Group"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টোবর ২০১৯ 
  43. Ray Sanchez। "Prominent Bangladeshi-American blogger Avijit Roy killed" (ইংরেজি ভাষায়)। CNN। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  44. "Hacked American blogger Avijit Roy laid to rest in Bangladesh"দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। ১ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  45. Monideepa Banerjie (১ মার্চ ২০১৫)। "Dhaka Pays Last Respects to Murdered Bangladeshi-American Blogger Avijit Roy" (ইংরেজি ভাষায়)। NDTV। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  46. "Atheist blogger Avijit Roy 'was not just a person … he was a movement'"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫ 
  47. "Bangladesh Avijit Roy murder: Suspect arrested" (ইংরেজি ভাষায়)। BBC। ২ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৫ 
  48. "Bangladesh authorities arrest man over atheist blogger's murder"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। ২ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৫ 
  49. "FBI to help probe murder of US blogger Avijit Roy in Bangladesh"দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। ২ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৫ 
  50. "FBI team visits Avijit murder scene at DU" (ইংরেজি ভাষায়)। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫ 
  51. "FBI team collects evidence of Avijit murder"ঢাকা ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫