সেশেলস জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সেশেলস
ডাকনামজলদস্যু
অ্যাসোসিয়েশনসেশেলস ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচরালফ জঁ-লুই
অধিনায়কসেঙ্কি ভিদোত
সর্বাধিক ম্যাচগের্ভাই ওয়ায়ে-হিভে (৩৬)
শীর্ষ গোলদাতাফিলিপ জিয়ালর (১৪)
মাঠলিনিতে স্টেডিয়াম
ফিফা কোডSEY
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৯৬ অপরিবর্তিত (৩১ মার্চ ২০২২)[১]
সর্বোচ্চ১২৯ (অক্টোবর ২০০৬)
সর্বনিম্ন২০২ (ফেব্রুয়ারি ২০২০)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৯৮ হ্রাস ১ (৩০ এপ্রিল ২০২২)[২]
সর্বোচ্চ১৬৮ (জুলাই ২০০৮)
সর্বনিম্ন১৯৯ (জানুয়ারি ২০২০)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 রেউনিওঁ ২–০ সেশেলস 
(রেউনিওঁ; ১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৪)
বৃহত্তম জয়
 সেশেলস ৯–০ মালদ্বীপ 
(রেউনিওঁ; ২৭ আগস্ট ১৯৭৯)
বৃহত্তম পরাজয়
 সেশেলস ১–৮ লিবিয়া 
(ভিক্তোরিয়া, সেশেলস; ১৭ নভেম্বর ২০১৮)
 রুয়ান্ডা ৭–০ সেশেলস 
(কিগালি, রুয়ান্ডা; ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯)

সেশেলস জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Seychelles national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সেশেলসের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম সেশেলসের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেশেলস ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৮৬ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং একই বছর হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে।[৩] ১৯৭৪ সালের ১৩ই ফেব্রুয়ারি তারিখে, সেশেলস প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; রেউনিওঁয়ে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে সেশেলস রেউনিওঁর কাছে ২–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

১০,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট লিনিতে স্টেডিয়ামে জলদস্যু নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় সেশেলসের রাজধানী মাহেতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন রালফ জঁ-লুই এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন লা পাসের মধ্যমাঠের খেলোয়াড় সেঙ্কি ভিদোত

সেশেলস এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সেও সেশেলস এপর্যন্ত একবারও অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়নি।

গের্ভাই ওয়ায়ে-হিভে, রাচিম পাদায়াচি, কলিন এস্থার, ফিলিপ জিয়ালর এবং পেরি মোনাইয়ের মতো খেলোয়াড়গণ সেশেলসের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০০৬ সালের অক্টোবর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে সেশেলস তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (১২৯তম) অর্জন করে এবং ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ২০২তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে সেশেলসের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ১৬৮তম (যা তারা ২০০৮ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৯৯। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
৩১ মার্চ ২০২২ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৯৪ হ্রাস  জিবুতি ৮৭৫.৯৮
১৯৫ অপরিবর্তিত  কেইম্যান দ্বীপপুঞ্জ ৮৭৩.৬৪
১৯৬ অপরিবর্তিত  সেশেলস ৮৬৬.৯৪
১৯৭ অপরিবর্তিত  পাকিস্তান ৮৬৬.৮১
১৯৮ অপরিবর্তিত  পূর্ব তিমুর ৮৬৫.৪৭
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
৩০ এপ্রিল ২০২২ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৯৬ বৃদ্ধি  আরুবা ৯১০
১৯৭ হ্রাস  মালদ্বীপ ৯০৯
১৯৮ হ্রাস  সেশেলস ৯০৬
১৯৯ বৃদ্ধি  মোনাকো ৯০৩
২০০ হ্রাস  সোমালিয়া ৮৯৯

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৩৪
ফ্রান্স ১৯৩৮
ব্রাজিল ১৯৫০
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪
সুইডেন ১৯৫৮
চিলি ১৯৬২
ইংল্যান্ড ১৯৬৬
মেক্সিকো ১৯৭০
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮
স্পেন ১৯৮২
মেক্সিকো ১৯৮৬
ইতালি ১৯৯০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪
ফ্রান্স ১৯৯৮
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ উত্তীর্ণ হয়নি
জার্মানি ২০০৬
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১৭
ব্রাজিল ২০১৪
রাশিয়া ২০১৮
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ১৪ ১২ ৩৬

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ৩১ মার্চ ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২২ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ৩০ এপ্রিল ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২২ 
  3. "Sport in The Seychelles"www.topendsports.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-২৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]