মেঘনাদবধ কাব্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মেঘনাদবধ কাব্য
লেখকমাইকেল মধুসূদন দত্ত
দেশব্রিটিশ ভারত
ভাষাবাংলা
ধরনমহাকাব্য
প্রকাশনার তারিখ
১৮৬১
পূর্ববর্তী বইতিলোত্তমাসম্ভব কাব্য 
পরবর্তী বইবীরাঙ্গনা কাব্য 

মেঘনাদবধ কাব্য ১৯-শতকীয় বাঙালি কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত কর্তৃক অমিত্রাক্ষর ছন্দে লেখা একটি মহাকাব্য[১] এটি ১৮৬১ সালে দুই খণ্ডে বই আকারে প্রকাশিত হয়। কাব্যটি মোট নয়টি সর্গে বিভক্ত। মেঘনাদবধ কাব্য হিন্দু মহাকাব্য রামায়ণ অবলম্বনে রচিত, যদিও এর মধ্যে নানা বিদেশী মহাকাব্যের ছাপও সুস্পষ্ট।

আখ্যানভাগ[সম্পাদনা]

প্রথম সর্গ[সম্পাদনা]

মেঘনাদবধ কাব্যের প্রথম সর্গের নাম ‘অভিষেক’। এই সর্গের সূচনায় কবি বাগ্‌দেবী সরস্বতী ও দেবী কল্পনার[২] আবাহন করেছেন। লঙ্কার রাজসভায় রাজা রাবণ বসে আছেন। ভগ্নদূত মকরাক্ষ এসে যুদ্ধে রাজপুত্র বীরবাহুর মৃত্যুসংবাদ দিলেন। পুত্রের মৃত্যুসংবাদ পেয়ে রাবণ শোকে অভিভূত হলেন। মন্ত্রী সারণ তাকে সান্ত্বনা দিলেন। দূতের মুখে পুত্রের বীরত্বের কাহিনী শুনে যুদ্ধক্ষেত্রের অবস্থা দেখতে রাবণ স্বয়ং প্রাসাদশিখরে আরোহণ করলেন। সেখানে দাঁড়িয়ে তিনি নিহত পুত্রের জন্য বিলাপ করতে লাগলেন। সেতুবন্ধনে রামকে সাহায্য করার জন্য সমুদ্রদেবতা বরুণকেও ধিক্কার দিলেন। তারপর ফিরে এসে বসলেন সভায়। রাবণের অন্যতমা পত্নী তথা বীরবাহুর মা চিত্রাঙ্গদা তার একমাত্র আত্মজ পুত্রের মৃত্যুতে আকুল হয়ে রাজসভায় ছুটে এলেন। বিলাপ করতে করতে তিনি সীতাহরণের জন্য রাবণকে ধিক্কার দিলেন। চিত্রাঙ্গদা সভা থেকে প্রস্থান করলে রাবণ স্বয়ং যুদ্ধে যাওয়ার প্রস্তুতি নিতে লাগলেন। রাক্ষসসেনার পদভরে পৃথিবী টলমল করে উঠল। তা শুনে শঙ্কিত হয়ে বরুণের পত্নী বারুণী যুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহের জন্য সখী মুরলাকে পাঠালেন লঙ্কার রাজলক্ষ্মীর মন্দিরে। মুরলা রাজলক্ষ্মীর কাছে গিয়ে যুদ্ধের সংবাদ শ্রবণ করলেন এবং এও শুনলেন যে রাবণের অপর পুত্র মহাবীর মেঘনাদ যুদ্ধে না গিয়ে প্রমোদ উদ্যানে বিহার করছেন। মুরলা ধাত্রী প্রভাষার ছদ্মবেশে মেঘনাদের কাছে গিয়ে যুদ্ধের সংবাদ ও রাবণের রণসজ্জার আয়োজনের কথা জানালেন। দেশের আপদকালের কথা বিস্মৃত হয়ে আমোদপ্রমোদে মেতে থাকার জন্য মেঘনাদ নিজেকে ধিক্কার জানিয়ে তখনই যুদ্ধে যাওয়ার সংকল্প নিলেন। পত্নী প্রমীলা কেঁদে বললেন, “কোথা প্রাণসখে,/ রাখি এ দাসীরে, কহ, চলিলা আপনি?”[৩] মেঘনাদ উত্তরে বললেন, “ত্বরায় আমি আসিব ফিরিয়া/ কল্যাণি, সমরে নাশি তোমার কল্যাণে,/ রাঘবে। বিদায় এবে দেহ, বিধুমুখি।”[৪] রাবণের কাছে গিয়ে যুদ্ধে যাওয়ার অনুমতি চাইলেন মেঘনাদ। রামের সঙ্গে যুদ্ধে লঙ্কার অনেক পরাক্রমী বীর নিহত হয়েছেন, তাই রাবণ ইষ্টদেবের পূজা ও নিকুম্ভিলা যজ্ঞ সমাপ্ত করে যুদ্ধে যাওয়ার পরামর্শ দিলেন তার প্রিয় পুত্রকে। তারপর গঙ্গাজল দিয়ে শাস্ত্রবিধি অনুসারে সেনাপতিপদে মেঘনাদের অভিষেক করলেন।

দ্বিতীয় সর্গ[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় সর্গের নাম ‘অস্ত্রলাভ’। লঙ্কার রাজলক্ষ্মী স্বর্গে এসে ইন্দ্রকে মেঘনাদের উদ্দেশ্য সম্পর্কে অবহিত করলেন। বললেন, “নিকুম্ভিলা যজ্ঞ সাঙ্গ করি, আরম্ভিলে/ যুদ্ধ দম্ভী মেঘনাদ, বিষম সঙ্কটে/ ঠেকিবে বৈদেহীনাথ[৫], কহিনু তোমারে।”[৬] এই কথা শুনে ইন্দ্র শচীকে নিয়ে কৈলাসে এলেন। শিব তখন কৈলাসে ছিলেন না, যোগাসন নামে এক শৃঙ্গে ধ্যানে মগ্ন ছিলেন। তাই ইন্দ্র দুর্গাকেই অনুরোধ করলেন মেঘনাদের বিরুদ্ধে রামকে সাহায্য করার জন্য। এদিকে সখী জয়ার মুখে দুর্গা সংবাদ পেলেন যুদ্ধে বিজয় কামনায় রামচন্দ্রও দুর্গাপূজায় বসেছেন। দুর্গা তখন ইন্দ্র, শচী, কামদেব ও রতিকে নিয়ে যোগাসনে গেলেন। কামদেবের সাহায্যে শিবের ধ্যান ভঙ্গ করে রামের জন্য সাহায্যপ্রার্থনা করলেন। শিব ইন্দ্রকে দেবী মায়ার[৭] কাছে যেতে বললেন, “মায়ার প্রসাদে,/ বধিবে লক্ষ্মণ শূর মেঘনাদ শূরে।” মায়া সব শুনে ইন্দ্রকে কিছু মহাস্ত্র দিয়ে বললেন, “ওই সব অস্ত্রবলে নাশিলা তারকে/ ষড়ানন[৮]। ওই সব অস্ত্রবলে, বলি,/ মেঘনাদ-মৃত্যু, সত্য কহিনু তোমারে।/ কিন্তু হেন বীর নাহি এ তিন ভুবনে,/ দেব কি দানব, ন্যায়যুদ্ধে যে বধিবে/ রাবণিরে!” [৯] দেবী মায়ার অস্ত্র নিয়ে ইন্দ্র স্বর্গে ফিরে এলেন। পরে সহচর চিত্ররথের মারফৎ সেই সব অস্ত্র পাঠালেন রামের কাছে।

তৃতীয় সর্গ[সম্পাদনা]

তৃতীয় সর্গের নাম ‘সমাগম’। প্রমোদ উদ্যানে প্রমীলা মেঘনাদের বিলম্ব দেখে শঙ্কিত হলেন। স্বয়ং লঙ্কাপুরীতে গিয়ে পতির সঙ্গে মিলিত হওয়ার বাসনা প্রকাশ করলেন সখীদের কাছে। কিন্তু সেই রাতে রামের অনুচরবৃন্দ লঙ্কাপুরী ঘিরে রেখেছিল। তাদের এড়িয়ে লঙ্কায় প্রবেশ অসম্ভব জেনে প্রমীলা সাজলেন যুদ্ধসাজে। “আমি কি ডরাই, সখি, ভিখারী রাঘবে?/ পশিব লঙ্কায় আজি নিজ ভুজ-বলে;/ দেখিব কেমনে মোরে নিবারে নৃমণি?”[১০] তারপর বীরাঙ্গনার বেশে সখীদের নিয়ে চললেন লঙ্কার উদ্দেশ্যে। পশ্চিম দ্বারে তাদের বাধা দিলেন হনুমান। তখন প্রমীলা গর্জন করে বললেন, “অরিন্দম ইন্দ্রজিৎ—প্রমীলা সুন্দরী/ পত্নী তার; বাহু-বলে প্রবেশিবে এবে/ লঙ্কাপুরে, পতিপদ পূজিতে যুবতী!/ কোন্ যোধ সাধ্য, মূঢ়, রোধিতে তাঁহারে?”[১১] প্রমীলার পরাক্রমে আশ্চর্যান্বিত হয়ে প্রমীলারই অনুরোধে রামকে ডেকে আনলেন হনুমান। সখী নৃমুণ্ডমালিনীর মাধ্যমে প্রমীলা রামকে জানালেন তার আগমনের উদ্দেশ্যের কথা। রাম বললেন, “অরি মম রক্ষঃ-পতি; তোমরা সকলে/ কুলবালা; কুলবধূ; কোন্ অপরাধে/ বৈরি-ভাব আচরিব তোমাদের সাথে?/ আনন্দে প্রবেশ লঙ্কা নিঃশঙ্ক হৃদয়ে।”[১২] রামের আদেশে হনুমান পথ ছেড়ে দিল। কিন্তু বীরাঙ্গনাবেশী প্রমীলাকে দেখে সম্পূর্ণ নিশ্চিন্ত হতে পারলেন না রাম। বিভীষণ তাকে জানালেন, যে নারী ইন্দ্র-জয়ী মেঘনাদকে নিজ পদতলে রাখার ক্ষমতা ধরে সে সামান্য মেয়ে নয়। কালনেমির কন্যা প্রমীলা মহাশক্তির অংশসম্ভূতা। পতিসম্মিলনের পর তিনি যদি গোপনে রামের শিবির আক্রমণ করেন, তাহলে যুদ্ধে এঁটে ওঠা কঠিন হবে। রাম তখন তার সকল অনুচরদের নিয়ে লঙ্কার প্রধান ফটকগুলি পাহারা দিতে লাগলেন। এদিকে লঙ্কায় প্রবেশ করে পতি মেঘনাদের সঙ্গে সম্মিলিত হলেন প্রমীলা। এই দৃশ্য দেখে কৈলাসে সখী বিজয়া দুর্গাকে জিজ্ঞাসা করলেন, যে প্রমীলা দুর্গার অংশে জন্মগ্রহণ করেছেন, সেই প্রমীলা কাছে থাকলে যুদ্ধে কীভাবে মেঘনাদের পরাজয় সম্ভব হবে? দুর্গা বললেন, যুদ্ধের পূর্বে তিনি প্রমীলার তেজ হরণ করবেন। তখন লক্ষ্মণ সহজেই মেঘনাদকে বধ করতে পারবে।

চতুর্থ সর্গ[সম্পাদনা]

চতুর্থ সর্গের নাম ‘অশোকবন’॥

চতুর্থ সর্গের শুরুতে মধুসূদন প্রথমেই "বাল্মিকী'কে বন্দনা করেছেন। অতঃপর তিনি শ্রীভর্তৃহরি, ভবভুতি এবং মহাকবি কালিদাসকে স্মরণ করেছেন। অবশেষে কীর্তিবাস তথা কৃত্তিবাসের নাম স্মরণ করে তাঁদের মতো খ্যাত হওয়ার বাসনা প্রকাশ করেছেন। চতুর্থ সর্গে বন্দিনী সীতার সঙ্গে বিভীষণপত্নী সরমার কথোপকথন বর্ণিত হয়েছে। " বৃথা গঞ্জ দশাননে তুমি, বিধুমুখী। - সীতা সরমার উদ্দেশ্যে এ কথা বলেছেন। মারীচ মায়ামৃগ রূপে সীতাকে প্রলুব্ধ করলে, রামচন্দ্র সীতার মনোবাসনা পূরণ করবার জন্য তাকে ধরতে পিছু ধাওয়া করেন। কিন্তু ধরতে ব্যর্থ হয়ে রামচন্দ্র কঠিন শরে তাকে বিদ্ধ করেন। মরণকালে মারীচ রামের স্বর নকল করে আর্তনাদ করে। তাতেই সীতার অনুরোধ ও গঞ্জনায় লক্ষ্মণ রামের সাহায্যার্থে বনে গমন করলে, সেই অবকাশে জটাজুট যোগীর ছদ্মবেশে রাবণ সীতাকে হরণ করে। সীতা স্বপনে রাবণানুজ কুম্ভকর্ণের মৃত্যু দর্শন করেছিলেন। বিভীষণের স্ত্রী সরমা গন্ধর্বরাজ শৈলুষের কন্যা।

পঞ্চম সর্গ[সম্পাদনা]

পঞ্চম সর্গের নাম ‘উদ্যোগ’।

ষষ্ঠ সর্গ[সম্পাদনা]

ষষ্ঠ সর্গের নাম ‘বধো’। এই পর্বে মেঘনাদকে বধ করা হয়। লক্ষণ রাম-লক্ষণের শিবিরে পৌঁছে বিভীষণকে বলে যে মায়াদেবী তাকে কী বর দিয়েছিল। মায়াদেবী বলেছিল, নিকুম্ভিলা যজ্ঞাগারে আচমকা বাঘের মত আক্রমণ করে মেঘনাদকে হত্যা করতে। এবার রামের পরামর্শ চাইলে রাম বলে যে, সর্পবিবরে কী করে প্রাণাধিক লক্ষণকে পাঠাবে। "নাহি কাজ সীতায় উদ্ধারি।" লক্ষণ প্রশ্ন করে, দৈব-বলে যে শক্তিমান সে কেন ভয়ে পিছিয়ে আসবে? বিভীষণও তার সঙ্গে একমত হয়ে বলে, দেবতার আদেশ মানা কর্তব্য। আমিও লক্ষণের সাথে যাব। তখন রাম লক্ষণের মা সুমিত্রার কথা স্মরণ করে, যার অনুরোধ ছিল লক্ষণকে রক্ষা করা। তাই রাম বলে, "নাহি কাজ, মিত্রবর, সীতায় উদ্ধারি।" তখন সহসা স্বরস্বতী আবির্ভূত হয়ে ভবিষ্যত দেখায়। এবং বলে যে, দেববাক্যে তার সন্দেহ থাকা উচিত নয়। এবার রাম রাজি হয়ে লক্ষণকে প্রস্তুত করে এবং বিভীষণকে বলে, আমি ভিখারী রাঘব আমার অমূল্য রত্ন লক্ষণকে আজ তোমার হাতে তুলে দিলাম। আমার জীবন-মরণ সবই তোমার হাতে। এবার লক্ষণ-বিভীষণ যাত্রা করল লঙ্কা অভিমুখে।

সপ্তম সর্গ[সম্পাদনা]

সপ্তম সর্গের নাম ‘শক্তিনির্ভেদ’।

অষ্টম সর্গ[সম্পাদনা]

অষ্টম সর্গের নাম ‘প্রেতপুরী’। এখানে আলোচ্য বিষয় হলো তিনটি। যথা, ১- লক্ষ্মণের শোকে রামের বিলাপ। ২- কৈলেশের শীব-পারবতীর কথোপকোথন ও মায়াদেবীর প্রতি নির্দেশ। ৩- রামচন্দ্রের প্রেতপুরী দর্শন।

নবম সর্গ[সম্পাদনা]

নবম সর্গের নাম ‘সংস্ক্রিয়া’।

রচনাকাল ও প্রকাশেতিহাস[সম্পাদনা]

মধুসূদন ১৮৬১ খ্রিষ্টাব্দে এ কাব্যটি রচনা করেন। কাব্যটি দুটি খন্ডে বিভক্ত। প্রথম খন্ড (১-৫ সর্গ) ১৮৬১ সালের জানুয়ারি মাসে, আর দ্বিতীয় খন্ড (৬-৯ সর্গ) ঐ বছরেই রচনা করেন।

বিষয়বস্তু ও কাঠামো[সম্পাদনা]

গ্রিক রীতিতে হিন্দু পূরাণের কাহিনী অবলম্বন করে এই কাব্যটি রচিত। এর মূল উপজীব্য রামায়ণ। মধুসূদনের মেঘনাদ বধ কাব্য সর্বাংশে আর্য রামায়নকে অনুসরণ করে রচনা করেন নি। প্রতিটি চরিত্রের উপর বাল্মীকির থেকে ইংবেঙ্গলের প্রভাব অনেক বেশী৷ ‘মেঘনাদ বধ’ কাব্যের লঙ্কা কাণ্ডের স্থান লঙ্কা দ্বীপের পরিবর্তে হল হিন্দু কলেজ, ভাষাতেও আধুনিকতার প্রচ্ছাপ৷[১৩] কবি মিলটন বিরচিত প্যারাডাইয লস্ট-এর রচনারীতির অনুগামীতা এতে পরিস্ফুট। প্রথম সর্গ "অভিষেক"-এ মোট ৭৮৫টি চরণ আছে।

ছন্দ[সম্পাদনা]

এটি অমিত্রাক্ষর ছন্দ বা 'ফ্রি ভার্সে' রচিত। অমিত্রাক্ষরে প্রথম রচনা করেন তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য(১৮৬০)। এরপর ‌‌মেঘনাদ বধ কাব্য(১৮৬১) রচনা করেন অমিত্রাক্ষর ছন্দে। নিচের উদ্ধৃতি থেকে এ কাব্যের ছন্দ-প্রকৃতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। এ অংশটি ষষ্ঠ সর্গের অংশ বিশেষ এবং ‌‌‌মেঘনাদ ও বিভীষণ নামে পরিচিত।

সমালোচনা[সম্পাদনা]

মেঘনাদবধ কাব্য সংস্কৃত অলঙ্কারশাস্ত্র অনুযায়ী মহাকাব্যের গৌরব সর্বাংশে দাবী করতে পারে না। অবশ্য মধুসূদন দত্ত তিনি তার কাব্যকে অষ্টাধিক সর্গে বিভক্ত করেছেন এবং সংস্কৃত অলঙ্কারশাস্ত্র অনুযায়ী এতে নগর, বন, উপবন, শৈল, সমুদ্র, প্রভাত, সন্ধ্যা, যুদ্ধ, মন্ত্রণা প্রভৃতির সমাবেশও করেছেন। কিন্তু সর্গান্তে তিনি নূতন ছন্দ ব্যবহার করেননি, সর্গশেষে পরবর্তী সর্গকথা আভাসিত করেননি। যদিও তিনি বলেছিলেন -

তবুও কাব্যে করুণ রসেরই জয় হয়েছে। এতদ্ব্যতীত, সংস্কৃত মহাকাব্য মিলনান্তক, মধুসূদনের মহাকাব্য বিষাদাত্মক। সর্বোপরি, মধুসূদনের কাব্যের নায়ক রাবণ এবং রাবণ অনার্য্যবংশ সম্ভূত - সদ্বংশজ এবং ধীরোদাত্তগুণ সমন্বিত নন। সুতরাং, সংস্কৃত আলঙ্কারিকদের মতে একে মহাকাব্য বলে অনেকে স্বীকার করতে চান না। কাজেই মেঘনাদবধ কাব্য রামায়ণ-আহৃত কাহিনীর পুণরাবৃত্তি নয় - এটি নবজাগ্রত বাঙালীর দৃষ্টি নিয়তি-লাঞ্ছিত নবমানবতাবোধের সকরুণ মহাকাব্যের রূপে অপূর্ব গীতি-কাব্য। মেঘনাদবধ কাব্য এ দিক দিয়ে বাংলা কাব্য সাহিত্যে একক সৃষ্টি।[১৪]

মধুসূদন অতি আশ্চর্য্যজনকভাবে নির্মাণ-কুশলতা গুণে মহাকাব্যোচিত কাব্য-বিগ্রহ সৃষ্টি করেছেন। এ কাব্যের তাৎপর্য্য রাবণ-চরিত্রের প্রতীকতায়। তার সৃষ্ট রাবণ চরিত্রে পরম দাম্ভিকতা প্রকট হয়ে উঠেনি। রামায়ণকে তিনি তার মানবতার আলোকে বিধৌত করে যে মহাকাব্য রচনা করেছেন, তা আসলে রোমান্টিক মহাকাব্য। এ কারণে আকারে 'মেঘনাদবধ কাব্য' মহাকাব্যোচিত হলেও, এর প্রাণ-নন্দিনী সম্পূর্ণ রোমান্টিক এবং মধুসূদন এ কাব্যে জীবনের যে জয়গান করেছেন, তা বীররসের নয়, কারুণ্যের। কবি তাই, রবীন্দ্রনাথের ভাষায়,

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সমালোচনা[সম্পাদনা]

কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তরুণ বয়সে ‌‌‌‌‌মেঘনাদবধ কাব্যের একটি আলোচনা লিখেছিলেন। ‌‌এ আলোচনার দৃষ্টিভঙ্গি ছিল আক্রমণাত্মক।[১৫] আলোচনার শেষে বিশ্বকবি লিখেছিলেন, ‍'আমি মেঘনাদ বধের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ লইয়া সমালোচনা করিলাম না। আমি তাহার মূল্য লইয়া, তাহার প্রাণের আধার লইয়া সমালোচনা করিলাম, দেখিলাম তাহার প্রাণ নাই। দেখিলাম তাহা মহাকাব্যই নয়।'[১৬] যদিও পরবর্তীকালে রবীন্দ্রনাথ তা বর্জন করে মধুসূদনের পক্ষেই পুনঃমন্তব্য করেছিলেন।[১৫]

মাইকেল মধুসূদন দত্তের মন্তব্য[সম্পাদনা]

মাইকেল মধুসূদন তার কাব্যে মেঘনাদকে অনন্য ভাবে দেখিয়েছেন যা তার বিভিন্ন মন্তব্যে দেখা যায়:

  • মেঘনাদের মৃত্যু বর্ণনা সম্পর্কে:

I got severe attack of fever and was laid up for six or seven days. It was a struggle , whether Meghnad will finish or I finish him . Thanks Heaven , I triumphed . He is dead, that is to say , I have finished the VI book in about 750 lines. It cost me many tear to kill him.
(বঙ্গানুবাদ: আমার বেশ জ্বর থাকার কারণে গত ছয় কি সাত দিন শয্যাগত ছিলাম । আমার জন্য এটা একটা সংগ্রাম ছিল যে মেঘনাদ কি শেষ হবে নাকি আমিই তাঁকে শেষ করব । কিন্তু ভাগ্য কে ধন্যবাদ , আমি জিতেছি । সে (মেঘনাদ) এখন মৃত , এটা বলতেই হয় যে আমি বইটির VI বইটি সমাপ্ত করেছি (বধো অংশ) । তবে তাঁকে হত্যা করতে আমাকে অনেক অশ্রু বিসর্জন দিতে হয়েছে।)[১৭]

  • মাইকেল মধুসূদন দত্তের বন্ধু রাজনারায়ণ বসু তাকে বিজয়সিংহের সিংহল বিজয় নিয়ে মহাকাব্য লেখার অনুরোধ করলে, তিনি লেখেন :

The subject you proposed for a national epic is good indeed. But I don't think I have as yet acquired sufficient mastery over the art and poetry to do it justice. So you must wait a few years more. In the meantime, I am going to celebrate the death of my fovourite Indrajit. Do not be frightened, my dear fellow . I dont trouble my readers with "virras" .

(বঙ্গানুবাদ:একটি জাতীয় মহাকাব্যের জন্য তোমার প্রস্তাবিত বিষয় ভাল সত্যিই হয়। কিন্তু আমি মনে করি না যে আমি এখনো পর্যন্ত ন্যায়বিচার এবং শিল্পের জন্য কবিতার উপর যথেষ্ট দক্ষতা অর্জন করেছি। তাই তোমাকে আরো কয়েক বছর অপেক্ষা করতে হবে। এদিকে, আমি আমার প্রিয় ইন্দ্রজিত এর মৃত্যুকে উদযাপন করতে যাচ্ছি। তবে ভীত হয়ো না বন্ধু । আমি আমার পাঠকদেরকে বীর রস দিয়ে বিরক্ত করব না।)[১৭]

  • তার সহানুভূতি ও পক্ষপাত প্রসঙ্গে :

People here grumble and say that the heart of the poet in Meghnad is with Rakhasas . And that is the real truth . I despise Ram and his rabble; but the idea of Ravan elevates and kindles my imagination; he was a grand fellow.
(বঙ্গানুবাদ: মানুষ অভিযোগ করে এবং বলে কবির হৃদয়কে মেঘনাদ এবং রাক্ষসরা অধিকার করেছে । আর এটিই আসল সত্য । আমি রাম ও অনুচরদের ঘৃণা করি , কিন্তু রাবণ এর ধারণা আমার কল্পনাকে উজ্জীবিত করে । তিনি একজন মহান সহকর্মী ছিলেন।[১৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Slaying of Meghanada"home.uchicago.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৪ 
  2. হিন্দুশাস্ত্রে ‘কল্পনা’ নামে কোনো দেবীর উল্লেখ নেই। এই দেবী কবির স্বকপোলকল্পিত।
  3. মেঘনাদবধ কাব্য, প্রথম সর্গ, পংক্তি ৭০০-৭০১
  4. মেঘনাদবধ কাব্য, প্রথম সর্গ, পংক্তি ৭১১-৭১৩
  5. রামের অপর নাম বৈদেহীনাথ
  6. মেঘনাদবধ কাব্য, দ্বিতীয় সর্গ, পংক্তি ৬৪-৬৬
  7. হিন্দুশাস্ত্রে মায়া কোনো পৃথক দেবী নন। দুর্গাই মহামায়া। কিন্তু কবি এখানে দেবী মায়ার পৃথক সত্ত্বা সৃষ্টি করেছেন।
  8. কার্তিকের অপর নাম ষড়ানন
  9. মেঘনাদবধ কাব্য, দ্বিতীয় সর্গ, পংক্তি ৫১১-১৬
  10. মেঘনাদবধ কাব্য, তৃতীয় সর্গ, পংক্তি ৮০-৮২
  11. মেঘনাদবধ কাব্য, তৃতীয় সর্গ, পংক্তি ১৯৮-২০১
  12. মেঘনাদবধ কাব্য, তৃতীয় সর্গ, পংক্তি ৩৩৪-৩৩৭
  13. "সুমনা চক্রবর্তী রচিত 'বাংলা সাহিত্যে ক্ল্যাসিকেল রস'"। ৭ জুন ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  14. "সাহিত্য-সন্দর্শন", শ্রীশচন্দ্র দাশ, বর্ণ বিচিত্রা, ঢাকা, ৬ষ্ঠ সংস্করণ, ১৯৯৫, পৃষ্ঠা-৭১
  15. গৌতম ঘোষ। রঙ্গলাল ও মাইকেলঃ আধুনিকতার বীজবপন[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]সংবাদ। ৯ জুলাই, ২০০৯। নিশ্চিতকরণ: ১২ অক্টোবর, ২০০৯
  16. ফয়জুল লতিফ চৌধুরী (২০০৯)। ফয়জুল লতিফ চৌধুরী সম্পাদিত, সম্পাদক। ১০০ বছরের গ্রন্থালোচনা। ঢাকা: সময় প্রকাশন। পৃষ্ঠা ১৭১–২০৯। 
  17. মন্তব্যগুলি মাহবুবুল আলম সম্পাদিত মেঘনাদ বধ কাব্য হতে গৃহীত