বারুণী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বারুণী
সুরার দেবী
Varuna with Varunani.jpg
ডানদিকে বরুণ দেবের সহিত বামদিকে তার পত্নী বারুণী
অন্যান্য নামজলদেবী, জলপরী
অন্তর্ভুক্তিদেবী , মাতৃকা
আবাসমহাসাগর, জললোক
মন্ত্রওঁ জলদেব্যায় নমঃ , ওঁ বারুণীয়ে নমঃ
বাহনমকর
সঙ্গীবরুণ দেব

বারুণী (এছাড়াও তিনি বরুণানী অবং জলদেবী নামে পরিচিতা) হলেন এক হিন্দু পৌরাণিক দেবী৷ তিনি বরুণ দেবকে নিজের পতি হিসাবে গ্রহণ করেছিলেন৷ ঋক বেদে বরুণানী সম্পর্কে বিশদের উল্লেখ রয়েছে৷ তিনি হলেন সুরার দেবী৷[১]

জনশ্রুতি[সম্পাদনা]

ঋক বেদে দেবী বারুণীর উল্লেখ পাওয়া যায় বিস্তর৷ হিন্দু পুরাণ অনুসারে দেবী বারুণীর চরিত্রের পেছনে দুটি কাহিনী হয়েছে৷

সমুদ্রমন্থনে সমস্ত প্রকার ভেষজসমূহ এবং চৌদ্দ প্রকার রত্ন উত্থিত হয়, যা দেবতাগণ এবং অসুরগণের মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে যায়৷ যদিও পুরাণে ১৪ টি রত্নোত্থানের কথা উল্লেখ রয়েছে কিন্তু অন্যান্য বিভিন্ন পুস্তকে এই রত্নের সংখ্যা ৯ থেকে ১৪ অবধি উল্লেখ পাওয়া যায়৷ সর্বাধিক উল্লেখপ্রাপ্ত রত্নগুলি শিব, বিষ্ণু, মহর্ষি, দেব এবং অসুরগণের মধ্যে ভাগাভাগি হয়৷ বিষপান করে দেব ও অসুর উভয়কে রক্ষা করার জন্য ভগবান শিব বিশেষ রত্নের অধিকারী হন৷[২] রত্ন ও ভেষজ ছাড়াও তিন প্রকার দেবী এই সমুদ্র মন্থনের ফলে ক্ষীরসাগর থেকে উত্থিত হন৷ তারা হলেন,

  • লক্ষ্মী: তিনি হলেন সৌভাগ্য এবং ঐশ্বর্যের দেবী৷ তিনি বিষ্ণুকে নিজের স্বামী রূপে গ্রহণ করেন৷
  • অপ্সরা: মন্থনের ফলে একাধিক সুদর্শনা নারীর সৃৃষ্টি হয় যথা, রম্ভা, মেনকা, পুঞ্জীস্থলা এবং আরো অনেক অপ্সরা৷ তারা প্রত্যেকেই গন্ধর্বদের নিজেদের সঙ্গী রূপে চয়ন করেন৷
  • বারুণী: একপ্রকার জোর জবরদস্তি করেই অসুররা তাকে নিজেদের ভাগে টেনে নেন অপিরচ্ছন্নতার সহিত তার জন্ম হয় এবং তিনি ছিলেন তর্কবাগিনী৷

আবার অন্যমতে বারুণী বা বরুণানী ছিলেন বরুণদেবের স্ত্রী৷ সমুদ্রমন্থন পর্বে তার উত্থানের ফলে অসুররা একপ্রকার জোড় করেই তাকে নিজ হস্তোগত করলেও অমৃৃতলাভ করে দেবতারা অজেয় হন৷ পরে অসুরকুল বিনাশ হলে বরুণ দেব বরুণানীকে বিবাহ করেন৷

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]