মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড
পাবলিক সেক্টর আন্ডারটেকিং
শিল্পজাহাজ নির্মাণ
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৩৪[১]
সদরদপ্তরমুম্বাই, মহারাষ্ট্র, ভারত
পণ্যসমূহসামরিক জলযান; ডুবোজাহাজ; অফশোর প্ল্যাটফর্ম; ট্যাঙ্কার; বাল্ক বাহক; প্ল্যাটফর্ম সরবরাহকারী জাহাজ; টহল জাহাজ
পরিষেবাসমূহজাহাজের নকশা
জাহাজ নির্মাণ
জাহাজ মেরামতের
বিভাগসমূহজাহাজ নির্মাণ, সাবমেরিন ও ভারী ইঞ্জিনিয়ারিং
ওয়েবসাইটwww.mazdock.com

মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড (এমডিএল) (আইএএসটি: মাজহাননভ ডক লিমিযে়) ভারতের প্রধান জাহাজ নির্মাণ সংস্থাগুলির মধ্যে একটি, যাকে পূর্বে মাজাগাঁও ডক লিমিটেড বলা হত। এটি ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য যুদ্ধ জাহাজ ও ডুবোজাহাজ এবং সমুদ্র থেকে খনিজ তেল উত্তলনের জন্য অফশোর প্ল্যাটফর্ম ও সংশ্লিষ্ট সহায়তাকারী জাহাজগুলির তৈরি করে। এটি ট্যাঙ্কার, পণ্যসম্ভার পরিবহনের জন্য বাল্ক ক্যারিয়ার, যাত্রী জাহাজ এবং ফেরী নির্মাণ করে।[১][২]

১৮ তম শতাব্দীতে এমডিএল' শিপইয়ার্ড প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শিপইয়ার্ডটি পিনিনসুলার অ্যান্ড ওরিয়েন্টাল স্টিম ন্যাভিগেশন কোম্পানি এবং ব্রিটিশ-ইন্ডিয়া স্টীম ন্যাভিগেশন কোম্পানি সহ বেশ কিছু সংস্থার মালিকানাধীন ছিল। অবশেষে, ১৯৩৪ সালে 'মাজাগাঁও ডক লিমিটেড' একটি সরকারি সংস্থা হিসাবে নিবন্ধিত হয়। জাহাজ নির্মান কেন্দ্রটিকে ১৯৬০ সালে জাতীয়করণ করা হয় এবং বর্তমানে এটি ভারত সরকারের একটি সরকারি খাতের উদ্যোগ।[১]

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

A brown building with clock towers, domes and pyramidal tops. A wide street in front of it
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৭তম নৌবহরের ভাইস অ্যাডমিরাল জোসেফ অকোনি'র মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স মিলিটেড ভ্রমন।

কমোডর রাকেশ আনন্দ, আইএন (অবসরপ্রাপ্ত) হলেন মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সিএমডি)। ২০১১ সালের ১ জানুয়ারি অবসরপ্রাপ্ত নৌবাহিনীর কর্মকর্তা তার বর্তমান পদটি গ্রহণ করেন।[৩] শাখার ক্রিয়াকলাপগুলি হল জাহাজ নির্মাণ, সাবমেরিন নির্মাণ, এবং অফশোর কাঠামো তৈরি করা। মুম্বাই ও নবসেবায় নির্মাণ সুবিধা রয়েছে।

সর্বোচ্চ ৩০,০০০ টন ওজনের (ডিডব্লিউটি) যুদ্ধ জাহাজ, ডুবোজাহাজ এবং বাণিজ্য জাহাজ নির্মাণে ক্ষমতা রয়েছে এই জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্রের।[৪] এটি ওয়েলহেড প্ল্যাটফর্ম, প্রক্রিয়া এবং উৎপাদন প্ল্যাটফর্ম এবং তেল অনুসন্ধানের জন্য জ্যাক-আপ রিগগুলি তৈরি করতে পারে।

বাণিজ্যিক প্রকল্প[সম্পাদনা]

অফশোর প্ল্যাটফর্ম[সম্পাদনা]

এমডিএল "অফশোর ওয়েল ড্রিলিং প্ল্যাটফর্ম" তৈরি করে। এটি মুম্বাইয়ের অ্যালকক এবং নহাভা ইয়ার্ডে প্ল্যাটফর্ম নির্মাণের সঙ্গে ওয়েলহেড, ওয়াটার ইনজেকশন এবং বিভাজক এবং গ্লাইকোল প্রক্রিয়াকরণ ক্ষমতাগুলির পাশাপাশি জ্যাকআপ রিগস, এসবিএম এবং অন্যান্য অফশোর স্ট্রাকচারগুলির নির্মাণ করে।[৫]

অ্যালকক-এ অফশোর রিগস মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজ করা হয় এবং এখানে ৮০ মিটার পর্যন্ত দীর্ঘ এবং ২,২০০ টন ওজনের জ্যাকেট তৈরি করা যেতে পারে। নোয়াওয়ায় ৮০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ২,৩০০ টন ওজনের জ্যাকেট, ৫৫০ টন ওজনের প্রধান ডেক ও সর্বোচ্চ ১৬০ টন ওজনের হেলিপ্যাড তৈরি করা যেতে পারে।

ডক ইয়ার্ডটি সমুদ্র উপচে পড়ার তেল পরিষ্কার করতে এবং প্ল্যাটফর্মে অগ্নিকান্ডের সময় আগুন নিভিয়ে ফেলতে সক্ষম বিশেষ জাহাজ তৈরী করে।

একটি ঝালাই প্রশিক্ষন বিদ্যালয় ঝালাইয়ের বিকাশ ও গ্রহণযোগ্য মান এবং ঝালাই কৌশল ক্রমাগত উন্নত করে ঝালাইয়ের কৌশল ও পদ্ধতির মান বজায় রাখে।

নৌ প্রকল্প[সম্পাদনা]

যুদ্ধজাহাজ[সম্পাদনা]

নিলগিরি শ্রেণীর দ্রুতগামী পথপ্রদর্শক রণতরী (ফ্রীগেট)[সম্পাদনা]

এমডিএল দ্বারা নির্মিত প্রথম যুদ্ধজাহাজ আইএনএস নিলগিরির স্থানচ্যুতি ছিল ২,৯০০ টন, যা নিলগিরি শ্রেণীর প্রধান জাহাজ। জাহাজটি ১৯৬৬ সালের ১৫ অক্টোবর চালু করা হয় এবং ১৯৭২ সালের ২৩ জুন কমিশন করা হয়। ভারতীয় নৌবাহিনী জন্য পরবর্তী নয় বছরে এই শ্রেণির আরও পাঁচটি ফ্রীগেট নির্মিত হয়েছিল।[৬]

গোদাবরী শ্রেণীর দ্রুতগামী পথপ্রদর্শক রণতরী (ফ্রীগেট)[সম্পাদনা]

নিলগিরি-শ্রেণী নির্মাণের কাজ শেষ হলে, ভারতীয় নৌবাহিনী স্বতন্ত্র ভাবে পরিকল্পিত ও নির্মিত ফ্রীগেটের প্রয়োজনীয়তার জন্য প্রস্তাব করেছিল। এই প্রয়োজনীয়তাগুলি মোকাবেলা করার জন্য, এমডিএল ৩,৮০০ টন স্থানচ্যুতি এবং দুটি হেলিকপ্টার ধারণ ক্ষমতার গোদাবরী শ্রেণির নির্দেশিত-ক্ষেপণাস্ত্রের ফ্রীগেটগুলির নকশা তৈরি ও নির্মাণ করেছিল। এই নতুন ফ্রীগেট সম্পূর্ণ ভারতীয় নকশায় উৎপাদিত হয়ে ছিল। মডিএলএ এই শ্রেণীর তিনটি জাহাজ নির্মাণ করেছিল- প্রধান জাহাজ হল আইএনএস গোদাবরী এবং অন্য দুটি হল আইএনএস গঙ্গা এবং আইএনএস গোমতি।[৭]

খুকরী শ্রেণীর করভেট[সম্পাদনা]

এমডিএল ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য খুকরী শ্রেণীর কভারেটগুলির প্রথম দুটি জাহাজ ডিজাইন এবং নির্মিণ করেছিল। এই শ্রেণীর নেতৃত্বাধীন জাহাজটি ২৩ আগস্ট ১৯৮৯ সালে এবং দ্বিতীয় জাহাজ আইএনএস কুঠারকে ১ লা জুন ১৯৯০ সালে কমিশন করা হয়। এমডিএল থেকে বিকেন্দ্রীকরণের জন্য প্রযুক্তি হস্তান্তরের পর এই শ্রণীর অবশিষ্টাংশ জাহাজগুলি গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেডয়ে (জিআরএসই) নির্মিত হয়েছিল।[৮]

দিল্লি শ্রেণীর ডেস্ট্রয়ার[সম্পাদনা]

এমডিএল দ্বারা ডিজাইন এবং নির্মিত জাহাজগুলির পরবর্তী শ্রেণী হিসাবে ছিল প্রকল্প-১৫-এর অন্তর্গত দিল্লী শ্রেণীর নির্দেশিত ক্ষেপণাস্ত্র-ধ্বংসকারী। এই শ্রেণীর জাহাজগুলি গ্যাস টারবাইন দ্বারা চালিত এবং ৬,২০০ টন স্থানান্তরিত যুক্ত। এই শ্রেণির প্রথম জাহাজ আইএনএস দিল্লিআইএনএস দিল্লি ফেব্রুয়ারী ১৯৯১ সালে চালু করা হয় এবং ১৫ নভেম্বর ১৯৯৭ সালে কমিশন করা হয়। দ্বিতীয় জাহাজ আইএনএস মাইসোরকে ২০০১ সালের ২২ জানুয়ারী কমিশন এবং ২০০১ সালের ২২ জানুয়ারি আইএনএস মুম্বাই এই শ্রেণীর শেষ জাহাজ হিসাবে চালু হয়।[৯]

শিবালিক শ্রেণীর ফ্রিগেট[সম্পাদনা]

৬,০০০ টন ওজনের শিবালিক শ্রেণির ফ্রিগেটগুলি(প্রকল্প -১৭) হ'ল ভারতের নকশাকৃত এবং নির্মিত চৌর্যের বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে প্রথম যুদ্ধাজাহাজ। এই বহুমুখী বৈশিষ্টগুলি নির্দেশিত-ক্ষেপণাস্ত্র ফ্রিগেট জাহাজের রাডারে ধরা পড়ার সম্ভাবনা হ্রাস করেছে এবং ২০১০ সাল থেকে নৌবাহিনীর সেবা প্রবেশ করেছে। এমডিএল এই শ্রেণীতে কমপক্ষে তিনটি জাহাজ নির্মাণ করা হয়েছে। ২৯ এপ্রিল ২০১০ সালে এই শ্রেণীর নেতৃত্বাধীন জাহাজটির কমিশন শুরু হয়। ২৭ মে ২০০৫ সালে আইএনএস সহযাত্রী এই শ্রেণীর শেষ জাহাজ হিসাবে চালু করা হয় এবং ২১ জুলাই ২০১২ সালে ওই জাহাজের কমিশন করা হয়।

কলকাতা শ্রেণীর ডেস্ট্রয়ার[সম্পাদনা]

৬,৮০০ টন ওজনের পরবর্তী প্রজন্মের নির্দেশিত ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংসকারী কলকাতা শ্রেণীর ডেস্ট্রয়ার এমডিএল দ্বারা নির্মিত। জাহাজটিতে নিঃশব্দচারণ (থ্রেসল) বৈশিষ্ট্য অন্তর্ভুক্ত। ৩০ মার্চ ২০০৬ সালে এই শ্রেণীর প্রধান জাহাজটি চালু করা হয়। এই শ্রেণীর জন্য অন্তত তিনটি জাহাজ পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

কোস্ট গার্ড জাহাজ[সম্পাদনা]

ভারতীয় উপকূল রক্ষীবাহিনীর জন্য এই জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্রটি উপকূলীয় পরিদর্শক জাহাজ (ওপিভি) তৈরি করে। এই জাহাজগুলি ভারতের বিশেষ একচেটিয়া অঞ্চলে পরিদর্শন, পুলিশিং, অনুসন্ধান এবং উদ্ধার অভিযানের জন্য নির্মিত বিশেষ জাহাজ। প্রতিটি জলযান বা জাহাজ একটি হেলিকপ্টার বহন করে। কোস্ট গার্ড বা উপকূল রক্ষীবাহিনীর জন্য সাতটি জাহাজ ননির্মান করেছে "এমডিএল"।

ভাসমান পুলিশ স্টেশন[সম্পাদনা]

বিএসএফের আদেশের ভিত্তিতে জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্রটি ভাসমান সীমান্ত আউট পোস্ট (বিওপি) নির্মাণ শুরু করে। মূলত এই "বিওপি" হল চারটি উচ্চ-গতির নৌকা সহ একটি ভাসমান পুলিশ স্টেশন নিয়ে গঠিত। ১৪ টি বিওপি-এর জন্য আবেদন করা হলে বর্তমানে ৯ টি বিওপি জাহাজ নির্মাণ থেকে বিতরণ করা হয়েছে।

অন্যান্য জাহাজ[সম্পাদনা]

অন্যান্য জাহাজগুলির মধ্যে, তিনটি দ্রুতগতীর ক্ষেপণাস্ত্রযুক্ত নৌকা, একটি যুদ্ধবিদ্যাশিক্ষার্ত্রীদের জন্য প্রশিক্ষণ জাহাজ, এবং ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য অন্যান্য সহায়ক জাহাজ তৈরি করেছে জাহাজ নির্মান কেন্দ্রটি।

ডুবোজাহাজ[সম্পাদনা]

শিশুমার শ্রেণীর ডুবোজাহাজ[সম্পাদনা]

শিশুমার শ্রেণীর ডুবোজাহাজগুলি হাউল্ডসওয়ার্কে-ডয়েচে ওয়ারফ্ট দ্বারা ডিজাইন করা টাইপ ২০৯ ডিজেল-বৈদ্যুতিক ডুবোজাহাজ একটি ভিন্ন রূপ। এই শ্রেণীর দুটি জাহাজ এমডিএল দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এগুলি ভারতের নির্মিত প্রথম দুটি স্বতন্ত্র ডুবোজাহাজ ছিল। আইএনএস শালকিকে ৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২ সালে কমিশন করা হয় এবং আইএনএস শঙ্কুলকে ২৮ মে ১৯৯৪ সালে কমিশন করা হয়।

স্করপেন শ্রেণীর ডুবোজাহাজ[সম্পাদনা]

A brown building with clock towers, domes and pyramidal tops. A wide street in front of it
মাজাগাঁও ডকে আইএনএস কালভারিকে জলে নামানো হচ্ছে।

ডিসিএনএস-এর সাথে একটি প্রযুক্তি-স্থানান্তর চুক্তির আওতায় এমডিএল স্করপেন শ্রেণীর ছয়টি ডিজেল-বৈদ্যুতিক ডুবোজাহাজ নির্মাণ করছে। এই শ্রেণীর প্রথম ডুবোজাহাজ আইএনএস কালভারি (এস২১)কে মুম্বাইয়ের নৌ ডকইয়ার্ড থেকে ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কমিশন করেছিলেন।[১০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Introduction Archived ১৯ এপ্রিল ২০১৬, at the Wayback Machine. Mazagon Docks Ltd
  2. Author। "gMazagon"www.mazdock.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-৩১ 
  3. Author। "gMazagon"www.mazdock.com। ২০১৬-১০-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১১-২৭ 
  4. "Mazagon Dock Shipbuilders Limited – Ship Builder to the Nation."। ১৯ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. [১] Archived ৪ নভেম্বর ২০০৮, at the Wayback Machine.
  6. "F 33 Nilgiri Class"। Global Security.org। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৬ 
  7. "F 20 Godavari Class Frigate"। Global Security.org। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৬ 
  8. "P 49 Khukri Class"। Global Security.org। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৬ 
  9. "D Delhi Class Destroyer"। Global Security.org। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৬ 
  10. "PM Narendra Modi dedicates scorpene-class submarine INS Kalvari to the nation"The Economic Times। ২০১৭-১২-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১২-১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]