হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড কলকাতা ভিত্তিক একটি জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্র বা সংস্থা। এটি হুগলি নদীর পশ্চিম তীরে অবস্থিত। ১৮১৯ সালে গড়ে ওঠা এইচ.ডি.পি.ই.এল. ১৯৭৩ সালের পোর্ট ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস – এর সঙ্গে মিশে যায় আর এটি অ্যান্ড্রু ইয়ুল সংস্থার নিয়ন্ত্রণে আসে। ১৯৮৪ সালে এই সংস্থার জাতীয়করণ হয় এবং এর নাম হয় হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড। এই সংস্থার দুটি ইউনিট-ই হুগলি নদীর তীরে সালকিয়া ও নাজিরগঞ্জে অবস্থিত।

সালকিয়া ইউনিট[সম্পাদনা]

সালকিয়া ইউনিট-টি ১০.৭৫ একর জমি নিয়ে গঠিত।এই ইউনিট-এ ১ টি ডাই ডক ও ২ টি জাহাজ নির্মমানের বার্থ বা জেটি রয়েছে। এখানে ড্রেজার, সার্ফেস ড্রেজার, মাছ ধরার ট্রলার, ভাসমান ডক প্রভৃতি নির্মাণ করা হয়।এখাধে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার ডিডব্লুটি (DWT) ক্ষমতার জাহাজ নির্মাণ করা হয়। এই ইউনিট-টি হুগলি নদীর পশ্চিম তীরে হাওড়ায় অবস্থিত।[১]

সালকিয়া ইউনিট এর পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

  • ডাই ডক- ৯৪ মিটার X ১৩.৪ মিটার X 8.6 মিটার(গভীর)।
  • একটি জেটি- ৪৫ মিটার (১৪৮ ফু)
  • দুটি জাহাজ নামানোর পথ (স্লিপ ওয়ে)- ৮৫ মিটার X ২৯ মিটার এবং ৭০ মিটার X ২২ মিটার।
  • টাওয়ার ক্রেন(১ নং) - ১০ টন।
  • গলিথ ক্রেন (১ নং)- ১০ টন।
  • জেটি ক্রেন (১ নং)- ১৫ টন।

নাজিরগঞ্জ ইউনিট[সম্পাদনা]

নাজিরগঞ্জ ইউনিট-টি মোট ১৯.৬০ একর জমি নিয়ে গঠিত। এখানে দুটি জাহাজ তৈরির বার্থ বা জেটি রয়েছে। এখানে একটি ডাই ডক রয়েছে। এখানে বার্জ ও ড্রেজার তৈরি করা হয়। সর্বোচ্চ ১৫ হাজার DWT ক্ষমতার জাহাজ তৈরি হয়।[২]

নাজিরগঞ্জ ইউনিট-এর পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

এখানে দুটি জাহাজ নামানোর পথ (স্লিপ ওয়ে) রয়েছে ।এই স্লিপ ওয়ে ৯০ X ৩০ মিটার দৈর্ঘ্যের।টাওয়ার ক্রেন রয়েছে ৩ টি ১০ টনের। ২ টি ২০ টনের ই ক্রেন রয়েছে।

বেসরকারি করণ[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে অত্যাধুনিক বার্জ তৈরি করার পরিকল্পনা করেছে।সংস্থার নিয়ন্ত্রণ থাকবে বেসরকারি সংস্থার হাতেই। কারণ সরকারের অংশীদারি ৪৯ শতাংশের কম থাকবে। হাওড়ার সালকিয়া ও নাজিরগঞ্জে ওই সংস্থার দু’টি উৎপাদন কেন্দ্র রয়েছে। সেখানেই অত্যাধুনিক নকশার বার্জ তৈরি হবে। এখন বার্জে ১৫০০ টন পণ্য পরিবহন করা যায়। অত্যাধুনিক বার্জে ৫ হাজার টন পর্যন্ত পণ্য পরিবহন করা যাবে। এলএনজি-র মতো প্রাকৃতিক গ্যাসও জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Salkia Works- Hooghly Dock & Port Engineers Ltd"। ২ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪-০১-২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. "Nazirgunge Works"। ২ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪-০১-২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  3. "হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেডের সঙ্গে গাঁট ছরা বাধছে কোচি শিপ ইয়াড"। সংগ্রহের তারিখ ১৪-০১-২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]