গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড
ধরনরাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন উদ্যোগ
বিএসই৫৪২০১১
এনএসইজিআরএসই
শিল্পজাহাজ নির্মান শিল্প
প্রতিষ্ঠাকাল১৮৮৪
সদরদপ্তর,
বাণিজ্য অঞ্চল
বিশ্বব্যাপী
প্রধান ব্যক্তি
বিপিন কুমার সাক্সেনা
(চেয়ারম্যান ও এমডি)
পণ্যসমূহযুদ্ধ জাহাজ
ট্যাঙ্কার
বাল্ক ক্যারিয়ার
প্লাটফর্ম সাপ্লাই ভেসেল
পরিষেবাসমূহজাহাজের নকশা তৈরি
জাহাজ নির্মাণ
জাহাজ সারাই
আয়বৃদ্ধি১,৬৫৮.৭৯ কোটি (US$২২৩.৯৪ মিলিয়ন) (২০২০)[১]
বৃদ্ধি২২৫.২০ কোটি (US$৩০.৪ মিলিয়ন) (২০২০)[১]
বৃদ্ধি১৬৩.৪৮ কোটি (US$২২.০৭ মিলিয়ন) (২০২০)[১]
মোট সম্পদবৃদ্ধি৫,৩৮৪.১৪ কোটি (US$৭২৬.৮৯ মিলিয়ন) (২০২০)[১]
মোট ইকুইটিবৃদ্ধি১,০৪০.২৩ কোটি (US$১৪০.৪৪ মিলিয়ন) (২০২০)[১]
কর্মীসংখ্যা
২১০০ (মার্চ ২০১৯)[২]
ওয়েবসাইটwww.grse.nic.in

গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় অবস্থিত ভারতের শীর্ষস্থানীয় একটি জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্র[৩] এটি বাণিজ্যিকযুদ্ধ জাহাজসমূহ নির্মাণ ও মেরামত করে।[৪] বর্তমানে জিআরএসই তার ব্যবসা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে রফতানির উদ্দেশ্যে জাহাজ নির্মাণও শুরু করেছে।

হুগলী নদীর পূর্ব তীরে একটি ছোট বেসরকারী মালিকানাধীন সংস্থা হিসাবে ১৮৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৯১৬ সালে গার্ডেনরিচ ওয়ার্কশপ হিসাবে নামকরণ করা হয়। ভারত সরকার কর্তৃক ১৯৬০ সালে সংস্থার জাতীয়করণ বা রাষ্ট্রায়ত্তকরণ করা হয়।[৫] এটি ২০০৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আর্থিক ও পরিচালনার স্বায়ত্তশাসনের সাথে মিনিরত্ন মর্যাদায় ভূষিত হয়।[৬] এই ১০০ টি যুদ্ধ জাহাজ নির্মাণকারী প্রথম ভারতীয় জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্র।[৭] এই জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্র থেকেই ভারত সর্বপ্রথম যুদ্ধ জাহাজ বিদেশে রপ্তানি করে।

সুবিধা[সম্পাদনা]

কলকাতারাঁচিতে গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডিং অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার লিমিটেডর জাহাজ নির্মাণের সুযোগ সুবিধা রয়েছে। এটির জাহাজ অনুকরণ ও নকশা জন্য একটি বড় কম্পিউটারের সাহায্যে তৈরি নকশা (সিএডি) কেন্দ্র আছে। প্লেট বা ধাতব পাতের প্রস্তুতি ও ইস্পাত ফেব্রিকেশনের জন্য চারটি কর্মশালা রয়েছে।

জিআরএসই-এর সর্বোচ্চ ২৬,০০০ টন ডেডওয়েট (ডিডব্লিউটি) সম্পন্ন জাহাজের জন্য একটি ড্রাই ডক রয়েছে। এই নির্মান কেন্দ্রে একটি নির্মাণ বার্থ ও জাহাজের কাঠামো নির্মাণ জন্য দুটি স্লীপওয়ে রয়েছে। এটি মাঝারি ও ছোট জাহাজের ফিটিং-আউটের জন্য একটি আচ্ছাদিত সমস্ত আবহাওয়ার উপযোগী জোয়ার-ভাটাবিহীন ওয়েট বেসিন এবং জাহাজের জন্য আরও একটি ফিটিং-আউট কমপ্লেক্স রয়েছে, যেখানে পাশাপাশি তিনটি বার্থ রয়েছে। উপরন্তু, ৬০ মিটার (২০০ ফুট) দৈর্ঘ্যের ছোট জাহাজের বার্থিং বা নোঙরের জন্য দুটি নদী জেটি রয়েছে। রাঁচিতে জিআরএসই-এর ইঞ্জিন মেরামত ও ওভারহলের সুবিধা রয়েছে।

জিআরএসই কর্তৃক ২০০৬ সালের ১লা জুলাই সেন্ট্রাল ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের (সিআইডব্লিউটিসি) অলাভজনক রাজাবাগান ডকইয়ার্ড (আরবিডি) অধিগ্রহণ করা হয়। এর ৬০০ মিটার (২,০০০ ফুট) নদী তীরের সাথে আরবিডি-র সুবিধাসমূহ জিআরএসই-এর স্থান সীমাবদ্ধতার সমস্যা কিছুটা সমাধান করতে সহায়তা করে এবং সংস্থার উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।[৮]

জাহাজ নির্মান[সম্পাদনা]

বাণিজ্যিক জাহাজ[সম্পাদনা]

গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স বাণিজ্যিক ও বৈজ্ঞানিক গবেষণার জাহাজসমূহের মধ্যে সমুদ্রবিদ্যা ও হাইড্রোগ্রাফিক গবেষণা জাহাজ, সামুদ্রিক ধ্বনিতাত্বিক গবেষণা জাহাজ, প্রোপেলারবিহীন ড্রেজার (নন প্রোপেলার ড্রেজার), গ্রাব হপার ড্রেজার, সাকশন হপার ডোজার, টাগবোট এবং পণ্যবাহক জাহাজ নির্মাণ করে।

নৌ জাহাজ[সম্পাদনা]

জলে ভাসানোর অনুষ্ঠানের সময় আইএনএস হিমগিরি
জি.আর.সি.ই জাহাজ নির্মান কেন্দ্র নব নির্মিত একটি যুদ্ধ জাহাজকে জলে নামানো হচ্ছে।

ভারতীয় নৌবাহিনীভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীর জন্য জিআরএসই বহু সংখ্যক যুদ্ধজাহাজ ও পরিদর্শক জাহাজ নির্মান করেছে। জিএসএসই দ্বারা নির্মিত জাহাজসমূহ হল গাইডেড-মিসাইল ফ্রিগেট, করভেট, ফ্ল্যাট ট্যাঙ্কার, দ্রুত আক্রমণকারী জাহাজ, উভচর যুদ্ধ জাহাজ এবং হোভারক্রাফ্ট[৪]

জিআরএসই আদিত্য-শ্রেণির সহায়ক জাহাজ, ব্রহ্মপুত্র-শ্রেণির ফ্রিগেটস, দুটি খুকরিকোরা-শ্রেণির কর্ভেট তৈরি করেছে। এটি সিওয়ার্ড, ত্রিঙ্কট, বঙ্গরামকার নিকোবার শ্রেণির সকল টহল জাহাজ নির্মাণ করেছে।[৯][১০]

এটি উভচর যুদ্ধ জাহাজের মধ্যে মাগারশারদুল শ্রেণি জাহাজ তৈরি করেছে।[১১] এটি ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে আটটি ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি জাহাজ নির্মাণের জন্য ২,১৭৬ কোটি টাকার চুক্তিপত্র লাভ করে।[১২]

সংস্থাটি চারটি কামোর্তা-শ্রেণির করভেট তৈরির জন্য একটি চুক্তিপত্র লাভ করে।[৩] ভারত সরকার ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি ৭টি প্রকল্প ১৭এ-শ্রেণির ফ্রিগেট নির্মাণের অনুমোদন প্রদান করে, যার মধ্যে তিনটি গার্ডেনরিচ শিপবিল্ডার্স নির্মাণ করে।[১৩]

রপ্তানী[সম্পাদনা]

জিআরএসই ২০১৪ সালের ২০শে ডিসেম্বর করভেট এমসিজিএস ব্যারাকুদা মরিশাসে পৌঁছে দিয়েছিল। চুক্তিটির মূল্য ছিল $৫৮.৫ মিলিয়ন।[১৪] এর সাথে ভারত যুদ্ধজাহাজ রফতানিকারীদের অভিজাত শ্রেণিতে স্থান লাভ করে। মরিশাস অফশোর টহল জাহাজে একটি সমন্বিত সেতু ব্যবস্থা (ইন্টিগ্রেটেড ব্রিজ সিস্টেম), কাটিয়া প্রান্ত নিয়ন্ত্রণ, প্রধান ইঞ্জিন এবং ৮৩ জন সদস্য সমর্থন করতে পারে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Balance Sheet 31.03.2020".
  2. http://www.grse.in/pdf/investors/Annual%20Report%202018-19_GRSE.pdf
  3. Kumar, Vinay (২৭ মার্চ ২০১৩)। "Third anti-submarine warfare corvette launched in Kolkata"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  4. "Garden Reach Shipbuilders & Engineers (GRSE)"। GlobalSecurity.org। ৯ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১৭ 
  5. "Historical Background"। Garden Reach Shipbuilders & Engineers Limited। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  6. "Shipping Corporation of India"। india.gov.in। ২২ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  7. "GRSE to be first shipyard in India to make 100 warships"www.defencenews.in। ১৮ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১৭ 
  8. "GRSE takes over Rajabagan Dockyard of CIWTC"Business Standard। ১১ জুলাই ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১৭ 
  9. "Trinkat Class"। GlobalSecurity.org। ৯ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  10. "Bangaram Class"। Bharat Rakshak। ১২ অক্টোবর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  11. Habbu, R.S. (৫ জানুয়ারি ২০০৭)। "INS Shardul dedicated"The Hindu। ৭ জানুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  12. Pandit, Ranjat (১০ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Amphibious vessels to strengthen Navy"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  13. Pandit, Ranjat (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Govt approves construction of 7 stealth frigates, 6 nuclear-powered submarines"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  14. "India to deliver corvette class warship to Mauritius on December 20"The Economic Times। ১৮ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]