গোয়া শিপইয়ার্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গোয়া শিপইয়ার্ড লিমিটেড
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন পাবলিক সেক্টর
শিল্পজাহাজ নির্মাণ
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৫৭
সদরদপ্তরগোয়া
প্রধান ব্যক্তি
রিয়ার অ্যাডমিরাল (অবসরপ্রাপ্ত) শেখর মিতাল, এনএম, চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক
পণ্যসমূহজাহাজ
আয়6.81 বিলিয়ন (US$৯৪.৭৬ মিলিয়ন) (২০১৫)[১]
ওয়েবসাইটগোয়া শিপইয়ার্ড

গোয়া শিপইয়ার্ড লিমিটেড (জিএসএল) (আইএএসএস: গোভা শিপয়ারা লিমিটেড) ভারতের শ্রেষ্ঠ জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্রগুলির মধ্যে একটি এবং এটি ভারত সরকার কর্তৃক মনোনীত "মিনি রত্ন"। এটি ভারতের পশ্চিম উপকূলে গোয়ার ভাস্কো দে গামা এলাকায় ১৫°২৪′৭.৫৪″ উত্তর ৭৩°৪৯′২৯.৪০″ পূর্ব / ১৫.৪০২০৯৪৪° উত্তর ৭৩.৮২৪৮৩৩৩° পূর্ব / 15.4020944; 73.8248333স্থানাঙ্ক: ১৫°২৪′৭.৫৪″ উত্তর ৭৩°৪৯′২৯.৪০″ পূর্ব / ১৫.৪০২০৯৪৪° উত্তর ৭৩.৮২৪৮৩৩৩° পূর্ব / 15.4020944; 73.8248333স্থানাঙ্ক: ১৫°২৪′৭.৫৪″ উত্তর ৭৩°৪৯′২৯.৪০″ পূর্ব / ১৫.৪০২০৯৪৪° উত্তর ৭৩.৮২৪৮৩৩৩° পূর্ব / 15.4020944; 73.8248333 য়ে অবস্থিত। এটি ১৯৫৭ সালে "এস্তেলিওস নাভাইস দে গোয়া" নামে প্রতিষ্ঠিত হয়, গোয়ার ক্রমবর্ধমান খনির শিল্পে ব্যবহৃত জাহাজের নির্মাণের জন্য, মূলত ভারতের পর্তুগিজদের ঔপনিবেশিক সরকার দ্বারা, যা ভারতবর্ষের গোয়া অবরোদের  পর বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৬১ সালের ভারত গোয়েন্দা পরোয়ানা ফলে পর্তুগালের পরাজয় ঘটে এবং তারা ভারতব্যাপী বিনা শর্তে আত্মসমর্পণের পরে, এরপর ভারতীয় নৌবাহিনী এবং ভারতীয় কোস্টগারদের জন্য গোয়া শিপইয়ার্ডকে যুদ্ধজাহাজ তৈরির জন্য অনুরোধ করা হয়।

জিএসএল জাহাজ নির্মাণের সর্বশেষ প্রযুক্তির সাথে সামঞ্জস্য করার জন্য শিপইয়ার্ডটিকে আধুনিকীকরণের আওতায় রাখা হয়েছে। এই উদ্দেশ্যে একটি শিপইয়ার্ডটির বিন্যাস-সহযোগিতা করার জন্য সুপরিচিত শিপবিল্ডার্স সঙ্গে কথাবার্তা চলছে। আজ পর্যন্ত এটি ভারতীয় নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের জন্য জাহাজ,  টগ, অবতরণ জাহাজ, অফশোর পেট্রোল ভেসেল এবং অন্যান্য জাহাজসহ ১৬৭ টি জাহাজ নির্মাণ করেছে এবং ইয়েমেনের মতো দেশগুলিতে জাহাজ রপ্তানি করেছে।.[২]

শুষ্ক ডক (ড্রাই ডক) এলাকায় জাহাজের মেরামত কাজের জন্য একটি নতুন স্লিপওয়ে চালু করা হয়েছে। শিপইয়ার্ডে ক্ষতিপূরণের জন্য একটি ক্ষতি নিয়ন্ত্রণ সিমুলেটর এবং দুটি ডবল বুম লেভেল  লুফফিং ক্রেন নির্মাণ করা হয়েছে।

নির্মিত সামরিক জাহাজ[সম্পাদনা]

গোয়া শিপইয়ার্ড ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য বহু যুদ্ধ জাহাজ ও পরিদর্শন জাহাজ নির্মান করেছে। জিএসএল বা গোয়া শিপইয়ার্ড সামরিক ব্যবহারের জন্য যে জাহাজ নির্মাণ করেছে তার নিন্মরূপ:[৩]

ল্যান্ডিং নৈপুণ্য মার্ক II[সম্পাদনা]

  •   এল৩৪- ২৮ জানুয়ারি ১৯৮০ সালে কমিশন করা হয়
  • এল৩৩ – ১ ডিসেম্বর ১৯৮০
  • এল৩৫ – ১১ ডিসেম্বর ১৯৮৩
  • এল৩৬ – ১৮ জুলাই ১৯৮৬
  • এল৩৭ – ১৮ অক্টোবর ১৯৮৬
  • এল৩৮ – ১০ ডিসেম্বর ১৯৮৬
  • এল৩৯ – ২৫ মার্চ ১৯৮৭[৪]

সারয়ু শ্রেনি অফশোর পেট্রোল জাহাজ[সম্পাদনা]

  • আইএনএস Saryu (পি৫৪)
  • আইএনএস সূনায়না (পি৫৮)
  • এসএলএনএস সায়ুরালা (পি৬২৩)

বিক্রাম শ্রেনি অফশোর পেট্রোল জাহাজ[সম্পাদনা]

  •  সিজিএস ভারাদ (৪০) – ১৯ জুলাই ১৯৯০
  •  সিজিএস বরাহ (৪১) – ১৯ জুলাই ১৯৯০[৫]

সমর শ্রেনি অফশোর পেট্রোল জাহাজ[সম্পাদনা]

  • সিজিএস সমর (৪২) – ১৪ ফ্রেবুয়ারি ১৯৯৬
  • সিজিএস সংগ্রাম  (৪৩) – ২৯ মার্চ ১৯৯৭
  • সিজিএস সারাং  (৪৪) – ২১ জুন ১৯৯৯
  • সিজিএস সাগার (৪৫) – ৩ নভেম্বর ২০০৩[৬]

টরেন্টুল I ক্লাস মিসাইল করভেট[সম্পাদনা]

  • আইএনএস বিনাশ (কে৪৭) – ২০ নভেম্বর ১৯৯৩
  • আইএনএস বিদ্যুৎ (কে৪৮) – ১৬ জানুয়ারী ১৯৯৫
  • আইএনএস পাহাড় (কে৪৯) – ১ মার্চ ১৯৯৭। সমুদ্রে হারিয়ে গেছে ২২ এপ্রিল ২০০৬ সালে[৭]
  • আইএনএস প্রলয় (কে৯১) – মিসাইল করভেট ১৮ ডিসেম্বর ২০০২

অতিরিক্ত গতির পেট্রল জাহাজ[সম্পাদনা]

  • সিজিএস সরোজিনী নাইডু (২২৯) – ১১ নভেম্বের ২০০২
  • সিজিএস দুর্গাবারাই দেশমুখ (২৩০) – ২৯ এপ্রিল ২০০৩
  • সিজিএস কস্তুরবা গান্ধী (২৩১) – ২৮ অক্টোবর ২০০৫
  • সিজিএস অরুণা আসাফ আলী (২৩২) – ২৮ জানুয়ারি ২০০৬
  • সিজিএস সুভদ্র কুমারী চৌহান (২৩৩) – ২৮ এপ্রিল ২০০৬[৮]

১৯৯৭ সালে, জিএসএল ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য প্রশিক্ষণ জাহাজ হিসাবে ব্যবহারের জন্য তিনটি মাস্টার বার্ক জাহাজ আইএনএস তারঙ্গিনী নির্মান করে।

অফশোর পেট্রোল জাহাজ[সম্পাদনা]

  • আইসিজিএস সামারাথ –১০ নভেম্বর ২০১৫

ভবিষ্যত জাহাজ[সম্পাদনা]

ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য নিম্নলিখিত শ্রেণী জাহাজ নির্মাণের জন্য জিএসএল মনোনীত হয়েছে:

ভবিষ্যত ভারতীয় মিনেহান্টার শ্রেনি[সম্পাদনা]

জিএসএল যৌথভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার কাংনাম কর্পোরেশনের সহযোগিতায় বারোটি "মিনে কাউন্টার-মেজার ভেসেল" নির্মাণ করবে।

তলোয়ার শ্রেনি ফ্রিগেট[সম্পাদনা]

জিএসএল রাশিয়ার ইউনাইটেড শিপ বিল্ডিং এর সাথে যৌথভাবে দুটি তালওয়ার শ্রেণির ফ্রিগেট তৈরি করবে।[৯]

অন্যান্য পণ্যসমূহ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.goashipyard.co.in/pdf/annual-reports-2014-15.pdf
  2. "Goa Shipyard Ltd."। Global Security.Org। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  3. "Ships built by Goa Shipyard Limited"। Goa Shipyard। ২৯ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  4. "Mk.2 & Mk.3 Landing Craft"। Bharat Rakshak। ১২ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  5. "Vikram Class"। Bharat Rakshak। ৮ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  6. "Samar Class"। Bharat Rakshak। ৮ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  7. "Veer (Tarantul 1) Class"। Bharat Rakshak। ১৮ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  8. "Extra Fast Patrol Vessel"। Bharat Rakshak। ৮ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  9. "Defence ministry clears Goa Shipyard Limted to build frigates - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]