মরাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মরাল
Cygnus olor 2 (Marek Szczepanek).jpg
নিঃশব্দ মরাল
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: কর্ডাটা
শ্রেণী: Aves
বর্গ: Anseriformes
পরিবার: Anatidae
উপপরিবার: Anserinae
গোত্র: Cygnus

মরালরা অ্যানাটিডি পরিবারের, সিগনাস বর্গের একধরণের পাখি। এরা রাজহাঁস এবং পাতিহাঁসের নিকট আত্মীয়। মরালদের তাদের নিকট আত্মীয় রাজহাঁসের সাথে অ্যানসেরিনাই উপপরিবারে দলভুক্ত করা হয়েছে যেখানে তারা সিগনিনি প্রজাতি গঠন করেছে। তাদেরকে কখনো কখনো স্বতন্ত্র উপপরিবার সিগনিনাই বলে অভিহিত করা হয়। সিগনাস বর্গে ছয় বা সাত প্রজাতির মরাল রয়েছে; এছাড়াও কসকবরা মরাল নামে অন্য একটা প্রজাতিও আছে, যদিও এই প্রজাতিকে এখন আর প্রকৃত মরাল বলে গণ্য করা হয় না। সাধারণত, মরাল-যুগল সারাজীবনের জন্য জোট বাঁধে, তবে বাসা বাঁধতে ব্যর্থতার কারণে বা অপর সাথীর মৃত্যুতে এদের বিচ্ছেদও ঘটতে পারে। এতে মরালরা আবার অন্য মরালের সঙ্গ গ্রহণ করে। এরা একনাগারে তিন থেকে আটটি ডিম পাড়ে।

ব্যুৎপত্তি এবং পরিভাষা[সম্পাদনা]

মরালের ইংরেজি প্রতিশব্দ 'swan', জার্মান Schwan, ওলন্দাজ zwaan এবং সুয়েডীয় svan শব্দের সদৃশ, যা ইন্দো-ইউরোপীয় শব্দমূল *swen (শব্দ করা, গান করা) থেকে উদ্ভূত।[১] মরালের ছানাকে মরাল-শাবক (swanlings) বা সিগনেট (cygnets) বলা হয়; এটা লাতিন শব্দটেমপ্লেট:Wiktla, যা cycnus বা "swan" এর ভিন্ন রূপ, এটা হতে প্রাচীন ফরাসি সিগ্নে (cigne) বা সিস্নে (cisne) (ক্ষুদ্র প্রত্যয়-et "সামান্য") এসেছে, এটা নিজেই গ্রিক κύκνος kýknos, একই অর্থের একটি শব্দ থেকে গঠিত।[২][৩][৪] পূর্ণ বয়স্ক পুরুষ মরালকে রাজহংস (cob), যা মধ্য ইংরেজি cobbe (দল নেতা) থেকে এসেছে; পূর্ণ বয়স্ক নারী মরালকে রাজহংসী (pen) বলে।[৫]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

জেকসন হোলে, একটি প্রাপ্তবয়স্ক ভেরিবাদক মরাল

মরালরা হচ্ছে জলমোরগের অ্যানাটিডি পরিবারের সবথেকে বড় সদস্য, এবং সবথেকে বড় উড়ন্ত পাখি। মূক মরাল, ভেরীবাদক মরাল, হোপার মরালসহ মরালের সবথেকে বড় প্রজাতির দৈর্ঘ্য ১.৫ মি (৫৯ ইঞ্চি) এর বেশী এবং ওজন ১৫ কেজি (৩৩ পা) এর বেশী হতে পারে। তাদের ডানার বিস্তৃতি ৩.১ মি (১০ ফু) এর বেশী হতে পারে।[৬] তাদের নিকটাত্মীয় রাজহাঁসের তুলনায়, তারা অধিকতর বড় এবং তাদের অধিকতর লম্বা পা এবং গলা রয়েছে।[৭] প্রাপ্তবয়স্কদের ঠোঁট এবং চোখের মাঝখানে পালকহীন পট্টি থাকে। পুরুষ এবং স্ত্রী মরালের একই রকম পালক থাকে, তবে পুরুষ মরালরা সাধারণত স্ত্রী মরালের তুলনায় বড় ও ভারী হয়।[৫]

উত্তর গোলার্ধের মরাল প্রজাতির পালক দবদবে সাদা হলেও দক্ষিণ গোলার্ধের মরাল প্রজাতির পালক সাদা এবং কালো বর্ণে মিশ্রিত থাকে। অস্ট্রেলিয়ার কালো মরাল (Cygnus atratus) উড়ার জন্য ডানায় কয়েকগাছি সাদা পালক ছাড়া সম্পূর্ণ কালো; কালো মরালের ছানা হালকা ধূসর বর্ণের। দক্ষিণ আমেরিকার কালো-গলা-মরালের গলার রং কালো ছাড়া বাকিটা দেহ সাদা রঙের।[৮]

দক্ষিণ আমেরিকার দুটি প্রজাতি বাদে, যাদের পায়ের রং গোলাপি, বাকি সব মরালদের পা-দুটি সাধারণত ঘন কালো ধূসর রঙের হয়। ঠোঁটের রঙে ভিন্নতা রয়েছেঃ চারটি উপ-সুমেরু প্রজাতির হলুদ রঙের কিছু বৈচিত্র্যতা সহ কালো ঠোঁট রয়েছে, এবং বাকি সবার আদর্শরূপ হিসেবে লাল এবং কালো ঠোঁট আছে। যদিও পাখিদের দাঁত নেই, তবে মরালদের দন্তবন্ত কিনারার ঠোঁট রয়েছে যা দেখতে ছোট ছোট খাঁজকাটা “দাঁতের” মতো, যেগুলো তাদের ঠোঁটেরই অংশ, যা দিয়ে তারা জলজ উদ্ভিদ এবং শেওলা ছাড়াও খোলকী, ছোট মাছ, ব্যাঙ এবং কীটপতঙ্গ ধরতে ও খেতে ব্যবহার করে।[৯] মূক মরাল এবং কালো-গলা-মরালের গলার ঊর্ধ্ব চোয়ালের নিম্নাংশে পিণ্ড রয়েছে।[১০]

ব্যাপ্তি এবং চলাফেরা[সম্পাদনা]

মরালদের সাধারণত উষ্ণপ্রধান পরিবেশে দেখতে পাওয়া যায়, তবে ক্রান্তীয় অঞ্চলে কদাচিৎ দেখা মিলে। উড়ার সময় মরালদের দলকে যুত বলা হয়। চারটি (অথবা পাঁচটি) প্রজাতি উত্তর গোলার্ধে পাওয়া যায়, একটি প্রজাতিকে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড-এ দেখা যায় এবং একটি প্রজাতিকে দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণাঞ্চলে বিচরণ করতে দেখা যায়।তারা- ক্রান্তীয় এশিয়া, মধ্য আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকার উত্তরাঞ্চল এবং সমগ্র আফ্রিকায় অনুপস্থিত। মূক মরাল, একটি প্রজাতিকে উত্তর আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে নিয়ে যাওয়া হয়।[৭]

কয়েকটি প্রজাতি, পুরোপুরি বা আংশিকভাবে পরিযায়ী। পশ্চিম ইউরোপের এলাকা জুড়ে বিচরণ করলেও পূর্ব ইউরোপ এবং এশিয়ায় সম্পূর্ণরূপে পরিযায়ী হয়ে থাকার জন্য, তাদেরকে আংশিক পরিযায়ী পাখি বলে। হোপার মরাল এবং থুন্দ্রা মরাল সম্পূর্ণরূপে পরিযায়ী, এবং ভেরীবাদক মরালরা প্রায় পুরোপুরি পরিযায়ী।[৭] কিছু ক্ষেত্রে প্রমাণ মিলে যে ‘কালো-গলা-মরালরা’ তাদের বিস্তৃত এলাকায় পরিযায়ী, যদিও বিস্তারিত গবেষণায় তারা কম না দীর্ঘ পরিসরের এলাকায় ঘুরে বেড়ায় এনিয়ে কোন তথ্য দেখানো হয়নি।[১১]

আচরণ[সম্পাদনা]

একটি 'মূক মরাল' পানিতে অবতরণ করছে। আকার এবং ওজনের জন্য বেশীর ভাগ মরালদের, পানিতে বা ডাঙায় নামা এবং অবতরণ করার জন্য বড় জায়গা লাগে।

মরালরা পানিতে এবং ডাঙায় খেয়ে বেঁচে থাকে। তারা প্রায় সবাই তৃণভোজী, যদিও তারা সামান্য পরিমাণ জলজ প্রাণী খেয়ে থাকে। পানিতে, খাদ্য সিক্ত অবস্থায় পেয়ে থাকে, এবং তাদের খাদ্য তালিকা জলজ এবং নিমিজ্জিত উদ্ভিদের মূল, কন্দ, কাণ্ড এবং পাতার সমন্বয়ে গঠিত।[৭]

জাপানের টোকিওতে, একটি 'মূক মরাল' একজন ফটোগ্রাফারকে তাড়িয়ে নিচ্ছে।

যদিও মরালরা ৪ এবং ৭ বছর বয়সে যৌনপরিপক্কতায় পৌঁছে, তারা সামাজিকভাবে একগামি বন্ধন গঠন করতে পারে তাদের ২০ মাস বয়সের সময় যা অনেক বছর দীর্ঘস্থায়ী হয়,[১২] এবং কিছু ক্ষেত্রে এটা সারা জীবনের জন্য ঠিকে থাকে।[১৩] 'মূক মরালের' জীবনকাল প্রায় ১০ বছরের বেশী, এবং মাঝেমাঝে এটা ২০ বছরেরও বেশী হয়, অপরদিকে 'কালো-গলা মরালরা' বন্দীদশায় এক দশকেরও কম সময় বেঁচে থাকে।[১৪] এই বন্ধন বছর বছর চলে আসে, এমনকি 'থুন্দ্রা মরালের' মতো যূথচর এবং পরিযায়ী প্রজাতির মাঝেও, যা তাদের শীতপ্রধান ভূমিতে সমবেত করে।[১৫] তাদের বাসা পানির কাছাকাছি ভূমিতে প্রায় এক মিটার জুড়ে হয়। অন্যান্য পাতিহাঁস বা রাজহাঁস প্রজাতির মতো নয়, তাদের পুরুষ মরালরাও বাসা তৈরিতে সাহায্য করে। ডিমের গড় আকার (মূক মরালের ক্ষেত্রে) হল ১১৩×৭৪ মিমি, ওজন ৩৪০ গ্রাম, ছোঁয়ের আকার ৪ থেকে ৭, এবং ডিমে তা দেওয়ার সময় ৩৪-৪৫ দিন।[১৬] হুইস্লিং হাঁস ছাড়া, তারা হচ্ছে অ্যানাটিডি পরিবারের একমাত্র সদস্য, যেখানে ডিমে তা দেওয়ার সময় পুরুষরাও সহায়তা করে।[১৭]

মরালরা আক্রমণাত্মকভাবে তাদের বাসা রক্ষা করার জন্য পরিচিত। এরকম একটি আক্রমণে এক ব্যক্তি ডুবে গিয়েছিল বলে মনে করা হয়।[১৮][১৯]

নিয়মানুগ এবং বিবর্তন[সম্পাদনা]

ম্যালগ্রেট, ইতালিতে মূক মরাল
কালো মরাল এবং সিগনেট
লন্ডন ওয়েটল্যান্ড সেন্টারে কালো-গলা-মরাল
লেক ব্লেড, স্লোভেনিয়ায় মূক মরাল
ব্রাজিলের টেরেসোপোলিসে 'কালো মরাল'
মরাল এবং সিগনেট

সাক্ষ্যপ্রমাণ বলে যে সিগনাস(Cygnus) বর্গ ইউরোপ বা পশ্চিম ইউরেশিয়ায় "মধ্যনতুন যুগে" বিকশিত হয়ে, উত্তর গোলার্ধের সবত্র ছড়িয়ে পরে "অতিনতুন যুগে"। যখন দক্ষিণের প্রজাতিটির শাখা-প্রশাখা জানা ছিল না। মূক মরাল দক্ষিণ গোলার্ধের সিগনাস(Cygnus) (del Hoyo et al., eds, হ্যান্ডবুক অফ দ্য বার্ড অফ দ্য ওয়ার্ল্ড) বর্গের সবচেয়ে নিকটাত্মীয়; এই প্রজাতির অভ্যাস হচ্ছে গলা বাঁকিয়ে রাখা (সোজা নয়) এবং ডানা তালগোল পাকিয়ে রাখা (নিবিড়ভাবে নয়) এমনকি এর ঠোঁটের রং এবং গাঁট নির্দেশ করে যে এটি কালো মরালের জীবিত সবচেয়ে নিকটাত্মীয়। জীবভূগোল এর বরাত দিয়ে এবং অলর(Olor) উপবর্গের রূপরেখা অনুযায়ী এটাকে সবথেকে সাম্প্রতিক উপজনন মনে করা হয়, তাদের আধুনিক বিকাশের প্রমাণ দেখে (যেগুলো তুষার যুগে বসবাসের অযোগ্য ছিল) এবং শ্রেণীবিন্যাসকরণে তাদের সবথেকে বেশী সামঞ্জস্যতা থেকে।

জাতিজনি[সম্পাদনা]

জন বয়ডের ওয়েবসাইট থেকেটেক্সনমি ইন ফ্লাক্স এর উপর ভিত্তি করেঃ[২০]

Cygnina

Sthenelides melancoryphus (কালো-গলা-মরাল)


Cygnus
(Chenopis)

C. atratus (Latham, 1790) (কালো মরাল)



(Cygnus)

C. olor (Gmelin, 1789) (মূক মরাল)


(Olor)

C. buccinator Richardson, 1832 (ভেরীবাদক মরাল)



C. cygnus (Linnaeus, 1758) (হপার মরাল)



C. columbianus (Ord, 1815) (থুন্দ্রা মরাল)







প্রজাতি[সম্পাদনা]

বর্গ সিগনাস

  • উপবর্গ সিগনাস
    • মূক মরাল, সিগনাস অলর(Cygnus olor), হচ্ছে একটি ইউরেশিয়ান প্রজাতি যা ইউরোপ জুড়ে দক্ষিণ রাশিয়া , চীন এবং রাশিয়ার উপকূলবর্তী অঞ্চলের হোপার মরাল এবং বিউয়িক মরালের চেয়ে নিম্ন অক্ষাংশে দেখতে পাওয়া যায়। ব্রিটিশ পক্ষিবিজ্ঞানসম্বন্ধীয় ইউনিয়নের মতে, সাম্প্রতিক জীবাশ্ম নথিপত্রে, দেখানো হয়েছে যে সিগনাস অলর এখনো পর্যন্ত বিদ্যমান সবচেয়ে পুরনো পাখি প্রজাতি এবং কতিপয় ইউরোপীয় দেশে এটা "স্বদেশী" প্রজাতি হিসেবে গৃহীত, যেহেতু এই পাখির জীবাশ্ম পাওয়া গেছে এবং এটি হাজার বছর পূর্বের জলা-নমুনাতে। সাধারণ তাপমাত্রার ইউরেশিয়ান প্রজাতি, গৃহপালিত পাখিদের অর্ধ-গৃহপালিত উত্তরসূরি, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যত্র গৃহপালন করা হয়।
  • উপবর্গ ছেনপিস
    • কালো মরাল, অস্ট্রেলিয়ার সিগনাস অ্যাট্রাটাস(Cygnus atratus) , এটি নিউজিল্যান্ডেও পরিচিত।
      • †নিউজিল্যান্ড মরাল, সিগনাস অ্যাট্রাটাস সামনেরেনসিস(Cygnus atratus sumnerensis), নিউজিল্যান্ড এবং ছাথাম দ্বীপের একটি বিলুপ্তপ্রায় উপপ্রজাতি
  • উপবর্গ স্থেনেলাইডস
    • কালো-গলা-মরাল, দক্ষিণ আমেরিকার সিগনাস মেলানকরিফাস(Cygnus melancoryphus)
  • উপবর্গ অলর
    • হোপার মরাল, সিগনাস কাইগনাস(Cygnus Cygnus) আইসল্যান্ড এবং উপ-সুমেরু ইউরোপ ও এশিয়ায় বংশ বিস্তার করে, শীতকালে ইউরোপের উষ্ণপ্রধান অঞ্চল এবং এশিয়ায় চলে আসে
    • ভেরীবাদক মরাল, Cygnus buccinator হচ্ছে সবচেয়ে বড় উত্তর আমেরিকার মরাল। হোপার মরালের সাথে খুবই সাদৃশ্যপূর্ণ (এবং কিছু ক্ষেত্রে এটাকে হোপার মরালের উপপ্রজাতিও ভাবা হয়), শিকারের ফলে এগুলো প্রায় বিলুপ্ত হয়ে পড়েছিল, তবে এখন এগুলোকে রক্ষা করে হয়েছে।
    • থুন্দ্রা মরাল, সিগনাস কলম্বিয়ানাস(Cygnus columbianus) হচ্ছে একটি ক্ষুদ্র মরাল প্রজাতি যা উত্তর আমেরিকার থুন্দ্রা অঞ্চলে বংশবৃদ্ধি করে , ভেরীবাদক মরালের চেয়ে অধিকতর উত্তরে। এরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শীতকাল কাটায়।
      • বিউয়িক মরাল, সিগনাস বিউয়িক (Cygnus (columbianus) bewickii) হচ্ছে একটি ইউরেশিয়ান প্রজাতি যা শীতকালে আর্কটিক-রাশিয়া থেকে পশ্চিম ইউরোপ এবং পূর্ব এশিয়া (চীন, জাপান) পাড়ি জমায়। থুন্দ্রা মরাল প্রজাতি গঠন করে, এটাকে প্রায় সি কলম্বিয়ানাস (C. Columbianus) উপপ্রজাতি মনে করা হয়।
      • হুইস্লিং মরাল, সিগনাস কলম্বিয়ানাসকে (Cygnus (columbianus) columbianus) উত্তর আমেরিকার প্রজাতি নির্দেশ করতে ব্যবহার করা হয়।

সিগনাস(Cygnus) বর্গের ‘জীবাশ্ম সাক্ষ্যপ্রমাণ’ খুবই চিত্তাকর্ষক, যদিও এই উপবর্গের বিভাজন প্রায় ক্ষেত্রে পরীক্ষামূলক; উপরে উল্লিখিত মত অনুযায়ী, প্রথম দিককার প্রজাতিগুলো সি অলর(C. Olor) – দক্ষিণ গোলার্ধের প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত, যেখানে উত্তর আমেরিকার অলর(Olor)কে প্লাইস্টোসিন শ্রেণীবিভাগে রাখা হতে পারে। বিশেষত উত্তর গোলার্ধের মরাল থেকে, প্রাগৈতিহাসিক প্রজাতির কিছু সংখ্যকের বর্ণনা করা হয়েছে। এগুলোর মধ্য থেকে- বিশাল আকৃতির সিসুলো-মাল্টিসি সি ফাল্কনারি(C. Falconeri), সমসাময়িক স্থানীয় বামন হাতিদের(Elephas falconeri) তুলনায় অধিকতর লম্বা ছিল (যদিও ভারী ছিলনা)।

জীবাশ্ম নথিপত্র[সম্পাদনা]

  • Cygnus csakvarensis Lambrecht 1933 [Cygnus csákvárensis Lambrecht 1931a nomen nudum; Cygnanser csakvarensis (Lambrecht 1933) Kretzoi 1957; Olor csakvarensis (Lambrecht 1933) Mlíkovský 1992b] (হাঙ্গেরির অধুনা মধ্যনতুন যুগ)
  • Cygnus mariae Bickart 1990 (উইকিআপ, যুক্তরাষ্ট্রের প্রাথমিক অতিনতুন যুগ)
  • Cygnus verae Boev 2000 (সফিয়া, বুলগেরিয়ার প্রাথমিক অতিনতুন যুগ)[২১]
  • Cygnus liskunae (Kuročkin 1976) [Anser liskunae Kuročkin 1976] (পশ্চিম মঙ্গোলিয়ার মধ্য অতিনতুন যুগ)
  • Cygnus hibbardi Brodkorb 1958 (?ইদাহো,যুক্তরাষ্ট্রের প্রাথমিক প্রস্তর যুগ)
  • Cygnus sp. (দুরসুনলু, তুরস্কের প্রাথমিক প্রস্তর যুগ: লোচার্ট এট এল. ১৯৯৮)
  • Giant swan, Cygnus falconeri Parker 1865 sensu Livezey 1997a [Cygnus melitensis Falconer 1868; Palaeocygnus falconeri (Parker 1865) Oberholser 1908] (মাল্টা এবং সিসিলি, ভূমধ্যসাগরের মধ্য প্রস্তর যুগ)
  • Cygnus paloregonus Cope 1878 [Anser condoni Schufeldt 1892; Cygnus matthewi Schufeldt 1913] (যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য প্রস্তর যুগ)
  • Dwarf swan Cygnus equitum Bate 1916 sensu Livezey 1997 [Anser equitum (Bate 1916) Brodkorb 1964; Cygnus (Olor) equitum Bate 1916 sensu Northcote 1988a] (মাল্টা এবং সিসিলি, ভূমধ্যসাগরের মধ্য-অধুনা প্রস্তর যুগ)
  • Cygnus lacustris (De Vis 1905) [Archaeocygnus lacustris De Vis 1905] (অস্ট্রেলিয়ার লেক আয়ার এলাকার প্রস্তর যুগ)
  • Cygnus sp. (অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তর যুগ)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন][যাচাই প্রয়োজন]
  • Cygnus atavus (Fraas 1870) Mlíkovský 1992 [Anas atava Fraas 1870; Anas cygniformis Fraas 1870; Palaelodus steinheimensis Fraas 1870; Anser atavus (Fraas 1870) Lambrecht 1933; Anser cygniformis (Fraas 1870) Lambrecht 1933]

প্রতাবিত জীবাশ্ম মরাল "Cygnus" bilinicus এবং "Cygnus" herrenthalsi উভয়টি, যথাক্রমে একটি মানিকজোড় ছিল এবং কতিপয় অপরিচিত বংশের বড় পাখি ছিল (উল্লেখিত উপাদানের সংরক্ষণের কদর্যতার জন্য)। আনসার অ্যাটাভাস(Anser atavus)কে অনেক সময় সিগনাস(Cygnus) এর মধ্যে স্থান দেয়া হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

দক্ষিণ আমেরিকার কসকরবা মরাল (Coscoroba coscoroba), এই বর্গের একমাত্র প্রজাতি, প্রকৃতপক্ষে কোন বাস্তব মরাল নয়। এদের জাতিগত অবস্থা পুরোপুরি জানা যায়নি; এগুলো কিছু কিছু ক্ষেত্রে রাজহাঁস এবং টাডোর্নার খুবই সদৃশ।[২২]

সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

সাহিত্যের অনেক শাখাই ইউরোপের মূক মরালকে নির্দেশ করতে দেখা গেছে। "দ্য আগলি ডাকলিং" উপকথাকে মরাল সম্পর্কে সবচেয়ে জনপ্রিয় গল্প হিসেবে মনে করা হয়। মরালদেরকে তাদের দীর্ঘস্থায়ী, দৃশ্যত একগামি সম্পর্কের কারণে প্রায়সময়ই ভালোবাসা বা বিশ্বস্ততার প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মরাল-সম্পর্কিত বিখ্যাত যাত্রা লোহেনগ্রিন[২৩] এবং পার্সিফাল দেখা যায়।[২৪] প্রথম এলিজাবেথ এর শাসনামলে মরালের মাংসকে বিলাসবহুল খাদ্য মনে করা হত। A ঐসময় থেকে ভাঁজা মরালের একটি খাদ্যপ্রনালি চলে আসছে: "মরালকে স্যাঁকার জন্য এটাকে পুড়িয়ে হার আলাদা করা হয়, এরপর এটাকে অর্ধসিদ্ধ করতে হয়, অতঃপর মরিচ, লবণ এবং আদা দিয়ে ভালোভাবে পাকাতে হয়, এরপর একে চর্বি মাখাতে হয়, এবং একে মাখনের সাথে রাইয়ের মিশ্রণে করে পাত্রে রাখতে হয়, পরে এটা বন্ধ করে ভালমত স্যাঁকতে হয়, স্যাঁকা হয়ে গেলে, ছিদ্রপথগুলো বিগলিত্মাখন দিয়ে ভরে দিতে হয়; এভাবে এটাকে গরুরমাংসের মতো করে পরিবেশন করা হয়।"[২৫]

চিত্র:Accession of ten new countries to the European Union Reverse.jpg
ইএউ প্রেসিডেন্সী উদযাপনকালে আইরিশ স্মারক মুদ্রা।
"লেব্জ" ("মরালের" পোলীয় নাম) হচ্ছে একটি পোলীয়–লিথুয়ানিয়ান প্রতীক যা পোলীয়–লিথুয়ানিয়ান কমনওয়েলথের অধীনে অনেক পোলীয় szlachta এবং লিথুয়ানিয়ান Bajorai (মহৎ) পরিবারে ব্যবহার হয়। প্রদত্ত বৈকল্পিক প্রতীকীটি হেনরিক শিন্‌কিয়েউইচ এর পরিবারের।

পৌরাণিক কাহিনীতে মরাল খুব শক্তপুক্তভাবে স্থান করে নিয়েছে। গ্রিক পুরাণে, ‘লেডা এবং মরাল’ কাহিনীতে বর্ণনা করা হয়েছে যে হেলেন,জিউসের একটি ইউনিয়নে গর্ভবতী হয়েছিল এবং মরালের ছদ্মবেশে ছিল এবং লেডা স্পার্টার রাণী হিসাবে ছিল।[২৬] অন্যান্য ধ্রুপদী সাহিত্যের তথ্য থেকে বিশ্বাস করা হয় যে মৃত্যুতে মূক-মরাল চমৎকার গাইত, অন্যথায় নীরব থাকত—এভাবে ‘মরাল গান’ শব্দবাক্য আসে;[২৭] এমনকি জুভেনালের ব্যঙ্গাত্মক তথ্যমতে ভালো নারীজাতি নির্দেশ করতে "দুর্লভ পাখি, কালো মরালের মতো এ-ভুবনে দুর্লভ", যেটা থেকে আমরা ল্যাটিন শব্দবাক্য (রারা এভিস) ‘দুর্লভ পাখি’ পেয়ে থাকি।[২৮] তাছাড়া মুক-মরাল অ্যাপোলোর অন্যতম পবিত্র পাখি, যার সংযুক্তি আলোর প্রতীক হিসেবে পাখির স্বভাব এবং একটি "মরাল গান" এই ধারণা উভয়টি থেকে এসেছে। দেবতাদের প্রায়ই একটি রথ দ্বারা টানা বা ডেলস থেকে তার উত্তরণের জন্য মরালকে দিয়ে অশ্বচালনার মতো কাজ করানো হত।

লির সন্তানদের সম্পর্কে কথিত আইরিশ কিংবদন্তি এক বিমাতা তার সন্তানদের ৯০০ বছর মরালে রূপান্তর করে রাখে।[২৯] কিংবদন্তী ‘‘টকমার্ক ইটেইন’’ এ, সিঢের রাজা (অন্তঃসলিলা-বাসস্থান, অতিপ্রাকৃত স্বত্বা) নিজেকে এবং আয়ারল্যান্ডের সবচেয়ে সুন্দরী নারী, ইটেইন, আয়ারল্যান্ডের রাজা ও সৈন্যবাহিনীর কাছ থেকে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য নিজেদের মরালে রূপান্তরিত করেন। মরালকে সম্প্রতি একটি আইরিশ স্মারক মুদ্রার উপর ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

মরালকে আয়ারল্যান্ডীয় সাহিত্য ডব্লিউ বি ইয়েটসের কবিতায় দেখতে পাওয়া যায়। কোলে’র বন্য মরালকে মরলদের সম্মোহিত বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে বিশেষ দৃষ্টিপাত করা হয়েছে। এছাড়া ইয়েটসও ‘লেডা এবং মরালের’ মিথকে একই নামের কবিতায় বর্ণনা করেছেন।

নর্স পুরাণে, দুটা মরাল রয়েছে যেগুলো আসগার্ডের রাজত্বে, দেবতাদের ভূমিতে, পবিত্র কুপ উর্ড থেকে পানি পান করত। প্রস এডার অনুযায়ী, এই কূপের পানি এতো বিশুদ্ধ এবং পবিত্র যে যা-ই এই পানি স্পর্শ করে তা-ই একদম সাদা হয়ে যায়, এমনকি এই মরাল-যুগল এবং তাদের বংশধররাও এরকম হয়ে যায়। ভলানডার্কভিদা, বা লে অফ ভলান্ড কবিতা, এডা কবিতার অংশবিশেষ, এটাতেও মরালের বিশুদ্ধতার বর্ণনা করা হয়।

ফিনিশ মহাকাব্য কালেভালাতে আছে, একটি মরাল মৃত্যুপুরীর টৌনেলার টৌনি নদীতে বাস করত। এই গল্প অনুযায়ী, যে-ই এই মরালকে মারতে গিয়েছে, সে-ই ধ্বংস হয়ে গেছে। কালেভালা’র উপর ভিত্তি করে জীন সাইবেলাস লেমিংকাইনেন সয়টে রচনা করেন, যার দ্বিতীয় খণ্ডটি টৌনেলার মরাল (Tuonelan joutsen) শিরোনামে ছিল। বর্তমান সময়ে, পাঁচটি উড়ন্ত মরালকে নর্ডীয় রাষ্ট্রসমূহ প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করে, হোপার মরাল (Cygnus cygnus) ফিনল্যান্ডের জাতীয় পাখি,[৩০] এবং মূক মরাল ডেনমার্কের জাতীয় পাখি।[৩১]

ফরাসি ব্যঙ্গ-রচয়িতা ফ্রাঁসোয়া রাবলে তার ‘গারগান্তুয়া এন্ড পান্তাগ্রুয়েল’ এর মধ্যে লিখেছেন যে তার সম্মুখীন হওয়া সবথেকে সেরা টয়লেট পেপার হচ্ছে মরালের গলা।

মরালের সাথে লিংকনের সেন্ট হুগ

একটি মরালের গল্পের উপর ভিত্তি করে লিংকনের সেন্ট হুগের মরালের একটি বিশেষ গুন ছিল, যেটি তার খুব ভক্ত ছিল।[৩২]

ল্যাটিন আমেরিকান সাহিত্যে, নিকারাগুয়ার কবি রুবেন দারিও (১৮৬৭–১৯১৬) মরালকে পবিত্র বলে শৈল্পিক অনুপ্রেরণার প্রতীক হিসেবে পাশ্চাত্য সংস্কৃতিতে কল্পিত মরালের দৃঢ়তায় নজর কাড়তে,‘রেপ অফ লেডা’ দিয়ে শুরু হয় এবং ভাগনারের লোহেনগ্রিন দিয়ে শেষ হয়। এ নিয়ে দারিওর সবথেকে জনপ্রিয় কবিতা হচ্ছে ব্লাসন – "কোট অব আর্মস" (১৮৯৬), এবং তার মরলারে ব্যবহার এটাকে আধুনিক কাব্য আন্দোলনে রূপ দেয় যা ১৮৮০-থেকে প্রথম বিশ্ব যুদ্ধ পর্যন্ত স্প্যানীয় ভাষার কবিতায় আধিপত্য বিস্তার করে। এটা ছিল স্প্যানীয় ভাষার কবিতায় একটি আধিপত্য যেটাকে মেক্সিকান কবি এনরিক গঞ্জালেজ মার্টিনেজ Tuércele el cuello al cisne – "মরালের গলায় মোচড়" (১৯১০) নামের একটি শিরোনামে চতুর্দশপদী কবিতার আধুনিকতা শেষের ঘোষণা দেয়ার প্রয়াস চালান।

মরালকে হিন্দুধর্মে খুব সম্মান করা হয়, এবং একে ঋষিতুল্য মনে করা হয়, যার প্রধান চরিত্রগত বৈশিষ্ট্য দুনিয়ার সাথে লেগে থাকা নয়, যেমনটি তাদের পালক জলের মধ্যে ভিজে না, ঠিক যেমনটি তুলনা করা হয়। মরালের সংস্কৃতশব্দ হচ্ছে ‘‘হংস’’ এবং ‘‘রাজা হংস’’ বা রাজকীয় মরাল হচ্ছে দেবী সরস্বতীর বাহন যা ‘‘সত্য গুন’’ বা বিশুদ্ধতার চরমোত্কর্ষের প্রতীক। এটা বলা হয় যে যদি দুধ এবং জলের মিশ্রণ মরালকে পান করার জন্য দেওয়া হয়, তবে মরাল শুধু দুধটুকুই পান করবে। অতএব, জ্ঞানের দেবী সরস্বতী মরালে চড়ে বেড়ান কারণ এইভাবে মরাল নির্দেশ করে "বিবেক" অর্থাত দূরদর্শিতা এবং ভালো ও মন্দের মধ্যকার বা শাশ্বত এবং অস্থায়ীর মধ্যে বৈষম্যের। এর একটা বড় গুণ হিসেবে গ্রহণ করা হয়, যা এই সংস্কৃত শ্লোক দ্বারা দেখানো হয়েছে:

হামসা শ্বেতা, বাকা শ্বেতা, কা ভেদা হামসা বাকায়ো?
নিরাক্ষিরা ভিভেকেতু, হামসা হামসা, বাকা বাকা!
মরালরা সাদা, সারসও সাদা, তাই কিভাবে তাদের মধ্যে পার্থক্য করে?
দুধ-জল দিয়ে পরীক্ষা, মরালরা প্রমাণিত মরাল, সারসরা প্রমাণিত সারস!
ফুল দিয়ে তৈরি মরাল। বাকু, আজারবাইজান

বৈদিক সাহিত্যে এটা অনেক বার উল্লেখ করা হয়েছে, এবং যেসব ব্যক্তি সর্বশক্তি আধ্যাত্মিকতা অর্জন করেছে তাদেরকে অনেক সময় তাদের আধ্যাত্মিক দয়াপরবশতার জন্য ‘পরমহংস’ ("উৎকৃষ্ট মরাল") ডাকা হয় এবং বিভিন্ন আধ্যাত্মিক জগতে ঘুরে বেড়ানোর সক্ষমতা অর্জন করে। বেদে, বলা হয়েছে যে মরালরা মানস সরোবর হ্রদে গরমের সময় বসবাস করে এবং শীতের জন্য ভারতীয় হ্রদে পাড়ি দেয়।এটা বিশ্বাস করা হয় যে তারা কিছু অলৌকিক শক্তি পেয়ে থাকে, যেমন- তারা মণিমুক্তা খেয়ে ফেলতে পারে।

ইন্দো-ইউরোপীয় ধর্মে মরালরা ‘স্বর্গীয় যুগলদ্বয়ের’ সাথে সম্পৃক্ত, এবং প্রোটো-ইন্দো-ইউরোপীয় সময়ে এটা ভাবা হয় যে, মরালরা ‘স্বর্গীয় যুগলদ্বয়’ এবং ইন্দো-ইউরোপীয় সূর্য দেবতাদের সৌর প্রতীক ছিল।[৩৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Harper, Douglas। "swan"Online Etymology Dictionary 
  2. টেমপ্লেট:L&S
  3. টেমপ্লেট:LSJ.
  4. Harper, Douglas। "cygnet"Online Etymology Dictionary 
  5. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: ১৩। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  6. Madge, Steve; Burn, Hilary (১৯৮৮)। Waterfowl: An Identification Guide to the Ducks, Geese, and Swans of the World। Boston: Houghton Mifflin। আইএসবিএন 0-395-46727-6 
  7. Kear, Janet, সম্পাদক (২০০৫)। Ducks, Geese and Swans। Bird Families of the World। Oxford: Oxford University Press। আইএসবিএন 0-19-861008-4 
  8. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: 18–27। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  9. "Mute Swan. Feeding", Royal Society for the Protection of Birds
  10. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: 20 and 27। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  11. Schlatter, Roberto; Navarro, Rene A.; Corti, Paulo (২০০২)। "Effects of El Nino Southern Oscillation on Numbers of Black-Necked Swans at Rio Cruces Sanctuary, Chile"। Waterbirds 25 (Special Publication 1): 114–122। জেএসটিওআর 1522341 
  12. Ross, Drew (মার্চ–এপ্রিল ১৯৯৮)। "Gaining Ground: A Swan's Song"National Parks 72 (3–4): ৩৫। 
  13. Rees, Eileen। "6: Swans are one of the few species that can divert to homosexuality in times of loneliness. Mate fidelity in swans, an interspecific comparison"। in Jeffrey M. Black, Mark Hulme। Partnerships in birds। Oxford: Oxford University Press। পৃ: 118–122। আইএসবিএন 0-19-854860-5 
  14. Catharine Bell, সম্পাদক (১৯৯৯)। Encyclopedia of the world's zoos, vol. 3। London: Fitzroy Dearborn। পৃ: ১১৮৬। আইএসবিএন 9781579581749 
  15. Scott, D. K. (১৯৮০)। "Functional aspects of the pair bond in winter in Bewick's swans (Cygnus columbianus bewickii)"। Behavioral Ecology and Sociobiology 7 (4): 323–327। ডিওআই:10.1007/BF00300673 
  16. "Mute Swan". British Trust for Ornithology
  17. Scott, Dafila (১৯৯৫)। Swans। Grantown-on-Spey, Scotland: Colin Baxter Photography। পৃ: ৫১। আইএসবিএন 0-948661-63-1 
  18. Waldren, Ben (১৬ এপ্রিল ২০১২)। "Killer Swan Blamed for Man's Drowning"। Yahoo News। 
  19. "Who, What, Why: How dangerous are swans?"। BBC News। ১৭ এপ্রিল ২০১২। 
  20. Taxonomy in Flux [১] Boyd, John (২০০৭)। "Anserini"। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট ২০১৬ 
  21. Boev, Z. 2000. "Cygnus verae sp. n. (Anseriformes: Anatidae) from the Early Pliocene of Sofia (Bulgaria)". Acta zoologica cracovienzia, Krakow, 43 (1-2): 185-192.
  22. https://www.zoo.org/page.aspx?pid=1842#.V6a615MrI6g
  23. "The opera novice: Wagner's Lohengrin"Telegraph। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  24. "The opera novice: Parsifal by Richard Wagner"Telegraph। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  25. "Baked Swan. Old Elizabethan Recipe"। elizabethan-era.org.uk। 
  26. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: ৭০। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  27. "What is the origin of the phrase 'Swan song'?"। phrases.org.uk। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  28. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: ২৭। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  29. "The Fate of the Children of Lir"www.ancienttexts.org। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  30. "Whooper Swan"wwf.panda.org। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  31. "BIRDS OF DENMARK"www.birdlist.org। সংগৃহীত ২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  32. Young, Peter (২০০৮)। Swan। London: Reaktion। পৃ: ৯৭। আইএসবিএন 978-1-86189-349-9 
  33. O'Brien, Steven. "Dioscuric Elements in Celtic and Germanic Mythology". Journal of Indo-European Studies 10:1 & 2 (Spring–Summer, 1982), 117-136.

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • রাজকীয় মরাল

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  •  "Swan"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ 26 (১১তম সংস্করণ)। ১৯১১ [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]
  • Louchart, Antoine; Mourer-Chauviré, Cécile; Guleç, Erksin; Howell, Francis Clark & White, Tim D. (1998): L'avifaune de Dursunlu, Turquie, Pléistocène inférieur: climat, environnement et biogéographie. C. R. Acad. Sci. Paris IIA 327(5): 341–346. [French with English abridged version] ডিওআই:10.1016/S1251-8050(98)80053-0
  • A History of British Birds
  • Wikisource-logo.svg "Swan"। New International Encyclopedia। ১৯০৫। 
  • Wikisource-logo.svg "Swan"। The New Student's Reference Work। ১৯১৪।