ভৌগোলিক অঞ্চল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পৃথিবীর ভৌগোলিক অঞ্চল
অঞ্চল অনুযায়ী বার্ষিক গড় তাপমাত্রার মানচিত্র

পৃথিবীর পৃষ্ঠের পাঁচটি প্রধান অক্ষাংশ অঞ্চলগুলি নিয়েই ভৌগোলিক অঞ্চল[১], যা অক্ষাংশের প্রধান বৃত্তগুলি দ্বারা বিভক্ত। তাদের মধ্যে পার্থক্যগুলি জলবায়ুর সাথে সম্পর্কিত। তারা নিম্নরুপঃ-

  1. উত্তর হিমমণ্ডল, ৯০° উত্তরের উত্তর মেরু এবং ৬৬° ৩৩' উত্তরের সুমেরু বৃত্তের মধ্যবর্তী, যা পৃথিবী পৃষ্ঠের ৪.১২% আচ্ছাদন করে।
  2. উত্তর তাপমাত্রামণ্ডল, ৬৬° ৩৩' উত্তরের সুমেরু বৃত্ত থেকে ২৩° ২৭' উত্তরের কর্কটক্রান্তির মধ্যবর্তী, যা পৃথিবীর পৃষ্ঠের ২৫.৯৯% আচ্ছাদন করে।
  3. টরিড মণ্ডল, ২৩° ২৭' উত্তরের কর্কটক্রান্তি থেকে ২৩° ২৭' দক্ষিণের মকরক্রান্তির মধ্যবর্তী, যা পৃথিবীর পৃষ্ঠের ৩৯.৭৮% আচ্ছাদন করে।
  4. দক্ষিণ তাপমাত্রা মণ্ডল, ২৩° ২৭' দক্ষিণের মকরক্রান্তি থেকে ৬৬° ৩৩' দক্ষিণের কুমেরু বৃত্ত মধ্যবর্তী, যা পৃথিবীর পৃষ্ঠের ২৫.৯৯% আচ্ছাদন করে।
  5. দক্ষিণ হিমমণ্ডল, ৬৬° ৩৩' দক্ষিণের কুমেরু বৃত্ত থেকে ৯০° দক্ষিণের দক্ষিণ মেরুর মধ্যবর্তী, যা পৃথিবীর পৃষ্ঠের ৪.১২% আচ্ছাদন করে।
পৃথিবীর জলবায়ু অঞ্চল
  বরফের টুপি
  তুন্দ্রা
  উত্তুরে
  উষ্ণ তাপমাত্রা
  প্রায় গ্রীষ্মমণ্ডলীয়
  গ্রীষ্মপ্রধান

অক্ষাংশীয় মাত্রার ভিত্তিতে গ্লোবটি তিনটি বিস্তৃত তাপ অঞ্চলে বিভক্ত।

উষ্ণপ্রধান অঞ্চল[সম্পাদনা]

উষ্ণপ্রধান অঞ্চল ক্রান্তীয় নামেও পরিচিত। অঞ্চলটি কর্কটক্রান্তি দ্বারা উত্তরে এবং দক্ষিণে মকরক্রান্তি দ্বারা সীমাবদ্ধ; এই অক্ষাংশগুলি উত্তর এবং দক্ষিণের চূড়ান্ত চিহ্ন চিহ্নিত করে যেখানে সূর্য মরসুমে সরাসরি মাথার উপরে চলে আসে। এটি বার্ষিকভাবে ঘটে, তবে এর মধ্যবর্তী অঞ্চলে, বছরে দু'বার সূর্য মাথার উপর দিয়ে যায়।

উত্তর গোলার্ধে মার্চের অয়তান্ত-বিন্দু এর পরে সূর্যের আপাত উত্তর দিকে যাত্রার সময়, এটা একবার মাথার উপর দিয়ে যায়, তারপরে জুনের অয়তান্ত-বিন্দু এর পরে, এটি যখন কর্কটক্রান্তি এ পৌঁছে, তখন এটি আবার দক্ষিণ দিকে যাত্রার সময়ও আবার মাথার উপর দিয়ে যায়। সেপ্টেম্বরের অয়তান্ত-বিন্দু এর পরে সূর্য দক্ষিণ গোলার্ধে প্রবেশ করে।

এটি ডিসেম্বরের অয়তান্ত-বিন্দুমকরক্রান্তিতে পৌঁছানো অবধি দক্ষিণের ক্রান্তীয় অঞ্চলের উপর দিয়ে একইভাবে চলে যায়, এবং একইভাবে ফিরে আসে যখন এটি উত্তর দিকের বিষুবীয় অঞ্চল এর দিকে ফিরে আসে।

নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল[সম্পাদনা]

দু'টি নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে, যা ঈষৎ উষ্ণ অক্ষাংশ নিয়ে গঠিত, সূর্য কখনোই মাথার উপরে থাকে না এবং জলবায়ু হালকা থাকে, সাধারণত উষ্ণ ও শীতলের মধ্যে। এ অঞ্চলে সাধারণত চারটি বার্ষিক ঋতু দেখা যায় যথাঃ- বসন্ত, গ্রীষ্ম, হেমন্ত এবং শীত। উত্তরের নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে রয়েছে, ইউরোপ, উত্তর এশিয়া, এবং উত্তরকেন্দ্রীয় আমেরিকা। দক্ষিণের নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে রয়েছে দক্ষিণাঞ্চলীয় অস্টেলেশিয়া, দক্ষিণাঞ্চলীয় দক্ষিণ আমেরিকা এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকা

হিমমণ্ডল[সম্পাদনা]

দু'টি হিমমণ্ডল, বা মেরু অঞ্চল, বছরের কিছু অংশের জন্য মধ্যরাতের সূর্য এবং অক্ষবর্তী রাত উপভোগ করে - অঞ্চলটির প্রান্তে শীতের সময় একদিন থাকে, যখন সূর্য অদৃশ্য থাকে এবং গ্রীষ্মের সময় একদিন থাকে যখন সূর্য দিগন্তের উপরে ২৪ ঘণ্টা অবধি থাকে। অঞ্চলের কেন্দ্রে (মেরু) দিনটি এক বছরের দীর্ঘ, যার ছয় মাস দিন এবং ছয় মাস রাত। হিমমণ্ডলগুলি পৃথিবীর সবচেয়ে হিম অঞ্চল এবং সাধারণত বরফ এবং তুষার দ্বারা ঢাকা থাকে। এটি সূর্যের তির্যক রশ্মি গ্রহণ করে কেননা এই অঞ্চলটি বিষুবীয় অঞ্চল থেকে অনেক দূরে অবস্থিত। এই অঞ্চলে গ্রীষ্মের মৌসুম প্রায় ২ থেকে ৩ মাস অবধি থাকে এবং গ্রীষ্মে প্রায় ২৪ ঘণ্টা সূর্যালোক থাকে। সূর্যের রশ্মি সর্বদা তির্যক হয় এবং সল্প তাপ সরবরাহ করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ভৌগোলিক অঞ্চল ধারণাটি প্রথম প্রাচীন গ্রিক পণ্ডিত পার্মিনিড কর্তৃক অনুমান করা হয়েছিল[২] এবং সর্বশেষে অ্যারিস্টটল কর্তৃক সংশোধিত হয়।[৩] উভয় দার্শনিক তাত্ত্বিকভাবে বিষুবীয় অঞ্চল থেকে তাদের দূরত্বের ভিত্তিতে পৃথিবীকে তিন ধরনের জলবায়ু অঞ্চলে বিভক্ত করেছিলেন।

পার্মিনিডের মত "নিরক্ষীয় অঞ্চলের কাছাকাছি অঞ্চলটি আবাসনের জন্য খুব উত্তপ্ত ছিল" এই ভেবে অ্যারিস্টটল নিরক্ষীয় অঞ্চলের আশেপাশের অঞ্চলটি (২৩.৫° উত্তর থেকে ২৩.৫° দক্ষিণ সেন্টিগ্রেড) "উষ্ণ অঞ্চল" নামে অভিহিত করেছিলেন। উভয় দার্শনিক সুমেরুবৃত্ত থেকে মেরু পর্যন্ত অঞ্চলটিকে স্থায়ীভাবে হিমায়িত হওয়ার যুক্তি দিয়েছিলেন। বসবাসের অযোগ্য ভাবা এই অঞ্চলটিকে "হিমমণ্ডল" বলে অভিহিত করা হতো। আবাসস্থল বলে মনে করা হয় কেবলমাত্র "উত্তর পশ্চিমের নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলকে" (দক্ষিণটি আবিষ্কার করা যায় নি), যা "হিম অঞ্চল" এবং "উষ্ণ অঞ্চল" এর মধ্যে অবস্থিত। তবে মানুষ সুমেরুবৃত্ত সহ পৃথিবীর প্রায় সমস্ত জলবায়ুতে বসবাস করেছে।

পৃথিবীর ভূগোলের জ্ঞানের উন্নতি হওয়ার সাথে সাথে নিরক্ষীয় অঞ্চলের দক্ষিণে একটি দ্বিতীয় "নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল" আবিষ্কার করা হয়েছিল, এবং কুমেরুবৃত্ত এর আশেপাশে একটি দ্বিতীয় "হিম অঞ্চল" আবিষ্কার করা হয়েছিল। যদিও অ্যারিস্টটলের মানচিত্রটি বড় আকারের ছিল, তবে সাধারণ ধারণাটি সঠিক ছিল। আজ সর্বাধিক ব্যবহৃত জলবায়ু মানচিত্র হ'ল কোপেন জলবায়ু শ্রেণিবিন্যাস, যা জার্মান বংশোদ্ভূত রাশিয়ান জলবায়ুবিদ এবং অপেশাদার উদ্ভিদবিদ ভ্লাদিমির কোপেন (১৮৪৬-১৯৪০) দ্বারা হালনাগাদকৃত, যা গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত, গড় মাসিক বৃষ্টিপাত এবং গড় মাসিক তাপমাত্রার উপর ভিত্তি করে বিশ্বকে পাঁচটি প্রধান জলবায়ু অঞ্চলে বিভক্ত করেছে।

একটি হালনাগাদকৃত ক্যাপেন – জিগার জলবায়ু মানচিত্র

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Five Geographical Zones Of The World"WorldAtlas (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-১৭ 
  2. Strab. 2,2,1-2 in: A. H. Coxon and R. D. McKirahan (eds), The Fragments of Parmenides: A Critical Text With Introduction, and Translation, the Ancient Testimonia and a Commentary, 2nd edn (Phronesis: Supplementary Volumes 3; Assen, Dover (NH), 2009), p. 160.
  3. Aristotle, Meteorology, Bekker numbers 362a33-362b29