ব্যবহারকারী:Mayeenul Islam/নিবন্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

জীবনী


কখনও পরিবেশ বিষয়ক সচেতনতা আগ্রহী করেছে পরিবেশ বিষয়ক সুশীল মানুষদের জানতে, কখনও ফটোগ্রাফির টানে আকৃষ্ট হয়েছি ফটোগ্রাফি-লিজেন্ডদের জানতে, কখনও পুরাতত্ত্বের আগ্রহে জেনেছি সৌখিন পুরাতাত্ত্বিকদেরও, আর কখনও শ্রেফ দেশের মাথাদেরকে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্য লিখেছি তাঁদের জীবনী-বিষয়ক নিবন্ধ- সেরকমই একজন গল্‌ফ জগতে বাংলাদেশের পরিচিতি এনে দেয়া সিদ্দিকুর রহমান। শুরুতেই মুছে ফেলা হয় ইনাম আল হক নিবন্ধটি, কিন্তু থেমে থাকিনি। উল্লেখযোগ্যতা প্রমাণ করেই লিখে গেছি বাদবাকিগুলো। তবে ইনাম আল হক নিবন্ধটি লিখতে গিয়ে যে শিক্ষা হয়েছিল, সেটাই আসলে পরবর্তি নিবন্ধগুলো সুন্দর করতে যথেষ্ট সহায়তা করেছে।

উপলক্ষ


একটা ফেসবুক গ্রুপ দেখে শুরু করেছিলাম অমর একুশে গ্রন্থমেলা, তারপর আর থেমে থাকিনি। সবচেয়ে মজার ব্যাপার ছিলো গুড়পুকুরের মেলা, জন্মদিনের উপহার মোড়ানো খবরের কাগজ থেকে নিবন্ধটি শুরু করে দিয়েছিলাম। আর বাংলাদেশের দিবসগুলো এক জায়গায় করার প্রয়াসটা বলা যায় বিরক্তি থেকেই, এতো এতো দিবস কোনটা কোন সময় মনেই থাকে না।

তালিকা


তথ্যের খুব সহজ অথচ নিগূঢ় ভান্ডার হলো তালিকা। উল্লেখযোগ্যতা আছে এবং মোটামুটি কলেবরও বড়, এমন তালিকা তাই সুযোগ হলেই বানিয়ে ফেলি।

হুমায়ূন আহমেদ তাঁর "বহুব্রীহি" নাটকে বলেছিলেন:

একটা দিবসের অবতারণা মানে বোঝায় কাজটি শুধুমাত্র ঐ দিনের জন্যই সীমাবদ্ধ, অন্যদিন ঐ কাজটি করা যাবে না।

ভ্রমণ আকর্ষণ, প্রকৃতি, পরিবেশ ও স্থান


ভ্রমণ করতে ভালো তো লাগেই, প্রাকৃতিক পরিবেশে ভ্রমণ করতে বেশি ভালো লাগে। তাই স্থানগুলোর খোঁজ করতে করতে এক সময় নিজেই অন্যান্যদের খোঁজ দিয়ে দিলাম। তারপর একসময় দেখলাম জাতীয় উদ্যান, সাফারি পার্ক, অভয়ারণ্য টার্মগুলো মিলে যায়, এদের মধ্যে পার্থক্যসূচক নিবন্ধ থাকা দরকার, তাই অভয়ারণ্য নিবন্ধটা লিখে ফেললাম। এদিকে নিঝুম দ্বীপ ঘুরে শিখলাম দ্বীপ আর চর-এর পার্থক্য, তাই তাও জানানো জরুরি মনে করলাম, লিখে ফেললাম চর নিবন্ধটি। এদিকে বর্ষাবন নিবন্ধটি শুরু করলাম আবশ্যকীয় নিবন্ধের তালিকা থেকে। কিন্তু "বর্ষাবন" নামটি নাকি যথার্থ নয়। কিন্তু কেন জানি এই সুন্দর নামটা ছাড়তে আমার কোনোই ইচ্ছা হয় না। হাকালুকি হাওরের পূর্ব দিকে আমার বাড়ি, তাই হাকালুকি নিয়ে আমি লিখবো না তো কে লিখবে?

প্রতিষ্ঠান কিংবা সংগঠন


অনেক প্রতিষ্ঠানকেই আমার ভালো লাগে তাদের কার্যক্রমের জন্য। তাদের পরিচিতি তুলে না ধরলে তাদের অপমান করা হবে। আমি ছোট্ট মানুষ তাদেরকে তো আর স্বীকৃতি দিতে পারি না, তাই বিশ্বকোষীয় সংগঠনগুলোকে অন্তত বিশ্বকোষে স্থানতো দিতে পারি। তেজগাঁও কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন করলাম, তাই নিবন্ধটা আমারই লেখার দরকার ছিলো। বার্ড ক্লাবের কার্যক্রমকে বিশ্বকোষীয় বলে প্রমাণ করতে পারলাম না। পানাম নগর নিয়ে কাজ করতে গিয়ে লোক ও কারুশিল্প জাদুঘর নিয়ে লেখা।

পরিবেশ, পরিবেশ বিপর্যয় ও সংরক্ষণ


বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিবন্ধটা তৈরি করেছি যেন মানুষকে বোঝাতে পারি কী হচ্ছে বাংলাদেশে। বৈশ্বিক উষ্ণায়নটা যদি মানুষকে বোঝাতে পারি, তাহলে হয়তো তারা পরিবেশ রক্ষায় উদ্যোগী হবে। সুনামি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ঘুর্ণিঝড় আইলা সবই এই নিবন্ধটির প্রতিসঙ্গী নিবন্ধ।

রহস্য/বিতর্কিত বিষয়


কনস্পাইরেসি থিওরির প্রতি আগ্রহ আছে আমার, তাছাড়া আছে রহস্যমন্ডিত বিষয়েও। তাই পত্রিকায় ধারাবাহিক নিবন্ধ দেখে আর বসে থাকতে পারলাম না।

ধর্ম ও দর্শন


সব ধর্ম সম্পর্কেই আমার গভীর আগ্রহ। এতে অন্যের চোখে নিজের ধর্মটাকে দেখা যায়।

পশু-পাখি


প্রাণীকুল, পক্ষীকুল সবার প্রতিই আগ্রহ আছে। সুযোগ পেলেই তাই নিবন্ধ লিখি।

স্থাপনা


ভাষাতত্ত্ব


ভাষা বিষয়ে আগ্রহ পাই হঠাৎ করেই। হঠাৎই মনে হয় সিলেটি ভাষা সংরক্ষণ করা দরকার। তারপর হারিয়ে যাওয়া হরফের কাহিনী বইটি হাতে পাওয়ার পর প্রাচীনকালের ভাষা আর লিপি গুলোর প্রতিও আগ্রহ বাড়ে। এছাড়া সিলেটি নাগরী লিপি সিলেটের এক কিংবদন্তি, তার কথা না বললে রীতিমতো অপরাধ হবে।

বিলুপ্তি ও পুরাতত্ত্ব


চোখের সামনে চুড়িহাট্টা মসজিদ স্থান নিলো জাদুঘরে। কী আর করা বিলুপ্ত এই মসজিদ সম্পর্কে না লিখে উপায় ছিল না। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া নিবন্ধের প্রতিসঙ্গী নিবন্ধ হিসেবে লিখলাম সীতাকোট বিহার। সাপ্তাহিক ২০০০ থেকে টুকে রাখা তথ্য দিয়ে শুরু করলাম ভরতভায়না। আর কার্বন-১৪ হলো পুরাতত্ত্বের প্রাণ। (আমি "প্রত্নতত্ত্ব" শব্দটির বদলে "পুরাতত্ত্ব" শব্দটি ব্যবহারের পক্ষপাতি)

ব্যবসায় ও বাজারজাতকরণ


যে বিষয়ে গ্র্যাজুয়েশন করলাম তা নিয়ে বাংলা উইকিপিডিয়ায় আমিই লেখা শুরু করলাম। এর আগে এবিষয় সংশ্লিষ্ট কোনো নিবন্ধ ছিল না। সাথে যোগ হলো ব্যবসায় সংক্রান্ত সব ধরণের নিবন্ধ। শুরুটা কিন্তু খুব মজার: মাস্টার্স পরীক্ষা। পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছি, ভাবলাম উইকিপিডিয়ায় শেয়ার করলে কেমন হয়? ব্যস, বাজারজাতকরণ বিষয়ক নিবন্ধগুলো তারই ধারাবাহিকতা। ঘর থেকে পুরোন নোটখাতা ঝেড়ে ফেলার সময় লিখলাম কোম্পানি নিবন্ধটি। :)

রোগতত্ত্ব


অনেকদিন আগে প্রথম আলো থেকে বর্ণান্ধতা বিষয়ক তথ্যগুলো টুকে রেখেছিলাম। এক বন্ধুর প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে অবশেষে অবতারণা করলাম নিবন্ধটির।

বই-পুস্তক


প্রথম আলোতে সাইমন জাকারিয়ার রিভিউ-এ নকশী কাঁথার মাঠ-এর কাহিনী-সংক্ষেপ পড়ে যার-পর-নাই ভালো লেগে গেলো, আর ভালোলাগা শেয়ার করার উত্তম স্থান হলো উইকিপিডিয়া।

বস্তু-উপাদান


ভালোলাগার ক্ষেত্র


ড্যান ব্রাউন প্রতীক বিষয়ে আমাকে পাগল করে ছাড়লো। তাছাড়া প্রতীক বিষয়ে গবেষণাও করছি, সুতরাং...। আর বেসিক আলীর ব্যাপারে আমার যা মনে হয়: একসময় আমি ন্যান্সি কার্টুন পড়তাম আর ভাবতাম প্রতিদিন এতো এতো বুদ্ধি কোথায় পায় এরা? পরে বেসিক আলী প্রমাণ করে দিলো বাংলাদেশীরা কোনো অংশে কম যায় না। একজন ভক্ততো বলেই বসলেন, বেসিক আলী অনুবাদ করা হলে বাংলাদেশের বাইরেও ভালো বাজার পাবে। কিন্তু নিবন্ধটার উল্লেখযোগ্যতার প্রমাণ এখনও বাকি। যেকোনো সময় মোছা হয়ে যেতে পারে।

বিজ্ঞান ও মহাকাশ


শুদ্ধ বিজ্ঞান, ফলিত বিজ্ঞান আমার অন্যতম আগ্রহের বিষয়। তাছাড়া মহাকাশের আগ্রহ মাঝে মাঝেই চাগিয়ে উঠে। তাই জন্ম হয় মহাকাশবিজ্ঞানের কিছু নিবন্ধ।

অন্যান্য


বাকি সব অবদান


উপপাতা