নেপালের ধর্মবিশ্বাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

নেপালের ধর্মবিশ্বাস (২০১১)[১]

  ইসলাম (৪.৪%)
  অন্যান্য (০.৮%)
বোধিসত্ত্ব অবলোকিতেশ্বর, স্বর্ণবর্ণের ব্রোঞ্জ। নেপাল, ১৬শ শতাব্দ (সাধারণ যুগ)

নেপালের ধর্মবিশ্বাস বলতে বিভিন্ন গোষ্ঠী এবং বিশ্বাসের একটি বৈচিত্র্যতাকে বোঝায়; কিন্তু, নেপালের মুখ্য ধর্ম হলো হিন্দুধর্ম, যার ২০১১ সাল অনুযায়ী সর্বোমোট জনসংখ্যার হিসাব হলো ৮১.৩%। একটি জরিপ অনুযায়ী, নেপাল হলো পৃথিবী জুড়ে সর্বোচ্চ ধর্মীয় হিন্দু দেশ, যার সাথে গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু তীর্থযাত্রার কেন্দ্রস্থলগুলির মধ্যে বেশিরভাগই দেশটিতে কেন্দ্রীভূত। এটি হলো গণতন্ত্র জুড়ে একটি বহু-সাংস্কৃতিক, বহু-জাতিগত, বহু-ভাষাগত এবং বহু-ধর্মীয় দেশ। প্রভু শিব হলো নেপালের ব্যাপকভাবে গণ্য রক্ষক দেবতা। এছাড়াও, নেপালে অবস্থিত একটি বিশ্ব-খ্যাত ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান পশুপতিনাথ মন্দির, যেখানে তীর্থযাত্রার উদ্দেশ্যে পৃথিবী থেকে হিন্দুরা ভ্রমণ করেন। হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী, মহাকাব্য রামায়ণের দেবী সীতা জনক রাজার মিথিলা রাজ্যে জন্মগ্রহণ করেন। নেপালের জাতীয় প্রাণী হলো গাভী, যাকে হিন্দুধর্মে একটি পবিত্র প্রাণী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই কারণে, নেপালে গরু হত্যা বেআইনি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নেপালী বিবাহ পাত্রী এবং পাত্র

নেপালের এলাকার ধারণকৃত ইতিহাসে শুরুর থেকেই হিন্দু ধর্ম এবং বৌদ্ধ ধর্ম বিদ্যমান ছিল, যদিও মূলত ছিল শুধুমাত্র কিরাতধর্ম এবং অন্যান্য উপজাতীয় ধর্ম; মুসলিম ভারতীয়দের আগমনের সাথে, ১১শ শতাব্দিতে দেশটিতে ইসলাম ধর্মের চর্চা শুরু হয়। খ্রিস্টধর্মের জন্য সময়টি ছিল ১৭শ শতক, যখন ক্যাথলিক ভিক্ষুরা কাঠমাণ্ডু উপত্যকায় প্রবেশ করেন এবং খ্রিষ্ট ধর্মপ্রচারকরা দেশটি জুড়ে এখনো সক্রিয়। নেপালে শিখধর্মের উত্থান ঘঠে ১৮শ শতাব্দির সময়কালে এবং নেপাল জুড়ে ধর্মটির বিস্তার ঘঠে। কালানুক্রমে, জৈনধর্ম ১৯শ শতকে শুধুমাত্র কাঠমাণ্ডু এবং নেপালের কিছু জেলা জুড়ে নেপালে বিস্তৃত হয়। উভয়ই শিখধর্ম এবং জৈনধর্ম এখন নেপালের একটি অপরিহার্য অংশ এবং নেপালি ব্যক্তিত্ব এবং সাংস্কৃতিক দিকগুলোতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গঠন করে, যদিও তারা ভারতীয়-জন্মগ্রহণকারী নিরঞ্জনকৃত ধর্ম।

ফাল্গুন সুদি ১২, ১৮৮৪ বি.স. সময়ে রাজকীয় আদেশে ধার্মিক সহনশীলতা খুঁজে পাওয়া হয়, যা নেপালের রাজ্যের ভীমসেন থাপা থেকে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের প্রধানমন্ত্রীত্বের অধীনে হিন্দু শাহ রাজা রাজেন্দ্র বিক্রম শাহ দ্বারা জারি করা হয়:

আমাদের পিতা (অর্থাৎ রাজা গিরবান]]) একটি তামার পাতের লিপি উৎপাদন করেন যা ঘোষণা করে যে কেউ যেন হয়রান না হয় যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি ঐতিহ্যবাহী ধার্মিক চর্চা মান্য করেন (নিরঞ্জন)। আমরা এতদ্বারা আদেশটিকে পুনঃনিশ্চিত করছি।

— টুকুচা-গুম্বা'র ঝিমুরাদের জন্য রাজকীয় আদেশ[২]

২০১১ সালের জরিপ অনুযায়ী, ৮১.৩% নেপালি জনসংখ্যা ছিল হিন্দু, ৯.০% বৌদ্ধ, ৪.৪% মুসলমান, ৩.৩% কিরাত (দেশীয় জাতিগত ধর্ম), ১.৪% খ্রিস্ট, ০.১% শিখ, ০.১% জৈন এবং ০.৭% জনগণ অন্যান্য ধর্ম বা কোন ধর্মই অনুসরণ করেন না।[১] এই বিভিন্নতাটি ২০০১-এর জরিপ থেকে লক্ষ্যজনক হয়, যেখানে ৮০.৬২% নেপালী ছিল হিন্দু, ১০.৭৪% ছিল বৌদ্ধ, ৪.২০% মুসলিম, ৩.৬০% কিরান্ত (একটি স্বদেশ ধর্ম), ০.৪৫% খ্রিষ্টান এবং ০.৪% জনসংখ্যাকে বন ধর্মের মতো অন্যান্য শ্রেণীতে শ্রেণীভুক্ত করা হয়। ১৯৭১ সালে, জনসংখ্যার ৮৯.৪% ছিল হিন্দু, ৭.৫% বৌদ্ধ এবং পরিসংখ্যানগত ০% কিরান্ত। কিন্তু, ধর্ম দলগুলির উপর পরিসংখ্যান দ্বৈত-ধর্মবিশ্বাস চর্চার কারণে জটিল হয়ে যায়, বিশেষত হিন্দু এবং বৌদ্ধদের মাঝে।

১৯৯০-এর দশকের শুরুর দিকে ধর্মীয় দলগুলির ভৌগোলিক বিন্যাস হিন্দুদের একটি বিশালাংশ প্রকাশ করে, যা গণনায় ছিল প্রত্যেক ধর্মের জনসংখ্যার কমপক্ষে ৮৭%। বৌদ্ধদের সর্বোচ্চ একাগ্রতা পাওয়া যায় পূর্বদিকের পাহাড়, কাঠমাণ্ডু উপত্যকা এবং মধ্য তরাইতে; প্রত্যেক অঞ্চলে প্রায় ১০% লোক ছিল বৌদ্ধ। বৌদ্ধধর্ম নেওয়ার এবং তিব্বতী-নেপালী শ্রেণীগুলির মাঝে অধিক প্রচলিত ছিল। তিব্বতী-নেপালীদের মাঝে, হিন্দুধর্ম দ্বারা সর্বোচ্চ প্রভাবিত ছিলেন মগর, সুনুওয়ার এবং রাই লোকরা। হিন্দু প্রভাব নিম্ন-লক্ষণীয় ছিল গুরুঙ্গ, লিম্বু, ভোতে, তামাঙ্গ এবং থাকালি দলগুলির মাঝে, যারা তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের জন্য বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের নিযুক্ত করা বজায় রাখেন। যেহেতু উভয় হিন্দুধর্ম এবং বৌদ্ধধর্ম হলো নিরঞ্জিত ধর্ম, দুটিই সাধারণ একে অন্যের ধর্মচর্চা মান্য করে এবং অনেক লোক উভয়ের একাত্রিত ধর্মচর্চা পালন করেন। ২০১৫ সালে, নেপালে একটি নতুন সংবিধান অবলম্বন করা হয়, যা সকল ধর্মকে সমান অধিকার প্রদান করে। কিন্তু, অন্যদের তাদের ধর্ম পরিবর্তন করার জন্য প্রভাব সৃষ্টি করা নিষিদ্ধ।[৩] ভারতের হিন্দু রাজনৈতিক দলটির থেকে রাজনৈতিক চাপ সৃষ্টি করা হয় যে দেশটি পুনরায় একটি হিন্দু সরকার হয়ে ওঠা উচিত, কিন্তু এটি নেপালী সরকার থেকে নীতিবাচক প্রতিক্রিয়া পায়।

দেশটিতে খ্রিষ্ট মিশন দলগুলি দ্বারা ধর্মপ্রচারের উপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে প্রতিবাদ করে, যার কারণ ছিল দেশটির খ্রিষ্ট জনসংখ্যা যা এটির মুসলিম, বৌদ্ধ বা হিন্দু জনসংখ্যা থেকে অধিকতর গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেহেতু, বহু খ্রিষ্ট মিশন দলগুলি গোপনে কাজ করছে।

জনপরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

নেপালে মুখ্য ধার্মিক গোষ্ঠীগুলোর জন্য জনসংখ্যার প্রবণতা
ধর্ম জনসংখ্যা

% ১৯৫২/১৯৫৪

জনসংখ্যা

% ১৯৬১

জনসংখ্যা

% ১৯৭১

জনসংখ্যা

% ১৯৮১

জনসংখ্যা

% ১৯৯১

জনসংখ্যা

% ২০০১

জনসংখ্যা

% ২০১১

হিন্দুধর্ম ৮৮.৮৭% ৮৭.৬৯% ৮৯.৩৯% ৮৯.৫০% ৮৬.৫১% ৮০.৬২% ৮১.৩৪%
বৌদ্ধধর্ম ৮.৫৯% ৯.২৫% ৭.৫০% ৫.৩২% ৭.৭৮% ১০.৭৪% ৯.০৪%
ইসলাম ২.৫৪% ২.৯৮% ৩.০৪% ২.৬৬% ৩.৫৩% ৪.২০% ৪.৩৯%
কিরাত প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় ১.৭২% ৩.৬০% ৩.০৪%
খ্রিষ্টধর্ম প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় ০.০২% ০.০৩% ০.১৭% ০.৪৫% ১.৪১%
অন্যান্য/অনির্দিষ্ট ০.০১% ০.০৭% ০.০৫% ২.৪৯% ০.২৮% ০.৩৯% ০.৭৮%
নেপালের ধর্মসমূহ (২০১১-এর জরিপ)[৪]
ধর্ম জনসংখ্যা শতকরা
Hinduism ২১,৫৫১,৪৯২ ৮১.৩৪%
Buddhism ২,৩৯৬,০৯৯ ৯.০৪%
Islam ১,১৬২,৩৭০ ৪.৩৯%
Kirat ৮০৭,১৬৯ ৩.০৪%
Christianity ৩৭৫,৬৯৯ ১.৪১%
প্রকৃতি (প্রকৃতির চর্চা) ১২১,৯৮২ ০.৪৬%
Bon ১৩,০০৬ ০.০৪%
Jainism ৩,২১৪ ০.০১%
Bahá'í ১,২৮৩ ০.০১%
Sikhism ৬০৯ ০.০১%
অন্যান্য/অনির্দিষ্ট ৬১,৫৮১ ০.২৩%
সর্বমোট ২৬,৪৯৪,৫০৪ ১০০%

নেপালী সংস্কৃতিতে হিন্দুধর্ম[সম্পাদনা]

নেপালী ধর্মতত্ত্ব অনুসারে, দেবতা ব্রহ্মা, বিষ্ণু এবং শিব নেপালে হরিণের রূপে এসেছিলেন।

নে মুনি দ্বারা নেপালের প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

রাজা মুনি ধার্মিক অনুষ্ঠাংনগুলি বাগমতী এবং বিষ্ণুমতি নদীর সঙ্গমস্থান, টেকু-এ সম্পন্ন করতে অভ্যস্ত ছিলেন। তিনি গোপাল রাজবংশের প্রথম রাজা হিসেবে ভুক্তামানকে নির্বাচন করেন। গোপাল রাজবংশটি তখন থেকে তাদের ৩০০ বছর পর্যন্ত শাসন বজায় রাখেন, যার সাথে এই বংশের অন্তিম রাজা হিসেবে শাসন করেন ইয়াকশা গুপ্তা। এর পরবর্তীতে, ৫৫০-৮০০ বছর ধরে কিরাত রাজবংশ শাসনকাজ চালিয়ে রাখেন। বংশটির নিয়মে প্রথম রাজা ছিলেন কিরাত ইয়ালামবার এবং অন্তিম ছিলেন কিরাত গাস্তি।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Statistical Yearbook of Nepal - 2013। Kathmandu: Central Bureau of Statistics। ২০১৩। পৃষ্ঠা 23। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  2. Regmi 1987, পৃ. 18।
  3. Ochab, Ewelina U.। "Nepal's Protection Of Religious Freedom On Downward Spiral"Forbes 
  4. টেমপ্লেট:Onograph

সূত্র[সম্পাদনা]

  • Regmi, Mahesh Chandra (১৯৮৭), Regmi Research Series, 19, Regmi Research Centre