দার্শনিক আন্দোলন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

দার্শনিক আন্দোলন হলো একটা বিশেষ দার্শনিক শ্রেণির বাহ্যিক রূপ বা বর্ধিত আকর্ষণ, যার অন্তরালে রয়েছে কোন একটা বিশেষ বিষয় নিয়ে দার্শনিক চিন্তার জগতে পরিবর্তন আনার প্রচেষ্টা। প্রথম সারির দার্শনিক আন্দোলনগুলো প্রায়শঃ জাতি, ভাষা অথবা ঐতিহাসিক যুগের জাগরণের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট করা হয়েছে।

দার্শনিক আন্দোলনের ডিসকোর্স বিভিন্ন দার্শনিকের (এবং দর্শনের সাথে সংশ্লিষ্ট ঐতিহাসিক, শিল্পী, বিজ্ঞানী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের) একটা বড় অংশের দৃষ্টিভঙ্গির উপর নির্ভর করে সম্পাদিত হয়। অন্যভাবে বললে, ইতিহাসে অধিকাংশ দার্শনিক আন্দোলন ব্যৈক্তিক চিন্তাশীলদের (Individual thinkers) বিভিন্ন পন্থায় নারাজির কারণে হয়েছে। এটি সবসময় সম্ভব নয় এবং একে একটা ক্যারিকেচারের কিছু-অংশ বলতে পারি, সমর্থকদের সমমতামত থাকার কারণে এ-জাতীয় আন্দোলনকে পুষ্ট করা সম্ভব হয়েছে। অধিকন্তু, যে কোনো দার্শনিক আন্দোলনের ধারণা এক ধরনের প্যাটার্ন যার উপর ভিত্তি করে ব্যৈক্তিক চিন্তাশীলরা তাদের নিজস্ব বিশেষ ধারণার উৎকর্ষ ঘটান।

বিশেষ মত ও তত্ত্বের মতো আন্দোলন প্রায়ই ‘ইজম’ (-ism) বা ‘বাদ’ আকারে হাজির হতে পারে। নিচে আন্দোলনতূল্য কয়েকটি ‘বাদ’যুক্ত দার্শনিক ধারণা যুগভিত্তিক তুলে ধরা হলো:

প্রাচীন দার্শনিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

মধ্যযুগীয় দার্শনিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

আধুনিক দার্শনিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

সমকালিন দার্শনিক আন্দোলন[সম্পাদনা]