আধুনিকতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আধুনিকতা একটি দার্শনিক আন্দোলন যা ঊনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীতে পশ্চিমা সমাজে সুদূর প্রসারী ও ব্যাপক রূপান্তরের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক প্রবণতা ও পরিবর্তনের সাথে সাথে উত্থান লাভ করে। যেসব ফ্যাক্টর আধুনিকতাবাদকে বর্তমান রূপ দান করে তার মধ্যে শিল্পভিত্তিক সমাজ গঠন, নগরের দ্রুত বিকাশ ও প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতার প্রতিক্রিয়া উল্লেখযোগ্য। আধুনিকতাবাদ আলোকায়নের চিন্তাধারার অভ্রান্ততাকে প্রত্যাখ্যান করে এবং অনেক আধুনিকবাদী ধর্মীয় বিশ্বাস প্রত্যাখ্যান করেন।

সাধারণভাবে আধুনিকতাবাদের অন্তর্ভুক্ত সেইসব লোকেদের কাজ ও সৃষ্টিকর্ম যারা অনুভব করেন ঐতিহ্যবাহী শিল্প, স্থাপত্য, সাহিত্য, ধর্মীয় বিশ্বাস, দর্শন, সামাজিক প্রতিষ্ঠান, দৈনন্দিন কাজকর্ম এমনকি বিজ্ঞানও পুরোপুরি শিল্পায়িত সমাজের উত্থানের ফলে নতুন অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক কাঠামোতে অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও সেকেলে হয়ে পড়েছিল। কবি এজরা পাউন্ডের ১৯৩৪ সালের "এটি নতুন করে করুন" এর ডাক আন্দোলনটির যাকে তারা পুরনো দিনের সংস্কৃতি হিসাবে দেখত তার প্রতি অগ্রসর হওয়ার একটি স্পর্শপাথর ছিল। এর আলোকে এর নানা উদ্ভাবন যেমন চেতনা-প্রবাহের উপন্যাস, প্রায়শ্চিত্তমূলক ও বার সুরের সংগীত, ডিভিশনিস্ট ছবি ও বিমূর্ত চিত্রকলা সবই ঊনিশ শতকের অগ্রদূত ছিল।

আধুনিকবাদের একটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হল আত্মসচেতনতা এবং সামাজিক ও সাহিত্যিক ঐতিহ্য নিয়ে বিদ্রুপ, যা প্রায়ই কাঠামো নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার দিকে নিয়ে যেত ও ছবি, কবিতা ও দালান ইত্যাদি তৈরিতে ব্যবহার করা পদ্ধতি ও উপকরণ প্রতি মনোযোগ আকৃষ্ট করত। আধুনিকতা স্পষ্টতই বাস্তবতাবাদকে প্রত্যাখ্যান করে এবং অতীতের কাজগুলোকে নতুন করে দেখা, লেখা, বিবেচনা ও বিদ্রুপ করে।

কিছু ভাষ্যকাররা আধুনিকতাকে চিন্তার একটি ধারা হিসাবে ব্যাখ্যা করেন- এক বা একাধিক দার্শনিকভাবে সংজ্ঞায়িত বৈশিষ্ট্যগুলি, যেমন আত্নসচেতনতা বা আত্মোল্লেখ, যা সমস্ত নৃতাত্ত্বিক ও শিল্পকর্মের মধ্যে চলছে। বিশেষ করে পশ্চিমা জনগণ, যারা একে সমাজে চিন্তার প্রগতিশীল ভাবধারা বলে মনে করে, যা মানুষকে ব্যবহারিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা, বৈজ্ঞানিক জ্ঞান বা প্রযুক্তির সাহায্যে তাদের পরিবেশ সৃষ্টি, উন্নয়ন ও পুনঃনির্মাণ করার ক্ষমতাকে স্বীকৃতি প্রদান করে। এদিক থেকে আধুনিকতাবাদ যা অগ্রগতিকে আটকে রাখছিল তা খুঁজে বের করার লক্ষ্যে বাণিজ্য থেকে দর্শন পর্যন্ত অস্তিত্বের প্রতিটি দৃষ্টিভঙ্গির পুনর্বিবেচনাকে এবং একই প্রান্তে পৌঁছানোর জন্য নতুন উপায়ে তা প্রতিস্থাপন করার লক্ষ্যে উত্সাহ দেয়। অন্যরা নান্দনিক আত্মঃদর্শন হিসাবে আধুনিকতার দিকে দৃষ্টি আবদ্ধ করেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া এবং ফ্রেডরিখ নিৎশে (১৮৪৪-১৯০০খ্রি.) থেকে শুরু করেন স্যামুয়েল বেকেট (১৯০৬-১৯৮৯ খ্রি.) পর্যন্ত বিভিন্ন চিন্তাবিদ ও শিল্পীদের প্রযুক্তিবিরোধী ও নাস্তিবাদী দিকগুলো বিবেচনা করা হয়।

যদিও কিছু কিছু পণ্ডিত মনে করেন যে আধুনিকতা বিশ শতকেও অব্যাহত হয়েছে, অন্যদের মতে এটি বিলম্বিত-আধুনিকতা বা উচ্চ আধুনিকতাবাদে পরিবর্তিত হয়েছে, যে জায়গা পরে উত্তর-আধুনিকতা দখল করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শুরুঃ ঊনিশ শতক[সম্পাদনা]

এক সমালোচকের মতে, শিল্প বিপ্লব এবং বুর্জোয়া মূল্যবোধের প্রভাবের বিরুদ্ধে রোমান্টিকতাবাদের বিদ্রোহের মধ্য দিয়ে আধুনিকতাবাদের সূচনা হয়। "গ্রেফ বলেন, আধুনিকতাবাদের প্রধান লক্ষ্য ছিল ঊনবিংশ শতাব্দীর বুর্জোয়া সমাজকাঠামো এবং বিশ্বের প্রতি এর দৃষ্টিভঙ্গির সমালোচনা [...] আধুনিকতাবাদী রোমান্টিকতাবাদের মশাল হাতে ছিল।" ঊনিশ শতকের শ্রেষ্ঠ চিত্রশিল্পীদের একজন, চিত্রকলায় আলো, রঙ ও পরিপার্শ্বের ব্যবহারে নিরীক্ষকদের অগ্রদূত জেএমডব্লিউ টার্নার (1775-1851) রোমান্টিক আন্দোলনের সদস্য ছিলেন। তিনি "ফরাসী প্রতিচ্ছায়াবাদী ও তাই আধুনিকতাবাদী হিসাবে প্রত্যাশা করতেন প্রতিনিধিত্বের প্রচলিত নিয়মগুলো ভেঙে ফেলতে", যদিও তিনি বিশ্বাস করতেন তাঁর কাজের সবসময় গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক, পৌরাণিক, সাহিত্যিক ও অন্যান্য বর্ণনামূলক বিষয়বস্তু প্রকাশ করা উচিৎ।

ইংরেজ কবি এবং চিত্রশিল্পীরা তাদের "অনুপ্রেরণা ছাড়া কারিগরি দক্ষতা বিরোধী" মনোভাব থেকে প্রিটোফিলাইট ব্রাদারহুড গঠন করে ১৮৫০ সাল থেকে ভিক্টোরিয়ান ইংল্যান্ডে শিল্পের প্রভাবশালী হয়ে উঠার প্রবণতার বিরোধিতা করেন। তারা শিল্প সমালোচক জন রেসকিন (১৮১৯-১৯০০) দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন, যিনি ব্রিটেনের দ্রুত বর্ধমান শিল্পকেন্দ্রগুলিতে শহুরে শ্রমজীবী মানুষের জীবন উন্নত করার ক্ষেত্রে শিল্পের ভূমিকা সম্পর্কে দৃঢ় অনুভূতি ধারণ করতেন। শিল্প সমালোচক ক্লিমেন্ট গ্রিনবার্গ প্রিটোফিলাইট ব্রাদারহুডকে প্রাক-আধুনিকতাবাদী বলে বর্ননা করেনঃ "সেখানে লোকদের মধ্যে প্রিটোফিলাইট ব্রাদারহুড ছিল প্রাক-আধুনিকবাদী(তাদেরও আগে জার্মান নাজারিনরা ছিল প্রাক-প্রাক-আধুনিকবাদী)। র‍্যাফেলাইটরা মনেটের (১৮৩২-১৮৮৩) পূর্বাভাস দেয়, যার মাধ্যমে আধুনিকতাবাদী চিত্রকলা শুরু হয়। তারা সেই সময়ে প্রচলিত বাস্তববাদী চিত্রকলা যথেষ্ট সত্য নয় বলে মনে করে এর উপর অসন্তুষ্ট ছিলেন। দার্শনিক সেরেন কোয়ের্কেগার্ড (১৮১৩-১৮৫৫) এবং ফ্রেডরিখ নিৎশে (১৮৪৪-১৯০০) যুক্তিবাদের বিরোধিতা করেন। এদের দুজনেরই অস্তিত্ববাদের ধারণার উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ছিল।

যাইহোক, শিল্প বিপ্লব অব্যাহত থাকল। এর প্রভাবশালী উদ্ভাবনের মধ্যে রয়েছে বাষ্পচালিত শিল্পায়ন এবং বিশেষ করে ১৮৩০ এর দশক থেকে ব্রিটেনে রেলওয়ের উন্নয়ন, এবং পরবর্তীতে পদার্থবিজ্ঞান, প্রকৌশল এবং স্থাপত্যের অগ্রগতি এর সাথে যুক্ত হয়। ঊনবিংশ শতাব্দীর একটি প্রকৌশল কৃতিত্ব ছিল ১৮৫১ সালে দ্য গ্রেট এক্সিবিশনের জন্য নির্মিত বিশাল ঢালাই লোহা ও প্লেট গ্লাসের তৈরি প্রদর্শনী হল ক্রিস্টাল প্যালেস। প্যাডিংটন স্টেশন (১৮৫৪) এবং কিং অফ ক্রস স্টেশনসহ (১৮৫২) লন্ডনের প্রধান রেলওয়ে টার্মিনালগুলির নির্মাণে একটি অনুরূপ গ্লাস ও লোহার তৈরি স্মৃতিস্তম্ভ ব্যবহার করা হয়েছিল। এই প্রযুক্তিগত অগ্রগতিগুলো পরবর্তীতে ব্রুকলিন সেতু (১৮৮৩) এবং আইফেল টাওয়ারের (১৮৮২) মত কাঠামো নির্মাণের পথ তৈরি করে। আইফেল টাওয়ার মানুষের তৈরি বস্তুগুলি কত উঁচু হতে পারে তার সব সীমাবদ্ধতাগুলি অতিক্রম করে। প্রকৌশলের এসব কীর্তি ঊনিশ শতকের শহুরে পরিবেশ এবং মানুষের দৈনন্দিন জীবনে মৌলিক পরিবর্তন আনে। ১৮৩৭ সাল থেকে ইলেকট্রিক টেলিগ্রাফের বিকাশ এবং ১৮৩৫ সাল থেকে ব্রিটিশ রেলওয়ে কোম্পানির এবং পরের অর্ধশতাব্দীতে বিশ্বের বাকি অংশে প্রমাণ সময় গ্রহণের ফলে সময় সম্পর্কে মানুষের অভিজ্ঞতারও পরিবর্তন ঘটেছিল।

কিন্তু প্রযুক্তির এই অগ্রগতি অব্যাহত থাকলেও ১৮৭০ এর দশক থেকে , ইতিহাস ও সভ্যতা স্বভাবগতভাবে প্রগতিশীল এবং এই গতি সর্বদা কল্যাণকর এ ধারণা আক্রমণের শিকার হতে থাকে। যুক্তি উত্থাপিত হয় যে শিল্পী এবং সমাজের মূল্যবোধ কেবল ভিন্নই ছিল না, বরং তা সমাজের অগ্রগতিবিরোধী ছিল, এবং অগ্রসর হয়ে বর্তমান প্রক্রিয়ার অংশ হতে পারেনি। দার্শনিক সোফেনহার (১৭৮৮-১৮৬০ খ্রি.) (ইচ্ছাশক্তি এবং প্রতিনিধিত্ব হিসাবে বিশ্ব, ১৮১৯) আশাবাদ সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করে, এবং নিৎশেসহ পরবর্তী চিন্তাবিদদের উপর তাঁর এ ধারণার গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ছিল। সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চিন্তাবিদদের মধ্যে দুজন ছিলেন প্রাকৃতিক নির্বাচনের আলোকে জীবের উদ্ভবের (১৮৫৯) লেখক জীববিজ্ঞানী চার্লস ডারউইন (১৮০৯-১৮৮২) এবং দাস ক্যাপিটালের (১৮৬৭) লেখক রাজনৈতিক বিজ্ঞানী কার্ল মার্কস (১৮১৮-১৮৮৩)। ডারউইনের প্রাকৃতিক নির্বাচনের মাধ্যমে বিবর্তনের তত্ত্ব ধর্মীয় নিশ্চিততা এবং মানুষের সাতন্ত্র্যের ধারণাকে সীমাবদ্ধ করে দেয়। বিশেষ করে, মানুষও অন্যান্য "নিম্ন প্রাণী"র মত প্রবৃত্তির তাড়নায় তাড়িত হয় এই ধারণা কোনো মাহাত্ম্যবাদী আধ্যাত্মিকতা ধারণা সঙ্গে মেলানো কঠিন। কার্ল মার্কস যুক্তি দেন যে পুঁজিবাদী ব্যবস্থার মধ্যে মৌলিক পরস্পরবিরোধিতা রয়েছে এবং শ্রমিকরা কোনোভাবেই স্বাধীন নয়।

ফ্রান্সে আধুনিকতাবাদের শুরু[সম্পাদনা]

আধুনিকতাবাদের সূচনাকাল হিসাবে বিভিন্ন বিষয়ের ঐতিহাসিক ও লেখকগণ ভিন্ন ভিন্ন সময়ের কথা বলেন। উদাহরণস্বরূপ, ইতিহাসবিদ উইলিয়াম এভারডেলের মতে আধুনিকতা ১৮৭০ এর দশকে শুরু হয়েছিল, যখন গণিতবিদ রিচার্ড ডেডেকিন্ডের (১৮৩১-১৯১৬) ডেডেকিন্ড বিভাজন এবং লুডভিগ বোল্টজম্যানের (১৮৪৪-১৯০৬) পরিসংখ্যানগত তাপগতিবিদ্যা রূপক (বা দার্শনিক) অবিচ্ছিন্নতা ভেঙে যেতে শুরু করে। ইভারডেল মনে করেন যে ১৮৮৫-৮৬ সালে সিউরাতের "লা গ্রান্ডে জট দ্বীপে একটি রবিবারের বিকেল" নামের ছবি আঁকায় "বিন্দু" ব্যবহারের মাধ্যমে বিভাগীয়ীকরণের সাথে সাথে চিত্রকলার আধুনিকতা শুরু হয়েছিল। অন্য দিকে, দৃশ্যশিল্পের সমালোচক ক্লিম্ট গ্রিনবার্গ ইমানুয়েল কান্টকে (১৭২৪-১৮০৪) "প্রথম বাস্তব আধুনিকবাদী" বলে ডাকতেন, যদিও তিনি লিখেছিলেন, "ফ্রান্সে স্থানীয়ভাবে সাহিত্যে বোদলেয়ার, চিত্রকলায় মনেট এবং কথাসাহিত্যে ফ্লোবার্টের সঙ্গে সঙ্গে গত শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে সুরক্ষিতভাবে আধুনিকবাদ প্রবর্তিত হয়েছে বলা যায় (সঙ্গীত এবং স্থাপত্যে আধুনিকবাদের শুরু কিছুটা পরে এবং স্থানীয়ভাবে নয়)"। কবি বোদলেয়ারের Les Fleurs du mal (শয়তানের ফুল) এবং ফ্লাবার্টের উপন্যাস মাদাম বোওয়ারি উভয়ই ১৮৫৭ সালে প্রকাশিত হয়।

শিল্প এবং চিঠির ক্ষেত্রে ফ্রান্সে দুইটি গুরুত্বপূর্ণ পন্থার উদ্ভব হয়। প্রথমটি হল চিত্রকলায় প্রতিচ্ছায়াবাদ, যা স্টুডিওয়ের ভেতরের বাইরে খোলা জায়গায় ছবি আঁকায় গুরুত্ব দিত। প্রতিচ্ছায়াবাদী ছবিগুলো দেখায় মানুষ বস্তু দেখে না, বরং আলোকেই দেখতে পায়। এর অনুশীলনকারীদের মধ্যে বিভিন্ন উপদল থাকলেও এইটি প্রচুর সমর্থক পায় এবং প্রভাবশালী হয়ে উঠে। প্রাথমিকভাবে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় হওয়া সে সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক প্রদর্শনী প্যারিস স্যালন থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে প্রতিচ্ছায়াবাদীরা ১৮৭০ ও ১৮৮০ এর দশকে বাণিজ্যিক সড়কগুলিতে প্যারিস স্যালনের সময়ের সাথে মিলিয়ে বার্ষিক দলীয় প্রদর্শনী আয়োজন করে। ১৯৬৩ সালের একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল প্যারিস স্যালন থেকে প্রত্যাখ্যাত সমস্ত ছবি প্রদর্শন করার জন্য সম্রাট তৃতীয় নেপোলিয়নের Salon des Refusés। যদিও বেশিরভাগ ছবিই নিচুমানের শিল্পীদের ভালো ছবি ছিল, মনেটের কাজ প্রচুর মনোযোগ লাভ করে এবং আন্দোলনের বাণিজ্যিকীকরণের দরজা খুলে দেয়। দ্বিতীয় ফরাসি ধারাটি ছিল প্রতীকবাদ, সাহিত্যিক-ঐতিহাসিক চার্লস বোদলেয়ার (১৮২১-৬৭) এবং, আর্থার রিমবোদের (১৮৫৪-৯১) Une Saison en Enfer (নরকে এককাল, ১৮৭৩), পল ভারলেইন (১৮৪৪-৯৬), স্টিফানে মালার্মি (১৮৪২-৯৮), এবং পল ভেলেরি (১৮৭১-১৯৪৫).এর মত পরবর্তী সময়ের কবিরা যার অন্তর্ভুক্ত ছিল। প্রতীকবাদীরা "সরাসরি বর্ণনা এবং স্পষ্ট উপমার চেয়ে অভিভাবন এবং স্মৃতিচারণে জোর দেন", এবং "ভাষার গীতিময় বৈশিষ্ট্যে" বিশেষভাবে আগ্রহী ছিল। বলা হয় ১৮৮১ সালে ফ্রান্সের মন্টমার্ট্রে ব্ল্যাক ক্যাটের উদ্বোধনের মাধ্যমে কাবারেট (ফরাসি সরাইখানা) উদ্ভব হয়, পরবর্তীকালে চলচ্চিত্রের অগ্রদূত একক নাটকসহ নানা শিল্পের জন্মস্থান হিসাবে কাজ করে এবং ফ্রান্সের অবিচ্ছেদ্য শিল্পসংঘ তৈরি করে।

আধুনিকতাবাদের প্রাথমিক পর্যায়ে সিগমুন্ড ফ্রয়েডের (1856-1939) তত্ত্ব বেশ প্রভাবশালী ছিল। ফ্রয়েডের প্রধান কাজ হল জোসেফ ব্রুয়ারের সাথে মৃগীরোগ সংক্রান্ত গবেষণা (1895)। ফ্রয়েডের চিন্তাভাবনার মূল "মানসিক জীবনে অবচেতন সত্ত্বার প্রাধান্যের" ধারণা, যাতে সমস্ত ব্যক্তিক বাস্তবতা মৌলিক তাড়না এবং প্রবৃত্তির উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়, যার মাধ্যমে মানুষ বাইরের বিশ্বকে অনুভব করে। ফ্রয়েডের ব্যক্তিত্ত্বের বর্ণনাগুলির মধ্যে আবেগী এবং সামাজিক মূল্যবোধ থেকে প্রাপ্ত স্ব-আরোপিত বিধিনিষেধের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি অবচেতন মন রয়েছে।

আধুনিকতাবাদের আরেকজন অগ্রদূত ছিলেন ফ্রেডরিখ নিৎশে (১৮৪৪-১৯০০)। তাঁর দর্শনে মনস্তাত্ত্বিক তাড়নাগুলো, বিশেষ করে "ক্ষমতার ইচ্ছা" কেন্দ্রীয় বিষয় ছিল। "নিৎশে প্রায়ই জীবনকে ক্ষমতার ইচ্ছা বা প্রবৃদ্ধি ও স্থায়িত্বের সাথে এক করে দেখেন।" অন্যদিকে, হেনরি বার্গসন (185২-1941) বৈজ্ঞানিক দৃষ্টির ঘড়ি ধরা সময় এবং ব্যক্তিবিশেষের অভিজ্ঞতার আলোকে আপেক্ষিক সময়ের মধ্যে পার্থক্যে জোর দিয়েছেন। সময় এবং চেতনা নিয়ে তাঁর কাজের "বিংশ শতাব্দীর ঔপন্যাসিকদের উপর একটি বড় প্রভাব ছিল," বিশেষত ডরোথি রিচার্ডসন, জেমস জয়েস এবং ভার্জিনিয়া ওলফ (188২-1941) এর মত আধুনিকবাদী চেতনা-প্রবাহ ভিত্তিক ঔপন্যাসিকদের মধ্যে। বার্গেনের দর্শনেরএসবের বাইরেও élan vital বা জীবনশক্তির গুরুত্ব ছিল, যা "সবকিছুর সৃজনশীল বিবর্তন নিয়ে আসে।" বুদ্ধিবৃত্তির গুরুত্ব অস্বীকার না করলেও তাঁর দর্শনও স্বতঃস্ফূর্ততাকে চড়া মূল্য দেয়।

"অপরাধ এবং শাস্তি" ও "খামাররুজ ভাইয়েরা" উপন্যাসের লেখক ফিওদর দস্তয়ভস্কি (১৮২১-৮১), "ঘাসের পাতা" কাব্যগ্রন্থের জন্য ওয়াল্ট হুইটম্যান (১৮১২-২৯) এবং দামেস্ক ট্রিলজি (১৮৯৮-১৯০১), স্বপ্নের নাটক (১৯০২) ও ভৌতিক সোনাতা (১৯০৭) এর মত শেষদিকে লেখা নাটকের জন্য আগস্ট স্ট্রেন্ডবার্গকে আধুনিকতাবাদী সাহিত্যের অগ্রদূত বিবেচনা করা হয়। একটি নারীর পোট্রেট (১৮৮১) এর জন্য হেনরি জেমসকেও গুরুত্বপূর্ণ অগ্রদূত বলা হয়।

বিশ শতকের প্রথম দশকের শুরুর দিকে রোমান্টিকতাবাদ থেকে পাওয়া আদর্শের সংঘর্ষ ও এখনও পর্যন্ত অজানা জ্ঞানকে ব্যাখ্যা করার প্রবণতা ছিল। আধুনিকতাবাদের প্রথম স্রোতে লেখকরা একে বিদ্যমান প্রবণতার একটি প্রসার হিসাবে দেখেন এবং মনে করেন এর মাধ্যমে লেখক ও শিল্পীরা বুর্জোয়া সংস্কৃতিতে সাধারণ মানুষের প্রতিনিধিত্বের অলিখিত চুক্তি ভঙ্গ করেছেন।