জর্জ গিয়েরি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জর্জ গিয়েরি
George Geary c1930.jpg
আনুমানিক ১৯৩০ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে জর্জ গিয়েরি
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজর্জ গিয়েরি
জন্ম(১৮৯৩-০৭-০৯)৯ জুলাই ১৮৯৩
বারওয়েল, লিচেস্টারশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৬ মার্চ ১৯৮১(1981-03-06) (বয়স ৮৭)
লিচেস্টার, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার, কোচ
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২২০)
১০ জুলাই ১৯২৪ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট২৫ জুন ১৯৩৪ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৪ ৫৪৯
রানের সংখ্যা ২৪৯ ১৩,৫০১
ব্যাটিং গড় ১৫.৫৬ ১৯.৭৯
১০০/৫০ ০/২ ৮/৫৪
সর্বোচ্চ রান ৬৬ ১২২
বল করেছে ৩,৮১০ ১১৬,২৯২
উইকেট ৪৬ ২,০৬৩
বোলিং গড় ২৯.৪১ ২০.০৩
ইনিংসে ৫ উইকেট ১২৫
ম্যাচে ১০ উইকেট ৩০
সেরা বোলিং ৭/৭০ ১০/১৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৪/০ ৪৫০/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২২ জুন ২০১৮

জর্জ গিয়েরি (ইংরেজি: George Geary; জন্ম: ৯ জুলাই, ১৮৯৩ - মৃত্যু: ৬ মার্চ, ১৯৮১) লিচেস্টারশায়ারের বারওয়েল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯২৪ থেকে ১৯৩৪ সময়কালে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে লিচেস্টারশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট মিডিয়াম বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ক্রিকেট বিশ্বে জর্জ গিয়েরি শুরুরদিকে বেশ অগোছালোভাবে শুরু করতেন। ১৯১২ সালে কিছু সময়ের জন্য লিচেস্টারশায়ারের পক্ষে খেলেন। ১৯১৩ সালের মধ্যেই অত্যন্ত দূর্বলমানের বোলিং সমৃদ্ধ দলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত বোলারে পরিণত করতে সক্ষমতা দেখিয়েছেন। এরজন্য অবশ্য মর্মান্তিকভাবে টম জয়েসের অসুস্থতা দায়ী ছিল। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর পূর্বের বছরে মাত্র ২০ রানের অধিক রান দিয়ে ১১৪ উইকেট দখল করেন যা দলের অন্য বোলারদের তুলনায় অনেক বেশী ছিল। লিচেস্টারশায়ারের পক্ষে ইউয়ার্ট অ্যাস্টিলের ২১৩১ উইকেটের পর দ্বিতীয় সর্বাধিক ১৭৫৯টি প্রথম-শ্রেণীর উইকেট পেয়েছেন।[১]

বিশ্বযুদ্ধে তিনি বিমানবাহিনীতে যোগ দেন। বিমানের প্রপেলারে পা কেটে যায় তাঁর। ফলশ্রুতিতে, তাঁর অসম্ভব দম ও শক্তিশালী শারীরিক গড়নে সাময়িকভাবে বাঁধার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯১৯ সালে পুণরায় খেলার জগতে তাঁকে দেখা যায়। কিন্তু, উইকেট প্রতি ৩৪ রানেরও বেশী খরচ করে ফেলেন। ১৯২০ সালে প্রথম-শ্রেণীর কোন খেলায় অংশ নেননি তিনি। পেশাদারী পর্যায়ে ল্যাঙ্কাশায়ার লীগে খেলেন। ১৯২১ সালে সপ্তাহের মাঝামাঝি অনুষ্ঠিত কিছু খেলায় অংশ নিতে থাকেন। স্থবির পিচেও তিনি ২৩ উইকেট লাভ করায় পুণরায় লিচেস্টারশায়ারের পক্ষে খেলার জন্য নিজেকে যুক্ত করেন।

বেশ সফলতা পেলেও ১৯২২ সালে তুলনামূলকভাবে বেশ কম সফলতা পেয়েছেন। কিন্তু পরের বছর উইকেটপ্রতি আঠারো রানেরও কম খরচ করে ১১৫ উইকেট দখল করেন। ১৯২৪ সালে লিচেস্টারশায়ারের ব্যাটিং দূর্বলতার মাঝেও বেশ ভালো করেন। ২৪ গড়ে ৮৬৪ রান তুলেন তিনি। জুন মাসে আঘাতের কারণে অল্পের জন্য ‘ডাবল’ লাভে ব্যর্থ হন।

লিচেস্টারশায়ারে অসামান্য ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনের কারণে জর্জ গিয়েরি আর্থিক সহায়তা লাভের খেলার জন্য মনোনীত হন। কিন্তু বৃষ্টির কারণে তাতে ব্যাপক প্রভাব ফেলে।

১৯২৫ সালে তিনি আরও নিজেকে মেলে ধরেন। কেন্টের বিপক্ষে নিজস্ব প্রথম সেঞ্চুরি করেন। জুন, ১৯২৬ সালে গিয়েরি শক্তিশালী ব্যাটিংসমৃদ্ধ দলগুলোর বিপক্ষে দুইবার সেরা খেলা উপহার দেন। হ্যাম্পশায়ার ও ল্যাঙ্কাশায়ারের বিপক্ষে উভয় খেলায় বেশ সহজে চৌদ্দটি করে উইকেট পান। পরের খেলাটি ল্যাঙ্কাশায়ারের জন্য দেড় বছরের মধ্যে প্রথম পরাজয় ছিল।

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

ইংল্যান্ডের পরীক্ষামূলক দল গঠনের কারণে দূর্বলমানের দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক ঘটে। তখন ইংল্যান্ড দল সিরিজ জয় করে নেয় ও কোন গুরুত্বতা ছিল না। ১০ জুলাই, ১৯২৪ তারিখে টেস্ট অভিষেক ঘটে জর্জ গিয়েরির।

১৯২৬ সালে তিনি দুইটি টেস্টে অংশগ্রহণ করেন। ১৯২৬ সালের অ্যাশেজ সিরিজে হেডিংলি টেস্টে অংশ নেন। অস্ট্রেলিয়া দল ৪৯৪ রানে ইনিংস শেষ করে।[২][৩][৪] দশ নম্বরে ব্যাট হাতে মাঠে নামেন জর্জ ম্যাকাউলি। দৃঢ়চেতা মনোভাব নিয়ে অগ্রসর হন। ইংল্যান্ডের সংগ্রহ তখন ১৮২/৮ ও পরাজয়ের সমূহ আশঙ্কায় ধুকছিল। জর্জ ম্যাকউলের ৭৬ রানের দারুণ ব্যাটিংয়ের কল্যাণে হেডিংলিতে ইংল্যান্ডকে সমূহ পরাজয়ের হাত থেকে রক্ষা করেন। এ জুটি ১০৮ রান তুলে ড্র করায়।[২][৫] এছাড়াও তিনটি উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।

১৯২৭ সালে খুব কম উইকেট পেলেও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাটিং উইকেটে অসাধারণ বোলিং করেন। ফলশ্রুতিতে, তিনি সেরা বিপজ্জ্বনক বোলার হিসেবে স্বীকৃতি পান ও সিডনি বার্নসের সাথে তাঁকে তুলনা করা হয়। জোহেন্সবার্গে বারো উইকেট পেয়েছিলেন। তবে, হাতে আঘাতের কারণে সিরিজের শেষ তিন টেস্টে দলের বাইরে থাকেন। ১৯২৮ সালে অনেকগুলো খেলায় কিছুটা সফলতার স্বাক্ষর রাখেন। বেশ কমই বল হাতে অগ্রসর হন। মাত্র দশ উইকেট পেলেও অনেক রান দিয়ে ফেলেন।

তাঁর শক্তিশালী শারীরিক গড়নের কারণে অস্ট্রেলিয়ার অনমনীয় পিচে অন্যতম ভূমিকা রাখার সমূহ সম্ভাবনায় তখনও তাঁকে দলে রাখা হয়েছিল। তিনি তাঁর সক্ষমতা যথাযথভাবে তুলে ধরেন। শক্তিশালী ব্যাটিংসমৃদ্ধ দলে ফিল্ডিংয়ের জন্য তাঁকে রাখা হয়। ফলশ্রুতিতে, ফিল মিডআর্নেস্ট টিল্ডসলের ন্যায় সেরা খেলোয়াড়কে টেস্ট দলে ঠাঁই হয়নি।

১৯২৮-২৯ মৌসুমের অ্যাশেজ সফরে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের শেষ টেস্টে বিলিয়ার্ড-টেবিল ধরনের উইকেটে অত্যন্ত গরম আবহাওয়ায়ও তিনি ৮১ ওভার বোলিং করেছিলেন।[৬][৭]

এরপর স্বীয় ছন্দে আসার পর ১৯২৯ সালে সেরা মৌসুম কাটে তাঁর। বৃষ্টিবিঘ্নিত খেলায় তুলনামূলকভাবে দূর্বল গ্ল্যামারগনের ব্যাটিং লণ্ডভণ্ড করে দেন। মাত্র ১৮ রানে ১০ উইকেট পান তিনি। ঐ সময়ে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটের ইতিহাসে সেরা বোলিং পরিসংখ্যান ছিল এটি। এছাড়াও নিজস্ব সেরা ব্যাটিং করে ৯২৩ রান তুলেন। ১৯৩০ সালে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অন্যান্য বোলারের ন্যায় তিনিও ডন ব্র্যাডম্যানের ব্যাটিংয়ের কাছে ম্লান হয়ে যান। এছাড়াও, আঘাতে জর্জড়িত হন তিনি। বিল ভোসবিল বোসের উত্থানে পরবর্তী বছরগুলোয় তাঁকে আর টেস্ট দলে অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি। তখনও তিনি ১৯৩১ ও ১৯৩২ সালের শুষ্ক গ্রীষ্মে বেশ ভালো বোলিং করেছিলেন। কিন্তু, ১৯৩৩ সালে তাঁর মন্দ সময় অতিবাহিত হয়। মাত্র ৪০ উইকেট পান ও ইনিংসে কোন পাঁচ উইকেটের সন্ধান পাননি।

আঘাত স্বত্ত্বেও ১৯৩৪ সালে সুস্থ হয়ে বেশ ভালো বোলিং করেন। ফলশ্রুতিতে, দুই টেস্ট খেলার জন্য মনোনীত হন। ক্ল্যারি গ্রিমেটবিল ও’রিলির স্পিন বোলিং মোকাবেলা করে ট্রেন্ট ব্রিজে ৫৩ রান তুলেন। এটিই তাঁর শেষ টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

খেলার ধরন[সম্পাদনা]

ডানহাতি মিডিয়াম পেস বোলিংয়ের অধিকারী ছিলেন জর্জ গিয়েরি। নতুন বলে বেশ কার্যকরীসম্পন্ন সুইং করাতে সিদ্ধহস্তের ছিলেন। কিন্তু, সর্বাধিক সফলতা পেয়েছেন পেস ও কাটের সমন্বয়ে গড়া উচ্চমানের বোলিং ভিন্নতার কারণে।[৮] স্থবির পিচেও অত্যধিকসংখ্যক ওভার বোলিং করে গেছেন।

উচ্চতাকে কাজে লাগিয়ে ও অত্যন্ত মজবুত দৈহিক গড়নের কারণে বাউন্স প্রদানসহ দীর্ঘ সময় ধরে অস্ট্রেলীয় পরিবেশে সফলতা পেয়েছেন। ফলশ্রুতিতে তাঁর তুলনায় অন্যান্য ইংরেজ বোলারের স্বল্প এগিয়ে থাকা উচ্চতার স্বীকৃতি ধ্বংসের কারণ হয়ে দাঁড়ান তিনি।

নিচেরসারিতে ব্যাটিং করে প্রভূতঃ সফলতা পেয়েছেন। বল মোকাবেলা করে বড় ধরনের রান না পেলেও দ্রুতগতিতে রান তুলেছেন জর্জ গিয়েরি। তবে তিনি কখনও এক পঞ্জিকাবর্ষে সহস্রাধিক রান সংগ্রহ করতে পারেননি। ১৯২৯ সালে ব্যক্তিগত সেরা ৯২৩ ও ১৯২৫ সালে ৯০০ রান পেয়েছেন।

গিয়েরি’র নিজের দিনগুলোয় উঁচুমানের ব্যাটসম্যান ছাড়া সংগৃহীত রানগুলো কাউন্টি দলের জন্য অমূল্য সম্পদরূপে ধারাবাহিকভাবে ভূমিকা রাখতো। উল্লেখযোগ্য উচ্চতা থাকায় গিয়েরি স্লিপে চমৎকার ক্যাচ নিতে সক্ষমতা দেখিয়েছেন। বোলিং ছাড়াও প্রায়শঃই নিজেকে কাউন্টি দলের শীর্ষস্থানীয় ফিল্ডার হিসেবে তুলে ধরতেন।

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৩৮ সালে ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণ করেন জর্জ গিয়েরি। তাস্বত্ত্বেও ক্রিকেটকে তিনি পুরোপুরি দূরে ঠেলে দিতে পারেননি। বিশ বছরেরও অধিক সময় চার্টারহাউজে ক্রিকেট কোচের দায়িত্বে ছিলেন। ঐ সময় তিনি যে-কোন বিদ্যালয়ের মধ্যে অন্যতম সেরা কোচের মর্যাদা পান। স্মর্তব্য যে, প্রতিভাধর ব্যাটসম্যান পিটার মে স্বীকার করেন যে, গিয়েরি’র প্রশিক্ষণের ফলেই তাঁর খেলার উন্নতি ঘটেছিল। ১৯৫৯ সালে চার্টারহাউজ ত্যাগ করে রাগবি স্কুলে যোগ দেন। সেখানে তিনি তরুণ খেলোয়াড়দের খেলার উন্নয়নে যথাসাথ্য চেষ্টা চালান। সর্বদাই মনেপ্রাণে পুরোটা ঢেলে দিতেন।

স্বাস্থ্যের পতন ঘটতে থাকলে সাতাশি বছর বয়সে ৬ মার্চ, ১৯৮১ তারিখে তাঁর দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Home of CricketArchive"। Cricketarchive.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  2. "England v Australia 1926"Wisden Cricketers' Almanack। London: John Wisden & Co। ১৯২৭। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১০ 
  3. Cardus, Neville (১৯৫৯)। "Charles Macartney and George Gunn"Wisden Cricketers' Almanack। London: John Wisden & Co। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১০ 
  4. Perry, Roland (২০০২)। Bradman's best Ashes teams: Sir Donald Bradman's selection of the best ashes teams in cricket history। Milsons Point, New South Wales: Random House Australia। পৃষ্ঠা 110–12। আইএসবিএন 1-74051-125-5 
  5. "England v Australia in 1926"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১০ 
  6. See Most balls bowled in an innings; note that Geary’s figures are the highest by any bowler of medium pace or above except Fazal Mahmood who was bowling for a team with only two fit bowlers.
  7. See Maximum temperatures for 086071 Melbourne Regional Office in 1929. Note that the innings where Geary bowled 81 overs was largely on a day that reached ৩৬.১ °সে (৯৭.০ °ফা)
  8. Woodcock, John (editor); Wisden Cricketers’ Almanack, 119th edition (1982); p. 1200. আইএসবিএন ০৩৫৬০৮৫৯১০

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
প্যাট মর্ফি
পেশাদার
নেলসন ক্রিকেট ক্লাব

১৯২০-২১
উত্তরসূরী
টেড ম্যাকডোনাল্ড