চম্পানের-পাওয়াগড় প্রত্নতাত্ত্বিক উদ্যান

স্থানাঙ্ক: ২২°২৯′০০″ উত্তর ৭৩°৩২′০০″ পূর্ব / ২২.৪৮৩৩৩° উত্তর ৭৩.৫৩৩৩৩° পূর্ব / 22.48333; 73.53333
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চম্পানের-পাওয়াগড় প্রত্নতাত্ত্বিক উদ্যান
ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান
মানদণ্ডসাংস্কৃতিক: iii, iv, v, vi
সূত্র1101
তালিকাভুক্তকরণ২০০৪ (২৮তম সভা)

চম্পানের-পাওয়াগড় প্রত্নতাত্ত্বিক উদ্যান (ইংরেজি: Champaner-Pavagadh Archaeological Park) গুজরাট রাজ্যের পাঁচমহল জেলায় অবস্থিত। ২০০৪ সালের প্ৰাকৃতিক ডথান হিসেবে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান এর মৰ্যাদা লাভ করে। এখানে অনেক অখননকৃত প্রত্নতাত্ত্বিক, ঐতিহাসিক এবং জীৱ-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সম্পদ রয়েছে। এই মনোরম প্ৰাকৃতিক পরিবেশে অনেক প্ৰাগৈতিহাসিক স্থান আছে। তাৰোপৰি ইয়াত প্ৰাচীন হিন্দু রাজধানী দুৰ্গনগর এবং ষোড়শ শতাব্দীর গুজরাটের রাজধানী, অষ্টম-চতুৰ্দশ শতাব্দীর মধ্যবৰ্তী সময়ে নিৰ্মিত অনেক অন্যান্য ধ্বংসাবশেষ, দুৰ্গ, প্ৰাসাদ, ধৰ্মীয় স্থাপনা, ধ্বংসপ্ৰাপ্ত আবাসস্থল, কৃষি স্থাপনা, পানীর উৎস ইত্যাদি রয়েছে। পাওয়াগড় পাহাড়ের চূড়ায় কালিকামাতা মন্দির টি একটি গুরুত্বপূৰ্ণ ধর্মীয় স্থান। এখানে বছরের সকল সময়ে দৰ্শনাৰ্থীর ভিড় থাকে৷ এই প্ৰত্নতাত্ত্বিক অঞ্চলটি প্ৰাচীন মোগল সাম্রাজ্যর এক অবিকৃত ছবি তুলে ধরে৷[১][২]

ভৌগোলিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

পাওয়াগড় পর্বতের রাস্তা

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাথমিক ইতিহাস
কাগজে তৈলচিত্র , চম্পানের, ১৮৭৯
বিনষ্ট গম্বুজ , ১৮৯৩
পাওয়াগড় পর্বতের সাধারণ দৃশ্য।
পরবর্তী ইতিহাস
নাগিনা মসজিদের সাধারণ দৃশ্য , ১৮৮৫

স্মৃতিস্তম্ভ[সম্পাদনা]

লিলি গম্বুজ মসজিদ
Kevada Masjid
শহরের মসজিদ
প্রাচ্যের দুর্গ ফটক

দুর্গ ও প্রাচীর[সম্পাদনা]

দুর্গ প্রাচীর

মন্দির[সম্পাদনা]

জৈন মন্দির, পাওয়াগড়

মসজিদ[সম্পাদনা]

জামে মসজিদ

প্রাসাদ[সম্পাদনা]

কবুতরখানা প্যাভিলিয়ন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Champaner-Pavagadh Archaeological Park"। UNESCO। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-০৭ 
  2. "Champaner-Pavagadh (India) No. 1101" (pdf)। UNESCO। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-০৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


টেমপ্লেট:India stub