গুরশরণ সিং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গুরশরণ সিং
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামগুরশরণ সিং
জন্ম (1963-03-08) ৮ মার্চ ১৯৬৩ (বয়স ৫৮)
অমৃতসর, পাঞ্জাব, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাব্যাটসম্যান, রেফারি, কোচ
সম্পর্কযশপাল সিং (ভ্রাতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৯১)
২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৯০ বনাম নিউজিল্যান্ড
একমাত্র ওডিআই
(ক্যাপ ৭৭)
৮ মার্চ ১৯৯০ বনাম নিউজিল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১০৪
রানের সংখ্যা ১৮ ৫,৭১৯
ব্যাটিং গড় ১৮.০০ ৪.০০ ৪৩.৩২
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ১৪/৩০
সর্বোচ্চ রান ১৮ ২৯৮*
বল করেছে ১৬৪
উইকেট
বোলিং গড় ৩০.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ১/– ১০৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

গুরশরণ সিং (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; জন্ম: ৮ মার্চ, ১৯৬৩) পাঞ্জাবের অমৃতসর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী রেফারি ও কোচ এবং সাবেক ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯০-এর দশকের সূচনালগ্নে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে দিল্লিপাঞ্জাব দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৮১-৮২ মৌসুম থেকে ১৯৯৪-৯৫ মৌসুম পর্যন্ত গুরশরণ সিংয়ের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। আন্তর্জাতিক দলের বিপক্ষে নিজস্ব প্রথম-শ্রেণীর প্রথম খেলায় শতরানের গৌরব অর্জন করেন। ১৯৮১-৮২ মৌসুমে সফররত ইংরেজ দলের বিপক্ষে ভারতের অনূর্ধ্ব-২২ দলের সদস্যরূপে এ কীর্তি লাভ করেন। তবে, তার খেলোয়াড়ী জীবনে পরবর্তীকালে এ প্রতিশ্রুতিশীলতা রক্ষা করতে পারেননি। দুই মৌসুম পর আহমেদাবাদে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে মাঠে নামেন। পরিবর্তিত খেলোয়াড় হিসেবে শর্ট লেগ অঞ্চলে অপ্রত্যাশিতভাবে চারটি ক্যাচ মুঠোয় পুড়েন।

১৯৮৮-৮৯ মৌসুমে রুদ্ধশ্বাসপূর্ণ খেলায় সম্পৃক্ত ছিলেন। রঞ্জী ট্রফির কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলার বিপক্ষে ২৯৮ রানে অপরাজিত ছিলেন। দলীয় সঙ্গীদের অভাবে তার দল বাংলার সংগৃহীত ৫৯৪ রানের লক্ষ্যমাত্রায় ৪৩ রানে পরাজিত হয়। তার এ দৃঢ়তাপূর্ণ ইনিংসের স্বীকৃতিস্বরূপ অবশেষে পরবর্তী মৌসুমে নিউজিল্যান্ড সফরে রাখা হয়। রঞ্জী ট্রফিতে ৭০ খেলায় অংশ নিয়ে ৪৭.২৯ গড়ে ৪০৬৭ রান সংগ্রহ করতে পেরেছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্ট ও একটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন গুরশরণ সিং। ২২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯০ তারিখে অকল্যান্ডে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। এছাড়াও, ৮ মার্চ, ১৯৯০ তারিখে হ্যামিল্টনে অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে একটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার।

১৯৮৩-৮৪ মৌসুমে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে রজার বিনি’র পরিবর্তে অতিরিক্ত খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামেন। আহমেদাবাদে সিরিজের ঐ তৃতীয় টেস্টে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টেস্টে চার ক্যাচ তালুবন্দী করেন।[১] ঘরোয়া ক্রিকেটে দূর্দান্ত খেলার স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৮৯-৯০ মৌসুমে নিউজিল্যান্ড গমনার্থে তাকে ভারত দলে রাখা হয়। সেখানে তিনি তার একমাত্র টেস্টে অংশ নেন। সাত নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

মাঠের বাইরে দিল্লিভিত্তিক ইন্ডিয়া স্টিল অথরিটির জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে ছিলেন।[২] আগস্ট, ২০১৮ সালে অরুণাচলপ্রদেশ দলের কোচ হিসেবে নিযুক্তি লাভ করেন।[৩] সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সালে উত্তরাখণ্ডের কোচ হিসেবে মনোনীত হন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "West Indies tour of India, 3rd Test: India v West Indies at Ahmedabad, Nov 12-16, 1983"। ESPN। 
  2. "Remembering Gursharan who made Tendulkar's first Irani hundred possible"। Mid-day। 
  3. "BCCI eases entry for new domestic teams as logistical challenges emerge"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৮ 
  4. Lokapally, Vijay (৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯)। "Gursharan Singh named Uttarakhand coach"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]