আবু আহসান মোহম্মদ সামসুল আরেফিন সিদ্দিক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক
AAMS Arefin Siddique.jpg
মে, ২০১৬ সালে টিএসসিতে বাকবিশিস সেমিনারে ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক
জন্ম (1953-10-26) ২৬ অক্টোবর ১৯৫৩ (বয়স ৬৫)
বাসস্থানবাংলাদেশ
পেশাঅধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
নিয়োগকারীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
যে জন্য পরিচিতগণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য
উপাধিঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য
স্থিতিকালজানুয়ারি ১৫, ২০০৯ - ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

আবু আহসান মোঃ সামসুল আরেফিন সিদ্দিক (জন্ম: ২৬ অক্টোবর, ১৯৫৩) একজন বাংলাদেশী অধ্যাপক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য।[১] ২০০৯ সালের ১৫ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ অধ্যাপক সিদ্দিককে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৭তম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেন। তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক। অধ্যাপক সিদ্দিক ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

জন্ম ও পরিবার[সম্পাদনা]

অধ্যাপক আরেফিন সিদ্দিক ১৯৫৩ সালের ২৬ অক্টোবর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নে অবস্থিত।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

অধ্যাপক আরেফিন সিদ্দিক ১৯৬৯ সালে এসএসসি এবং ১৯৭১ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তিনি ১৯৭৩ সালে নরসিংদী কলেজ থেকে বিএ(ডিগ্রি পাস) এবং ১৯৭৫ সালে সাংবাদিকতায় এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৮৬ সালে ভারতের মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয় হতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় হতে উচ্চতর পেশাগত প্রশিক্ষণ লাভ করেন। তিনি সাউদার্ন ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিজিটিং ফেলো হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৮০ সালে অধ্যাপক সিদ্দিক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত তিনি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৪১৯৯৬ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি'র সাধারণ সম্পাদক এবং ২০০৪২০০৫ সালে ঐ সমিতির নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন।[২] তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান ছিলেন। [৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দেখুন www.univdhaka.edu
  2. দৈনিক আমার দেশ; জানুয়ারি ১৬, ২০০৯
  3. [১]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]