আবু সাঈদ চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আবু সাঈদ চৌধুরী
বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী.jpg
দ্বিতীয় বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
কাজের মেয়াদ
জানুয়ারি ১২, ১৯৭২ – ডিসেম্বর ২৪, ১৯৭৩
প্রধানমন্ত্রীশেখ মুজিবুর রহমান
পূর্বসূরীশেখ মুজিবুর রহমান
উত্তরসূরীমোহাম্মদ মোহাম্মাদুল্লাহ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯২১-০১-৩১)৩১ জানুয়ারি ১৯২১
টাঙ্গাইল জেলা, বাংলা, ব্রিটিশ রাজ
মৃত্যু২ আগস্ট ১৯৮৭(১৯৮৭-০৮-০২) (৬৬ বছর)
লন্ডন, যুক্তরাজ্য
জাতীয়তাবাঙালি
রাজনৈতিক দলআওয়ামী লীগ
ধর্মইসলাম

আবু সাঈদ চৌধুরী (জানুয়ারি ৩১, ১৯২১ - আগস্ট ১, ১৯৮৭) একজন বিচারক এবং ২য় রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রপতি ছিলেন।[১] এছাড়া, তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার ছিলেন।[২]

জন্ম এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

আবু সাঈদ চৌধুরীর জন্ম ১৯২১ সালের ৩১শে জানুয়ারী টাঙ্গাইল জেলার নাগবাড়ির এক জমিদার পরিবারে। [২] জমিদার পরিবার ছাড়াও, তার পিতা আবদুল হামিদ চৌধুরী পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের স্পিকার ছিলেন। ব্রিটিশ সাম্রাজ্য তাকে খান বাহাদুর উপাধী প্রদান করেছিল।

তিনি ১৯৪০ সালে কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর ১৯৪২ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে স্নাতকোত্তর হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে তিনি লন্ডন থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেন।[২]

পেশাজীবন[সম্পাদনা]

আবু সাঈদ ১৯৪৭ সালে কলকাতা কলকাতা হাই কোর্টে আইন ব্যবসা শুরু করেন, দেশভাগের পরে ১৯৪৮ সালে ঢাকা হাই কোর্টে আইন ব্যবসা শুরু করেন।[২] ১৯৬০ সালে আবু সাঈদ চৌধুরী পূর্বপাকিস্তানের অ্যাডভোকেট জেনারেল নিযুক্ত হন। তিনি ১৯৬১ সালের ৭ জুলাই তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আইয়ুব খান তাকে অতিরিক্ত বিচারপতি নিয়োগ করেন এবং দুই পছর পরে ঢাকা হাই কোর্টে স্থায়ী নিয়োগ পান। তিনি পাকিস্তানের সাংবিধানিক কমিশনের সদস্য (১৯৬০-৬১) এবং বাংলা উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান (১৯৬৩-৬৮) হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

আবু সাঈদ ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ পান ১৯৬৯ সালে।[২] একাত্তরের মার্চ মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের অধিবেশনে যোগদানের জন্য জেনেভা যান। সেখানে জেনেভার একটি পত্রিকায় দু’জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের মৃত্যু সংবাদ দেখে বিচলিত হয়ে ২৫ মার্চ পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক শিক্ষা সচিবকে পাকিস্তান দূতাবাসের মাধ্যমে প্রেরিত এক পত্রে লেখেন, “আমার নীরস্ত্র ছাত্রদের উপর গুলি চালানোর পর আমার ভাইস চ্যান্সেলর থাকার কোন যুক্তিসঙ্গত কারণ নেই। তাই আমি পদত্যাগ করলাম”।[৩] মুজিবনগরে অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকারের বিশেষ দূত হিসেবে জেনেভা থেকে তিনি লন্ডন যান এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে সচেষ্ট হন। একাজে তিনি বিশেষ সাফল্য অর্জন করেন।[৪]

লর্ড জেমস, ব্রিটিশ শিক্ষা সমিতির দলটির প্রধান, আবু সাঈদ চৌধুরীর অফিসে (১৯৭০)

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি[সম্পাদনা]

স্বাধীনতার পরে আবু সাঈদ বাংলাদেশে ফিরে আসেন এবং ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারী রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৩ সালের ১০ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি হিসেবে পুনঃনির্বাচিত হন।[২] একই বছর তিনি পদত্যাগ করেন এবং একজন মন্ত্রীর পদমর্যাদায় বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক বিশেষ দূত নিযুক্ত হন। ১৯৭৫ সালের ৮ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মন্ত্রিসভায় তিনি বন্দর ও নৌপরিবহন মন্ত্রী ছিলেন। ১৫ই আগস্ট, ১৯৭৫ সালে মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ডের পরে তিনি মোশতাক আহমেদ মন্ত্রীসভায় পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রী হন এবং একই বছরের ৭ নভেম্বর পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন।[২]

জাতিসংঘ কমিটি[সম্পাদনা]

আবু সাঈদ চৌধুরী ১৯৭৮ সালে জাতিসংঘে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতি বৈষম্যের অবসান এবং তাদের নিরাপত্তা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। [২] ১৯৮৫ সালে তিনি জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি নির্বাচিত হন।[১] বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় তাকে ‘দেশিকোত্তম’ উপাধিতে ভূষিত করে এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডক্টর অব ল’ ডিগ্রি প্রদান করে।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী ১৯৮৭ সালের ২ আগস্ট লন্ডনে হার্ট অ্যাটাকে মারা যান এবং তাকে টাঙ্গাইলের গ্রামের বাড়ি নাগবাড়িতে দাফন করা হয়।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Death anniversary of Abu Sayeed Chowdhury today"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১০-০৮-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১১-০১ 
  2. Islam, Sirajul (২০১২)। "Choudhury, Justice Abu Sayeed"Islam, Sirajul; Haq, Enamul। Banglapedia: National Encyclopedia of Bangladesh (Second সংস্করণ)। Asiatic Society of Bangladesh 
  3. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশি বছর- রফিকুল ইসলাম; পৃষ্টা: ২০০
  4. "Archived copy"। ৭ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১২ 
  5. Ap (৩ আগস্ট ১৯৮৭)। "Abu Sayeed Chowdhury, 66; Was President of Bangladesh"The New York Timesআইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৬ 
রাজনৈতিক দপ্তর
পূর্বসূরী
শেখ মুজিবুর রহমান
বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
জানুয়ারি ১২, ১৯৭২ - ডিসেম্বর ২৪, ১৯৭৩
উত্তরসূরী
মোহাম্মদ মোহাম্মাদুল্লাহ