ওসামা বিন লাদেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Osama bin Laden থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ওসামা বিন লাদেন
أسامة بن لادن
Osama bin Laden portrait.jpg
বিন লাদেন c. 1997–1998
আল কায়েদার প্রথম সর্বোচ্চ আমীর
কাজের মেয়াদ
১১ই আগস্ট, ১৯৮৮ – ২রা মে, ২০১১
পূর্বসূরীPosition created
উত্তরসূরীআয়মান আল জাওয়াহিরী
আল কায়েদার সহপ্রতিষ্ঠাতা (আব্দুল্লাহ ইউসুফ আযযাম এবং আইমান আল জাওয়াহিরীর সাথে), ১৯৮৮
মাকতাবাতুল খিদামাতের সহপ্রতিষ্ঠাতা, ১৯৮৪
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মউসামা বিন মুহাম্মাদ বিন আওয়াদ বিন লাদেন
(১৯৫৭-০৩-১০)১০ মার্চ ১৯৫৭
রিয়াদ, সৌদি আরব
মৃত্যু২ মে ২০১১(২০১১-০৫-০২) (৫৪ বছর)
এবোটাবাদ, খায়বর পখতুন খাঁ, পাকিস্তান
মৃত্যুর কারণন্যাটো সদস্যদের গুলি।
জাতীয়তাসৌদী আরাবী (১৯৫৭–১৯৯৪)
Stateless (১৯৯৪–২০১১)[১]
উচ্চতা১.৯৫ মিটার[৬]
দাম্পত্য সঙ্গীনাজওয়া গানেম
খাদীজা শরীফ
খাইরিয়াহ সাবার
সিহাম সবর
আমাল আহমেদ আস সাদাহ
সন্তান২০ থেকে ২৬
ধর্মইসলাম (ওয়াহাবী মতবাদ/সালাফী মতবাদ)[২][৩][৪][৫]
সামরিক পরিষেবা
আনুগত্য মাকতাবাতুল খিদামাত (১৯৮৪–১৯৮৮)
আল কায়েদা (১৯৮৮–২০১১)
কার্যকাল১৯৮৪-২রা মে ২০১১ ঈসাব্দ
পদআল কায়েদার সর্বোচ্চ আমীর
যুদ্ধসোভিয়েত যুদ্ধ

বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ যুদ্ধ

ওসামা বিন মুহাম্মদ বিন আওয়াদ বিন লাদেন (আরবি: أسامة بن محمد بن عوض بن لادن; ১০ মার্চ ১৯৫৭ - ২ মে ২০১১[৭][৮][৯]) সৌদী আরবে জন্মগ্রহণকারী একজন মুসলিম যোদ্ধা যাকে আল কায়েদা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। সাধারনত তিনি ওসামা বিন লাদেন বা উসামা বিন লাদেন নামে পরিচিত। বিন লাদেন বিশেষভাবে ১১ সেপ্টেম্বর ২০০১ সালের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার জন্য বহুলভাবে পরিচিত। অন্য কয়েকজন ইসলামী জঙ্গীর সাথে মিলে ওসামা বিন লাদেন দুইটি ফতোয়া জারি করেন; একটি ১৯৯৬ সালে, অন্যটি ১৯৯৯ সালে । তার ফতোয়াটি ছিল, মুসলিমদের উচিত মার্কিন সামরিক ও বেসামরিক জনগণকে হত্যা করা যতক্ষণ না যুক্তরাষ্ট্র ইসরাইলের প্রতি সব সহায়তা বন্ধ করে এবং সব মুসলিম দেশ থেকে সামরিক শক্তি অপসারণ করে।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

ওসামা বিন মুহাম্মাদ বিন আওয়াদ বিন লাদেন [১০] সৌদি আরবের রিয়াদ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ইয়েমেন বংশোদ্ভূত মুহাম্মাদ বিন আওয়াদ বিন লাদেনের পুত্রদের মধ্য হতে ‌‍‍‍‌একজন‌। a millionaire construction magnate with close ties to the Saudi royal family,[১১] এবং মুহাম্মাদ বিন লাদেনের দশম স্ত্রী ছিলেন সিরিয়ান হামিদা আল আত্তাস (তাকে আলিয়া গানেম নামেও ডাকা হয়।)[১২] ১৯৯৮ এর এক সাক্ষাতকারে ওসামা বিন লাদেন নিজের জন্ম তারিখ ১০ই মার্চ, ১৯৫৭ ঈসাব্দ বর্ণনা করেন।[১৩]

মুহাম্মাদ বিন লাদেন হামিদাকে ওসামা বিন লাদেনের জন্মের কিছুদিন পরই তালাক দিয়ে দেন। Mohammed recommended Hamida to Mohammed al-Attas, an associate. আল আত্তাস হামিদাকে ১৯৫০ ঈসাব্দের পর ১৯৬০ ঈসাব্দের আগে বিবাহ করেন। এবং তারা একসাথেই জীবনযাপন করেন। [১৪] এই দম্পতির চার সন্তান ছিল। এবং বিন লাদেন এই নতুন পরিবারেই তিন সৎভাই ও এক সৎবোনের সাথে বসবাস করতে থাকেন।[১২] বিন লাদেন পরিবার কন্সট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রিতে ৫ বিলিয়ন ডলার আয় করে। যা থেকে ওসামা উত্তরাধিকারসূত্রে ২৫-৩০ মিলিয়ন ডলার প্রাপ্ত হন। [১৫]

বিন লাদেন এক ধর্মপ্রাণ সুন্নী মুসলিম পরিবারে লালিতপালিত হন।[১৬] ১৯৬৮ থেকে ১৯৭৬ পর্যন্ত তিনি অভিজাত ধর্মনিরপেক্ষ আল ছাগের মডেল স্কুলে পড়াশোনা করেন। [১২][১৭] তিনি বাদশাহ আব্দুল আযীয বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি এবং ব্যবসায় প্রশাসন নিয়ে পড়াশোনা করেন। [১৮] কারো দাবি, তিনি ১৯৭৯ সালে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডিগ্রি অর্জন করেন।[১৯] আবার কারো দাবি, তিনি ১৯৮১ সালে লোক প্রশাসনে ডিগ্রি অর্জন করেন। [২০] One source described him as "hard working";[২১] অন্য একটি পক্ষের দাবি, তিনি কোন ডিগ্রি অর্জন ছাড়াই তৃতীয় বর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করেন। [২২] বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়ে বিন লাদেনের প্রধান আগ্রহের বিষয়বস্তু ছিল ধর্ম। সেখানে তিনি কুরআন এবং জিহাদের ব্যাখ্যা এবং দাতব্য কাজ উভয়ের মধ্যে জড়িত হন। [২৩] কবিতা লেখার প্রতিও তার ঝোঁক ছিল।[২৪] অধ্যয়নকালে ফিল্ড মার্শাল বার্নার্ড মন্টোগোমারী এবং শার্ল ডে গোল তার প্রিয় ব্যক্তিত্বের মধ্যে ছিল। কালো ফাহল ঘোড়া তার পছন্দের তালিকায় ছিল। এছাড়া ফুটবল খেলাও তার প্রিয় ছিল। তিনি আক্রমণ ভাগের খেলা বেশী উপভোগ করতেন। তিনি ইংলিশ ক্লাব আর্সেনালের ভক্ত ছিলেন।[২৫]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৭৪ সালে ১৭ বছর বয়সে বিন লাদেন সিরিয়ার লাতাকিয়াতে নাজওয়া গানেমকে বিবাহ করেন।[২৬] টুইনটাওয়ারে আক্রমণের ঘটনার আগেই তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়। বিন লাদেনের অন্য স্ত্রীরা হলেন, খাদীজা শরীফ (বিয়ে: ১৯৮৩, বিচ্ছেদ: ১৯৯০) খাইরিয়াহ সাবের (বিয়ে: ১৯৮৫) সিহাম সাবের (বিয়ে: ১৯৮৭) এবং আমাল আস সাদাহ (বিয়ে: ২০০০)। কিছু সূত্র নাম না জানা ষষ্ঠ স্ত্রী থাকার কথা দাবী করে। যার সাথে বিয়ের কিছুদিনের মাঝেই বিচ্ছেদ ঘটে যায়। [২৭] বিন লাদেন তার স্ত্রীদের গর্ভজাত বিশ থেকে ছাব্বিশজন সন্তানের পিতৃত্ব গ্রহণ করেন। [২৮][২৯] Many of bin Laden's children fled to Iran following the September 11 attacks and ২০১০ মোতাবেক, Iranian authorities reportedly continue to control their movements.[৩০]

ওসামা বিন লাদেনের দেহরক্ষী (১৯৯৭ থেকে ২০০১ পর্যন্ত) নাসের আল বাহরি বিন লাদেনের ব্যাপারে নিজের স্মৃতিকথায় বিস্তারিত লেখেছেন। তিনি বিন লাদেনকে একজন নম্র ও মিশুক মানুষ এবং সচেতন পিতা হিসেবে উল্লেখ করেছেন। who enjoyed taking his large family on shooting trips and picnics in the desert.[৩১]

বিন লাদেনের পিতা মুহাম্মাদ ১৯৬৭ সালে সৌদি আরবে একটি বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান।যখন তার আমেরিকা বংশোদ্ভূত পাইলট জিম হ্যারিংটন[৩২] ভুল স্থানে বিমান অবতরণ করান।[৩৩] পিতা মুহাম্মাদ বিন লাদেনের পর ওসামা বিন লাদেনের সবচেয়ে বড় সৎভাই সালেম বিন লাদেন ছিলেন বিন লাদেন পরিবারের প্রধান। তিনি ১৯৮৮ সালে আমেরিকার টেক্সাসের স্যান অ্যান্টনিওতে দুর্ভাগ্যবশতঃ বিমানকে পাওয়ার লাইনের মধ্যে নিয়ে আসায় নিহত হন।[৩৪]

এফবিআই বিন লাদেনকে লম্বা, মধ্যবয়সী এবং পাতলা গড়নের বর্ণনা করেছে। এফবিআইয়ের মতে তার উচ্চতা ১.৯৩ মি (৬ ফু ৪ ইঞ্চি) থেকে ১.৯৮ মি (৬ ফু ৬ ইঞ্চি) আর দেহের ভর ৭৩ কিলোগ্রাম (১৬০ পা)। যদিও লেখক লরেন্স রাইট তার আল কায়েদার উপর লিখিত Pulitzer Prizeপ্রাপ্ত দি লুমিং টাওয়ার বইয়ে লিখেছেন, বিন লাদেনের নিকটতম বন্ধু নিশ্চিত করেছেন, এফবিআইয়ের এই প্রতিবেদনটি অনেক অতিরঞ্জিত। আসলে বিন লাদেনের উচ্চতা ৬ ফুট (১.৮ মি) [৩৫] অবশেষে তার মৃত্যুর পর তার উচ্চতা মাপা হলে দেখা গেল, তিনি ১.৯৩ মি (৬ ফু ৪ ইঞ্চি) লম্বা ছিলেন। [৩৬] বিন লাদেন olive complexion এবং বাঁহাতি ছিলেন। এবং সাধারণতঃ হাতে ছড়ি নিয়ে হাঁটতেন। তিনি সাদা পাতলা keffiyeh পরিধান করতেন। বিন লাদেন সৌদির ঐতিহ্যগত পুরুষদের keffiyeh পড়া ছেড়ে দিয়েছিলেন এর পরিবর্তে ইয়েমেনী পুরুষদের keffiyeh পরিধান করতেন।[৩৭] বিন লাদেন কোমলভাষী, শান্তশিষ্ট স্বভাবের লোক ছিলেন।[৩৮]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০১১ সালের মে ২ তারিখে দিবাগত রাতে পাকিস্তানের আ্যবোটাবাদ শহরে মার্কিন কমান্ডোদের হামলায় (অপারেশন জেরোনিমো) ওসামা বিন লাদেন নিহত হন। গোপনসূত্রে খবর পেয়ে মার্কিন কমান্ডোরা ২টি হেলিকপ্টারযোগে লাদেনের বাসভবনে হামলা চালায়। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পাকিস্তান মিলিটারি একাডেমির মাত্র ১০০০ ফুট দূরে লাদেনের এই গোপন আস্তানাটি ২০০৫ সালে নির্মাণ করা হয়। এখানে লাদেন তাঁর কনিষ্ঠা স্ত্রী এবং পুত্র সহ বাস করতেন।

লাদেনের মরদেহ মার্কিন কমান্ডোরা হেলিকপ্টারযোগে প্রথমে আফগানিস্থানে এবং পরে মার্কিন রণতরীতে নিয়ে যায়। লাদেনের দেহ ডিএনএ প্রযুক্তির সাহায্যে শনাক্ত করা হয়। শনাক্তকরণের শেষে ইসলামী প্রথানুসারে মরদেহ আরব সাগরে দাফন করা হয়।

টীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dan Ackman. "The Cost Of Being Osama Bin Laden" আর্কাইভকৃত জুলাই ২৯, ২০১৭ ওয়েব্যাক মেশিনে.. September 14, 2001. Retrieved March 15, 2011.
  2. Fair, C. Christine; Watson, Sarah J. (ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৫)। Pakistan's Enduring Challenges। University of Pennsylvania Press। পৃষ্ঠা 246। আইএসবিএন 9780812246902। জানুয়ারি ৩১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করাOsama bin Laden was a hard-core Salafi who openly espoused violence against the United States in order to achieve Salafi goals. 
  3. Brown, Amy Benson; Poremski, Karen M. (ডিসেম্বর ১৮, ২০১৪)। Roads to Reconciliation: Conflict and Dialogue in the Twenty-first Century। Routledge। পৃষ্ঠা 81। আইএসবিএন 9781317460763। জানুয়ারি ৩১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  4. Osama Bin Laden (2007) Suzanne J. Murdico
  5. Armstrong, Karen (জুলাই ১১, ২০০৫)। "The label of Catholic terror was never used about the IRA"The Guardian। London। ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  6. "Usama BIN LADEN"। FBI.gov। মে ২৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৫, ২০১৫ 
  7. "Obituary: Osama Bin Laden"। BBC News। ১ মে ২০১১। 
  8. Zernike, Kate; T. Kaufman, Michael (মে ২, ২০১১)। "The Most Wanted Face of Terrorism"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ মে ২, ২০১১ 
  9. "Osama bin Laden Killed; ID Confirmed by DNA Testing"ABC News। ১ মে ২০১১। 
  10. "Frontline: Hunting Bin Laden: Who is Bin Laden?: Chronology"পিবিএস। ফেব্রুয়ারি ১০, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  11. ডেভিড জনসন। "ওসামা বিন লাদেন ইনফোপ্লিজ (ইংরেজী)"ইনফোপ্লিজ। জানুয়ারি ২০, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  12. স্টিভ কোল (ডিসেম্বর ১২, ২০০৫)। "Letter From Jedda: Young Osama- How he learned radicalism, and may have seen America"দ্য নিউ ইয়র্কার। জানুয়ারি ১৭, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  13. "ওসামা বিন লাদেনের জন্ম (ইংরেজী)"। GlobalSecurity.org। জানুয়ারি ১১, ২০০৬। মার্চ ২৯, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  14. "ওসামা বিন লাদেনের রহস্যময়ী মৃত্যু (ইংরে)"। August 03, 2011। April 25, 2012 তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ November 04, 2011  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  15. "ওসামা বিন লাদেন আর্কাইভকৃত মে ২০, ২০১১ ওয়েব্যাক মেশিনে.", দ্য ইকোনোমিস্ট, ৫ই মে ২০১১, ৯৩ পৃষ্ঠা।
  16. Beyer, Lisa (সেপ্টেম্বর ২৪, ২০০১)। "The Most Wanted Man in the World"Time। সেপ্টেম্বর ১৬, ২০০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  17. Bergen 2006, পৃ. 52
  18. Messages to the World: The Statements of Osama bin Laden, Verso, 2005, p. xii.
  19. Encyclopedia of World Biography Supplement আর্কাইভকৃত মে ১৮, ২০০৮ ওয়েব্যাক মেশিনে., Vol. 22. Gale Group, 2002. (link requires username/password)
  20. "A Biography of Osama Bin Laden"। PBS Frontline। মার্চ ২৯, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  21. Aziz Hug (জানুয়ারি ১৯, ২০০৬)। "The Real Osama"The American Prospect। এপ্রিল ৩০, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৬, ২০১২ 
  22. Gunaratna, Rohan (২০০৩)। Inside Al Qaeda (3rd সংস্করণ)। Berkley Books। পৃষ্ঠা 22। আইএসবিএন 0-231-12692-1 
  23. Wright 2006, পৃ. 79
  24. Michael Hirst (সেপ্টেম্বর ২৪, ২০০৮)। "Analysing Osama's jihadi poetry"। BBC News। সেপ্টেম্বর ৩০, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  25. "Osama bin Laden's bodyguard: I had orders to kill him if the Americans tried to take him alive"Daily Mirror। মে ৪, ২০১১। জুন ১০, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২০, ২০১২ 
  26. Michael Slackman (নভেম্বর ১৩, ২০০১)। "Osama Kin Wait and Worry"Los Angeles Times। সেপ্টেম্বর ২৬, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  27. Brian Todd; Tim Lister (মে ৫, ২০১১)। "Bin Laden's wives – and daughter who would 'kill enemies of Islam'"। CNN Edition: International। মে ৬, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ৫, ২০১১ 
  28. "Osama's Women"। CNN। মার্চ ১২, ২০০২। মে ৫, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  29. Amy Zalman। "Profile: Osama bin Laden"। About.com। জুলাই ৭, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৬, ২০১০ 
  30. "Osama bin Laden's family 'stranded' in Iran, son says" আর্কাইভকৃত মার্চ ১২, ২০১১ ওয়েব্যাক মেশিনে., The Telegraph. July 19, 2010.
  31. Al-Bahri, Nasser, Guarding bin Laden: My Life in al-Qaeda. pp. 150–160. Thin Man Press. London. আইএসবিএন ৯৭৮০৯৫৬২৪৭৩৬০
  32. "Blood Brothers: Could Osama Have Been Tamed?"। ABC News। জানুয়ারি ১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  33. "Interview with US Author Steve Coll: 'Osama bin Laden is Planning Something for the US Election'"Der Spiegel। ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২৬, ২০১১ 
  34. "Best of the Web: Osama's Brother Died in San Antonio, Red Velvet Onion Rings-WOAI: San Antonio News"। জানুয়ারি ১৩, ২০১২। জানুয়ারি ১৩, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  35. Wright 2006, পৃ. 83
  36. Dan Mangan। "Wanted: dead – not alive!"New York Post। এপ্রিল ২৯, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  37. "Most Wanted Terrorist – Usama Bin Laden"। FBI। মার্চ ১০, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৮, ২০০৬ 
  38. "I met Osama Bin Laden"। BBC News। মার্চ ২৬, ২০০৪। মার্চ ১৬, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ১৫, ২০০৬ 

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]