শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়
জন্ম(১৯৩২-১২-২৭)২৭ ডিসেম্বর ১৯৩২
মৃত্যু৮ আগস্ট ২০০৯(2009-08-08) (বয়স ৭৬)
জাতীয়তাভারতীয়
নাগরিকত্বভারতীয় ভারত
পেশাগীতিকার
পরিচিতির কারণগীতিকার, সুরকার

শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায় (২৭ ডিসেম্বর, ১৯৩২ - ০৮ আগস্ট, ২০০৯) একজন বিশিষ্ট বাঙালি কবি ও কালজয়ী গীতিকার ছিলেন। বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধ জুড়ে বাংলা ছায়াছবি ও আধুনিক গানের জগতে যাঁরা অসাধারণ গানের বাণী সাজিয়ে উপহার দিয়েছিলেন তাঁদের অন্যতম হলেন শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়।[১]

জন্ম ও প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দের ২৭ শে ডিসেম্বর বৃটিশ ভারতের অধুনা বাংলাদেশের খুলনা শহরে। পিতা শচীগোপাল বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন পুলিশ অফিসার ও মাতা স্বদেশী আন্দোলনের যোদ্ধা রাধারাণী দেবী। তাঁর স্কুলের পড়াশোনা স্থানীয় স্কুলেই। দেশভাগের সময় ভাতৃঘাতী দাঙ্গায় বাড়িঘর সহায়-সম্বল ছেড়ে কলকাতায় চলে আসেন রিফিউজি হয়ে। আশ্রয় জোটে দক্ষিন কলকাতায় প্রতিষ্ঠিত প্রাবন্ধিক ও চিত্র-গ্রাহিকা দিদি শিবানী চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে। আশুতোষ কলেজে পড়াশোনা শুরু করে স্নাতক হন। কিছুদিনের মধ্যে স্থানীয় খানপুর স্কুলে সামান্য মাইনের শিক্ষকতার চাকরি পান। কিন্তু দিদি শিবানী চট্টোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় লেখালেখি শুরু করেন আনন্দবাজার পত্রিকার রবিবাসরীয়, দেশ, বসুমতীসহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায়। কিছু চল্লিশ থেকে ষাট দশকের বিভিন্ন রাজনৈতিক আন্দোলনে প্রভাবিত হলেন।

সঙ্গীত জীবন[সম্পাদনা]

প্রখ্যাত সুরকার ও সংগীত শিল্পী অপরেশ লাহিড়ীর প্রেরণায় "ক্রান্তি শিল্পী সংঘ" এর জন্য গান লিখে খ্যাতি লাভ করেন। পরে এক সাহিত্য সভায়কবি প্রেমেন্দ্র মিত্রর সাথে সাক্ষাতের পর তাঁরই সহায়তায় আকাশবাণী কলকাতার তালিকাভুক্ত গীতিকার হন তিনি। এরপর এইচ.এম.ভি থেকে প্রকাশিত হয় সনৎ সিংহের কণ্ঠে গীত তাঁর রচিত জনপ্রিয় গান - "সরস্বতী বিদ্যেবতি তোমায় দিলাম খোলা চিঠি"। তাঁর কবিতা তথা গানে সাধারণ মানুষের সমস্যা উঠে এসেছে। অপরেশ লাহিড়ী, ভূপেন হাজারিকা,ভি.বালসারা,ইলা বসু মান্না দে'র সঙ্গে তাঁর কাজ প্রশংসনীয়। গীতিকার সুনীলবরণের কথায় -

" শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের গুণ ছিল আলাদা স্টাইলে গান লেখার। ... ও আদর্শের কাছে কখনো মাথা নত করেনি। নির্বাচিত শিল্পী ছাড়া কারুর জন্য গান লেখেননি।"

কবির জীবিতাবস্থায় প্রকাশিত একমাত্র কাব্যগ্রন্থ তথা নিজস্ব সংগীত সংগ্রহ " গঙ্গা আমার মা, পদ্মা আমার মা" - তে আড়াই শতাধিক সংগীত অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এছাড়া তাঁর রচিত নাটকের সংগ্রহ 'নাটক সংগ্রহ' নামে একটি গ্রন্থ আছে। চলচ্চিত্রের জন্য গান ও আধুনিক বাংলা গান ছাড়াও চিত্রনাট্য ও নাটক রচনা করেছেন তিনি।

ইলা বসু, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, রুণা লায়লা, রুমা গুহঠাকুরতা, কিশোরকুমার, অংশুমান রায়, মান্না দে,ভূপেন হাজারিকা লতা মঙ্গেশকর সহ বহুস্বনামধন্য শিল্পীদের সুললিত কণ্ঠ-মাধুর্যে কালজয়ী হয়েছে তাঁর রচিত গানগুলি। কয়েকটি সেরূপ কালজয়ী গানের উল্লেখ করা হল -

  • মান্না দে র কণ্ঠে -
    • 'ভারত আমার ভারতবর্ষ,স্বদেশ আমার স্বপ্ন গো'
    • 'ওরে আমার ভালবাসার ইছামতী রে'
  • সনৎ সিংহ'র কণ্ঠে-
    • 'সরস্বতী বিদ্যেবতী তোমায় দিলাম খোলা চিঠি'
  • কিশোর কুমারের কণ্ঠে-
    • 'সেই রাতে রাত ছিল পূর্ণিমা'
    • 'হাওয়া মেঘ সরায়ে ফুল ঝরায়ে'
  • অংশুমান রায়ের কণ্ঠে-
    • 'বাজে না জীবনের এই বীণা'
    • 'আমার ব্যাটার বিয়া দিব সময় হয়েছে'
    • 'ময়লা কাগজ কুড়ানো ছেলে'
  • ঊষা উথুপের কণ্ঠে-
    • 'এই তো বেশ আছি একেলা'
    • 'আমার কবিতা ছবি আঁকে সঞ্চিত ব্যথা'
  • সমবেত কণ্ঠে-
    • 'ভারতবর্ষ সূর্যের এক নাম'(ক্যালকাটা ইয়ুথ কয়ার)
    • 'তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা মেঘনা যমুনা'

সম্মাননা[সম্পাদনা]

কালজয়ী গানের এই গীতিকারের সম্মানে সম্প্রতি কলকাতা পুরসভার সৌজন্যে ১১২ নম্বর ওয়ার্ডে একটি আবক্ষ তাম্রমৃর্তি স্থাপন করা হয়। মূর্তিটির আবরণ উন্মোচণ করেন গীতিকারের ভাগিনেয় তথা পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।[২]

জীবনাবসান[সম্পাদনা]

শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায় ২০০৯ খ্রিস্টাব্দের ৮ই আগস্ট কলকাতায় প্রয়াত হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, দ্বিতীয় খণ্ড, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, জানুয়ারি ২০১৯ পৃষ্ঠা ৩৮৭, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-৭৯৫৫-২৯২-৬
  2. "work life news"এই সময়। সংগ্রহের তারিখ ৯ আগস্ট ২০২০