বিষয়বস্তুতে চলুন

শিখধর্মের শাখা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাহান কোশ-এর ১৯৩০'এর প্রথম সংস্করণে বিভিন্ন ধরণ, শাখা ও অবয়বে শিখ পুরুষদের চিত্র।

শিখ শাখা, ধারা, ঐতিহ্য, মতবাদ, উপ-বিভাগ, যা পাঞ্জাবী ভাষায় সম্প্রদায়ি নামেও পরিচিত (গুরুমুখী: ਸੰਪਰਦਾ; সাপারাদ), বলতে শিখধর্মের উপ-ধারাসমূহকে বুঝানো হয় যা ধর্মীয় আচরণের ভিন্নতার কারণে গড়ে উঠেছে। যদিও সকল সাম্প্রদাস একজন স্রষ্টায় (ঈশ্বরে) বিশ্বাস করে, কিন্তু নির্দিষ্ট করে গড়া দেবতা এবং বর্ণপ্রথা - এই উভয়কেই অস্বীকার করে। এতে সময়ের আবর্তে ভিন্ন মতামতের প্রকাশ ঘটেছে, কতকের নেতৃত্বে গুরুর শিক্ষা আছে।[১][২]

আকালী / নিহাং[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধ: নিহাং

একজন আকালী নিহাং তার প্রথাগত পোষাক পরিধান (বানা বা চোলা নামে পরিচিত) করে অস্ত্র সজ্জিত হয়ে আছে।

ভারতীয় উপমহাদেশে দৃষ্ট সশস্ত্র শিখ যোদ্ধাদের সংগঠনকে নিহাং বা আকালী বলা হয়,[৩] যার অর্থ "অমর",[৪]

অবলোপিত ধারা[সম্পাদনা]

এখানে এমন উপ-ধারাগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যেগুলো পূর্বে শিখধর্মের শাখা হিসাবে গণ্য হলে বর্তমানে তারা স্বতন্ত্র ধর্ম হিসাবে বিবেচিত হয়। দুটি সমকালীন ভারতীয় ধর্মীয় শাখা "রবিদাশীয়" এবং "ভানিয়ারা ডেরা" শিখধর্মের শাখা হিসাবে শুরু হলেও এখন আর তারা এর শাখা নয়। উভয় ক্ষেত্রেই তারা গুরু গ্রন্থ সাহিবকে তাদের ধর্মগ্রন্থ হিসাবে বিবেচনার পরিবর্তে নতুন গ্রন্থকে গ্রহণ করেছে।

রবিদাশীয়[সম্পাদনা]

ভগৎ রবিদাশ চর্মকার হিসাবে কর্মরত। ভক্ত সন্তোদের নিয়ে অঙ্কিত সিরিজের চিত্র। মানাকু এবং গুলেরের নাইনসুখের পরবর্তী প্রজন্মের শিক্ষক, পাহাড়ি অঞ্চল, আনু. ১৮০০-১৮১০ খ্রি.।

রবিদাশী পন্থ শিখধর্মের একটি শাখা হিসাবে বিবেচিত হতো। ২০০৯ সালে এই ধারাটি শিখধর্ম ত্যাগ করে এবং নিজেদের একটি পৃথক ধর্মীয় জনগোষ্ঠী হিসাবে ঘোষণা করে।[৫] এটি চতুর্দশ শতকের ভারতীয় গুরু রবিদাশের শিক্ষার ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে, যা সৎগুরু নামে পরিচিত।[৫] এই আন্দোলনটি দলিতদের (প্রাথমিকভাবে একীভূত হয়) আকৃষ্ট করে এবং তারা অনুভব করে যে তারা সামাজিক অবনয়নের স্বীকার এবং সরকারি শিখদের আক্রমণের লক্ষ।[৬][৭][৮]


ভানিয়ারা ডেরা[সম্পাদনা]

১৯৮০'এর দশকে রূপারের ধামিয়ানা গ্রামে গুরু গোবিন্দ সিংয়ের ধারাবাহিকতা হিসাবে নিজেকে দাবী করা পিয়ারা সিং ভানিয়ারা কর্তৃক একটি নতুন ধারার উদ্ভব ঘটে। এর বেশিরভাগ অনুসারীই দলিত সম্প্রদায় হতে আগত যাদের মাযহাবী শিখ বলা হয়। ২০০১ সালে এই গোষ্ঠী কর্তৃক ভাবসাগর সামুদের অমৃত বাণী গ্রন্থ (সাধারণভাবে সংক্ষেপে ভাবসাগর গ্রন্থ বলে পরিচিত) নামে একটি ধর্মগ্রন্থ প্রকাশিত হয়, যা পরবর্তীতে পাঞ্জাব সরকার কর্তৃক শিখ ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগে নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়।[৯][১০][১১][১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hardip Singh Syan (২০১৪)। Pashaura Singh and Louis E. Fenech, সম্পাদক। The Oxford Handbook of Sikh Studies। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 170–180। আইএসবিএন 978-0-19-969930-8 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Takhar2014p350 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. Singh, Satnam. "Worshipping the sword: The practice of śāstar pūjā in the Sikh warrior tradition." Objects of Worship in South Asian Religions. Routledge, 2014. 182-199.
  4. ਅਕਾਲੀ - akālī - अकाली ਵਿ- ਅਕਾਲ ਨਾਲ ਹੈ ਜਿਸ ਦਾ ਸੰਬੰਧ। ੨. ਸੰਗ੍ਯਾ- ਅਕਾਲ ਉਪਾਸਕ. ਵਾਹਗੁਰੂ ਜੀ ਕਾ ਖ਼ਾਲਸਾ.#ਕਮਲ ਜ੍ਯੋਂ ਮਾਯਾ ਜਲ ਵਿੱਚ ਹੈ ਅਲੇਪ ਸਦਾ#ਸਭ ਦਾ ਸਨੇਹੀ ਚਾਲ ਸਭ ਤੋਂ ਨਿਰਾਲੀ ਹੈ,#ਕਰਕੇ ਕਮਾਈ ਖਾਵੇ ਮੰਗਣਾ ਹਰਾਮ ਜਾਣੇ#ਭਾਣੇ ਵਿੱਚ ਵਿਪਦਾ ਨੂੰ ਮੰਨੋ ਖ਼ੁਸ਼ਹਾਲੀ ਹੈ,#ਸ੍ਵਾਰਥ ਤੋਂ ਬਿਨਾ ਗੁਰੁਦ੍ਵਾਰਿਆਂ ਦਾ ਚੌਕੀਦਾਰ#ਧਰਮ ਦੇ ਜੰਗ ਲਈ ਚੜ੍ਹੇ ਮੁਖ ਲਾਲੀ ਹੈ,#ਪੂਜੇ ਨੇ ਅਕਾਲ ਬਿਨਾ ਹੋਰ ਕੋਈ ਦੇਵੀ ਦੇਵ#ਸਿੱਖ ਦਸ਼ਮੇਸ਼ ਦਾ ਸੋ ਕਹੀਏ 'ਅਕਾਲੀ' ਹੈ.#੩. ਖ਼ਾਸ ਕਰਕੇ ਇਹ ਸ਼ਬਦ ਨਿਹੰਗ ਸਿੰਘਾਂ ਲਈ ਭੀ ਵਰਤਿਆ ਜਾਂਦਾ ਹੈ. ਦੇਖੋ, ਨਿਹੰਗ.
  5. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; paramjitjudge181 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; fl2009 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; cnn1 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  8. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; ravidassiareligion1 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  9. "Self-styled godman Baba Bhaniara, who was excommunicated by Akal Takht, dies"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১২-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০৫ 
  10. "Controversial Dera head Piara Singh Bhaniara Wala dies at 61"TribuneIndia News (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০৫ 
  11. "Controversial religious leader Baba Bhaniara passes away"www.babushahi.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০৫ 
  12. Bureau, Sikh Siyasat (২০১৩-০৩-০৫)। "Self-styled godman Piara Singh Bhaniara acquitted by Ambala Court"Sikh Siyasat News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]