লেস ফাভেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লেস ফাভেল
Les Favell 1954-11-25.jpg
১৯৫৪ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে লেস ফাভেল
ক্রিকেট তথ্য
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক২৬ নভেম্বর ১৯৫৪ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৭ জানুয়ারি ১৯৬১ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৯ ২০২
রানের সংখ্যা ৭৫৭ ১২৩৭৯
ব্যাটিং গড় ২৭.০৩ ৩৬.৬২
১০০/৫০ ১/৫ ২৭/৬৭
সর্বোচ্চ রান ১০১ ১৯০
বল করেছে ৫৮৭
উইকেট
বোলিং গড় - ৬৯.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - ১/০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৯/০ ১১০/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ জুন ২০১৮

লেসলি আর্নেস্ট ফাভেল (ইংরেজি: Les Favell; জন্ম: ৬ অক্টোবর, ১৯২৯ - মৃত্যু: ১৪ জুন, ১৯৮৭) নিউ সাউথ ওয়েলসের আর্নক্লিফ এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ১৯৫৪ থেকে ১৯৬১ সময়কালে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে ডানহাতে মিডিয়াম বোলিং করতেন লেস ফাভেল

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

বর্ণাঢ্যময় ব্যক্তিত্বের অধিকারী ছিলেন তিনি। অত্যন্ত সাহসী ক্রিকেটার হিসেবে বলকে মাঠের সর্বত্র নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে সবিশেষ দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। ১৯৫১ সালে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ায় স্থানান্তরিত হন। সেখানে তিনি ইস্ট টরেন্স ক্রিকেট ক্লাবে যোগ দেন। একই বছরে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার সদস্যরূপে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক হয় তার। ১৯৫১ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত ১২১টি খেলায় অংশ নেন। এ সময়ে তিনি দলের চতুর্থ সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ৯৫টি খেলায় দলকে নেতৃত্ব দেন। তন্মধ্যে, ১৯৬৩-৬৪ ও ১৯৬৮-৬৯ মৌসুমের শেফিল্ড শিল্ডের শিরোপা বিজয়ে প্রভূতঃ ভূমিকা রাখেন।[১][২]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ১৯ টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি। ২৬ নভেম্বর, ১৯৫৪ তারিখে টেস্ট অভিষেক ঘটে লেস ফাভেলের। ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে ব্রিসবেনে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তিনি তেমন ক্রীড়ানৈপুণ্য প্রদর্শন করতে পারেননি। এরপূর্বে অবশ্য ইংরেজ দলের বিপক্ষে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার সদস্যরূপে ৮৪ ও ৪৭ রান তুলেছিলেন। মেলবোর্নে অনুষ্ঠিত অ্যাশেজ সিরিজের তৃতীয় টেস্টে ফ্রাঙ্ক টাইসনের ৭/২৭ বোলিং পরিসংখ্যানের প্রথম শিকারে পরিণত হন তিনি। কলিন কাউড্রের হাতে ৩০ রান করে বিদায় নেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১২,৩৭৯ রান তুলেন। তবে অস্ট্রেলীয়দের মধ্যে এতো রান করেও ইংল্যান্ড সফরে যাবার সুযোগ ঘটেনি তার।[৩]

১৪ জুন, ১৯৮৭ তারিখে ৫৮ বছর বয়সে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার মাগিলে জীবনাবসান ঘটে লেস ফাভেলের।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://adb.anu.edu.au/biography/favell-leslie-ernest-les-12479
  2. http://www.espncricinfo.com/magazine/content/story/475670.html
  3. "Simply marvellous"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০১৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]