লিপিবদ্ধ ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
'লিনিয়ার এ' ভাষা খোদাই করা ট্যাবলেট পাওয়া গেছে আক্রোতিরি, সান্তরিনিতে 
প্যালেনং গ্লিফ ট্যাবলেট - এতে মোট ৯২ গ্লিফ আছে

লিপিবদ্ধ ইতিহাস বা লিখিত ইতিহাস একটি ঐতিহাসিক উপাখ্যান যা লিখিত বিবরণ বা অন্যান্য নথিভুক্ত যোগাযোগের উপর ভিত্তি করে আছে।লিপিবদ্ধ ইতিহাসের সঙ্গে পৌরাণিক, মৌখিক বা প্রত্নতাত্ত্বিক ইতিহাসের তফাত আছে।

বৃহত্তর বিশ্বের ইতিহাস সম্পর্কে জানার জন্য, লিপিবদ্ধ ইতিহাস প্রাচীন বিশ্বের কথা আনুমািনক ৪০০০ খ্রিস্টপূর্ব দিয়ে শুরু, এবং লেখার উদ্ভাবন সঙ্গে সমানুপাতিক। কিছু ভৌগলিক অঞ্চল বা সংস্কৃতির জন্য, লিপিবদ্ধ ইতিহাস লিখিত বিবরণের সীমিত ব্যবহারের কারণে মানব ইতিহাসের অপেক্ষাকৃত সাম্প্রতিক সময়ের জন্য সীমাবদ্ধ। তাছাড়া, মানুষের সংস্কৃতি যে সব তথ্য পরবর্তী ঐতিহাসিকদের জন্য প্রাসঙ্গিক, সবসময় সে সব তথ্য রেকর্ড করেনি, যেমন প্রাকৃতিক দুর্যোগের পূর্ণ প্রভাব বা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নাম। এইকারণে, লিপিবদ্ধ ইতিহাস নির্দিষ্ট ধরনের ঐতিহাসিক বিবরণের উপর ভিত্তি করে। এইসব সীমার কারণে, বিভিন্ন প্রসঙ্গে লিপিবদ্ধ ইতিহাস, ঐতিহাসিক বিষয়এর উপর নির্ভর করে বিভিন্ন সময়ের উল্লেখ করতে পারে।

লিপিবদ্ধ ইতিহাসের ব্যাখ্যা প্রায়ই ঐতিহাসিক পদ্ধতি, বা কৌশল এবং নির্দেশাবলী উপর নির্ভর করে যা ঐতিহাসিকরা প্রাথমিক উৎস ও অন্যান্য প্রমাণ দ্বারা ব্যবহার করে গবেষণা করার জন্য এবং তারপর অতীতের বিবরণ লেখার জন্য। প্রশ্নটি ইতিহাস দর্শনে উত্থাপিত হয় একটি জ্ঞানতত্ত্বের প্রশ্ন হিসেবে। বিভিন্ন ঐতিহাসিক পদ্ধতির অধ্যয়নকে ইতিহাস লিখনধারা বলা হয়, যা গুরুত্ত্ব দেয় কীভাবে বিভিন্ন সূত্র ঐতিহাসিক প্রমাণের বিভিন্ন ব্যাখ্যা দিয়ে লিপিবদ্ধ ইতিহাস রচনা করে।

প্রাক-ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাক-ইতিহাস ঐতিহ্যগতভাবে, লিপিবদ্ধ ইতিহাসের সময়ের আগের ইতিহাসকে বোঝায়, যা লিখন পদ্ধতির উদ্ভাবন দিয়ে শেষ হয়।[১] প্রাক-ইতিহাস লিখিত ইতিহাসের পূর্ববর্তী কালসমূহের ইতিহাসকে বোঝায় যখন লিখিত বিবরণ রাখা হত। প্রাক-ইতিহাসের অধ্যয়ন আবশ্যক প্রাক সাক্ষর সভ্যতাগুলো যেমন সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা, প্রাক-কলম্বিয়ান আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসী এবং নিউজিল্যান্ডের মাওরি সম্বন্ধে জানার জন্য।

প্রাক-ইতিহাস এবং ইতিহাসের অন্তর্বর্তীকালীন সময়কে প্রোটো-ইতিহাস বলা হয়। এই সময়ে সমাজ সাক্ষর ছিল, কিন্তু প্রথম ইতিহাসবিদরা ইতিহাস লেখেনি। প্রোটো-ইতিহাস সেই সময়কেও নির্দেশ করা যখন কোনো সংস্কৃতি বা সভ্যতা লেখা আবিষ্কার করেনি, কিন্তু অন্য সংস্কৃতি নিজেদের রচনায় তাদের অস্তিত্ব উল্লেখ করেছে।

অধিকাংশ সম্পূর্ণ লেখার পদ্ধতি, চিহ্ন-লিপি থেকে এসেছে। প্রারম্ভিক উদাহরণ হল জিআহু প্রতীক (প্রায় ৬৬০০ খ্রিস্টপূর্ব), ভিনকা চিহ্ন (প্রায় ৫৩০০ খ্রিস্টপূর্ব), প্রাথমিক সিন্ধু লিপি (প্রায় ৩৫০০ খ্রিস্টপূর্ব) এবং ন্সিবিদি লিপি (প্রায় ৫০০ খ্রিষ্টাব্দের আগে)। এখানে মতানৈক্য আছে যে কখন প্রাক-ইতিহাস, ইতিহাস হয়ে ওঠে, এবং কখন চিহ্ন লিপি 'সত্যিকারের লিপি' হয়ে ওঠে।[২] যাইহোক, প্রথম লেখার পদ্ধতি উদ্ভাবনের সঙ্গে প্রায় সমসাময়িক হল ৪ সহস্রাব্দ খ্রিস্টপূর্বের নব্যপ্রস্তরযুগেব্রোঞ্জ যুগসুমেরীয়দের তৈরি প্রাচীন কিউনিফর্ম লিপি এবং মিশরীয় চিত্রলিপিকে সাধারণত, আদিতম লেখার পদ্ধতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দুটি লিপিই উদ্বংশীয় আদিম চিহ্ন-লিপি ৩৪০০-৩২০০ খ্রিস্টপূর্ব থেকে এসেছে এবং ২৬০০ খ্রিস্টপূর্বে এই লিপিতে আদিতম সুসঙ্গত লেখা পাওয়া গিয়েছে।

ঐতিহাসিক বর্ণনা[সম্পাদনা]

প্রাচীন চীনের শাং সাম্রাজ্যের ওরাকল হাড়

আদিতম কালনিরূপণবিদ্যা দুই আদিতম সভ্যতা: প্রাচীন সুমেরীয়দের মেসোপটেমিয়া এবং মিশরের প্রারম্ভিক রাজবংশীয় সময়কালে শুরু হয়েছে যা একে অপরের সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে প্রায় ৩৫০০ খ্রিস্টপূর্বতে আবির্ভূত হয়।[৩][৪] সবচেয়ে পুরনো নথিভুক্ত করা ইতিহাস মান এবং নির্ভরযোগ্যতাতে ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়। এই ইতিহাসে প্রাচীন মিশরীয়রা ফারাও এবং তাদের রাজত্বকাল নিয়ে লিখেছেন।[৫] আদিতম নথিভুক্ত করা ইতিহাসের তথ্যের অনেকটি ভাগ সম্প্রতি প্রত্নতাত্ত্বিক খনন সাইট থেকে পুনরায় আবিষ্কৃত হয়েছে।[৬]

পূর্ব এশিয়া[সম্পাদনা]

চীনে আদিতম ইতিহাস ওরাকল হাড় লিপিতে লেখা হয়েছিল যা পাঠোদ্ধার করা হয়েছে। এই লিপি প্রায় দ্বিতীয় সহস্রাব্দ খ্রিস্টপূর্বে লেখা হয়েছিল।[৭] পঞ্চম শতাব্দী খ্রিস্টপূর্বতে জুও কিউমিংএর রচিত জুও জহুয়ান হল বিশ্বের আদিতম রচিত আখ্যান। এটা ৭২২ থেকে ৪৬৮ খ্রিস্টপূর্ব সময় নিয়ে লেখা। 'ইতিহাসের ক্লাসিক' চীনা ক্লাসিক গ্রন্থের পাঁচ ক্লাসিকের মধ্যে অন্যতম এবং এটি চীনের আদিতম রচিত আখ্যানে মধ্যে অন্যতম। কনফুসিয়াসের লেখা 'শরৎ বসন্ত ইতিবৃত্ত' লু রাজ্যের সরকারি ধারাবিবরণী। এতে খ্রিস্টপূর্ব ৭২২ থেকে ৪৮১ অব্দ পর্যন্ত ২৪১ বছরের ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে। এটি আদিতম ঐতিহাসিক গ্রন্থের অন্যতম যা সংক্ষিপ্ত ঐতিহাসিক বিবরণ নীতির উপর ভিত্তি করে লেখা। ঝ্যান গুও সে একটি প্রখ্যাত প্রাচীন চীনা ঐতিহাসিক সংকলন যা যুদ্ধরত রাজ্য কালের উপর বিক্ষিপ্ত উপকরণে ভিত্তি করে লেখা। বিক্ষিপ্ত উপকরণগুলি ১ থেকে ৩ শতাব্দী খ্রিস্টপূর্বে লেখা।

সিমা কিয়ান (আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ১০০) চীনের প্রথম ইতিহাসবিদ ছিলেন যিনি দক্ষ ঐতিহাসিক লেখার জন্য ভিত্তি গড়েছিলেন।তিনি 'মহান ইতিহাসবিদের বিবরণ' বইতি লেখেন। সমসাময়িক এবং পূর্ববর্তী যুগের মানুষদের নিয়ে এই বই লেখা। এই বইতে ১৬০০ খ্রিস্টপূর্বের কথাও লেখা আছে। এটি নির্দিষ্ট বিষয় ও বিশিষ্ট মানুষের পৃথক জীবন নিয়েও আলোচনা করেছেন। সাধারণ মানুষের জীবনযাপন নিয়েও লেখা আছে। এই বই পূর্ব হান সাম্রাজ্যের বান পরিবারকেও প্রভাব করেছিল।

ইউরোপ[সম্পাদনা]

হিরোডোটাসকে (আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ৪৮৪ – আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ৪২৫) ইতিহাসের জনক হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। তিনি 'দ্য হিস্টোরিস' বইটি লিখেছেন।[৮] তবে, তার সমসাময়িক থুসিডাইডিসকে (আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ৪৬০ - আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ৪০০) কৃতিত্ব দেওয়া হয় যে তিনি প্রথম সুগঠিত ঐতিহাসিক পদ্ধতির সঙ্গে তার কাজ 'পিলোপনেশিয়ান যুদ্ধের ইতিহাস' বইটি লেখেন। থুসিডাইডিস, হেরোডোটাসের অন্যত্র, মানুষের পছন্দ এবং কর্মের পণ্য হিসেবে ইতিহাসকে দেখত,মনে করত ঐশ্বরিক হস্তক্ষেপের ফলে ইতিহাসে প্রভাব পরেনা এবং কারণ ও প্রভাবকে চর্চা করত।[৮]

সেইন্ট অগাস্টিন মধ্যযুগের শুরুতে খ্রীষ্টান ও পশ্চিম চিন্তার প্রভাবশালী ভূমিকা রাখেন। মধ্যযুগীয় এবং রেনেসাঁস সময়এ ইতিহাস প্রায়ই একটি পবিত্র বা ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ মাধ্যমে চর্চিত হত। প্রায় ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দে, জার্মান দার্শনিক ও ইতিহাসবিদ গেয়র্গ ভিলহেল্ম ফ্রিডরিখ হেগেল ঐতিহাসিক গবেষণায় দর্শন এবং আরো ধর্মনিরপেক্ষ পদ্ধতি এনেছিলেন।[৯]

ইতিহাসবিদ জন টশের মতে "উচ্চ মধ্যযুগ (আনুমানিক ১০০০-১৩০০ খ্রিস্টাব্দ) থেকে, লিখিত বিবরণ পশ্চিমী ইতিহাসে অন্য কোন উৎসের চেয়ে বেশী উল্লেখ্য"।[১০] পশ্চিম ইতিহাসবিদঅরা ১৭ ও ১৮ শতকে আধুনিক ইতিহাস-রচনাসম্বন্ধীয় গবেষণার সঙ্গে তুলনীয় পদ্ধতি উন্নত করে, বিশেষত ফ্রান্স এবং জার্মানি, যেখানে তারা তাদের অতীত ইতিহাস লিখতে এই উৎস উপকরণ অনুসন্ধান করতে শুরু করে। এই ইতিহাসে অনেকের তাদের ইতিহাস বিবরণের সঙ্গে দৃঢ় আদর্শগত ও রাজনৈতিক সম্পর্ক ছিল। বিংশ শতাব্দীতে, প্রাতিষ্ঠানিক ঐতিহাসিকদের, মহাকাব্য জাতীয়তাবাদী আখ্যানে, যা প্রায়ই জাতি বা মহান পুরুষদের প্রশংসা করত, তার উপর কম মনোযোগ দিয়েছে এবং সামাজিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক শক্তির কাছে আরও বেশি লক্ষ্য এবং জটিল বিশ্লেষণ শুরু করে। বিংশ শতাব্দীর মধ্যে ঐতিহাসিক পদ্ধতির একটি প্রধান প্রবণতা হল ইতিহাসকে একটি সামাজিক বিজ্ঞান হিসেবে দেখা শিল্পের বিপরীতে, যে পদ্ধতিতে ঐতিহ্যগতভাবে ইতিহাসকে দেখা হত। আনাল ঘরানার সঙ্গে যুক্ত ফরাসি ঐতিহাসিকরা পরিমাণগত ইতিহাস প্রচলন করে, সাধারণত ব্যক্তির জীবন অনুসরণ করতে অশোধিত ডেটা ব্যবহার করে, এবং সাংস্কৃতিক ইতিহাস প্রতিষ্ঠার জন্য বিশিষ্ট অবদান ছিল।

দক্ষিণ এশিয়া[সম্পাদনা]

শ্রীলঙ্কার প্রাচীনতম ঐতিহাসিক পাঠ হল মহাভামসা। অনুরাধাপুরা মহাবিহারের বৌদ্ধ সন্ন্যাসীরা তৃতীয় শতাব্দী খ্রিষ্টাব্দ থেকে শুরু করে শ্রীলঙ্কার ইতিহাসের দ্বারা লিপিবদ্ধ ঘটনাপঞ্জি বজায় রেখেছিল। এই ইতিহাসের বিবরণীগুলি পঞ্চম শতাব্দীতে মিলিত এবং প্রণীত করেন অনুরাধাপুরার মহানামা যখন অনুরাধাপুরের ধাতুসেনা অনুরাধাপুর রাজ্যের ক্ষমতাসীন হয়েছিল। এটি পূর্বে লেখা সংকলন আত্মকথা, যা সিংহলিতে লেখা আলোচনা তার উপর ভিত্তি করে লেখা হয়েছিল।[১১] আগের দ্বীপভামসা (৪ শতাব্দী) "দ্বীপ ইতিহাস" নামে পরিচিত দলিল অনেক সহজ এবং এতে মহাভামসা থেকে অনেক কম তথ্য রয়েছে এবং সম্ভবত এটা মহাভামসা আবং আত্মকথা থেকে সংকলন করে লেখা হয়েছে।

একটি সহচর খন্ড কুলাভামসা (ক্ষুদ্রতর বিবরণ), সিংহলি সন্ন্যাসীদের কর্তৃক সঙ্কলিত, যা ৪ শতাব্দী থেকে ১৮১৫ শ্রীলঙ্কার ব্রিটিশ ক্ষমতা দখলের সময়অকে জুড়ে লেখা। কুলাভামসা ভিন্ন ভিন্ন সময়কালের কিছু সংখ্যক লেখক দ্বারা একত্রিত করা হয়েছিল।

এই একত্রিত করা কাজ, মাঝে মাঝে সম্মিলিতভাবে মহাভামসা হিসেবে উল্লেখ করা হয়, দুই সহস্রাব্দব্যাপী একটি ক্রমাগত ঐতিহাসিক রেকর্ড প্রদান করে, এবং বিশ্বের দীর্ঘতম অবিচ্ছিন্ন ঐতিহাসিক অ্যাকাউন্টগুলির মধ্যে একটিতে বিবেচনা করা হয়।[১২] এই ডকুমেন্টী নাগা ও য়াক্ষা মানুষের কথা, কলিঙ্গের সিংহপুরা থেকে রাজপুত্র বিজয়ার কিংবদন্তি আগমনের পূর্বে লংকা আদিবাসী বাসিন্দাদের সংক্রান্ত লেখা আর মধ্যে আছে, যা খুবিই দুর্লভ।

মধ্যপ্রাচ্য[সম্পাদনা]

ইবনে খালদুন তার বই মুকাদ্দিমাহ-র (১৩৭৭) মুখবন্ধতে ইতিহাসবিদদের নিয়মিত সাত ভুল নিয়ে সতর্ক করে দেন। এই সমালোচনায়, তিনি অতীতকে অদ্ভুত এবং ব্যাখ্যার প্রয়োজন হিসেবে তটস্থ করতেন। ইবনে খালদুন প্রায়ই "অলস কুসংস্কার এবং ঐতিহাসিক তথ্যের সমালোচনাহীন স্বীকৃতি"র সমালোচনা করতেন। ফলস্বরূপ, সে ইতিহাস অধ্যয়ন করতে একটি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি প্রচলন করেছিলেন, এবং তিনি প্রায়ই এই নতুন পদ্ধতিকে "নতুন বিজ্ঞান" হিসেবে উল্লেখ করতেন।[১৩] তার ঐতিহাসিক পদ্ধতি রাষ্ট্র, যোগাযোগ, প্রচার এবং ইতিহাসে নিয়মানুগ পক্ষপাত ভূমিকা পর্যবেক্ষণের জন্য ভিত্তি দেয়।[১৪] এই কারণে তিনি "ইতিহাস রচনার জনক"[১৫][১৬] বা "ইতিহাস দর্শনের জনক"[১৭] হিসেবে পরিচিত।

সুমেরীয় ভাষার শিলালিপি, ২৬ শতাব্দী খ্রিস্টপূর্বে

ইতিহাস লিপিবদ্ধ করার পদ্ধতি[সম্পাদনা]

নথিভুক্ত ইতিহাস লেখার উদ্ভাবন দিয়ে শুরু হলেও, কালক্রমে ইতিহাসকে বিবরণ করতে নতুন উপায় এসেছে প্রযুক্তির অগ্রগতি সঙ্গে। ইতিহাস এখন ফটোগ্রাফি, অডিও রেকর্ডিং, এবং ভিডিও রেকর্ডিং মাধ্যমে রেকর্ড করা যায়। আরও সাম্প্রতিককালে, ইন্টারনেট আর্কাইভরা ওয়েব পাতার কপি সংরক্ষণ করেছে, ইন্টারনেটের ইতিহাসকে সংরক্ষণ করার জন্য। ঐতিহাসিক তথ্য সংগ্রহ এছাড়াও প্রযুক্তির পরিবর্তন অনুষঙ্গী করেছেন অন্যান্য পদ্ধতি; উদাহরণস্বরূপ, অন্তত ২০ শতকের পর থেকে প্রচেষ্টা করা হচ্ছে মৌখিক ইতিহাসকে রেকর্ডিংএর দ্বারা সংরক্ষণ করা। ১৯৯০এর দশক পর্যন্ত এই কাজ অ্যানালগ রেকর্ডিং পদ্ধতি ব্যবহার করে যেমন ক্যাসেট এবং রীল টু রীল টেপ ব্যবহার করা হত। নতুন প্রযুক্তির সূত্রপাতের সঙ্গে, এখন ডিজিটাল রেকর্ডিং আছে, যা সিডি থেকে রেকর্ড করা যেতে পারে।[১৮] তা সত্ত্বেও, ঐতিহাসিক বিবরণ এবং তার ব্যাখ্যা প্রায়শই লিখিত রেকর্ডের উপর খুব বেশী নির্ভরশীল, আংশিকভাবে, কারণ এটি অদ্যাপি বর্তমান ঐতিহাসিক উপকরণ প্রাধান্য পায়, এবং আংশিকভাবে কারণ ঐতিহাসিকরা যোগাযোগ এবং গবেষণা করতে এই পদ্ধতি ব্যবহার করেন।[১০]

ঐতিহাসিক পদ্ধতি[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক পদ্ধতি, কৌশল এবং নির্দেশাবলী দিয়ে তৈরি যার দ্বারা ঐতিহাসিকরা প্রাথমিক উৎস ও অন্যান্য প্রমাণের মাধ্যমে গবেষণা করে ইতিহাস লেখেন। প্রাথমিক উৎস হল ইতিহাসের সরাসরি অভিজ্ঞতা যা কোনো ব্যক্তি ঘটনা ঘটার সময় তৈরি করে (সাধারণত লিখিত, কিন্তু কখনও কখনও অন্যান্য মাধ্যমেও হয়) । ঐতিহাসিক মনে করেন যে এই প্রাথমিক উৎস হল কোনো ঘটনার সবচেয়ে কাছের তথ্য বা ধারণা। এই ধরনের সূত্র গবেষকদেরর প্রদান করতে পারে, ডাল্টন বা চারনিগোর কথায়, "সরাসরি, মধ্যস্থতা-ছাড়া অধ্যয়নের উদ্দেশ্য সম্পর্কে তথ্য।"[১৯]

ঐতিহাসিকরা অন্যান্য ধরনের সূত্রও ব্যবহার করেন ইতিহাস জানার জন্য। মাধ্যমিক উৎস প্রাথমিক উৎসের উপর ভিত্তি করে ইতিহাস লেখে। এসব উৎস যা, , অ্যাকাউন্ট, কাজ, বা গবেষণা বিশ্লেষণ, অঙ্গীভূত, মূল্যায়ন, ব্যাখ্যা করা, এবং / অথবা প্রাথমিক উৎস সমন্বয় আছে। এসব উৎস সাধারণত প্রাথমিক উৎসের বর্ণনা দেয়, কাজ করে, বা গবেষণা বিশ্লেষণ, অঙ্গীভূত, মূল্যায়ন, ব্যাখ্যা, এবং / অথবা সংশ্লেষণ করে। তৃতীয় গঠনসংক্রান্ত সূত্র প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় সূত্র উপর ভিত্তি করে, এবং প্রায়শই আরো নির্দিষ্ট গবেষণা সূত্র করে প্রথম দুই ধরনের সূত্র থেকে পাওয়া নির্মিত একটি আরো সাধারণ বিবরণ প্রকাশ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Shotwell, James Thomson (১৯২২)। An Introduction to the History of History. Records of civilization, sources and studies (ইংলিশ ভাষায়)। নিউ ইয়র্ক: কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি প্রেস। 
  2. Smail, Daniel Lord (২০০৮)। On Deep History and the Brain. An Ahmanson foundation book in the humanities (ইংলিশ ভাষায়)। বার্কলে: ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। 
  3. "The Cuneiform Writing System in Ancient Mesopotamia: Emergence and Evolution"। EDSITEment। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  4. Kott, Ruth E.। "The origins of writing"। The University of Chicago Magazine। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ 
  5. Adès, Harry (২০০৭)। A Traveller's History of Egypt (ইংরাজি ভাষায়)। Interlink Publishing। পৃষ্ঠা ২৮। আইএসবিএন 978-1566566544 
  6. Greer, Thomas H. (২০০৪)। A Brief History of the Western World (ইংরাজি ভাষায়)। Cengage Learning। পৃষ্ঠা ১৬। আইএসবিএন 978-0534642365 
  7. "综述", 中国考古学报第5册 (চীনা ভাষায়)। 《考古学报》编辑部। ১৯৫১। 
  8. Lamberg-Karlovsky, C. C.; A. Sabloff, Jeremy (১৯৭৯)। Ancient Civilizations: The Near East and Mesoamerica (ইংরাজি ভাষায়)। Benjamin-Cummings Publishing। পৃষ্ঠা ৫। আইএসবিএন 0-88133-834-6 
  9. Graham, Gordon (১৯৯৭)। "১"। The Shape of the Past (ইংরাজি ভাষায়)। Oxford University। 
  10. টশ, জন (২০০৬)। The Pursuit of History (ইংরাজি ভাষায়) (৪ সংস্করণ)। Pearson Longman। আইএসবিএন 9781405823517 
  11. Oldenberg, Hermann (১৮৭৯)। Dipavamsa (ইংরাজি ভাষায়)। Asian Educational Services। আইএসবিএন 978-81-206-0217-5 
  12. Tripathi, Sreedhara (২০০৮)। Encyclopaedia of Pali Literature: The Pali canon. (ইংরাজি ভাষায়)। পৃষ্ঠা ১১৭। আইএসবিএন 9788126135608 
  13. খালদুন, ইবনে (১৯৬৭)। The Muqaddimah: An Introduction to History (ইংরাজি ভাষায়)। Princeton University Press। আইএসবিএন ISBN 0-691-01754-9 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য) 
  14. {{cite journal |last1=Mowlana |first1=H. |year=২০০১ |title=Information in the Arab World |journal=Cooperation South Journal |volume=১ |issue= |pages= |publisher= |doi= |url= |accessdate=১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭}}
  15. Ahmed, Salahuddin (১৯৯৯)। A Dictionary of Muslim Names (ইংরেজি ভাষায়)। C. Hurst & Co. Publishers। আইএসবিএন 1-85065-356-9 
  16. Enan, Muhammed Abdullah (২০০৭)। Ibn Khaldun: His Life and Works (ইংরেজি ভাষায়)। The Other Press। আইএসবিএন 983-9541-53-6 
  17. {{cite journal |last1=Akhtar |first1=Dr. S. W. |year=১৯৯৭ |title=The Islamic Concept of Knowledge |journal=Al-Tawhid: A Quarterly Journal of Islamic Thought & Culture |volume=১২ |issue= |pages= |publisher= |doi= |url= |accessdate=১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭}}
  18. Webb, Colin; Bradley, Kevin (১৯৯৭)। "Preserving Oral History Recordings"। National Library of Australia। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  19. Dalton, Margaret Stieg; Charnigo, Laurie (২০০৪)। "Historians and Their Information Sources" (PDF)