রূপা গঙ্গোপাধ্যায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রূপা গঙ্গোপাধ্যায়
Rupa Ganguly.jpg
জন্ম রূপা গঙ্গোপাধ্যায়
(১৯৬৬-১১-২৫) নভেম্বর ২৫, ১৯৬৬ (বয়স ৪৮)
কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
জাতীয়তা ভারতীয়
পেশা অভিনেত্রী
দম্পতি ধ্রুব মুখার্জী (১৯৯২-২০০৬)[১]
স্বাক্ষর Roopa Ganguly signature.svg

রূপা গঙ্গোপাধ্যায় অথবা রূপা গাঙ্গুলী (ইংরেজি: Roopa Ganguly) (জন্মঃ ২৫ ডিসেম্বর ১৯৬৬) হলেন একজন ভারতীয় অভিনেত্রী এবং জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী নারী নেপথ্য গায়িকা যিনি হিন্দী এবং বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পে কাজ করে থাকেন। এছাড়াও তিনি ছোট পর্দায়ও কাজ করে থাকেন।[২] তিনি ১৯৮৮ সালের সফল টেলিভিশন সিরিজ মহাভারতে "ধ্রুপদী" চরিত্রে এবং ১৯৯৩ সালে গৌতম ঘোষ এর পদ্মানদীর মাঝি ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। এছাড়াও অপর্ণা সেন এর যুগান্ত (১৯৯৫) এবং ২০০৬ সালের ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত অন্তরমহল (২০০৬) ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করেন।[৩]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

রূপা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার কাছাকাছি কল্যানি নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একটি যৌথ হিন্দু পরিবারে বড় হয়েছেন। তিনি "বেলতলা মহিলা উচ্চ বিদ্যালয়" থেকে মাধ্যমিক জীবন সম্পন্ন করেন। তিনি কলকাতায় "জমমায়া দেবী কলেজ" থেকে স্নাতক অর্জন করেন, যেটি কলকাতার ঐতিহাসিক কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় এর অধিভুক্ত একটি স্নাতক মহিলা কলেজ।[৪]

রূপা ১৯৯২ সালে দ্রুব মুখার্জিকে বিবাহ করেন। ২০০৬ সালে তাদের সংসারে বিচ্ছেদ হয়। একটি সাক্ষাত্কারে গাঙ্গুলি বলেন, একজন অভিনেত্রী হিসেবে তার স্বীকৃতি সম্পর্কে অনিরাপদ বোধ করতে শুরু করেছেন বলে তার স্বামীকে বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। এই দম্পতির একমাত্র সন্তান আকাশ ১৯৯৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন।[১] পরবর্তীতে তিনি তার মুম্বাইয়ের সহকারী শিল্পী দিব্দেন্দ্যু এর সাথে সঙ্গে একত্রে বসবাস শুরু করেন। যেটি রুপার বয়সের তুলনায় দিব্দেন্দুর বয়সের পার্থ্যক্য ছিল ১৩ বছর কনিষ্ঠ। রুপা এরপর থেকে দিব্যেন্দুর সাথে আলাদা হয়ে আছেন।[৫][৬] রূপা স্টার প্লাস এর জনপ্রিয় রিয়ােলিটি শো এর শেষ পর্ব সাচ কা সামনা (২০০৯), ভারতীয়দের অংশগ্রহনে ব্রিটিশ রিয়ালিটি শো দ্যা মোমেন্ট অব ট্রুথ ইত্যাদি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে মিডিয়াতে আলোড়ন সৃষ্টি করেন।

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

রূপা কলকাতা থেকে তার স্নাতকের পর ১৯৮৫ সালে অনিল কাপুরের অভিনীত "সাহেব" নামক ছবিতে অভিনয়ে মাধ্যমে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। তার দ্বিতীয় অবদান ছিল ১৯৮৬ সালের মালায়ালাম চলচ্চিত্র "ইথিলে ইনিয়াম বরু"। এই ছবিতে জনপ্রিয় অভিনেতা মাম্মত্তির বিপরীতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন। "বি আর চোপরার" পৌরাণিক টিভি শো মহাভারতে অভিনয় করেন যা অবিলম্বে তাকে কর্মজীবনে প্রভাবিত করেছিল[৭] এবং মৃণাল সেনের "এক দিন আচানাক" (১৯৮৯) প্রধান চরিতে অভিনয় করেছিলেন।

কয়েকটি হিন্দি ছবিতে কাজ করার পর, তিনি কলকাতায় স্থানান্তরিত হন এবং ১৯৯০ সালে অসংখ্য বাংলা ছায়াছবি কাজ করেন। ২০০৪ সালে অঞ্জন দত্তের পরিচালনায় "বউ ব্যারাকস ফরইভার" নামের একটি ইংরেজী চলচ্চিতে কাজ করেন। এরপর ২০০৭ সালে তিনি পুনরায় মুম্বাইয়ে থেকে স্থানান্তরিত হন[৮] এবং বাংলা ছবিতে নিয়মিত কাজ অব্যাহত রাখেন। তিনি ২০০৭ সালে হিন্দী টেলিভিশন সিরিয়াল "করাম আপনা আপনা"তে, এরপর সাব টিভির ২০০৭ সালের "লাভ স্টোরী" এবং সম্প্রতি ২০০৯ সালে "আগলে জানাম মোহে বিটিয়া বহ কিজো" কাজ করেন। তিনি বাংলা চলচ্চিত্র "অবশেষে" তার কণ্ঠস্বর প্রদানের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার জিতে নেন।[৯]

রাজনৈতিক অন্তর্ভুক্তি[সম্পাদনা]

রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, ২০১৫ সাল থেকে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য​ ভারতীয় জনতা পার্টির একজন সদস্য৷

কাজ সমূহ[সম্পাদনা]

ছবির তালিকা[সম্পাদনা]

বছর ছবি ভাষা পরিচালক
১৯৮৫ সাহেব হিন্দী অনিল গাঙ্গুলী
১৯৮৮ পুলিশ মথু ডাড্ডা কন্নাড পি বসু
১৯৮৮ কন্নাড কন্নাড পি বসু
১৯৮৯ একদিন আচানাক হিন্দী মৃণাল সেন
১৯৮৯ কমলা কি মউত হিন্দী
১৯৯০ প্যায়র ক্যা দেবতা হিন্দী
১৯৯০ বাহার আনে তাক হিন্দী
১৯৯১ মীনা বাজার
১৯৯১ ইন্সপেক্টর ধানুশ
১৯৯১ সওগাদ হিন্দী রাজ সিপ্পী
১৯৯২ 'বিরোধী
১৯৯২ নিশ্চয় হিন্দী ইসমাইল শরীফ
১৯৯৩ জননী একা মা সনাত দেশগুপ্তা
১৯৯৩ পদ্ম নদীর মাঝি
১৯৯৫ গোপালা
১৯৯৬ যুগান্ত
১৯৯৬ বৃন্দাবন ফিল্ম স্টুডিও
২০০০ বারিওয়ালি বাংলা ঋতুপর্ণ ঘোষ
২০০২ আনামনি আনগানা বাংলা ড স্বপন সাহা
২০০৩ আবার অরণ্যে বাংলা গৌতম ঘোষ
২০০৪ মহুলবানির শৃঙ্গ বাংলা
২০০৪ বউ বেরেক্স ফরইভার ইংরেজী অঞ্জন দত্ত
২০০৫ শুণ্য এ বুকে বাংলা কৌশিক গাঙ্গুলী
২০০৫ এক মুঠো ছবি বাংলা
২০০৫ ক্রান্তিকাল বাংলা শেখর দাস
২০০৫ নাগরদোলা বাংলা
২০০৬ অন্তর্মহল বাংলা ঋতুপর্ণ ঘোষ
২০০৯ লাক হিন্দী ধীলিন মেহতা
২০১১ জানি দেখা হবে বাংলা
২০১২ অবশেষে বাংলা অদিতী রায়
২০১২ বারফি হিন্দী অনুরাগ বসু
২০১২ আসবো আর একদিন বাংলা
২০১২ হেমলক সোসাইটি বাংলা
২০১২ না হান্নায়েতে বাংলা রিঙ্গো ব্যানার্জী
২০১৩ নামতে নামতে বাংলা রানা বসু
২০১৩ হাফ সিরিয়াস বাংলা উৎসব মুখার্জী

টেলিভিশন[সম্পাদনা]

  • গণদেবতা (১৯৯৮)
  • মহাভারত (১৯৯৮)
  • সুকন্যা (১৯৯৮)
  • কারাম আপনা আপনা (২০০৭)
  • লাভ স্টোরী (সাব টিভি) (২০০৭)
  • ওয়াক্ত বানায়েঙ্গে কন আপনা কন পরায়া (২০০৮)
  • কস্তুরি টিভি সিরিজ (২০০৯)
  • সাচ কা সামনা (২০০৯)
  • আগলে জানাম মে বিটিয়া হি কি জে (২০০৯)
  • কিস দেশ মে হে মেরা দিল (২০১১)
  • চন্দ্রকথা"

পুরস্কার ও স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ "I attempted suicide thrice:"The Times of India। Sep 29, 2009। সংগৃহীত 5 November 2012 
  2. "Best face forward at Dover Lane"The Telegraph। 2004-09-30। সংগৃহীত 2008-03-10 
  3. Roopa Ganguly on Antarmahal IndiaFM News Bureau, 31 October 2005.
  4. History of the College
  5. Nobody told the 'whole truth' to win Rs 1 cr Hindustan Times, Priyanka Srivastava, New Delhi, 20 September 2009.
  6. Roopa Ganguly on Sach ka Saamna finale The Times of India, DIVYA PAL , TNN 18 September 2009.
  7. Talking point with Roopa Ganguly The Indian Express, 2 May 2009.
  8. Roopa Ganguly is back in Bollywood The Times of India, 14 June 2007.
  9. TALKING POINT with Roopa Ganguly The Indian Express, 10 March 2007!
  10. "National Award: Roopa Ganguly wins the Best Female Playback Singer"The Times of India। Mar 9, 2012। সংগৃহীত 5 November 2012 
  11. "Kalakar award winners"। Kalakar website। সংগৃহীত 16 October 2012 
  12. Screening Culture, Viewing Politics: An Ethnography of Television, Womanhood, and Nation in Postcolonial India
  13. Duke University Pres link on the book

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]