মুরাদ হাসান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মুরাদ হাসান
প্রতিমন্ত্রী,তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
জাতীয় সংসদ আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ২০১৮ – বর্তমান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1974-11-17) ১৭ নভেম্বর ১৯৭৪ (বয়স ৪৭)
জামালপুর জেলা, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
পিতামাতা
  • এ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদার (পিতা)
    মনোয়ারা বেগম (মাতা)

[১]

শিক্ষাএম.বি.বি.এস, এম.ফিল
প্রাক্তন শিক্ষার্থীময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ
পেশারাজনীতি
জীবিকাডাক্তার

মুরাদ হাসান বাংলাদেশের একজন রাজনীতিবিদ, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী। তিনি বাংলাদেশের জামালপুর-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য। তিনি নবম এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। ২০১৮ সালের মন্ত্রী সভায় তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ) এর প্রতিমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পান।[১][২] তারপর ১৯ মে ২০১৯ তারিখ থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।[৩]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

১০ অক্টোবর ১৯৭৪ সালে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলাধীন দৌলতপুর গ্রামে মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম এড. মতিয়র রহমান তালুকদার, মাতা: মনোয়ারা বেগম।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

জামালপুর শহরস্থ কিশলয় আদর্শ বিদ্যা নিকেতনে তার প্রাথমিক শিক্ষা জীবন শুরু। ১৯৯০ সালে তিনি জামালপুর জিলা স্কুল থেকে এসএসসি, ১৯৯৩ সালে নটর ডেম কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ২০০০ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন। ২০০৪-২০০৫ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে ‘Plastic & Reconstructive Surgery’র উপর Post Graduation Training (PGT) সম্পন্ন করেন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হতে ২০১১ সালে Radiation Oncology’র উপর এম. ফিল ডিগ্রী অর্জন করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে অনকোলজি বিভাগে কনসালটেন্ট হিসেবে কর্মরত আছেন ।[৪]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

তিনি নবম এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) ও একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটিরও কেন্দ্রীয় সদস্য। তিনি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এবং বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর আজীবন সদস্য। [১]

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

তার পিতা এ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদার মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী বিচারপতি এবং জেলা আওয়ামী লীগ ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ছিলেন।[১][৫] ব্যক্তিগত জীবনে এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জনক। তার স্ত্রী ডা: জাহানারা এহসানও পেশায় একজন ডাক্তার।

সমালোচনা[সম্পাদনা]

২০২১ সালের অক্টোবরে মুরাদ হাসান তার এক বক্তব্যে বাংলাদেশের বর্তমান সংবিধান নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। তার ব্যক্তিগত মন্তব্যে তিনি সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ এবং ১৫তম সংশোধনী বাতিল করে ১৯৭২ সালের সংবিধান পুনর্বহাল রাখার ইচ্ছা পেশ করেন।[৬][৭] কিন্তু বাংলাদেশের বর্তমান সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা উল্লেখ থাকায় এবং সকল ধর্মের প্রতি সমান মর্যাদা উল্লেখ থাকায় তার প্রস্তাবটি নেট দুনিয়ায় ব্যাপক সমালোচনার মুখোমুখি হয়।[৮][৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সরিষাবাড়ীতে আনন্দের বন্যা, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হলেন ডা. মুরাদ হাসান"www.dailyinqilab.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৭ 
  2. "স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হলেন ডা. মুরাদ হাসান"www.bangladeshtoday.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৭ 
  3. "স্বাস্থ্য থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ে ডা. মুরাদ হাসান || জাতীয়"জনকন্ঠ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. "তিন চিকিৎসক নতুন মন্ত্রিসভায়"www.sarabangla.net। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৭ 
  5. "ময়মনসিংহ বিভাগে পাঁচ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী"www.banglanews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৭ 
  6. "৭২ এর সংবিধানে ফেরার দাবি সংসদে তুলবেন প্রতিমন্ত্রী মুরাদ"Newsbangla24। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৭ 
  7. প্রতিবেদক, নিজস্ব। "কেউ কথা না বললেও আমি মুরাদ সংসদে কথা বলব: তথ্য প্রতিমন্ত্রী"Prothomalo। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৭ 
  8. "তথ্য প্রতিমন্ত্রীর সমালোচনায় রিজভী"jagonews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৭ 
  9. রিপোর্টার, রংপুর থেকে স্টাফ। "প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের অপসারণ দাবি রসিক মেয়রের"DailyInqilabOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৭