ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশন (স্টেশন কোড: বিপিএল) ভারতের অন্যতম একটি রেলওয়ে জংশন৷ এটি ভারতের মধ্য প্রদেশের রাজধানী শহর ভোপাল এর প্রধান রেলওয়ে স্টেশন৷ সাচির একটি গুরুত্বপূর্ণ বৌদ্ধ স্তুপা স্টেশনটি হতে প্রায় ৪০ কিলোমিটার(২৫ মাইল) দূরে অবস্থিত৷ প্রতি বছর নেপাল, চীন, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, জাপান এবং মায়ানমার হতে বহু তীর্থযাত্রী স্তুপাটি দর্শন করতে আসে৷ ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশনটি এসব তীর্থযাত্রীদের যাতায়াতের সংযোগস্থল হিসাবে কাজ করে৷

নির্মাণ[সম্পাদনা]

স্টেশনটি ১৯১০ সালে নির্মিত হয়৷ শহরটির দ্বিতীয় স্টেশন(ভোপাল হবিগঞ্জ) ১৯৭৫ সালে নির্মিত হয় এবং এটি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী উদ্বোধন করেন৷ পরবর্তীতে অবশ্য ভোপাল শহরে আরও চারটি রেলওয়ে স্টেশন নির্মিত হয়৷

শহরটিতে সর্বমোট ছয়টি রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে৷

ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশন এবং ভোপাল হবিগঞ্জ স্টেশনকে আরও ৪৭ টি রেলওয়ে স্টেশনের পাশাপাশি ওয়ার্ল্ড ক্লাস রেলওয়ে স্টেশন হিসাবে গড়ে তোলার জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে৷ ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশন এবং ভোপাল হবিগঞ্জ স্টেশন দুটি ইতিমধ্যেই আইএসও ৯০০১:২০০০ সনদ লাভ করেছে৷[১]

অবস্থান[সম্পাদনা]

স্টেশনটি শহরটির কেন্দ্র হতে প্রায় ৯ কিলোমিটার(৫.৬ মাইল) এবং ভোপাল হবিগঞ্জ হতে ৭ কিলোমিটার(৪.৩ মাইল) দূরে অবস্থিত৷

গঠনশৈলী[সম্পাদনা]

স্টেশনটিতে ৬ টি প্লাটফর্ম রয়েছে৷ অন্যান্য সুবিধার পাশাপাশি স্টেশনটিতে অনেকগুলো ওয়েটিং হল, রিফ্রেশমেন্ট সেন্টার, প্যাসেঞ্জার টিকেট কাউন্টার, টিকেট ভেন্ডিং মেশিন, কার পার্কিং, যোগাযোগ সুবিধা, সেনিটারি সুবিধা এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার লক্ষ্যে সরকারি রেলওয়ে পুলিশ ফোর্স নিয়োজিত রয়েছে৷[২]

সার্ভিস[সম্পাদনা]

ভোপাল জংশন রেলওয়ে স্টেশনটি প্রধান দিল্লি-চেন্নাই রুটের উপর অবস্থিত, যেখানে ২০০ টিরও অধিক ডেইলি ট্রেন এবং সপ্তাহে ৩৮০ টিরও অধিক ট্রেন থামে৷ ভোপাল জংশনের উত্তরে বিনা জংশন, দক্ষিনে রয়েছে ইতারসি জংশন৷ অপরদিকে একটি ট্র্যাকের মাধ্যমে পশ্চিমে এটি উজ্জাইন জংশন, রত্লম জংশন এবং আহমেদাবাদ জংশনের সাথে যুক্ত৷ এছাড়াও ইন্ডোর ও দিওয়াস জংশনের কিছু অংশের সাথেও যুক্ত৷[৩]

ট্রেনসমূহ[সম্পাদনা]

ভোপাল শহর ভারতের দ্রুততম ট্রেন ভোপাল শতাব্দি এক্সপ্রেস এবং একই সাথে ভারতের অ্ন্যতম দ্রুততম মেইল এক্সপ্রেস ট্রেন এর চলাচল স্থান৷ আইএও সনদপ্রাপ্ত দ্রুততম মেইল এক্সপ্রেস ট্রেনটি হল শান-ই-ভোপাল৷ অপরদিকে সম্প্রতি ঘোষিত ভোপাল-ইন্ডোর এসি ডাবল ডেকার ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস ও ভোপাল-ইন্ডোর এসি ডাবল ডেকার নন স্টপ এক্সপ্রেস চালু হলে তা হবে যথাক্রমে ভারতের মধ্য প্রদেশ ও ছত্রিশগড়ে চালু হওয়া প্রথম এসি ডাবল ডেকার ট্রেন ও নন-স্টপ পয়েন্ট টু পয়েন্ট ট্রেন৷

স্টেশন দিয়ে চলাচলকৃত ট্রেন[সম্পাদনা]

ভোপাল জংশনের অবস্থানটা এমন যে ভারতের প্রায় সব প্রদেশেরই ট্রেন(হিমাচল, আসাম এবং উত্তর-পূর্ব ব্যতিত) এখানে পাওয়া যায়৷ স্টেশনটিতে পাঁচ জোড়া রাজধানী এক্সপ্রেস, দুই জোড়া গরীবরথ এক্সপ্রেস, শতাব্দী এক্সপ্রেস, দুরন্ত এক্সপ্রেস এবং ২১০ জোড়া এক্সপ্রেস ও ১৩ জোড়া প্যাসেঞ্জার ট্রেন থামে৷

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]