ফিলিপ হিউজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফিলিপ হিউজ
Phillip Hughes.JPG
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ফিলিপ জোয়েল হিউজ
জন্ম (১৯৮৮-১১-৩০)নভেম্বর ৩০, ১৯৮৮
ম্যাকসভিলে, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু নভেম্বর ২৭, ২০১৪(২০১৪-১১-২৭) (২৫ বছর)
সিডনি, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
ডাকনাম হিউজিসী
উচ্চতা ১৭০ সেমি[১]
ব্যাটিংয়ের ধরণ বা-হাতি
বোলিংয়ের ধরণ ডান-হাতি অফ ব্র্রেক
ভূমিকা টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান, বিকল্প উইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক (ক্যাপ ৪০৮) ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট ১৮ জুলাই ২০১৩ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক (ক্যাপ ১৯৮) ১১ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ ওডিআই ২ নভেম্বর ২০১৩ বনাম ভারত
ওডিআই শার্ট নং ৬৪
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০০৭–২০১২ নিউ সাউথ ওয়েলস
২০০৯ মিডলসেক্স
২০১০ হ্যাম্পশায়ার
২০১১–২০১২ সিডনি থান্ডার
২০১২ ওরচেস্টারশায়ার
২০১৩-১৪ দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া
২০১২-১৪ এডিলেড স্ট্রাইক
২০১৩ মুম্বাই ইন্ডিয়ানস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওয়ানডে প্রথম-শ্রেণী লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ২৬ ২৫ ১১৪ ৯১
রানের সংখ্যা ১,৫৩৫ ৮২৬ ৯,০২৩ ৩,৬৩৯
ব্যাটিং গড় ৩২.৬৫ ৩৫.৯১ ৪৬.৫১ ৪৭.২৫
১০০/৫০ ৩/৭ ২/৪ ২৬/৪৬ ৮/২৩
সর্বোচ্চ রান ১৬০ ১৩৮* ২৪৩* ২০২*
বল করেছে ২৪
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৫/– ৫/– ৭২/– ৩০/–
উত্স: ইএসপিএন ক্রিকইনফো, ২৫ নভেম্বর ২০১৪

ফিলিপ জোয়েল হিউজ (ইংরেজি: Phillip Joel Hughes; জন্ম: ৩০ নভেম্বর, ১৯৮৮ - মৃত্যু: ২৭ নভেম্বর ২০১৪) ছিলেন অস্ট্রেলিয়ান টেস্ট এবং একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) ক্রিকেটার; যিনি ২০১৩ সালের হিসাব অনুয়ায়ী, দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া এবং ওরচেস্টারশায়ার হয়ে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলেছেন। তিনি মাত্র ২০ বছর বয়সে ২০০৯ সালে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ার আগে নিউ সাউথ ওয়েলসের সাথে দুটি সিজনের জন্য খেলেন এবং ​​বা-হাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে জাতীয় দলে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাটিং করতেন।[২]

হিউজের শর্ট বল খেলার দূর্বলতার কারণে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ২০০৯ সালের অ্যাশেজ সিরিজ চলাকালিন সময়ে টেস্ট ম্যাচ থেকে বাদ পড়ে যান এবং শেন ওয়াটসন তার জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হন।[৩] তাকে পুনরায় ২০১০ সালের জানুয়ারিতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এবং ২০১০ সালের মার্চে নিউজিল্যান্ড বিরুদ্ধে টেস্ট স্কোয়াডে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। যেখানে তিনি দ্বিতীয় ইনিংসে রান তাড়া করতে নেমে ৮৬* রানে অপরাজিত থাকেন।[৪]

প্রাথমিক জীবন ও জুনিয়র কর্মজীবন[সম্পাদনা]

হিউজের বাবা গ্রেগ এবং মাতা ভার্জিনিয়ার ঘরে নিউ সাউথ ওয়েলসের উত্তর উপকূলের একটি ছোট্র শহরে জন্মগ্রহণ করেন।[৫] তিনি কলা কৃষক এবং একজন ইতালীয় মায়ের ঘরে পুত্র সন্তান হিসেবে জন্ম নেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

হিউজ প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে ক্যাচ অনুশীলন করছেন

আন্তর্জাতিক শতকসমূহ[সম্পাদনা]

টেস্ট শতক[সম্পাদনা]

ফিলিপ হিউজের টেস্ট শতক
নম্বর স্কোর ম্যাচ প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ বছর
[১] ১১৫  দক্ষিণ আফ্রিকা ডারবান, দক্ষিণ আফ্রিকা কিংসমিড ক্রিকেট গ্রাউন্ড ২০০৯
[২] ১৬০  দক্ষিণ আফ্রিকা ডারবান, দক্ষিণ আফ্রিকা কিংসমিড ক্রিকেট গ্রাউন্ড ২০০৯
[৩] ১২৬ ১৩  শ্রীলঙ্কা কলম্বো, শ্রীলঙ্কা সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ড ২০১১

একদিনের আন্তর্জাতিক শতকসমূহ[সম্পাদনা]

ফিলিপ হিউজের একদিনের আন্তর্জাতিক শতক
নম্বর স্কোর ম্যাচ প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ বছর
[১] ১১২  শ্রীলঙ্কা মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড ২০১৩
[২] ১৩৮*  শ্রীলঙ্কা হোবার্ট, অস্ট্রেলিয়া ব্লুন্ডস্টোন এরিনা ২০১৩

পুরস্কার[সম্পাদনা]

আঘাত এবং মৃত্যু[সম্পাদনা]

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বরে চলমান ঘরোয়া ক্রিকেট প্রতিযোগিতা শেফিল্ড শিল্ড ম্যাচে সাউথ অস্ট্রেলিয়া এবং নিউ সাউথ ওয়েলস এর মধ্যেকার ম্যাচ চলাকালিন সময়ে হিউজ ৬৩* রানে অপরাজিত থাকা অবস্থায় ব্যাট করার সময়ে নিউ সাউথ ওয়েলসের বোলার সিন এ্যাবেটের একটি বাউন্স বলে তিনি মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন এবং সাথে সাথে মাটিতে পড়ে যান। পরবর্তীতে তাকে দ্রুততার সাথে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটির সাথে সাথেই উক্ত খেলাটিকে পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়।[৬]

হিউজ মাত্র ২৫ বছর বয়সে তার মাথায় আঘাতপ্রাপ্তির ২ দিন পরে অস্ট্রেলিয়ার একটি হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।[৭][৮][৯]

তার মৃত্যুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে ঐ সময়ে অনুষ্ঠিত পাকিস্তান বনাম নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার তৃতীয় টেস্টের ২য় দিনের খেলা স্থগিত করা হয়।[১০] এছাড়াও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া একাদশ ও ভারত দলের মধ্যে চলতি খেলাটিও তার প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বাতিল করা হয়।[১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Phillip Hughes"cricket.com.auCricket Australia। সংগৃহীত ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. "Boofa goes from bushie to Blue"। Fox Sports News। ২২ নভেম্বর ২০০৭। সংগৃহীত ৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  3. "Hughes dropped to make way for Watson | Cricket News | England v Australia 2009"। ESPN Cricinfo। সংগৃহীত ৯ আগস্ট ২০১৩ 
  4. ৪.০ ৪.১ "Batting records | Test matches | Cricinfo Statsguru | ESPN Cricinfo"। Stats.espncricinfo.com। সংগৃহীত ৯ আগস্ট ২০১৩ 
  5. Victoria warned to beware the Macksville Express The Daily Telegraph. Retrieved 25 March 2008
  6. "Phillip Hughes injury: Cricket Australia decides to abandon Sheffield Shield matches"। AAP। ২৬ নভেম্বর ২০১৪। 
  7. Phil Hughes dead at 25, news.com.au, 27 November 2014.
  8. "Phil Hughes: Australian batsman dies, aged 25"। BBC Sport। ২৭ নভেম্বর ২০১৪। সংগৃহীত ২৭ নভেম্বর ২০১৪ 
  9. "Phillip Hughes obituary: a very modern batsman who was heading for greatness"। The Guardian। ২৭ নভেম্বর ২০১৪। সংগৃহীত ২৭ নভেম্বর ২০১৪ 
  10. "Phillip Hughes dies from head injury sustained in Sheffield Shield match"। ABC News। সংগৃহীত ২৭ নভেম্বর ২০১৪ 
  11. "Phillip Hughes death: India tour match cancelled, Pakistan v New Zealand delayed"। Herald Sun। ২৭ নভেম্বর ২০১৪। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]