কিংসমিড ক্রিকেট গ্রাউন্ড

স্থানাঙ্ক: ২৯°৫১′০.২১″ দক্ষিণ ৩১°১′৪০.১৩″ পূর্ব / ২৯.৮৫০০৫৮৩° দক্ষিণ ৩১.০২৭৮১৩৯° পূর্ব / -29.8500583; 31.0278139
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কিংসমিড ক্রিকেট গ্রাউন্ড
কিংসমিড
Kingsmead2009.jpg
কিংসমিড মাঠের দৃশ্য
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলি
অবস্থানডারবান, দক্ষিণ আফ্রিকা
দেশদক্ষিণ আফ্রিকা
স্থানাঙ্ক২৯°৫১′০.২১″ দক্ষিণ ৩১°১′৪০.১৩″ পূর্ব / ২৯.৮৫০০৫৮৩° দক্ষিণ ৩১.০২৭৮১৩৯° পূর্ব / -29.8500583; 31.0278139
ধারণক্ষমতা২৫,০০০
ভাড়াটেকোয়া-জুলু নাটাল ডলফিন
প্রান্তসমূহ
উমজেনি এন্ড
ওল্ড ফোর্ট এন্ড
আন্তর্জাতিক খেলার তথ্য
প্রথম পুরুষ টেস্ট১৮–২২ জানুয়ারী ১৯২৩:
দক্ষিণ আফ্রিকা  বনাম  ইংল্যান্ড
সর্বশেষ পুরুষ টেস্ট১৯–২৩ আগস্ট ২০১৬:
দক্ষিণ আফ্রিকা  বনাম  নিউজিল্যান্ড
প্রথম পুরুষ ওডিআই১৭ ডিসেম্বর ১৯৯২:
দক্ষিণ আফ্রিকা  বনাম  ভারত
সর্বশেষ পুরুষ ওডিআই২৬ আগস্ট ২০১৫:
দক্ষিণ আফ্রিকা  বনাম  নিউজিল্যান্ড
প্রথম পুরুষ টি২০আই১২ সেপ্টেম্বর ২০০৭:
কেনিয়া  বনাম  নিউজিল্যান্ড
সর্বশেষ পুরুষ টি২০আই৪ মার্চ ২০১৬:
দক্ষিণ আফ্রিকা  বনাম  অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
কোয়া-জুলু নাটাল ডলফিন (২০০৩–বর্তমান)
৫ মার্চ ২০১৬ অনুযায়ী
উৎস: ESPNCricinfo

কিংসমিড হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়া-জুলু নাটাল প্রদেশের ডারবানে অবস্থিত একটি ক্রিকেট মাঠ। এটি সাহারা স্টেডিয়াম কিংসমিড এর অধীনে বিজ্ঞাপনী উদ্যোগে পরিচালিত হয়ে থাকে যেখানে সাহারা আইটি শিল্পের একটি পৃষ্ঠপোষক ট্রেডমার্ক হিসেবে পরিচিত। মাঠটির ধারণক্ষমতা প্রায় ২৫,০০০।[১] যদিও ঘাস দিয়ে উপরিভাগকে প্রদর্শিত এলাকা হিসেবে তৈরী করা হয়েছে। মাঠটির শেষ প্র্রান্ত নাম রাখা হয়েছে আমজেনি এন্ড (উত্তর) এবং ওল্ড ফোর্ট রোড (দক্ষিণ) পার্শ্বস্থ। এটা কোয়া-জুলু নাটাল প্রদেশের ডলফিন ক্রিকেট দলের ঘরোয়া মাঠ।

ক্রিকেট[সম্পাদনা]

মাঠটিতে প্রথমবারের মত দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে ঘরোয়া টেস্ট ক্রিকেট আয়োজন করে এবং পরবর্তীতে ১৯৩৯ খ্রীঃ ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটের আয়োজন করে।

[২]

২০০৯ সালে অস্ট্রেলিয়া বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে চলমান খেলার সময়কার দৃশ্য

ওডিআই[সম্পাদনা]

  • ১৯৯২ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের মধ্যে এই মাঠের প্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়।
  • ১৯৯৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের মধ্যে ৮০০ তম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়।
  • ১৯৯৩ সালে ত্রি দেশীয় সিরিজে ব্রায়ান লারা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১২৮ রান করেন যা এই মাঠের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর।
  • ২০০৩ সালে বিশ্বকাপে আশিষ নেহরা ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৩ রানে ৬ উইকেট নেন যা এই মাঠের সেরা বোলিং ফিগার।
  • ২০০৩ সালে বিশ্বকাপে সৌরভ গাঙ্গুলী কেনিয়ার বিরুদ্ধে ১১১ নটআউট রান করেন যা একমাত্র ভারতীয় শতরান।
  • ২০০৬ সালে ভারত দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে মাত্র ৯১ রানে অলআউট হয়ে যায় যা এই মাঠের সর্বনিম্ন দলগত স্কোর।
  • ২০১৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ৩৭২ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁয়ে জয়লাভ করে। যা এ মাঠের সর্বোচ্চ দলগত স্কোর।

গুরুত্বপূর্ণ আয়োজনসমূহ[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Stadiums in South Africa ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ জুলাই ২০১৯ তারিখে. World Stadiums. Retrieved on 2013-12-23.
  2. [১] Cricinfo. Retrieved on 28 April 2016