প্রবেশদ্বার:চলচ্চিত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(প্রবেশদ্বার:Film থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

Intro

একটি ১৬ মিমি স্প্রিং-অউন্ড বোলেক্স এইচ১৬ রিফ্লেক্স ক্যামেরা। চলচ্চিত্রের স্কুলগুলোতে প্রথমে এই ক্যামেরা দিয়ে পরিচয় করানো হয়।

চলচ্চিত্র এক প্রকারের দৃশ্যমান বিনোদন মাধ্যম। চলমান চিত্র তথা "মোশন পিকচার" থেকে চলচ্চিত্র শব্দটি এসেছে। এটি একটি বিশেষ শিল্প মাধ্যম। বাস্তব জগতের চলমান ছবি ক্যামেরার মাধ্যমে ধারণ করে বা এনিমেশনের মাধ্যমে কাল্পনিক জগৎ তৈরি করে চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়। চলচ্চিত্রের ধারণা অনেক পরে এসেছে, ঊনবিংশ শতকের শেষ দিকে। আর এনিমেশন চিত্রের ধারণা এসেছে আরও পরে। বাংলায় চলচ্চিত্রের প্রতিশব্দ হিসেবে ছায়াছবি, সিনেমা, মুভি বা ফিল্ম শব্দগুলো ব্যবহৃত হয়।

চলচ্চিত্রের সাথে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকে সাংস্কৃতিক উপাদানসমূহ। যে সংস্কৃতিতে তা নির্মিত হয় তাকেই প্রতিনিধিত্ব করে চলচ্চিত্রটি। শিল্পকলার প্রভাবশালী মাধ্যম, শক্তিশালী বিনোদন মাধ্যম এবং শিক্ষার অন্যতম সেরা উপকরণ হিসেবে খ্যাতি রয়েছে চলচ্চিত্রের। ছায়াছবির সাথে ভিজ্যুয়াল বিশ্বের সমন্বয় থাকায় সাধারণ মানুষের সাথে সবচেয়ে ভাল যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে। অন্য কোন শিল্পমাধ্যম সাধারণের সাথে এতোটা যোগাযোগ স্থাপনে সক্ষম নয়। অন্য ভাষার চলচ্চিত্রের ডাবিং বা সাবটাইটেল করার মাধ্যমে নিজ ভাষায় নিয়ে আসার প্রচলন রয়েছে।

Cartella blu.jpg

Article blue with a globe icon.png
বিশেষ নিবন্ধ
সত্যজিৎ রায়ের প্রতিকৃতি

সত্যজিৎ রায় একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা ও বিংশ শতাব্দীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক। কলকাতা শহরে সাহিত্য ও শিল্পের জগতে খ্যাতনামা এক বাঙালি পরিবারে তাঁর জন্ম হয়। তিনি কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজশান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতিষ্ঠিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। সত্যজিতের কর্মজীবন একজন বাণিজ্যিক চিত্রকর হিসেবে শুরু হলেও প্রথমে কলকাতায় ফরাসী চলচ্চিত্র নির্মাতা জঁ রনোয়ারের সাথে সাক্ষাৎ ও পরে লন্ডন শহরে সফররত অবস্থায় ইতালীয় নব্য বাস্তবতাবাদী ছবি লাদ্রি দি বিচিক্লেত্তে দেখার পর তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণে উদ্বুদ্ধ হন। চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে সত্যজিৎ ছিলেন বহুমুখী এবং তাঁর কাজের পরিমাণ বিপুল। তিনি ৩৭টি পূর্ণদৈর্ঘ্য কাহিনীচিত্র, প্রামাণ্যচিত্রস্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। তাঁর নির্মিত প্রথম চলচ্চিত্র পথের পাঁচালী ১১টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ করে, যাদের মধ্যে অন্যতম ছিল কান চলচ্চিত্র উৎসবে পাওয়া “শ্রেষ্ঠ মানব দলিল” পুরস্কারটি। পথের পাঁচালি, অপরাজিতঅপুর সংসার – এই তিনটি চলচ্চিত্রকে একত্রে অপু ত্রয়ী ডাকা হয়, এবং এই চলচ্চিত্র-ত্রয়ী তাঁর জীবনের শ্রেষ্ঠ কাজ বা ম্যাগনাম ওপাস হিসেবে বহুল স্বীকৃত। চলচ্চিত্র মাধ্যমে সত্যজিৎ চিত্রনাট্য রচনা, চরিত্রায়ন, সঙ্গীত স্বরলিপি রচনা, চিত্র গ্রহণ, শিল্প নির্দেশনা, সম্পাদনা, শিল্পী-কুশলীদের নামের তালিকা ও প্রচারণাপত্র নকশা করাসহ নানা কাজ করেছেন। (বাকি অংশ পড়ুন...)

নির্বাচিত নিবন্ধ

হ্যারি পটার চলচ্চিত্র সিরিজটি ব্রিটিশ লেখিকা জে কে রাউলিং রচিত সাত খন্ডের হ্যারি পটার উপন্যাস সিরিজের কাহিনী অবলম্বনে নির্মিত। সিরিজে বইয়ের সংখ্যা সাতটি হলেও, চলচ্চিত্র সংখ্যা আটটি। কারণ, সর্বশেষ বইটির কাহিনী অপেক্ষাকৃত দীর্ঘ এবং জটিল হওয়ায় বইটি অবলম্বনে দুই পর্বের চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। হ্যারি পটার সিরিজের চলচ্চিত্রগুলো বিপণন করেছে ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স এবং প্রযোজনা করেছেন ডেভিড হেয়ম্যান। এছাড়া সবগুলো চলচ্চিত্রে প্রধান তিন চরিত্র হ্যারি পটার, রন উইজলি এবং হারমায়োনি গ্রেঞ্জার এর ভূমিকায় অভিনয় করেছে তিন উদীয়মান তারকা, ড্যানিয়েল র‌্যাডক্লিফ, রুপার্ট গ্রিন্ট এবং এমা ওয়াটসনহ্যারি পটার সিরিজটি বর্তমানে সারাবিশ্বের তরুণদের একটি আইকনে পরিণত হয়েছে এবং ইতোমধ্যেই সিরিজটি সর্বকালের সবচেয়ে ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র সিরিজ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এখন পর্যন্ত হ্যারি পটার প্রায় ৬ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে এবং সর্বোচ্চ আয়কারী ৩০ টি চলচ্চিত্রের তালিকায় হ্যারি পটার সিরিজের প্রত্যেকটি ছবি রয়েছে। সিরিজের সর্বশেষ চলচ্চিত্র হ্যারি পটার অ্যান্ড দ্য ডেথলি হ্যালোস দুই পর্বে নির্মিত হয়েছে, যার প্রথম পর্বটি ২০১০ সালের ১৯ নভেম্বর মুক্তি পেয়েছে এবং দ্বিতীয় পর্বটি ২০১১ সালের ১৫ জুলাই মুক্তি পাবে। এর মধ্য দিয়েই সমাপ্তি ঘটবে সারা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টিকারী তুমুল জনপ্রিয় হ্যারি পটার সিরিজের।

নির্বাচিত চিত্র

কৃতিত্ব: পাবলিক ডোমেইন চলচ্চিত্র থেকে স্ক্রিনশট, Nosferatu (১৯২২)

১৯২২ সালের এফ.ডব্লিও. মুরনাও পরিচালিত Nosferatu চলচ্চিত্রের বিখ্যাত দৃশ্যে সিঁড়ি আরোহণে ভ্যাম্পায়ারের ছায়া। চলচ্চিত্রটি জার্মান অভিব্যক্তিবাদ-এর একটি উদাহরণ। মূল জার্মান শিরোনাম হলো Nosferatu, eine Symphonie des Grauens ("Nosferatu, a Symphony of Horror")। ১৯২১ সালে ধারণকৃত চলচ্চিত্রটি ১৯২২ সালে মুক্তি যায়।

আপনি জানেন কি?

"প্রবেশদ্বার:চলচ্চিত্র/আপনি জানেন কি?/১০" নামক কোন পাতার অস্তিত্ব নেই।

নির্বাচিত উক্তি

"প্রবেশদ্বার:চলচ্চিত্র/নির্বাচিত উক্তি/১" নামক কোন পাতার অস্তিত্ব নেই।

নির্বাচিত বিষয়

Featured article star.png

নির্বাচিত নিবন্ধ

নির্বাচিত তালিকা

নির্বাচিত চিত্র

মূল বিষয়াবলি

আপনি কি করতে পারেন

উপবিষয়শ্রেণী

Cartella verde.jpg

Crystal Clear action find.png
বিষয়শ্রেণী অনুসন্ধান

নিচের বিষয়শ্রেণীগুলোর অধীনে সবগুলো নিবন্ধ সাজানো আছে। + চিহ্নে ক্লিক করলেই উপ-বিষয়শ্রেণী দেখতে পাবেন।

- bn.wikipedia তে খোঁজার জন্য গুগল, এখানে ক্লিক করুন

উপপ্রবেশদ্বার

সম্পর্কিত প্রবেশদ্বার

সহযোগী উইকিমিডিয়া

উইকিসংবাদে চলচ্চিত্র   উইকিউক্তিতে চলচ্চিত্র   উইকিবইয়ে চলচ্চিত্র   উইকিসংকলনে চলচ্চিত্র   উইকিঅভিধানে চলচ্চিত্র   উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র   উইকিমিডিয়া কমন্সে চলচ্চিত্র উইকিউপাত্তে চলচ্চিত্র উইকিভ্রমণে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল উন্মুক্ত পাঠাগার অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ উন্মুক্ত শিক্ষা মাধ্যম মুক্ত মিডিয়া ভাণ্ডার উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা
Wikinews-logo.svg
Wikiquote-logo.svg
Wikibooks-logo.png
Wikisource-logo.svg
Wiktionary-logo.svg
Wikiversity-logo.svg
Commons-logo.svg
Wikidata-logo.svg
Wikivoyage-Logo-v3-icon.svg