প্রবেশদ্বার:চিকিৎসাবিদ্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

চিকিৎসাবিদ্যা

Physician examining a patient.
WHO Rod.svg

চিকিৎসাবিদ্যা হল স্বাস্থ্য বিজ্ঞানের শাখা এবং রোগ ও আঘাতের অধ্যয়ন, নির্ণয় এবং চিকিত্সার মাধ্যমে মানব স্বাস্থ্য বজায় রাখা বা পুনরুদ্ধার করার সাথে সম্পর্কিত জনজীবনের খাত। এটি তন্ত্রগুলির একটি বিজ্ঞান তাদের রোগ — এবং চিকিত্সা উভয় জ্ঞানের একটি ক্ষেত্র এবং সেই জ্ঞানের প্রয়োগ অনুশীলন — একটি শিল্প বা নৈপুণ্য। যাইহোক, ওষুধ প্রায়শই চিকিত্সক এবং শল্যচিকিৎসকদের দ্বারা পরিচালিত বিষয়গুলিকে আরও নির্দিষ্টভাবে বোঝায়।

চিকিৎসাবিদ্যা হল জ্ঞানের একটি ক্ষেত্র (একটি বিজ্ঞান), এবং সেই জ্ঞানের প্রয়োগ (চিকিৎসা পেশা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য পেশাদার যেমন নার্সদের দ্বারা)। চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিশেষ শাখা বিশেষ অঙ্গ বা রোগের সাথে সম্পর্কিত বিশেষায়িত চিকিৎসা পেশার সাথে মিলে যায়। ওষুধ বিজ্ঞান হল শরীরের তন্ত্র ও রোগের জ্ঞান, যখন ওষুধ পেশা বলতে সেই জ্ঞান প্রয়োগ করার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে প্রশিক্ষিত সামাজিক গোষ্ঠীর লোকদের বোঝায়।

অভ্যন্তরীণ ওষুধের সংক্ষিপ্ত বিবরণ হিসাবে চিকিৎসা পেশাদারদের দ্বারা চিকিৎসাবিদ্যার ব্যবহার করা হয়। প্রাণি চিকিৎসাবিজ্ঞান হল মানুষ ব্যতীত অন্যান্য প্রাণী প্রজাতির স্বাস্থ্যসেবার অনুশীলন।

নির্বাচিত নিবন্ধ

স্যার আলেকজান্ডার ফ্লেমিং: অ্যান্টিবায়োটিকের আবিস্কারক

অ্যান্টিবায়োটিক(Antibiotics) একধরণের রাসায়নিক পদার্থ যা কিনা একধরণের অণুজীব তৈরি করে ও তা অন্য ধরণের অণুজীবের বিরুদ্ধে কাজ করে। বিভিন্ন ব্যাক্টেরিয়া(Bacteria) ও ছত্রাক(Fungi) অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি করে।

শতবর্ষ পূর্বে চীনে সয়াবিনের ছাতা (Mold) আক্রান্ত ছানা (Moldy Soybean Curd) বিভিন্ন ফোঁড়ার চিকিৎসায় ব্যবহৃত হত। চীনারা পায়ের ক্ষত সারাবার জন্য ছাতা (Mold) আবৃত স্যান্ডল পরত। ১৮৮১ সালে ব্রিটিশ অণুজীব বিজ্ঞানী জন টিন্ডেল (John Tyndall) ছাতার জীবানু প্রতিরোধী ভূমিকা লক্ষ্য করেন।

লুই পাস্তুর এবং জোবার্ট লক্ষ্য করেণ কিছু অণুজীবের উপস্থিতিতের পেশাবে আন্থ্রাক্স ব্যাসিলি (Anthrax Bacili]) জন্মাতে পারেনা। ১৯০১ সালে এমারিচ(Emmerich) এবং লও (Low) দেখেন যে আন্থ্রাক্স ব্যাসিলি ( Anthrax bacili) আক্রমন থেকে খরগোশকে বাচানো সম্ভব যদি Pseudomonas aeruginosa নামক ব্যাক্টেরিয়ার তরল আবাদ (Liquid culture) খরগোশের দেহে প্রবেশ (Inject) করানো যায়। এই জাতীয় আবিস্কারের পরও ১৯২৯ সালের আগে আন্টিবায়টিক এর যুগ শুরু হয় নাই। ১৯২৭ সালে আলেকজান্ডার ফ্লেমিং প্রথম আন্টিবায়োটিক আবিস্কার করেণ।ফ্লেমিং তার এক পরীক্ষার (Experiment) সময় লক্ষ্য করেণ জমাট আবাদ মাধ্যমে (Solid culture medium)ছাতার উপস্থিতিতে Staphylococcus aureus নামক ব্যাক্টেরিয়া জন্মাতে পারেনা। আবাদ মাধ্যমে ছাতার উপস্থিতি কাম্য ছিল না, আসলে পরীক্ষাকালীন কোনো অজানা ত্রুটির কারণে ছাতা আবাদ মাধ্যমে চলে এসে ছিল। ফ্লেমিং তখন ঐ ছাতার প্রজাতি চিহ্নিত করতে ও তার জীবানু নাশক বৈশিষ্ট পরীক্ষা করতের আগ্রহি হন। ছাতাটি ছিল ''Penicillium'' প্রজাতির, ফলে ফ্লেমিং Penicillum দ্বারা নিসৃত ঐ পদার্থের নাম দেন পেনিসিলিন (Penicillin)। অন্য আর এক প্রকার ছাতার প্রজাতি(Mold Species)যেমন Aspergillus পেনিসিলিন তৈরি করতে পারে।১৯৪১ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি প্রথম পেনিসিলিন মানুষের দেহে প্রয়োগ হয়। অক্সফোর্ডের একজন পুলিশ কর্মকর্তা Staplylococcus দ্বারা আক্রান্ত ছিলেন। পেনিসিলিনের প্রয়োগে তার অবস্থার নাটকীয় উন্নতি ঘটে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্র বাহিনীর সৈন্যদের ক্ষত সারাতে প্রথম পেনিসিলিনের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হয়। ব্রিটেন, আমেরিকার বিজ্ঞানীদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায়, ফ্লেমিং এর সেই ভুলের কারণে পাওয়া ছাতা এক "যাদুর ঔষধ" তৈরে করতে থাকে যা অসংখ্য জীবন বাচিয়েছিল। ১৯৪৫ সালে ফ্লেমিং, আর্নেস্ট চেইন, ও ফ্লোরে চিকিৎসাবিজ্ঞানে তাদের অবদানের জন্য নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।

নির্বাচিত ছবি

জানেন কী?...

চিকিৎসাবিদ্যা বিষয়শ্রেনীসমূহ

সম্পর্কিত প্রবেশদ্বারসমূহ

সহযোগী উইকিমিডিয়া

সার্ভার ক্যাশ খালি করুন