ট্রেভর বারবার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ট্রেভর বারবার
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম (১৯২৫-০৬-০৩)৩ জুন ১৯২৫
ওতাকি, ওয়েলিংটন, নিউজিল্যান্ড
মৃত্যু ৭ আগস্ট ২০১৫(২০১৫-০৮-০৭) (৯০ বছর)
ক্রাইস্টচার্চ
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৪৯
রানের সংখ্যা ১৭ ২০০২
ব্যাটিং গড় ৮.৫০ ২৩.০১
১০০/৫০ ০/০ ১/১৪
সর্বোচ্চ রান ১২ ১১৭
বল করেছে - ১২
উইকেট - -
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ৬১/২
উৎস: ক্রিকইনফো, ১৩ মার্চ ২০১৬

রিচার্ড ট্রেভর বারবার (ইংরেজি: Richard Trevor Barber; জন্ম: ৩ জুন, ১৯২৫ - মৃত্যু: ৭ আগস্ট, ২০১৫) ওয়েলিংটনের ওতাকি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের সদস্য হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন। দলে তিনি মূলতঃ মাঝারিসারির ডানহাতি ব্যাটসম্যান ছিলেন ট্রেভর বারবার। নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ওয়েলিংটনসেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টসের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৪৫-৪৬ থেকে ১৯৫৮-৫৯ মৌসুম পর্যন্ত ওয়েলিংটন দলে খেলেন। ১৯৫০-৫১, ১৯৫১-৫২ ও ১৯৫৫-৫৬ থেকে ১৯৫৭-৫৮ মৌসুম পর্যন্ত ওয়েলিংটনের অধিনায়কত্ব করেন। ১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে ওতাগোর বিপক্ষে একমাত্র সেঞ্চুরি (১১৭) করেন। এছাড়াও, প্লাঙ্কেট শীল্ডের দুই খেলায় উইকেট-রক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।[২] তাঁর অধিনায়কত্বে দল শীল্ডের শিরোপা জয় করেছিল। এরপর ১৯৫৯-৬০ মৌসুমে সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টসের পক্ষে খেলেন ও দলের অধিনায়কত্ব করেন। টেস্টের তুলনায় প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটেই নিজেকে মেলে ধরেছেন তিনি।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে খেলার সুযোগ পেয়েছেন তিনি। ৩ মার্চ, ১৯৫৬ তারিখে ওয়েলিংটনের ব্যাসিন রিজার্ভে অনুষ্ঠিত সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাঁর টেস্ট অভিষেক ঘটে। ঐ টেস্টের উভয় ইনিংসে (১২, ৫) তিনি সর্বমোট ১৭ রান তোলেন ও গ্যারি সোবার্সের ক্যাচ নিয়েছেন। উভয় ইনিংসেই সনি রামাদিনের হাতে আউট হন তিনি।

মূল্যায়ণ[সম্পাদনা]

ডিক ব্রিটেনডেন বারবার সম্পর্কে লিখেছেন যে, মাঠের সর্বত্র তিনি প্রভাববিস্তার করেছেন। বিশেষ করে, স্লিপ ও গালি অঞ্চলে তাঁর ফিল্ডিং ছিল অনবদ্য। তাঁর কভার ড্রাইভ ছিল ভারসাম্যপূর্ণ ও সময়োপযোগী।[৩]

১ মার্চ, ২০১৩ তারিখে স্যামি গুইলেনের মৃত্যুর পর তিনি নিউজিল্যান্ডের সর্বাপেক্ষা বয়োঃজ্যেষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটার ছিলেন। ৭ আগস্ট, ২০১৫ তারিখে ৯০ বছর বয়সে ক্রাইস্টচার্চে তাঁর দেহাবসান ঘটে। এরফলে জন রিচার্ড রিড নিউজিল্যান্ডের সর্বাপেক্ষা বয়োঃজ্যেষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটারের মর্যাদা লাভ করছেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Former New Zealand batsman Trevor Barber dies at 90"ESPNCricinfo। ১০ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০১৫ 
  2. "Wellington v Otago, 1953-54"। Cricketarchive.com। ১৯৫৪-০১-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-০৬ 
  3. R.T. Brittenden, New Zealand Cricketers, A.H. & A.W. Reed, Wellington, 1961, p. 12-13.
  4. "List of oldest living Test players"। Stats.espncricinfo.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-০৬ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]