স্যামি গুইলেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্যামি গুইলেন
স্যামি গুইলেন.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসিম্পসন ক্লেয়ারমন্ট গুইলেন
জন্ম(১৯২৪-০৯-২৪)২৪ সেপ্টেম্বর ১৯২৪
পোর্ট অব স্পেন
মৃত্যু১ মার্চ ২০১৩(2013-03-01) (বয়স ৮৮)
ক্রাইস্টচার্চ, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক-ব্যাটসম্যান
সম্পর্কভিক্টর গুইলেন (পিতা)
নোয়েল গুইলেন (ভ্রাতা)
জাস্টিন গুইলেন (নাতি)
লোগান ফন বীক (নাতি)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৭৩/৭৮)
২২ ডিসেম্বর ১৯৫১ 
ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট৯ মার্চ ১৯৫৬ 
নিউজিল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৪০ - ১৯৫০ত্রিনিদাদ
১৯৫৩ - ১৯৬১ক্যান্টারবারি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৬৬
রানের সংখ্যা ২০২ ২৬৭২
ব্যাটিং গড় ২০.১৯ ২৬.৯৮
১০০/৫০ ০/১ ৩/১৪
সর্বোচ্চ রান ৫৪ ১৯৭
বল করেছে - ১২০
উইকেট -
বোলিং গড় - ৪৯.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং - ১/১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৩/৩ ১১১/৩৪
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

সিম্পসন ক্লেয়ারমন্ট স্যামি গুইলেন (ইংরেজি: Sammy Guillen; জন্ম: ২৪ সেপ্টেম্বর, ১৯২৪ - মৃত্যু: ১ মার্চ, ২০১৩) পোর্ট অব স্পেনে জন্মগ্রহণকারী ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ও নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলসহ নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫১ থেকে ১৯৫৬ সময়কালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে তার দৃপ্ত পদচারণা ছিল।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ত্রিনিদাদ এবং নিউজিল্যান্ডীয় প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ক্যান্টারবারির প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে মূলতঃ উইকেট-রক্ষক ও ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন স্যামি গুইলেন

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

২২ ডিসেম্বর, ১৯৫১ তারিখে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে। স্বল্প কয়েকজন ক্রিকেটারের অন্যতম হিসেবে একাধিক দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন স্যামি গুইলেন। ১৯৫০-এর দশকে সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে আট টেস্টে অংশগ্রহণের সৌভাগ্য হয় তার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে পাঁচটি ও নিউজিল্যান্ডের পক্ষে তিনটি টেস্টে খেলেছেন। তন্মধ্যে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অংশ নিয়ে নিউজিল্যান্ড দলের ইতিহাসের প্রথম বিজয়ে প্রভূতঃ ভূমিকা পালন করেছিলেন।

অন্যান্য[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি ফুটবলেও অংশ নিয়েছেন স্যামি গুইলেন। নিউজিল্যান্ডের প্রিমিয়ার ফুটবল প্রতিযোগিতা চাথাম কাপে খেলার সুযোগ পেয়েছেন। ১৯৫৪ সালের ঐ প্রতিযোগিতায় ওয়েস্টার্ন এএফসি দলের সদস্যরূপে রানার্স-আপ এনে দেন। ক্রিকেটে উইকেট-রক্ষকের দায়িত্ব পালন করায় দলটিতে তিনি গোলরক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

২৪ সেপ্টেম্বর, ১৯২৪ তারিখে পোর্ট অব স্পেনে জন্মগ্রহণকারী গুইলেন এক ক্রিকেট পরিবার থেকে এসেছেন। পিতা ভিক্টর গুইলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে টেস্টে আম্পায়ারিত্ব করেছেন।[১] ভাই নোয়েল গুইলেন প্রথিতযশা ক্রিকেটার ছিলেন ও তার সম্মানে কুইন্স পার্ক ওভালের বহিরাংশের অনুশীলনী এলাকায় নামাঙ্কিত করা হয়।[২] এবং জাস্টিন ও লোগান ভন বিক নামীয় নাতিদ্বয় প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। পুত্র জেফ্রি গুইলেন আবাসন প্রতিষ্ঠানের সুপরিচিত ব্যক্তিত্ব। কিশোর অবস্থায় প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট খেলতেন ও ত্রিশ বছর বয়সেও এ ধারা বহমান ছিল। সাবেক খেলোয়াড় চার্লস গুইলেন অল-রাউন্ডার ডোয়েন ব্র্যাভোকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর অল-রাউন্ডার ছিলেন জাস্টিন গুইলেন। নাতি লোগান ভন বিক ক্যান্টারবারি উইজার্ডসের পক্ষে ক্রিকেট[৩] ও ক্রাইস্টচার্চ কোগার্সের পক্ষে এনবিএলে বাস্কেটবল খেলেছেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নেদারল্যান্ডসের পক্ষে ক্রিকেটেও অংশ নিয়েছেন লোগান।

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত স্যামি গুইলেন ক্যান্টারবারি মহিলা দলের সাবেক উইকেট-রক্ষক ভ্যাল গুইলেনের সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন। ২০০৪ সালে আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ ‘ক্যালিপ্সো কিউই’ শীর্ষক গ্রন্থ প্রকাশ করেন।[৪]

২৪ এপ্রিল, ২০১১ তারিখে কলিন স্নেডেনের মৃত্যুর ফলে স্যামি গুইলেন নিউজিল্যান্ডের বয়োজ্যষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটারের মর্যাদা লাভ করতে থাকেন। এছাড়াও তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় বয়োজ্যষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটার ছিলেন। ১ মার্চ, ২০১৩ তারিখে ৮৮ বছর বয়সে ক্রাইস্টচার্চে তার দেহাবসান ঘটে।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]