গ্রেগ লাভারিজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গ্রেগ লাভারিজ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামগ্রেগ রিয়াকা লাভারিজ
জন্ম (1975-01-15) ১৫ জানুয়ারি ১৯৭৫ (বয়স ৪৬)
পালমারস্টোন নর্থ, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ স্পিন
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৯৯)
১৩ জানুয়ারি ১৯৯৬ বনাম জিম্বাবুয়ে
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২৯ ২৪
রানের সংখ্যা ৯৩৫ ৩২৬
ব্যাটিং গড় - ২৩.৩৭ ১৭.১৫
১০০/৫০ -/- ১/২ -/২
সর্বোচ্চ রান * ১২৬ ৫৪
বল করেছে - ৪,২৬৭ ৮১১
উইকেট - ৪৬ ২১
বোলিং গড় - ৫৩.২৩ ২৯.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - - -
সেরা বোলিং - ৫/৫৯ ৪/২৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/- ১৬/- ৫/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৮ অক্টোবর ২০২০

গ্রেগ রিয়াকা লাভারিজ (ইংরেজি: Greg Loveridge; জন্ম: ১৫ জানুয়ারি, ১৯৭৫) পালমারস্টোন নর্থ এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস ও ইংরেজ ক্রিকেটে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতে লেগ স্পিন বোলিং করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন গ্রেগ লাভারিজ

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৯৪ সাল থেকে ২০০২-০৩ মৌসুম পর্যন্ত গ্রেগ লাভারিজের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস দলের পক্ষে খেলাসহ কেমব্রিজবিশ্ববিদ্যালয় এবং হক কাপে মানাওয়াতু দলের পক্ষে খেলেছেন তিনি।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন গ্রেগ লাভারিজ। ১৩ জানুয়ারি, ১৯৯৬ তারিখে হ্যামিল্টনে সফরকারী জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। তাকে কোন ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

টেস্ট অভিষেক[সম্পাদনা]

নিউজিল্যান্ডীয় লেগ স্পিনার গ্রেগ লাভারিজ বোলার হিসেবে টেস্ট দলে অন্তর্ভুক্ত হন। তবে, তিনি কোন বোলিং করার সুযোগ পাননি। ঐ দিনটি তার ২১তম জন্মদিন ছিল। ১৯৯৫-৯৬ মৌসুমে হ্যামিল্টনে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের প্রথম ইনিংসে হাতের কব্জিতে গুরুতর আঘাত পান। ফলশ্রুতিতে, তিনি বোলিং করতে পারেননি।[১] জোরপূর্বক তাকে রিটায়ার হার্ট হতে হয়। এরফলে, চার্লস ব্যানারম্যান, তালাত আলী, ইয়ান চ্যাটফিল্ড, অ্যান্ডি লয়েডসঞ্জয় মাঞ্জরেকারের সাথে ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেক টেস্টে রিটায়ার হার্ট হতে হয়।[২]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর আবাসন ব্যবসায়ের দিকে ঝুঁকে পড়েন তিনি। নিউজিল্যান্ডভিত্তিক রবার্ট জোন্স হোল্ডিংসের মহাব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করছেন।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Cricinfo, "A fairytale beginning", http://www.espncricinfo.com/magazine/content/story/149516.html Accessed 15 January 2011.
  2. Sengupta, Arunabha। "Sanjay Manjrekar: The blade of his bat was the face of perfection"Cricket Country। Cricket Country। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  3. Coverdale, Brydon। "The legspinner who never bowled"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১৫ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]