গোপাল শর্মা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গোপাল শর্মা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামগোপাল শর্মা
জন্ম (1960-08-03) ৩ আগস্ট ১৯৬০ (বয়স ৬০)
কানপুর, উত্তরপ্রদেশ, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ-ব্রেক
ভূমিকাবোলার, প্রশাসক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৭০)
৩১ জানুয়ারি ১৯৮৫ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৩ নভেম্বর ১৯৯০ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৫৫)
২৫ আগস্ট ১৯৮৫ বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ ওডিআই১০ এপ্রিল ১৯৮৭ বনাম পাকিস্তান
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা ১১
রানের সংখ্যা ১১ ১১
ব্যাটিং গড় ৩.৬৬ ৫.৫০
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১০*
বল করেছে ১৩০৭ ৪৮৬
উইকেট ১০ ১০
বোলিং গড় ৪১.৭৯ ৩৬.১০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং ৪/৮৮ ৩/২৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/- ২/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ আগস্ট ২০২০

গোপাল শর্মা (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; হিন্দি: गोपाल शर्मा; জন্ম: ৩ আগস্ট, ১৯৬০) উত্তরপ্রদেশের কানপুর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৮০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কাল থেকে শুরু করে ১৯৯০-এর দশকের সূচনাকাল পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে উত্তরপ্রদেশ দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি অফ-ব্রেক বোলিং করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন তিনি।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৭৯-৮০ মৌসুম থেকে ১৯৯৩-৯৪ মৌসুম পর্যন্ত গোপাল শর্মা’র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ডানহাতি অফ-স্পিনার হিসেবে নিখুঁততা ও দম নিয়ে বোলিং কর্মে অগ্রসর হতেন। দীর্ঘদিন জাতীয় দল নির্বাচকমণ্ডলীর নজরে ছিলেন। অবশেষে, ১৯৮৪-৮৫ মৌসুমে তাকে জাতীয় দলে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে পাঁচটিমাত্র টেস্ট ও এগারোটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন গোপাল শর্মা। ৩১ জানুয়ারি, ১৯৮৫ তারিখে কানপুরে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২৩ নভেম্বর, ১৯৯০ তারিখে চণ্ডিগড়ে সফরকারী শ্রীলঙ্কা দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯৮৪-৮৫ মৌসুমে নিজ রাজ্যে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্টে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয় তার। এল. শিবরামকৃষ্ণানের সাথে বোলিংয়ে নেমে ৬০ ওভার বোলিং করে ৩/১১৫ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। ১৯৮৫-৮৬ মৌসুমে শ্রীলঙ্কা গমন করে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পান। পরের মৌসুমে পাকিস্তানের বিপক্ষে আরও দুই টেস্টে অংশ নেন। জয়পুরে নিজস্ব সেরা বোলিং পরিসংখ্যান ৪/৮৮ গড়েন।

অফ-স্পিনার হিসেবে জাতীয় দলে খেলেছেন। তবে, জাতীয় দলে লক্ষ্মণ শিবরামকৃষ্ণান, মনিন্দর সিং, আরশাদ আইয়ুব, শিবলাল যাদব, রবি শাস্ত্রীনরেন্দ্র হিরওয়ানী’র ন্যায় স্পিনারদের সাথে তাকে বেশ শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হতে হয়েছিল।[১] তাদের দাপটের সাথে তাল মিলাতে না পেরে বিস্মৃতির অন্তরালে চলে যান। তাসত্ত্বেও, ১৯৯০-৯১ মৌসুমে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এক টেস্টে অংশগ্রহণের জন্যে তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ভারতের স্বাধীনতা পরবর্তীকালে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে উত্তরপ্রদেশ থেকে ভারত দলের পক্ষে খেলেছেন তিনি।

অবসর[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর ক্রিকেট প্রশাসনের দিকে ঝুঁকে পড়েন। ২০০৪-০৫ মৌসুমে ভারতের দল নির্বাচকমণ্ডলীতে মধ্য অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Gopal Sharma"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১০ 
  2. "More and Roy retained as selectors"Cricinfo। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১০ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]