কামাল হোসেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ড. কামাল হোসেন
Dr. Kamal Hossain in front of Bangladesh Supreme Court (cropped).PNG
আইন বিভাগ
কাজের মেয়াদ
১২ই জানুয়ারি, ১৯৭২ – মার্চ, ১৯৭৩
বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
মার্চ, ১৯৭৩ – আগস্ট, ১৯৭৫
রাষ্ট্রপতিমোহাম্মদ মোহাম্মাদুল্লাহ
শেখ মুজিবর রহমান
প্রধানমন্ত্রীশেখ মুজিবর রহমান
মোহাম্মদ মনসুর আলী
পূর্বসূরীআবদুস সামাদ আজাদ
উত্তরসূরীআবু সাঈদ চৌধুরী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (১৯৩৭-০৪-২০) ২০ এপ্রিল ১৯৩৭ (বয়স ৮১)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দলগণফোরাম
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ (১৯৯০-এর পূর্বে)
দাম্পত্য সঙ্গীহামিদা হোসেন
সন্তানসারা হোসেন, দিনা হোসেন
বাসস্থানঢাকা
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঅক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়
পেশারাজনীতিবিদ, রাষ্ট্রবিদ এবং আইনজীবী
যে জন্য পরিচিতবাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির প্রধান

কামাল হোসেন (জন্ম বরিশালের শায়েস্তাবাদে) বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট আইনজীবী, রাজনীতিবিদ এবং মুক্তিযোদ্ধা[১] সচরাচর তাঁকে "ডঃ কামাল হোসেন" হিসাবে উল্লেখ করা হয়। তিনি বাংলাদেশের সংবিধান প্রণেতাদের মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর ১৯৭২-এর ৮ই জানুয়ারি শেখ মুজিবের সঙ্গে তাঁকেও মুক্তি দেয়া হয়। তিনি শেখ মুজিবের সঙ্গে ১০ জানুয়ারি লন্ডন হয়ে বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন করেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে তিনি সর্বদাই সোচ্চার। তাঁকে ব্যক্তিগত সততা, ন্যায্যতা, মানবাধিকার গণতন্ত্রের প্রবক্তা হিসাবে সাধারণভাবে সম্মান করা হয়।

ব্যক্তিজীবন[সম্পাদনা]

১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দের ২০ এপ্রিল তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জুরিসপ্রুডেন্সে স্নাতক (সম্মান) এবং ১৯৫৮ খ্রিস্টাব্দে ব্যাচেলর অব সিভিল ল ডিগ্রি লাভ করেন। লিংকনস ইনে বার-অ্যাট-ল অর্জনের পর আন্তর্জাতিক আইন বিষয়ে পিএইচডি করেন ১৯৬৪ খ্রিস্টাব্দে । আইনজীবী সারা হোসেন তাঁর কন্যা।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ড. কামাল হোসেন বাংলাদেশের সংবিধানের প্রণেতা হিসেবেই অধিক পরিচিত। রাজনীতিতে তিনি ছিলেন সবসময়ই সোচ্চার। ১৯৭০ সালের পাকিস্থানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তান থেকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছিলেন। ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সালে আইনমন্ত্রী এবং ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ড. কামাল হোসেন জাতিসংঘের স্পেশাল রিপোর্টারের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় রয়েছেন। তিনি গণফোরাম নামের রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। [৩]

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে যে জোট গড়ে উঠেছে সেটির নেতৃত্বে আছেন ড. কামাল।[৪]

বক্তৃতা[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Law and Democracy with Dr Kamal Hossain"। University of Cambridge। ৩১ মে ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১০ 
  2. "Nurul Kabir to continue his defence on Dec 20"। BDNews24। ২০১১-১২-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-১৭ 
  3. "Two decades of Gono Forum"। Probenews। ২০১২-০২-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-২২ 
  4. হাসনাত, রাকিব (২০১৮-১০-২১)। "কামাল হোসেনের নেতৃত্ব: কী বলছে তৃণমূল বিএনপি?"BBC News বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-২৭