সারা হোসেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ব্যারিস্টার সারা হোসেন
Sara Hossain of Bangladesh (25512035014).jpg
২০১৬ সালে পদক গ্রহণ করেন
জাতীয়তাবাংলাদেশী
যেখানের শিক্ষার্থীঅক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়
লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাআইনজীবী
দাম্পত্য সঙ্গীডেভিড বার্গম্যান
পিতা-মাতাকামাল হোসেন

ব্যারিস্টার সারা হোসেন একজন বাংলাদেশী আইনজীবী, যিনি বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্টের বারে ব্যারিস্টার এবং বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্টের (বিএলএসটি) সম্মানিত নির্বাহী পরিচালক হিসাবে কাজ করেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার প্রাপ্তদের মধ্যে অন্যতম। [১] সারা নারীর প্রতি সহিংসতা বিষয়ে বাংলাদেশের প্রথম বিস্তৃত আইন গঠনের ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন, যা ২০১০ সালে আইন হয়ে যায়। তিনি ফতোয়া সহিংসতার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্যে পরিচিতি পান। যেখানে মহিলা এবং মেয়েদের অবজ্ঞাপূর্ণ ও সহিংস শাস্তি দেওয়ার জন্য ফতোয়া জারি করা হওয়ার কথা তিনি বলেছেন । [২] তিনি ধর্ষণ এবং যৌন হামলায় শিকার নারীদের আইনগত মামলায় দুই আঙুল পরীক্ষার পদ্ধতির বিরোধিতা করেন। সারা 'সম্মান': লিন ওয়েলচম্যানের সাথে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধ, দৃষ্টান্ত এবং সহিংসতা সহ-সম্পাদনা করেন। [৩]  

শিক্ষা ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সারা ১৯৮৮ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন (আইনশাস্ত্র) বিষয়ে স্নাতক (অনার্স) পেয়েছিলেন এবং তারপরে তাকে মধ্য মন্দিরে বারে ডেকে আনা হয়েছিল। [৪] তিনি ১৯৯২ সালে বাংলাদেশের সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে নিযুক্ত হন এবং ২০০৮ সালে আপিল বিভাগে যান। সারা ১৯৯৭ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়া বিভাগে ইন্টারাইটস সহ আইনি কর্মকর্তা হিসাবেও কাজ করেছিলেন। আন্তর্জাতিক ও তুলনামূলক মানবাধিকার আইনের ব্যবহার সম্পর্কিত মানবাধিকার ইউরোপীয় আদালত এবং হিউম্যান রাইটস সম্পর্কিত আন্ত-আমেরিকান কমিশন এবং মানবাধিকার কমিটি সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আদালতের সামনে মানবাধিকার মামলা মোকদ্দমার সমর্থন করা। তিনি এসওএএস-এর ইসলামিক ও মধ্য প্রাচ্যের আইন কেন্দ্রের সাথে সম্মানের অপরাধ সম্পর্কিত একাধিক দেশীয় গবেষণায়ও কাজ করেছিলেন। [৫] বাংলাদেশের সংবিধান প্রণেতাদের একজন ও আইনজীবি ডক্টর কামাল হোসেন ও সহযোগী সংস্থার অংশীদার হলেন সারা। [৪]

জুলাই ২০১৮ সালে, জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল ইসরাইলি সেনাবাহিনী কর্তৃক কমপক্ষে ১৪০ জন ফিলিস্তিনিকে হত্যার তদন্তের জন্য তিন সদস্যের তদন্ত কমিশনে ( ডেভিড ক্রেন এবং কারি বেটি মুরঙ্গির পাশাপাশি) সভাপতি হিসেবে সারাকে নিয়োগ দেয়া হয় । [৬]

সংগঠন[সম্পাদনা]

ব্লাস্ট ছাড়াও সারা ঢাকা ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা আইন-ও-সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পূর্বে তিনি দক্ষিণ এশিয়া মহিলা তহবিলের (এসএইচএফ) বোর্ডের সদস্য ছিলেন। হোসেন আন্তর্জাতিক আইন কমিশন (আইসিজে) এর কমিশনার হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বর্তমানে আন্তর্জাতিক আইন সমিতি (আইএলএ) এর মানবাধিকার কমিটির সদস্য এবং জেন্ডার জাস্টিস অন উইমেন ইন্টারন্যাশনাল কোয়ালিশনের (ডব্লিউআইসিজি) উপদেষ্টা কমিটির সদস্য, হোসেন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার অঙ্গনের একজন পরিচিত ব্যক্তি।

পুরস্কার ও কৃতিত্ব[সম্পাদনা]

২০১৬ সালে, "মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি " সারাকে নিরলস আইনজীবী হিসেবে বাংলাদেশে নির্বোধকে কণ্ঠ দেওয়ার জন্য "মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি দ্বারা আন্তর্জাতিক নারী সাহসী পুরস্কার পেয়েছিলেন।" [৭] ২০০৮ সালে সারা ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম "ইয়ং গ্লোবাল লিডার" হিসাবে সারাকে ভূষিত হন। [৮] এবং ২০০৭ সালে আমেরিকা নিউইয়র্ক, দ্য এশিয়া সোসাইটি দ্বারা "এশিয়া ২১ ফেলো" হন। [৯] সারা ২০০৫ সালে হিউম্যান রাইটস আইনজীবী পুরস্কার হিসাবে অনন্যা শীর্ষ দশ পুরস্কার পেয়েছিলেন। শীর্ষস্থানীয় মহিলা পুরস্কার আইনজীবি কমিটি ফর হিউম্যান রাইটস (বর্তমানে মানবাধিকার প্রথম)।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

সারা বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ ও সংবিধান লেখক ডঃ কামাল হোসেনের মেয়ে। কামাল ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের রাজনৈতিক দল গণফোরামের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সারা ব্রিটিশ মানবাধিকার কর্মী ডেভিড বার্গম্যানের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি বাংলাদেশে অবস্থিত যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্তকারী সাংবাদিক। তিনি বাংলাদেশের ইংরেজি দৈনিক নিউজ এজ -এর প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করেন। বার্গম্যান বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের প্রতিবেদনের জন্য খ্যাতি পান।.[১০][১১][১২][১৩]

প্রকাশিত গ্রন্থ ও প্রতিবেদন[সম্পাদনা]

    • জোরপূর্বক বিবাহের আইনি প্রতিকারের জন্য হ্যান্ডবুক (২০১৪)
    • বাংলাদেশ ইউপিআর ফোরামের মানবাধিকার কাউন্সিলে জমা দেওয়া [১৪] (২০০৯)
    • বাংলাদেশে মানবাধিকার (২০০৬-০৮)
    • 'সম্মান': লিন ওয়েলচম্যান (২০০৫) এর সাথে অপরাধের দৃষ্টান্ত এবং মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা [১৫]
    • প্রতিকারের সন্ধানে অধিকার: শাহদীন মালিক এবং বুশরা মুসার সাথে দক্ষিণ এশিয়ায় জনস্বার্থ মামলা (১৯৯৬)[১৬]

প্রবন্ধ[সম্পাদনা]

  • 'ওয়েওয়ার্ড গার্লস অ্যান্ড ওয়েল উইশার প্যারেন্টস: হাবিয়াস কর্পাস, উইমেন রাইটস অ্যান্ড বাংলাদেশ কোর্টস' জোরপূর্বক বিবাহ (২০১০)
  • দক্ষিণ এশিয়ায় রাজনীতির হ্যান্ডবুক (২০১০) 'বাংলাদেশের বিচার বিভাগের স্বাধীনতা পুনর্নির্মাণের প্রচেষ্টা:' সাংবিধানিক প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধে লড়াই করা
  • 'দক্ষিণ এশিয়া' সামাজিক অধিকার আইনশাস্ত্রে আইয়েন বায়ার্নের সাথে : আন্তর্জাতিক ও তুলনামূলক আইনে উদীয়মান ট্রেন্ডস (২০০৮)
  • পুরুষদের আইনগুলিতে 'বিবাহের অধিকার' , মহিলাদের জীবন (২০০৫)
  • 'প্রবক্তা, আহমাদী এবং অ্যাডভোকেটস : মৌলবাদের সতর্কতার লক্ষণগুলিতে ধর্মের বিরুদ্ধে অপরাধের অপব্যবহার এবং নির্যাতন (২০০৪-০৫)
  • 'অপহরণ ও জোরপূর্বক বিবাহ: বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের অধিকার ও প্রতিকার' আন্তর্জাতিক পরিবার আইনে সুজান ই টার্নারের সাথে (২০০১)
  • আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয় আইন পর্যালোচনা (১৯৯৫) সাজেদা আমিনের সাথে 'মহিলাদের প্রজনন অধিকার এবং মৌলবাদের রাজনীতি: বাংলাদেশ থেকে একটি দৃষ্টিভঙ্গি'
  • নারীর মানবাধিকার: 'দক্ষিণ এশিয়ার সাম্যতা এবং ব্যক্তিগত আইন' জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি (১৯৯৪)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sara Hossain wins 'Int'l Women of Courage Award'"। ২৯ মার্চ ২০১৬। 
  2. Fatwa Barrister Sara Hossain, The Guardian, Retrieved 2016
  3. Hossain, Sara; Welchman, Lynn (২০০৫)। 'Honour': Crimes, Paradigms and Violence Against Women। Zed Books। আইএসবিএন 978-1-84277-627-8 
  4. Administrator। "Sara Hossain"www.khossain.com। ৩১ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  5. "About The Honour Crimes Project: CIMEL: SOAS"www.soas.ac.uk 
  6. Tom Miles (25 July 2018), U.N. picks American to lead investigation into Gaza protest killings Reuters.
  7. "The page you're looking for may have been moved or renamed"www.state.gov 
  8. "World Economic Forum - Home" (PDF)www3.weforum.org 
  9. "Asia 21 Fellows, Class of 2008" 
  10. "Nurul Kabir to continue his defence on Dec 20"BDNews24। ১ ডিসেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-১৭ 
  11. Bergman, David (১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "My response to Tahmina Anam's article on 'Shahbag', 1971 war crimes trials in Bangladesh, and demands for hangings"Bangladesh Chronicle। ২০১৬-০১-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-২১ 
  12. Anwar Parvez Halim (১২ জুন ২০১১)। "Sons and daughters of political parents"। All Voices। ১৩ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-২২ 
  13. "Two decades of Gono Forum"। Probe News। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ২০১৩-১০-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-২২ 
  14. Hossain, Sara (২০০৯-০১-০১)। Universal Periodic Review (UPR), Bangladesh: Compilation of Reports (ইংরেজি ভাষায়)। Human Rights Forum on Universal Periodic Review, Bangladesh। 
  15. Hossain, Sara; Welchman, Lynn (২০০৫-১২-০২)। 'Honour': Crimes, Paradigms and Violence Against Women (ইংরেজি ভাষায়)। Zed Books। আইএসবিএন 9781842776278 
  16. Hossain, Sara; Malik, Shahdeen (১৯৯৭-০১-০১)। Public Interest Litigation in South Asia: Rights in Search of Remedies (ইংরেজি ভাষায়)। University Press। আইএসবিএন 9789840513918 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]