এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এসিসি এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
200px
এসিসি এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের লোগো
ব্যবস্থাপকএশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল
খেলার ধরনটেস্ট ক্রিকেট
প্রথম টুর্নামেন্ট১৯৯৮
শেষ টুর্নামেন্ট২০০২
প্রতিযোগিতার ধরনরাউন্ড-রবিন প্রতিযোগিতা
দলের সংখ্যা বাংলাদেশ[১]
 ভারত[২]
 শ্রীলঙ্কা
 পাকিস্তান
বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা (১ম শিরোপা)
সর্বাধিক সফল পাকিস্তান
 শ্রীলঙ্কা (প্রত্যেকেই ১ শিরোপা)
সর্বাধিক রানসনাথ জয়াসুরিয়া (১,০০০)
সর্বাধিক উইকেটমুত্তিয়া মুরালিধরন (১৮)

এসিসি এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ এশিয়ার টেস্টখেলুড়ে দলগুলোর মধ্যকার পেশাদার টেস্ট ক্রিকেট প্রতিযোগিতাবাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানশ্রীলঙ্কা - এ চারটি দল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে থাকে। তবে এ প্রতিযোগিতাটি ক্রিকেট বর্ষপঞ্জী অনুযায়ী নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠিত হয় না। এ পর্যন্ত মোট দুইবার ১৯৯৮-৯৯২০০১-০২ মৌসুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রথম প্রতিযোগিতায় পাকিস্তান ও দ্বিতীয় প্রতিযোগিতায় শ্রীলঙ্কা জয়লাভ করে। শুরুতে এশিয়া কাপের সাথে মিল রেখে প্রতি দুই বছর অন্তর এ প্রতিযোগিতা নিয়মিতভাবে আয়োজনের কথা ছিল।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডদক্ষিণ আফ্রিকার অংশগ্রহণে ১৯১২ সালের ত্রি-দেশীয় প্রতিযোগিতার পর দুইয়ের অধিক দলের অংশগ্রহণে এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ দ্বিতীয় উদাহরণ হিসেবে রয়েছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের পরিকল্পনাধীন টেস্ট ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতা প্রবর্তনের পূর্বে পরীক্ষামূলকভাবে এ প্রতিযোগিতাটি করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়।[৪]

২০০৬ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সময়সূচী বাস্তবায়নে সময় না থাকায় এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এ প্রতিযোগিতা বাতিল করে। অংশগ্রহণকালী সদস্যদের সময়সূচীর সাংঘর্ষিকতার কারণে চার বছরের জন্য তৃতীয় পর্যায়ের চ্যাম্পিয়নশীপ প্রতিযোগিতা বিলম্বিত করা হয়।[৫] এছাড়াও আনুষ্ঠানিকভাবে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ ব্যবস্থা প্রবর্তনের ফলে টেস্ট রেটিংয়ে ভারসাম্য রক্ষার্থে এর প্রভাব রয়েছে।

১৯৯৮-৯৯ এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ[সম্পাদনা]

ফেব্রুয়ারি ও মার্চ, ১৯৯৯ সালে ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী আসরে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়। ঐ সময়ে বাংলাদেশ দলের আইসিসি কর্তৃক টেস্ট ক্রিকেটের মর্যাদা পায়নি।

রাউন্ড-রবিন খেলায় তিনটি খেলায় তিন দল অংশ নেয়। জয়ে ১২, টাইয়ে ৬ ও ড্র বা পরাজয়ে কোন পয়েন্ট রাখা হয়নি। তবে, দলের বোলিং ও ব্যাটিংশৈলীর উপর নির্ভর করে বোনাস পয়েন্ট প্রদানের ব্যবস্থা রাখা হয়। রাউন্ড-রবিন খেলাগুলো আয়োজনের জন্য পর্যায়ক্রমে তিন দেশের মাঠ ব্যবহৃত হয়। তন্মধ্যে, চূড়ান্ত খেলাটি নিরপেক্ষ মাঠ হিসেবে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়।

পাকিস্তান দল শ্রীলঙ্কাকে ইনিংস ও ১৭৫ রানের বিরাট ব্যবধানে পরাজিত করে প্রথম এশিয়া টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা লাভ করে।

২০০১-০২ এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা আগস্ট, ২০০১ থেকে মার্চ, ২০০২ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে প্রতিযোগিতা করে। ২০০১-০২ মৌসুমে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার রাজনৈতিক অস্থিরতা ও দূরে থাকার নীতি অবলম্বনের ফলে এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে রাখে ভারত দল।

পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা - উভয় দল বাংলাদেশে দুইটি রাউন্ড-রবিন খেলায় অংশ নেয়। জয়ে ১৬, টাইয়ে ৮ এবং ড্র কিংবা পরাজয়ে ০ পয়েন্ট বরাদ্দ করা হয়। এছাড়াও বোলিংব্যাটিংশৈলীর উপর নির্ভর করে বোনাস পয়েন্ট প্রদান করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। মুলতানে পাকিস্তান এবং কলম্বোয় শ্রীলঙ্কা দল বাংলাদেশকে পরাজিত করে ফাইনালে উঠে।

লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়। শ্রীলঙ্কা ৮ উইকেটের ব্যবধানে পাকিস্তানকে পরাজিত করে দ্বিতীয় এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা লাভ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১৯৯৮-৯৯ মৌসুমের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ অংশগ্রহণ করেনি।
  2. ২০০১-০২ মৌসুমের প্রতিযোগিতায় ভারত অংশগ্রহণ করেনি।
  3. [১] Inaugural Asian Test championships 11 February 1999 Sa'adi Thawfeeq
  4. [২] Asian Test Championship from 14 February to 17 March, 24 December 1998, 24 December 1998 by Peter Christie
  5. [৩][স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] Afro-Asia Cup, Asian Test Championship to be scrapped Saturday 7 January 2006 By Indo Asian News Service