আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালার বর্ণ ও চিহ্নতালিকা

বিশ্বের সব ভাষার সব ধ্বনি নিয়মিতভাবে তুলে ধরার জন্য একটি আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালা (সংক্ষেপে আ-ধ্ব-ব) বা আন্তর্জাতিক ধ্বনিলিপি তৈরি করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক ধ্বনিবিজ্ঞান সংগঠন এই বর্ণমালার প্রস্তুতকারক।[১] এই বর্ণমালা ইংরেজিতে International Phonetic Alphabet, সংক্ষেপে IPA (আইপিএ) এবং ফরাসিতে Alphabet phonétique international, সংক্ষেপে API (আপেই) নামেও সুপরিচিত।

অভিধানবিদ, বিদেশী ভাষার শিক্ষার্থী ও শিক্ষক, ভাষাবিজ্ঞানী, বাগ্‌চিকিত্স‌ক, গায়ক, অভিনেতা, কৃত্রিম ভাষা নির্মাতা ও অনুবাদকেরা এই বর্ণমালাটি ব্যাপকভাবে ব্যবহার করেন।[২][৩]

আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালায় বিশ্বের সব ধ্বনির নিজস্ব বর্ণ আছে; প্রত্যেকটি বর্ণ তার নিজস্ব উচ্চারণস্থানউচ্চারণরীতি দ্বারা চিহ্নিত।

ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

যেসব ধ্বনি উচ্চারণের সময় বাতাস মুখে বাধা, ঘর্ষণ অথবা সংকোচনের মাধ্যমে পরিবর্তিত হয়, সেগুলোকে ব্যঞ্জনধ্বনি বলা হয়।

ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

যেসব ব্যঞ্জনধ্বনি উচ্চারণকালে ফুসফুসের চাপের কারণে বহির্গামী বায়ুপ্রবাহ সৃষ্টি হয় সেগুলোকে ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি বলা হয়। বাতাস ফুসফুস থেকে তিনটি পথ দিয়ে বের হতে পারে: কেন্দ্রিক পথে, পার্শ্বিক পথে, বা নাসিক পথে

যেসব ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি ধ্বনিমূল হিসাবে কথ্য ভাষায় উচ্চারণ করা হয়, সেগুলো নিচের সারণিতে উচ্চারণস্থান ও উচ্চারণরীতির সম্পর্কে বিন্যস্ত করা হল। উল্লেখ্য, দন্তৌষ্ঠ্য নাসিক্যধ্বনি [ɱ] কোনও ভাষায় ধ্বনিমূল হিসাবে ব্যবহৃত নয়।

টীকা:

  • সারণির এক ঘরে দুইটি বর্ণ থাকলে, ডানদিকের বর্ণটি ঘোষ ধ্বনি
  • অঘোষ কণ্ঠনালীয় স্পর্শধ্বনিটির ঘর ছাড়া বাকি যেসব ঘরে শুধু একটা বর্ণ বসেছে সে ধ্বনিগুলো সব ঘোষ।
  • যেসব ঘরে ধূসর রং দেয়া হয়েছে সেই ধ্বনিগুলো উচ্চারণ করা যায় না।
ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি
উচ্চারণস্থান ওষ্ঠ্য শীর্ষ পশ্চাজ্জিহ্ব্য কণ্ঠমূলীয় কণ্ঠনালীয়
উচ্চারণরীতি ওষ্ঠ্য দন্তৌষ্ঠ্য দন্ত্য দন্তমূলীয় পশ্চাদ্দন্তমূলীয় মূর্ধন্য তালব্য পশ্চাত্তালব্য অলিজিহ্ব্য গলনালীয় অধিজিহ্ব্য কণ্ঠনালীয়
নাসিক্য     [m]    ম় [ɱ]     [n]     [ɳ]     [ɲ]    ঙ, ং [ŋ]     [ɴ]  
স্পর্শ [p] [b] * * [t] [d] [ʈ] [ɖ] c ɟ k ɡ q ɢ   ʡ ʔ  
ঊষ্ম ɸ β f v θ ð s z ʃ ʒ ʂ ʐ ç ʝ x ɣ χ ʁ ħ ʕ ʜ ʢ h ɦ
নৈকট্য    β̞    ʋ    ɹ    ɻ    j    ɰ      
কম্পনজাত    ʙ    r    *    ʀ    *  
তাড়নজাত    ѵ̟    ѵ    ɾ    ɽ          *  
পার্শ্বিক ঊষ্ম ɬ ɮ *    *    *       
পার্শ্বিক নৈকট্য    l    ɭ    ʎ    ʟ  
পার্শ্বিক তাড়নজাত      ɺ    *    *    *    

অলিজিহ্ব্য, গলনালীয়, ও অধিজিহ্ব্য প্রবাহীধ্বনিগুলো ([ʁ], [ʕ], [ʢ]) এই তিনটি বর্ণের উচ্চারণরীতি উদ্দেশ্যমূলকভাবে অনিশ্চিত রাখা হয়েছে। কিছু কিছু ভাষায় এই ধ্বনিগুলোর উচ্চারণরীতি ঘোষ ও ঊষ্ম, অথচ অন্য ভাষায় ঘোষ ও নৈকট্য। এক ভাষায় এই দুই প্রকার উচ্চারণরীতি পাওয়া যায় না।

শীর্ষধ্বনিগুলোতে অনেক অনেক উচ্চারণস্থান ও উচ্চারণরীতি সম্ভব। তবু এক ভাষায় অতটা ভিন্নতার সম্ভবতা খুবই কম। সেজন্য শীর্ষধ্বনির কলামে প্রত্যেক লাইনে শুধু দুটি বর্ণ রয়েছে। আ-ধ্ব-ব-তে [t] বর্ণের উচ্চারণস্থানটা দন্ত্য, দন্ত্যমূলীয়, অথবা পশ্চাদ্দন্তমূলীয় হতে পারে। নির্ভুলতার জন্য, আ-ধ্ব-ব ব্যবহারকরা অনেক সময় ধ্বনিনির্দেশক চিহ্ন দিয়ে সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করে।

উচ্চারণস্থানের দিকে, পশ্চাদ্দন্তমূলীয়, দন্তমূল-তালব্য, ও মূর্ধন্য ঊষ্মধ্বনিগুলোর ([ʃ]/[ʒ], [ɕ]/[ʑ], [ʂ]/[ʐ]) কোনও বিশেষ পার্থক্য নেই। এদের পার্থক্যটা প্রধানতঃ জিহ্বার আকারে গঠিত।

অ-ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

বিশ্বের সব ভাষায় ফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনি আছে, অবশ্য অনেকগুলো ভাষায় কয়েকটি অফুসফুসনির্গত ব্যঞ্জনধ্বনিও আছে। এই ধ্বনিগুলোর উচ্চারণকালে ফুসফুসের কোনও বিশেষ কার্য নেই, বরং বায়ুটি সঞ্চলিত হয় অন্য যন্ত্রের মাধ্যমে। ফুসফুস ছাড়া আরও দুটো বায়ুসঞ্চালক কথ্য ভাষায় ব্যবহার করা হয়ঃ শ্বাসরন্ধ্র (ধ্বনিদ্বার বা কন্ঠনালিপথ) ও পশ্চাত্তালু (কোমল বা নরম তালু)। এই দুই যন্ত্রগুলো বন্ধ করলে বায়ুসঞ্চালক হিসাবে কাজ করতে পারে।

বহিঃস্ফোটী ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

পশ্চাত্তালুটি পুরোপুরি বন্ধ করে মুখের ভিতরের বাতাসটা দ্রুতভাবে বহিষ্কার করে ধ্বনি উচ্চারিত হলে বহির্গামী শ্বাসরন্ধ্রিক ব্যঞ্জনধ্বনি বা বহিঃস্ফোটী ব্যঞ্জনধ্বনি সৃষ্টি করা হয়।

অন্তঃস্ফোটী ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

শ্বাসরন্ধ্রটা অসম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে মুখের বাইরের বাতাসটা চুষে নিয়ে ধ্বনি উচ্চারিত হলে অন্তর্গামী শ্বাসরন্ধ্রিক ব্যঞ্জনধ্বনি বা অন্তঃস্ফোটী ব্যঞ্জনধ্বনি সৃষ্টি করা হয়।

শীৎকার ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

পশ্চাত্তালুটা পুরোপুরি বন্ধ করে মুখের বাইরের বাতাসটা চুষে নিয়ে ধ্বনি উচ্চারিত হলে অন্তর্গামী পশ্চাত্তালব্য ব্যঞ্জনধ্বনি বা শীত্কার ব্যঞ্জনধ্বনি সৃষ্টি করা হয়।

যুগ্মোচ্চারিত ব্যঞ্জনধ্বনি[সম্পাদনা]

স্বরধ্বনি[সম্পাদনা]

সম্পাদনা - সম্মুখ প্রায়-সম্মুখ কেন্দ্রীয় প্রায়-পশ্চাৎ পশ্চাৎ
সংবৃত
Blank vowel trapezoid.svg
i • y
ɨ • ʉ
ɯ • u
ɪ • ʏ
• ʊ
e • ø
ɘ • ɵ
ɤ • o
ɛ • œ
ɜ • ɞ
ʌ • ɔ
a • ɶ
ɑ • ɒ
প্রায়-সংবৃত
সংবৃত-মধ্য
মধ্য
বিবৃত-মধ্য
প্রায়-বিবৃত
বিবৃত

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. International Phonetic Association (IPA), Handbook.
  2. MacMahon, Michael K. C. (১৯৯৬)। "Phonetic Notation"। in P. T. Daniels and W. Bright (eds.)। The World's Writing Systems। New York: Oxford University Press। পৃ: 821–846। আইএসবিএন 0-19-507993-0 
  3. Wall, Joan (১৯৮৯)। International Phonetic Alphabet for Singers: A Manual for English and Foreign Language Diction। Pst। আইএসবিএন 1-877761-50-8 
  ব্যঞ্জনধ্বনি (তালিকা, ছক) আরও দেখুন: আ-ধ্ব-ব, স্বরধ্বনি  
ফুসফুসীয় উভয়ৌষ্ঠ্য দন্তৌষ্ঠ্য দন্ত্য দন্তমূলীয় পঃ‌মূলীয় মূর্ধন্য তালব্য পশ্চাত্তালব্য অলিজিহ্ব্য গলনালীয় অধিজিহ্ব্য কণ্ঠনালীয় অফুসফুসীয়যুগ্মোচ্চারিত
নাসিক্য m ɱ n ɳ ɲ ŋ ɴ শীত্কার ʘ ǀ ǃ ǂ ǁ
স্পর্শ p b t d ʈ ɖ c ɟ k ɡ q ɢ ʡ ʔ অন্তঃ ɓ ɗ ʄ ɠ ʛ
ঊষ্ম ɸ β f v θ ð s z ʃ ʒ ʂ ʐ ç ʝ x ɣ χ ʁ ħ ʕ ʜ ʢ h ɦ বহিঃ
নৈকট্য β̞ ʋ ɹ ɻ j ɰ অন্যান্য পার্শ্বিক ɺ ɫ
কম্পন ʙ r ʀ যুগ্মোচ্চারিত নৈকট্য ʍ w ɥ
তাড়ন ѵ̟ ѵ ɾ ɽ যুগ্মোচ্চারিত ঊষ্ম ɕ ʑ ɧ
পাঃ ঊষ্ম ɬ ɮ যুগ্মোচ্চারিত ঘৃষ্ট ʦ ʣ ʧ ʤ
পাঃ নৈকট্য l ɭ ʎ ʟ যুগ্মোচ্চারিত স্পর্শ k͡p ɡ͡b ŋ͡m
কিছু কিছু ব্রাউজার এই পৃষ্ঠার আ-ধ্ব-ব বর্ণগুলো ঠিক মত প্রদর্শন করতে পারবে না। এক ঘরে দুই বর্ণ থাকলে, ডানদিকের বর্ণটি ঘোষ ধ্বনি
যেসব ঘরে তারকাচিহ্ন আছে সেই ধ্বনিগুলো কোনও ভাষায় ধ্বনিমূল হিসাবে ব্যবহৃত হয় না। যেসব ঘর ছায়াবৃত করা হয়েছে সেগুলোর উচ্চারণ অসম্ভব।