আনোয়ারুল ইকবাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আনোয়ারুল ইকবাল
বাংলাদেশ পুলিশের ২৫তম আইজিপি
কাজের মেয়াদ
৬ জুলাই ২০০৬ – ২ নভেম্বর ২০০৬
পূর্বসূরীআব্দুল কাইয়ুম
উত্তরসূরীখোদা বক্স চৌধুরী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯৫০-১০-০১)১ অক্টোবর ১৯৫০
ফেনী, পূর্ব বেঙ্গল, পাকিস্তান অধিরাজ্য
মৃত্যু১৫ জানুয়ারি ২০১৫(2015-01-15) (বয়স ৬৪)
ডুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত
শিক্ষাচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
পুলিশ স্টাফ কলেজ, ব্রামশীল

আনোয়ারুল ইকবাল (১ অক্টোবর ১৯৫০ - ১৫ জানুয়ারি ২০১৫) ২০০০-২০০৯ অন্তর্বর্তীকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বাংলাদেশ সরকারের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০০৭ সালের ১ জানুয়ারি তিনি স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী ও নির্দলীয় অন্তর্বর্তীকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শ্রম মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা পদে নিয়োগ পেয়েছিলেন এবং দু'বছর পরে নতুন নির্বাচন হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি এই পদে ছিলেন। পরে তাকে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ে উপদেষ্টার দায়িত্ব দেওয়া হয়। বাংলাদেশ সরকারের তিনটি মন্ত্রণালয়ের প্রধান দায়িত্ব ছিল তার। তিনি বাংলাদেশ পুলিশের ২৫ তম মহাপরিদর্শক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। [১] তিনি বিশেষ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হওয়ার পরে আইজিপি পদ থেকে স্বেচ্ছাসেবায় অবসর গ্রহণ করেন এবং কিছুদিনের মধ্যেই তিনি বাংলাদেশের জরুরি অবস্থার সময়ে ফখরুদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন, যা ১১ ই জানুয়ারী ২০০৭-এ ঘোষণা করা হয়েছিল। [২]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

ইকবাল তৎকালীন পূর্ববঙ্গের ফেনীতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ছিলেন সরকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইসলামের ছেলে। তিনি ১৯৬৫ সালে চুয়াডাঙ্গার মমনগর বিডি হাই স্কুল থেকে এসএসসি, ১৯৬৭ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ১৯৬৭ শিক্ষাবর্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর পাস করেন । তিনি একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। পরে তিনি যুক্তরাজ্যের ব্র্যাশহিল পুলিশ স্টাফ কলেজ এবং সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় মানবাধিকার কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।  

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ পুলিশ[সম্পাদনা]

ইকবাল ১৯৭৩ সালের ২২ আগস্ট সহকারী পুলিশ সুপার হিসাবে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন। তিনি স্বাধীনতার পরে বাংলাদেশ পুলিশে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রথম কর্মকর্তাদের একজন। বাংলাদেশ পুলিশ সদস্য হিসাবে মো। তিনি বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর বেশিরভাগ ইউনিটের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন, যার মধ্যে রয়েছে পুলিশ সদর দফতর, ফৌজদারি তদন্ত বিভাগ, বিশেষ শাখা, Dhakaাকা মহানগর পুলিশ, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ, খুলনা মহানগর পুলিশ, গোয়েন্দা প্রশিক্ষণ স্কুল, সশস্ত্র পুলিশ ব্যাটালিয়ন এবং সিলেট, কুষ্টিয়া, খুলনাচট্টগ্রাম জেলা এবং মাগুরা, কিশোরগঞ্জ ও বাগেরহাট মহকুমা। সেবার ও জাতির অবদানের জন্য তাকে বীরত্বের পুরষ্কার, ১৯ of০ সালে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক এবং ২০০০ ও ২০০২ সালে বাংলাদেশ পুলিশ পদক দেওয়া হয়।

জুলাই ২০০৬-এ ইকবাল পঞ্চাশতম পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হন। ১৫ ই জানুয়ারি ২০০৭-এ তিনি উপদেষ্টার শপথ গ্রহণের ঠিক একদিন আগে চাকরি থেকে স্বেচ্ছাসেবায় অবসর গ্রহণ করেছিলেন। [৩]

জাতিসংঘ[সম্পাদনা]

ইকবাল মোজাম্বিকের ইউএন মিশনে (ওএনএমওজেড) এবং অ্যাঙ্গোলাতে (ইউএনএভেম তৃতীয়) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। ১৯৯৩-১৯৯৪ সালে তিনি সিভিলিয়ান পুলিশ চিফ এবং মোজাম্বিক মিশনে ওএনএমওজেজে ভারপ্রাপ্ত কমিশনার ছিলেন। তিনি অ্যাঙ্গোলাতে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে পুলিশ কমিশনার হিসাবে সুনাম অর্জন করেছিলেন। তৃতীয় ইউএনএভিএম-এর পুরো সময়কালে তিনি সেই পদে ছিলেন। তিনি জাতিসংঘের যে কোনও শান্তিরক্ষা মিশনে সিভিলিয়ান পুলিশ চিফের দায়িত্ব পালনকারী প্রথম এশীয়।

র‌্যাবের মহা-পরিচালক[সম্পাদনা]

আনোয়ারুল ইকবাল র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক ছিলেন [৪][৫]

অন্তর্বর্তীকালীন সরকারে দায়িত্ব পালন[সম্পাদনা]

ইকবাল উপদেষ্টা হিসাবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন যা ১৭ জানুয়ারি ২০০০ ২০০৭-এ নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মন্ত্রিসভার সমতুল্য বাংলাদেশের মাননীয় রাষ্ট্রপতি ড। ইয়াজউদ্দিন আহমেদ কর্তৃক শপথ গ্রহণ করেন। [৬] তাকে স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) এবং অন্য শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রকের দুটি মন্ত্রকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। [৭]

খুব অল্প সময়ে ইকবাল জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে স্থানীয় সরকার কমিশন প্রতিষ্ঠা করেন, মহিলা ক্ষমতায়নের জন্য উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন কাউন্সিল, পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনের আইন সংশোধন করে এবং স্থানীয় স্তরের নির্বাচনে সরকারবান্ধব ব্যক্তিদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের জন্য স্থানীয় সরকার কমিশন প্রতিষ্ঠা করেন। [৮][৯]

তার আমলে সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ এবং বিশেষত দীর্ঘকাল ধরে উপজেলা পরিষদগুলিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে, যা বিগত রাজনৈতিক সরকারের আমলে অনুষ্ঠিত হয়নি। স্থানীয় সরকারগুলির কাছে বিকেন্দ্রীকরণ এবং কর্তৃত্বকে আরও সরানোর উদ্দেশ্যে, তিনি সুশাসন নিশ্চিত করতে সৎ, নিবেদিত ও সক্ষম প্রতিনিধিদের নির্বাচনের উপর জোর দিয়েছিলেন এবং একটি ন্যায়বিচার, ন্যায়সঙ্গত ও আলোকিত সমাজ গঠনে জোর দিয়েছিলেন। [১০]

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা হিসাবে তিনি শ্রম মজুরি, সার্ভিস বুক, ছুটির দিন, আইডি কার্ড ইত্যাদির মতো সুবিধার একটি মান নির্ধারণ করতে সক্ষম হন এবং [১১] এবং সারাদেশে সমস্ত কারখানায় ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়নের জন্য অবিচ্ছিন্ন প্রচেষ্টা উন্নত করে তোলে বাংলাদেশের পোশাক খাতে সক্ষম স্তরের উল্লেখ করার জন্য সম্মতি পরিস্থিতি। [১২] এটি চূড়ান্তভাবে দেশের শ্রম অধিকারের পরিস্থিতির উন্নতি করেছে এবং সেক্টরে শ্রম সহিংসতার এক যুগের সমাপ্ত করেছে। রেডি মেড গার্মেন্টস (আরএমজি) খাত বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী is তিনি বাংলাদেশের নতুন শ্রম আইন চূড়ান্ত করার পথে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এবং বিপজ্জনক কাজ থেকে সফলভাবে শিশু শ্রম নির্মূল করেছিলেন [১৩]

তিনি যে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়েরও দায়িত্ব পালন করেন । ইকবালের সময়ের অন্যতম প্রধান সাফল্য হ'ল বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি বড় পাটকল যা সরকারের ক্ষয়ক্ষতি হ্রাস করার জন্য বন্ধ ছিল। [১৪]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

ইকবাল ১৫ ই জানুয়ারি ২০১৫ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে তার মেয়ের বাড়িতে একটি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন, কাজ করতে গিয়ে ভুগছিলেন। [১৫] দোহার আনোয়ারের সাথে তার বিয়ে হয়েছিল। একসাথে তাদের দুই মেয়ে ফাহবিন আনোয়ার এবং তাসনিম আনোয়ার ছিল। [১৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Development a must to weed out outlawed parties, says Anwarul Iqbal"। The Daily Star। ২০০৭-০২-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  2. "Earth Times: show/19624.html"www.earthtimes.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  3. "Ex-IGP opts for retirement after made OSD"www.thedailystar.net। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  4. Rapid Action Battalion comes into being in a month
  5. RAB being built up like FBI: DG
  6. "Five more advisors inducted into Bangladesh's caretaker government"english.people.com.cn। People's Daily Online। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  7. "Metro"। ২০০৮-০৭-০৫। ৫ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  8. "MPs' influence in local govt to go"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৮-০৩-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  9. "3 ordinances by this month to empower local govt"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৮-০৩-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  10. "Ministry, EC to discuss candidates' eligibility"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৮-০২-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  11. Bangladesh, The Financial Express। "The Financial Express | Financial Online Newspaper"The Financial Express Online Version। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  12. Bangladesh, The Financial Express। "The Financial Express | Financial Online Newspaper"The Financial Express Online Version। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  13. Statement by His Excellency Mr. Mohammed Anwarul Iqbal, Hon’ble Adviser, Ministry of Labour and Employment at the 97th Session of the International Labour Conference (ILC)[অকার্যকর সংযোগ]
  14. "ITTEFAQ.COM"nation.ittefaq.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-৩১ 
  15. সাবেক উপদেষ্টা আনোয়ারুল ইকবাল আর নেই