আইপ্যাড ২

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

আইপ্যাড ২ হল একটি ২য় প্রজন্মের ট্যাবলেট যেটি অ্যাপল ইনকর্পোরেটেড দ্বারা নকশা ও বাজারজাত করা হয়।আইপ্যাড সারির ২য় এই আইপ্যাডটি ১ম টির তুলনায় ওজনে হালকা এবং দ্রুততর ডুয়েল কোর এ৫ প্রোসেসর সম্পন্ন।প্রথম আইপ্যাড হিসেবে এতে রয়েছে ভিজিএ সম্মুখ ক্যামেরা এবং ৭২০ পিক্সেল ক্ষমতার পেছনের ক্যামেরা যার ফলে ফেসটাইম ভিডিও কলিং করা যাবে।[১]

আইপ্যাড ২ ৩টি ভিন্ন স্টোরেজ - ১৬, ৩২, ৬৪ জিবি এবং ২ টি ভিন্ন সংযোগ সুবিধা - ওয়াইফাই, ওয়াইফাই+সেলুলার সংস্করণে পাওয়া যায়।সকল সংস্করণই সাদা ও কালো রঙে পাওয়া যায়, এদের সম্মুখ অংশ কাচের তৈরি।যাহোক মার্চ, ২০১২ তে ৩য় প্রজন্মের আইপ্যাড আসার পর শুধু ১৬ জিবি ওয়াইফাই ও ওয়াইফাই+সেলুলার সংস্করণ ২টি বাজারে ছিল।

২০১১ সালের মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে এটি বাজারে আসে।[২]

আইপ্যাড ২
IPad 2.svg
Ipad 2
ব্র্যান্ডঅ্যাপল ইনকর্পোরেটেড
প্রস্তুতকারকফক্সকন
সিরিজআইপ্যাড
মডেলআইপ্যাড ২ (২য় প্রজন্ম)
সর্বপ্রথম মুক্তিমার্চ ১১, ২০১১
বিরতমার্চ ১৮, ২০১৪
পূর্বসূরীআইপ্যাড (১ম প্রজন্ম)
উত্তরসূরীআইপ্যাড (৩য় প্রজন্ম)
ধরনট্যাবলেট কম্পিউটার
মাত্রাউচ্চতা : ৯.৫০ ইঞ্চি

প্রস্থ : ৭.৩৯ ইঞ্চি

পুরুত্ব : ০.৩৪১ ইঞ্চি
ওজনওয়াইফাই মডেল : ৬০০ গ্রাম ওয়াইফাই+সেলুলার মডেল : ৬১০ গ্রাম
অপারেটিং সিস্টেমপ্রথম সংস্করণ : আইওএস ৪.৩ সর্বশেষ হালনাগাদ : আইওএস ৯.৩.৫ (আগস্ট ২৬,২০১৬)
চিপে সিস্টেমঅ্যাপল এ৫
সিপিইউ১ গিগাহার্জ ডুয়েল কোর এআরএম কর্টেক্স এ৯
মেমোরি৫১২ জিবি ডিডিআর২
সংরক্ষণাগার১৬, ৩২, ৬৪ জিবি
ব্যাটারি৬৯৪৪ এমএএইচ
প্রদর্শন৯.৭ ইঞ্চি, ৪:৩, ১৩২ পিপিআই, ১০২৪×৭৬৮ পিক্সেল
পিছন ক্যামেরা৯৬০×৭২০ মানের ছবি ৫× ডিজিটাল জুম সহ
সম্মুখ ক্যামেরাভিডিও রেকর্ডিং, ভিজিএ ক্যামেরা
ওয়েবসাইটhttps://support.apple.com/kb/sp622?locale=en_US
আইপ্যাড ২ (সাদা)

আইপ্যাড ২ (২য় প্রজন্ম) নিয়ে সর্বমহল থেকে মিশ্র প্রতিক্রিয়া এসেছে ।বিভিন্ন ব্লগ এবং প্রকাশনা এটির উন্নত হার্ডওয়্যার বিশেষত: অ্যাপল এ৫ চিপ নিয়ে প্রশংসা করেছে[৩]।আবার প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের কাছ থেকে সফট্ওয়্যার সীমাবদ্ধতার জন্য সমালোচনার স্বীকার হয়েছে[৪]।বাজারে আসার প্রথম মাসেই এটির ২৪-২৬ লক্ষ ইউনিট বিক্রি হয়েছে এবং ২০১১ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে মোট বিক্রির পরিমাণ দাড়ায় ১ কোটি ১১ লক্ষ ২০ হাজার ইউনিট।[৫]

পরে আসা রেটিনা মডেলগুলোর তুলনায় পারফর্মেন্স ও পর্দার রেজোলুশনের দিক থেকে পিছিয়ে তবে ওজনে হালকা ও লম্বা ব্যাটারি লাইফ সম্পন্ন এবং পরবর্তীতে এ৫ চিপের একটি উন্নত সংস্করণ সমৃদ্ধ জনপ্রিয় এই পণ্যটি ২০১৪ সাল পর্যন্ত ৩ বছর ধরে অ্যাপলের প্রাথমিক স্তরের আইপ্যাড হিসেবে আইপ্যাড সারিতে ছিল।এর মৌলিক নকশাটি ১ম আইপ্যাড মিনির মূল গঠন,যার সমসংখ্যক পিক্সেল ও একই সব বৈশিষ্ট্য রয়েছে ছোট আকারের মধ্যে।আইপ্যাড ২ আইওএস-এর প্রধান ৬টি সংস্করণ (আইওএস ৪ - ৯) সমর্থনকারী প্রথম আইওএস যন্ত্র।আইফোন ৪এস আইওএস ৫ - ৯ এবং আইফোন ৫ আইওএস ৬ - ১০ সমর্থন করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অ্যাপল ইনকর্পোরেটেড ২০১১ সালের ২৩ শে ফেব্রুয়ারি সাংবাদিকদের কাছে নিমন্ত্রণ পাঠায় ২রা মার্চ ২০১১ মিডিয়া ইভেন্টে উপস্থিত থাকতে।সেদিন সিইও স্টিভ জবস আইপ্যাড ২ এর পর্দা উন্মোচন করেন।তিনি অসুস্থ থাকা সত্বেও ইভেন্টে অংশ নেন।আইপ্যাড ২ ঘোষণার পরপরই অনলাইন ও অ্যাপল স্বীকৃত দোকান থেকে ১ম প্রজন্মের আইপ্যাড বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

১১ই মার্চ থেকে এটি যুক্তরাষ্ট্রে অনলাইনে এবং ওইদিনই বিকাল ৫টা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অ্যাপল রিটেইল স্টোরে বিক্রির জন্য উন্মুক্ত হয়[৬]নিউইয়র্কের মত অনেক বড় বড় শহরে কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সব বিক্রি হয়ে যায়।অনলাইন ডেলিভারি পিছিয়ে গিয়েছিল, রবিবারেরগুলো ৩-৪ সপ্তাহ এবং মঙ্গলবারেরগুলো ৪-৫ সপ্তাহ পিছিয়ে গিয়েছিল।

মার্চ ২৫, ২০১১তে বিশ্বের ২৫ টি দেশে আন্তর্জাতিকভাবে প্রথম মুক্তি পায়।এই দেশগুলো হল - অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, কানাডা, চেক প্রজাতন্ত্র, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রীস, আইসল্যান্ড, ইতালি, আয়ারল্যান্ড, হাঙ্গেরি, লাক্সেমবার্গ, মেক্সিকো, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, স্পেন, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড ও যুক্তরাজ্য।

জাপানে ২৯ এপ্রিল, ২০১১ তারিখের মুক্তির দিনটি পিছিয়ে যায় সেখানে ১১ই মার্চ, ২০১১ ভয়াবহ ভুমিকম্প ও সুনামির কারণে যা পুরো জাতিকে স্তব্ধ করে দেয়[৭]।আইপ্যাড ২ এ ব্যবহৃত ন্যান্ড ফ্ল্যাশ স্টোরেজ চিপগুলো তৈরি করছিল জাপানি কোম্পানি তোশিবা।ভুমিকম্প ও সুনামির ফলে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য উৎপাদন প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়[৮]।এ ধীরগতির কারণে অ্যাপলের মজুত কমে যায়।

পরে এপ্রিল ২৯, ২০১১তে হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া এবং জাপান সহ অন্যান্য দেশে মুক্তি পায়। এরপর ৬ই এবং ২৭শে মে চীন, এস্তোনিয়া, থাইল্যান্ড, ব্রাজিল, রাশিয়া ও তাইওয়ান সহ কয়েকটি দেশে মুক্তি পায়।

অ্যাপল ইনকর্পোরেটেড মার্চ ৭, ২০১২তে আইপ্যাড (৩য় প্রজন্ম) ঘোষণার পর থেকে ৩২ ও ৬৪ জিবি মডেলের আইপ্যাড ২ তৈরি বন্ধ করে দেয় এবং মার্চ ১৮, ২০১৪ থেকে ১৬ জিবি ওয়াইফাই ও ওয়াইফাই+সেলুলার সকল প্রকার আইপ্যাড ২ তৈরি বন্ধ করে দেয়।[৯]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

সফ্টওয়্যার[সম্পাদনা]

মার্চ ২০১১ এর শেষের দিকে, আইপ্যাড ২ (আইওএস ৪.৩ সংস্করণ) মুক্তি পায়, যা প্রাথমিকভাবে এয়ারপ্লে মিররিং এবং হোম শেয়ারিং সহ অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলো সমর্থন করে।  অক্টোবর ১২, ২০১১ এ, আইফোন ৪ এস রিলিজের পর, আইপ্যাডটি আইওএস ৫ ফার্মওয়্যারের সাথে উন্নত করা হয়েছিল যা আইওএস সামঞ্জস্যপূর্ণ ডিভাইসগুলির জন্য ২০০ টি নতুন ইউজার ফিচার অন্তর্ভুক্ত করেছে যার মধ্যে নোটিফিকেশান সেন্টার, আইম্যাসেজ, রিমাইন্ডারস এবং একটি আপডেটেড নোটিফিকেশন সিস্টেম যা পূর্বে ব্যবহৃত পপ-আপ "সতর্কতা" স্টাইলের পরিবর্তে একটি নতুন "ব্যানার" শৈলী ব্যবহার করে ।

আইপ্যাড ২ এ ডিফল্টভাবে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের সাথে আসে যেটিতে সাফারি, মেইল, ফটোস, ভিডিও, মিউজিক, আইটিউনস স্টোর, মানচিত্র, নোটস, ক্যালেন্ডার, ফটো বুথ এবং কনটাকস ইত্যাদি থাকে।  অ্যাপ স্টোরটি একটি ডিফল্ট অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে পাওয়া যায়, এটি ব্যবহারকারীদের ৮০০,০০০ অ্যাপ্লিকেশনের ডাটাবেস  থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করতে সক্ষম করে,  এই অ্যাপ্লিকেশনের মূল্য ডেভেলপারদের দ্বারা সেট করা হয়। সব আইওএস ডিভাইসের মতো, আইপ্যাড ২ আইটিউনস ব্যবহার করে একটি ম্যাক বা পিসির সাথে গান, ভিডিও, অ্যাপ এবং ছবি সিঙ্ক করতে পারে, যদিও আইওএস ৫ এবং এর পরবর্তী সংস্করণগুলো ব্যবহার করলে ব্যবহারকারীকে কম্পিউটারে আইপ্যাড সংযোগ করতে হবে না।  আইক্লাউড এছাড়াও ব্যবহারকারীদের ব্যাকআপ এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে অন্যান্য সুরক্ষিত আইওএস ডিভাইসগুলির সাথে তাদের ডেটা সিঙ্ক করতে দেয়। আইওএস-এ একটি স্থানীয় সোশাল গেমিং প্ল্যাটফর্ম হিসাবে গেম সেন্টার পাওয়া যায়, এই বৈশিষ্ট্যটি অ্যাপ স্টোরের মাধ্যমে ডাউনলোড করা সকল গেমের পয়েন্ট সংরক্ষণ করতে এবং সামাজিক প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে তাদের পয়েন্ট, উচ্চ স্কোর এবং বোনাস সিস্টেমকে সমন্বিত করতে সক্ষম। ।  যদিও ট্যাবলেটটি সেলুলার নেটওয়ার্কে ফোন কল করার জন্য ডিজাইন করা হয় না, তবে ব্যবহারকারী একটি তারসহ হেডসেট বা বিল্ট-ইন স্পিকার এবং মাইক্রোফোন ব্যবহার করতে পারেন এবং ভিওআইপি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ওয়াই-ফাই বা সেলুলার ডাটার মাধ্যমে ফোন কল করতে পারেন।

আইপ্যাড ২ গ্যারেজব্যান্ড , আইমুভি , এবং আইওয়ার্কের অ্যাপ - পেজ , কিনোট ও নম্বার নিয়ে কাজ করার ক্ষমতা যোগ করে। এই অ্যাপ্লিকেশনগুলি আইপ্যাডের সাথে আসে না কিন্তু এগুলো অ্যাপ স্টোর থেকে ডাউনলোড করে ব্যাবহার করা যায়। ৭ই মার্চ, ২০১২ তারিখে, তৃতীয় প্রজন্মের আইপ্যাডের উদ্বোধনের পর, আইপ্যাড ২ এর ফার্মওয়্যারটি আইওএস ৫.১ এ আপগ্রেডযোগ্য ছিল। একজন সিনিয়র নির্বাহী স্কট রোড আইপ্যাডকে ডিভাইস হিসাবে ছদ্মবেশিত একটি গেম কনসোল হিসাবে বর্ণনা করেছেন যা ব্যবসা কার্যস্থলে প্রয়োগ করা যেতে পারে।১৯ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে আইফোন ৫ এর ঘোষণার প্রায় এক সপ্তাহের মধ্যে, আইওএস ৬ আইপ্যাড ২ সহ অনেকগুলি আইওএস ডিভাইসের জন্য মুক্তি পায়।  তবে, আইওএস ৬ এর সমস্ত বৈশিষ্ট্যগুলি আইপ্যাড ২ এ পাওয়া যায় না। সফ্টওয়্যার আপগ্রেডটি এয়ার (ওটিএ) আপডেটের প্যাকেজ হিসাবে ডাউনলোডযোগ্য এবং দুটি-শত নতুন বৈশিষ্ট্য রয়েছে যার মধ্যে রয়েছে  অ্যাপল ম্যাপস , একটি "ক্লক" অ্যাপ, যা একসাথে টাইমার, স্টপওয়াচ ও অ্যালার্ম, এবং ফেসবুক সহ অন্যান্য নতুন বৈশিষ্ট্য।

আইপ্যাড ২ আইওএস ৭ এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ, যা ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ তারিখে মুক্তি পায়।  তবে,এটিরও কিছু বৈশিষ্ট্য আইপ্যাড ২ এ ব্যাবহারযোগ্য নয়। উদাহরণস্বরূপ, আইফোন ৪ এর মত, পরবর্তী আইওএস মডেলগুলির মধ্যে বিজ্ঞপ্তি কেন্দ্র এবং কন্ট্রোল সেন্টার সরল বর্ণের পরিবর্তে স্বচ্ছ শৈলী ব্যবহার করে।

আইপ্যাড ২ আইওএস ৮ ও সমর্থন করে যা সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৪ সালে মুক্তি পায় । আইওএস এর পাঁচটি প্রধান সংস্করণ (আইওএস ৪, ৫, ৬, ৭, এবং ৮) সমর্থনকারী  এটিই প্রথম আইওএস ডিভাইস । যখন নতুন ওএস ডিভাইসটি চালায়, তখন তার বেশিরভাগ বৈশিষ্ট্যই  পুরনো হার্ডওয়্যারের কারণে কাজ করে না এবং এর ফলে এর পারফরম্যান্স সীমিত হয়। ব্যবহারকারীরা অ্যাক্সেসিবিলিটি বৈশিষ্ট্য এবং ব্যাটারি সংক্রান্ত সমস্যাগুলো সহ আপডেটটি পাওয়ার পরেও অসংখ্য সমস্যার রিপোর্ট করেছেন। অনেক ব্যবহারকারী ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে আইপ্যাড ২  আইফোন ৪-এর সাথে আইওএসড় ৮ পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকবে, আইফোন ৩জিএস এবং আইপড টাচ্ (চতুর্থ প্রজন্ম) এবং আগের মডেলগুলোও যেমন ৩ বছর বয়স হওয়ার পর বাদ পরেছিল।তবে ৮ জুন ২০১৫ তারিখে অ্যাপল এর ডব্লিউডব্লিউডিসি- তে জানানো হয়েছিল যে আইপ্যাড ২তে আইওএস ৯  চলবে। এটিই অ্যাপলের প্রথম আইপ্যাড যা আইওএস এর ছয়টি প্রধান সংস্করণ চলে এমন  আইওএস ডিভাইস । পূর্বের রিলিজের মত, যদিও অনুমানকারী সিরি , বিভাজক দৃশ্য, স্লাইড-ওভার এবং ছবি-ইন-ছবিটি মাল্টিটাস্কিং এবং হেলথ অ্যাপস সহ  বেশিরভাগ শিরোনাম বৈশিষ্ট্যগুলি আইপ্যাড ২ তে অনুপস্থিত ছিল ।  আইওএস ৯-কে বলা হয়েছিল যে,এটি পারফরম্যান্সের উন্নতি করে,যা পুরানো ডিভাইসের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করতে সহজেই সাহায্য করতে পারে, তবে প্রাথমিক পরীক্ষার মাধ্যমে  উপলব্ধ হয় এটি উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবান্বিত করে না। আইফোন ৪ এস (পাঁচটি প্রধান আইওএস সংস্করণ), আইপ্যাড মিনি (চারটি প্রধান আইওএস সংস্করণ) এবং আইপড টাচ 5 জি (চারটি প্রধান আইওএস সংস্করণ) সহ অন্যান্য এ৫ -ভিত্তিক ডিভাইসও আইওএস ৯ সমর্থন করে।

১৩ই জুন, ২০১৬ তারিখে, আইওএস ১০ এর মুক্তির সাথে, অ্যাপল তার হার্ডওয়্যার সীমাবদ্ধতার কারণে আইপ্যাড ২ এর নতুন আইওএস সংস্করণ দেওয়া বন্ধ করে দেয়। একই পরিণতি হয় আইপ্যাড (৩য় প্রজন্ম) ও আইপ্যাড মিনি (প্রথম প্রজন্ম) - এদেরও।ফলে আইওএস ৯-ই এদের চূড়ান্ত সংস্করণ হয়।

২০১৭ সালের জুলাই মাসে আইপ্যাড ২ সহ অনেক আইওএস ডিভাইস গুরুতর ওয়াইফাই দুর্বলতা ব্রডপ্লেংক দ্বারা প্রভাবিত হয়। এটি ব্যবহারকারীর কোনও যোগাযোগ ছাড়াই ওয়াইফাই ব্যাবহারের মাধ্যমে  আক্রমণকারীকে সকল ডিভাইস নিয়ন্ত্রণ করতে দেয়।  যেহেতু আইপ্যাড ২ এর জীবনের শেষদিকে এসে আইওএস ৯ এই দুর্বলতার জন্য ডিভাইসটিকে একটি নিরাপত্তা সমাধান দিতে পারবে না, তাই এটি আরও ব্যবহার করা বিপজ্জনক।

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে অ্যাপল হঠাৎ করে আইপ্যাড ২ এবং আইফোন ৪ এস এর জন্য আইওএস ৬.১.৩ ফার্মওয়্যার সাইন ইন শুরু করল, যা ব্যবহারকারীদের এই ডিভাইসগুলিকে আইওএস 6 এ ডাউনগ্রেড করতে দেয়, এবং এটি এখনও সমর্থিত।

হার্ডওয়্যার[সম্পাদনা]

অ্যাপল এ৫ চিপ

আইপ্যাড ২-এ ব্যবহৃত হয়েছে অ্যাপল এ ৫ প্যাকেজ-অন-প্যাকেজ (পিওপি) সিস্টেম-অন-চিপ (এসওসি), যাতে রয়েছে ১ জিএইচজেড ডুয়েল কোর ৩২-বিট কর্টেক্স-এ ৯ সিপিইউ , ৫১২ মেগাবাইট র‍্যাম এবং একটি ডুয়েল কোর পাওয়ারভিআর এসজিএক্স ৫৪৩এমপি২ জিপিইউ। অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে সামনের এবং পেছনের ক্যামেরা, একটি তিন-অক্ষ জিরোস্কোপ , হেডসেট নিয়ন্ত্রণ, প্রক্সিমিটি এবং এম্বিয়েনট লাইট সেন্সর, মাইক্রোফোন , ম্যাগনেটোমিটার , অ্যাকসিলরোমিটার এবং একটি ৯.৭ ইঞ্চি মাল্টি-টাচ স্ক্রিন যার সর্বোচ্চ রেজোলিউশন ১০২৪×৭৬৮ এবং ১৩২ পিপিআই। আইপ্যাড ২-এর চারটি সুইচ আছে, হোম স্ক্রিনে ব্যবহারকারীর ফিরে আসার জন্য একটি হোম বোতাম ছাড়াও তিনটি প্লাস্টিকের সুইচ রয়েছে: ঘুম / জাগা, ভলিউম আপ / ডাউন, এবং তৃতীয় সুইচ যা পর্দা আবর্তন লক বা ডিভাইস নিঃশব্দ করে। আইপ্যাড ২ এর হোম বাটনটি "আইপ্যাডের পূর্বের প্রজন্মের তুলনায় "দ্বিগুণ সহজ "।  অ্যাপল ডিসপ্লে স্ট্যাম্পড ধাতুর ফ্রেমকে নির্মূল করে স্পর্শ স্ক্রিন ওভারলের জন্য নতুন সরু কাচ প্রযুক্তি একত্রিত করে আইপ্যাডের আকার হ্রাস করে এবং ডিসপ্লে ও ব্যাটারির মাঝামাঝি জায়গাটি হ্রাস করে।  আইপ্যাড 2 এর পর্দাটি সরু, হালকা এবং ১ম আইপ্যাডের তুলনায় শক্তিশালী।  আইপ্যাড ২ ডিজিটাল এভি অ্যাডাপ্টারের মাধ্যমে  এবং আইওএস ৫ এর  এয়ারপ্লের মাধ্যমে পর্দার প্রতিফলনকে সমর্থন করে।

আইপ্যাড ২ এর একটি ২৫ ওয়াট/ঘন্টা রিচার্জযোগ্য লিথিয়াম-আয়ন পলিমার ব্যাটারি রয়েছে  যা পূর্বের আইপ্যাডের মত ১০ ঘন্টা স্থায়ী হয়। এটি ইউএসবি অথবা অন্তর্ভুক্ত একটি  ১০ ওয়াট, ২এ শক্তিসম্পন্ন অ্যাডাপ্টারের  মাধ্যমে চার্জ করা যায়। ব্যাটারি ২.৫ মিমি পুরু, আগের চেয়ে ৫৯% ছোট এবং দুইটির পরিবর্তে তিনটি কোষ আছে। পরিবর্তনগুলো ইনজেকশন-চটকানো প্লাস্টিকের সমর্থন ফ্রেম বাদ দেওয়া সম্ভব করে। ১০ ওয়াট ইউএসবি পাওয়ার অ্যাডাপ্টার একটি প্রচলিত ইউএসবি পোর্টের ৪x বেশি ক্ষমতা প্রদান করে।  ট্যাবলেটে ২০ হার্জ থেকে ২০ কিলোহার্জ পর্যন্ত অডিও ফ্রিকোয়েন্সি প্রতিক্রিয়া রয়েছে। তৃতীয় পক্ষের সফ্টওয়্যার ছাড়াই এটি নিম্নলিখিত অডিও ফরম্যাটগুলি চালাতে পারে: এইচ-ই - এএসি, এএসি, সুরক্ষিত এএসি, এমপিথ্রি, এমপিথ্রি ভিবিআর, শ্রুতিযোগ্য বিন্যাস (২, ৩, ৪, এইএ, এএএক্স, এবং এএএক্স +), এএলএসি , এআইএফএফ, এবং ডব্লিউএভি ।

ট্যাবলেটটিতে রয়েছে সম্মুখ এবং পিছন-মুখী ক্যামেরা, যা দ্বারা অন্যান্য আইপ্যাড ২ , তৃতীয় প্রজন্মের আইপ্যাড, আইফোন ৪ ও  ৪এস , চতুর্থ প্রজন্মের আইপড টাচ এবং ম্যাকিনটোশ কম্পিউটার ( ম্যাক ওএস এক্স ১০.৬.৬ বা পরবর্তী সংস্করণ-ওয়েবক্যাম সহ) -এর সাথে ফেসটাইম করা যায়। ০.৩ এমপি সম্মুখ ক্যামেরা ভিজিএ মানের ৩০ ফ্রেম/সেকেন্ড ভিডিও এবং ভিজিএ- মানের স্থির ছবি ধারণ করে।  ০.৭ এমপি পিছনের ক্যামেরা ৩০ ফ্রেম/সেকেন্ড-এর ৭২০ পিক্সেল এইচডি ভিডিও ধারণ করতে পারে এবং এতে ৫ × গুণ ডিজিটাল জুম রয়েছে । উভয় ক্যামেরাই ৪:৩ অনুপাতের পূর্ণ পর্দার ছবি ধারণ করে। পেছনের ক্যামেরা ৭২০ পিক্সেল মানের ১৬:৯ ওয়াইডস্ক্রিনের ভিডিও ধারণ করে, যদিও শুধু কেন্দ্রিয় ৪:৩ অংশ রেকর্ডিংয়ের সময় পর্দায় প্রদর্শিত হয়।  সামনের ক্যামেরা ৪:৩ অনুপাতেই ভিডিও করে।

আগের আইপ্যাডের চেয়ে অ্যাপল এ ৫  চিপের প্রক্রিয়াকরণ গতি দ্বিগুণ  এবং গ্রাফিক্স প্রক্রিয়াকরণ ৯ গুণ বেশি দ্রুত।   তবে, বিভিন্ন তৃতীয় পক্ষের সংবাদ উৎস এবং প্রযুক্তি ব্লগের হার্ডওয়্যার মূল্যায়ন অনুযায়ী  এই দাবিগুলি অতিরঞ্জিত; আনান্দটেক দ্বারা পরিচালিত বেঞ্চমার্ক মূল্যায়ন দেখিয়েছে যে আইপ্যাড ২ এর জিপিইউ (গ্রাফিক্স প্রক্রিয়াকরণ) মূল আইপ্যাডের চেয়ে মাত্র 3 গুণ বেশি দ্রুত।  আইওএসনুপসের মাধ্যমে আইপ্যাড ২ এ পরিচালিত সিপিইউ স্ট্যান্ডার্ডগুলি মূল আইপ্যাডের তুলনায় ৬৬% কার্যকারিতা বৃদ্ধি নির্দেশ করে।আইপ্যাড ২ এর থ্রিজি সংস্করণগুলো সিডিএমএ-২০০০ এবং জিএসএম / ইউএমটিএস সমর্থন করে, এতে ব্যাবহারকারীরা সিডিএমএ এবং জিএসএম / ইউএমটিএস উভয় নেটওয়ার্কই ব্যবহার করতে পারবে । আইপ্যাড ওয়াই-ফাই + থ্রিজি মডেলটিতে ব্যবহারকারীর অনুমতি সাপেক্ষে তার অবস্থান ট্র্যাক করার জন্য একটি এ-জিপিএস রিসিভার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও, আইপ্যাড ২ থ্রিজি মডেলটিতে  পিছনের দিকে শীর্ষে একটি প্লাস্টিকের টুপির-মত ব্যান্ড রয়েছে থ্রিজি অ্যান্টেনার জন্য।আবার থ্রিজি মডেলটিতে মাইক্রোফোনের জন্য ধাতব ঘানির পরিবর্তে  একটি মিলিত প্লাস্টিকের কালো গ্রিল ব্যবহার করা হয়।  জিএসএম মডেলের আইপ্যাড ২ একটি সিম কার্ড ব্যবহার করে, সিডিএমএ মডেলগুলো সেলুলার নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ করার জন্য একটি ইএসএন ব্যবহার করে।

প্রথম আইপ্যাডের চেয়ে এটি ১৫% হালকা এবং ৩৩% সরু; এটি   আইফোন ৪ এর চেয়েও ০.৫ মিমি সরু।  ওয়াই-ফাই সংস্করণ ১.৩৩ পাউণ্ড (৬০০ গ্রাম)।জিএসএম ও সিডিএমএ -র সেলুলার রেডিও -র মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য থাকায়  জিএসএম এবং সিডিএমএ সংস্করণগুলোর  (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে AT&T এবং ভেরিজন সংস্করণ হিসাবে পরিচিত) ওজনেও পার্থক্য বিদ্যমান; জিএসএম মডেল ১.৩৫ পাউন্ড (৬২২ গ্রাম) এবং সিডিএমএ মডেল ১.৩৪ পাউন্ড (৬০৮ গ্রাম)।৯.৫৬ × ৭.৪৭ × ০.৫ ইঞ্চির (২৪২.৮ × ১৮৯.৭ × ১৩.৪ মিমি) আগের আইপ্যাডের তুলনায় আইপ্যাড ২  {৯.৫০ × ৭.৩১ × ০.৩৪ ইঞ্চি (২৪১.২ × ১৮৫.৭ × ৮.৮ মিমি)} আকারে ছোট।

তৃতীয় প্রজন্মের আইপ্যাডের ঘোষণা এবং মুক্তি হওয়ার পর, আইপ্যাড ২, একটি হার্ডওয়্যার আপগ্রেড পেয়েছে। আপগ্রেড করা আইপ্যাড ২- এ  অ্যাপল এ৫-এসওসি এর একটি ছোট সংস্করণ রয়েছে যা ব্যাটারির বিদ্যুৎ খরচ কমাতে সক্ষম।  আনান্দটেক দ্বারা পরিচালিত পরীক্ষার ফলাফলের মতে , নতুন সংস্করণটি ব্যবহারের ভিন্নতা অনুসারে অন্তত ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট  দীর্ঘ স্থায়ী হয়।  একই প্রতিষ্ঠান দ্বারা পরিচালিত পরীক্ষাগুলি প্রকাশ করেছে যে, এই সংস্করণটি  নিবিড় কার্য সম্পাদনকালে  মূল আইপ্যাডের চেয়ে 1 ডিগ্রি কম তাপমাত্রায় কাজ করতে সক্ষম ছিল এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রাও ২ ডিগ্রি কম  ছিল। আনান্দটেকের মতে, দুটি সংস্করণের মধ্যে পারফরম্যান্সের পার্থক্য নগণ্য।

আনুষাঙ্গিক[সম্পাদনা]

স্মার্ট কভার সর্বপ্রথম আইপ্যাড ২ এর সাথে চালু করা হয়, এটি একটি পর্দা রক্ষক যা আইপ্যাডের মুখে চুম্বক দিয়ে সংযুক্ত থাকে। কভারটিতে তিনটি স্তর আছে, যেগুলো চুম্বক দ্বারা একসাথে জোড়া লেগে একটি স্ট্যান্ডে রূপান্তরিত হতে সক্ষম।  মূল আইপ্যাডের ব্যবহারকারীরা একটি কালো খাপ  ক্রয় করতে পারে, যেখানে একই রকমের ভাজ করা যায় এরূপ আবরণ রয়েছে। স্মার্ট কভারটি অপ্রচলিত, সহজে খোলা যায় এবং শুধুমাত্র পর্দার সুরক্ষা করে। স্মার্ট কভারগুলোর নীচে একটি মাইক্রোফাইবার কাপড় রয়েছে যা আইপ্যাডের সামনের অংশ পরিষ্কার করে এবং কভার উঠানোর সময়  আইপ্যাডটি জেগে উঠে। পলিউরথিন এবং চামড়া উভয় কভারেরই পাঁচটি ভিন্ন রং আছে, চামড়ার কভারগুলো পলিউরথিন সংস্করণের তুলনায় ব্যয়বহুল।  

অ্যাপল আইপ্যাড ২ এর জন্য আরও অনেক জিনিসপত্র বিক্রি করে,  যার বেশিরভাগই ৩০-পিন ডক সংযোগকারী(হেডফোন জ্যাক ছাড়া আইপ্যাডের একমাত্র পোর্ট)-র জন্য অ্যাডাপ্টার। আইপ্যাডটি দিয়ে ব্লুটুথ কীবোর্ড ব্যবহার করা যায়,যেগুলো আবার ম্যাক এবং পিসি এর সাথেও কাজ করে। আইপড এবং আইফোনের জন্য ব্যবহৃত একটি স্ট্যান্ডএলোন পাওয়ার অ্যাডাপ্টার ("ওয়াল চার্জার") দ্বারাও  আইপ্যাডটি  চার্জ করা যায়। তবে আইপ্যাডের সাথে ১০ ওয়াটের মূল চার্জারটি অন্তর্ভুক্ত করা থাকে।

অভ্যর্থনা[সম্পাদনা]

আইপ্যাড ২ এর  মূল্যায়নে মিশ্র থেকে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া এসেছে, এটির অ্যাপল এ৫ প্রসেসর এবং ৭২০ পিক্সেল ক্যামেরাটি বেশ প্রশংসা পেয়েছে। এনগেজগেটের জোশুয়া টোপোলস্কি বলেন যে, "আপনার যারা এখনও লাফ দেননি, তারা চিন্তামুক্তভাবে একটি গভীর শ্বাস নিন এবং ডুবে পড়ুন এতে - আইপ্যাড ২টি এতটাই ভাল যে তা এখনই কেনার মত। এবং এটা সত্যিই বেশ ভাল।"  ম্যাকওয়ার্ডের জেসন স্নেল বলেছেন :

" যদিও আইপ্যাড ২ মূল আইপ্যাডের তুলনায় অসংখ্য উন্নয়ন করা হয়েছে, এটি এখনও ক্রমবিকাশমান, বৈপ্লবিক নয়।আপনি যদি আপনার বর্তমান আইপ্যাড (১ম প্রজন্ম) নিয়ে খুশি থাকেন তাহলে কেবলমাত্র চকচকে ও নতুন আইপ্যাডের জন্য এটিকে বাতিল করা উচিত নয়।(যদিও বলা যায় না যে লক্ষ লক্ষ লোক তা করবে না।আমি বলতে চাইছি : "চকচকে!")।আপনি যদি ইতিমধ্যে আইপ্যাড আনুষাঙ্গিক জিনিসপত্র যেমন - কভার, চার্জিং ডক -এর উপর বিনিয়োগ করে থাকেন তবে আপনার মনে রাখা উচিত নতুন আইপ্যাডে আপনি সম্ভবত সেগুলো ব্যবহার করতে পারবেন না। "

 টেকক্রাঞ্চ- এর এমজি সিগেলার বলেছেন: "একটি সহজ উপায়ে সব  সংক্ষেপ করে বলা যাক : আইপ্যাড ২ কি কিনা উচিত? সম্ভবত - এটি কয়েকটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে। আপনি কি একটি কিনতে চাইবেন? হ্যাঁ। "

সমালোচনা[সম্পাদনা]

আইওএস এর বন্ধ এবং মালিকানাধীন প্রকৃতির কারণে সমালোচিত হয়েছে। বিশেষ করে ডিজিটাল অধিকার সমর্থনকারীরা যেমন - ইলেক্ট্রনিক ফ্রন্টিয়ার ফাউন্ডেশন , কম্পিউটার প্রকৌশলী এবং অ্যাক্টিভিস্ট ব্রুস্টার কাহলে , ইন্টারনেট আইন বিশেষজ্ঞ জনাথন জিট্টেন এবং ফ্রি সফটওয়্যার ফাউন্ডেশন; আইপ্যাডের পরিচায়ক অনুষ্ঠানের প্রতিবাদ করে এবং তাদের  " ডিফেক্টিভ বাই ডিজাইন " প্রচারাভিযান দ্বারা আইপ্যাডকে আক্রমণ করে। প্রতিযোগী মাইক্রোসফট , একজন জনসংযোগ মুখপাত্রের মাধ্যমে তার প্ল্যাটফর্মের উপর অ্যাপল এর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সমালোচনা করেছে।

প্রযুক্তিগত সমস্যা[সম্পাদনা]

আইওএস নকশা দ্বারা আরোপিত নিষেধাজ্ঞা কিছু ইস্যুর কারণ হয়।উদাহরণস্বরূপ, ডিআরএম (ডিজিটাল রাইট ম্যানেজম্যান্ট) অ্যাপল প্ল্যাটফর্মের কাছে ক্রয়কৃত মিডিয়া লক করতে চাওয়া, ডেভেলপমেন্ট মডেল (আইওএস এর জন্য উন্নীত অ্যাপগুলো বিতরণের জন্য প্রয়োজনীয় বাৎসরিক সাবস্ক্রিপশন), অ্যাপসগুলির জন্য কেন্দ্রীয় অনুমোদন প্রক্রিয়ার পাশাপাশি অ্যাপলের সাধারণ নিয়ন্ত্রণ এবং নিজেই একটি তালাবদ্ধ প্লার্টফরম হওয়া।বিশেষত, ইস্যুতে আসে অ্যাপলের অ্যাপ নিষ্ক্রিয় ও মুছে ফেলার ক্ষমতা ও স্বাধীনতা।প্রযুক্তি জগতের কিছু অংশ তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে, বদ্ধ আইওএস ব্যবস্থা কম্পিউটিং-এর প্রতি অ্যাপলের ক্রমবর্ধমান প্রবণতার প্রতিনিধিত্ব করে, বিশেষত অ্যাপলের মেশিন থেকে সরে যাওয়া যাতে ওরা টিকে থাকতে পারে এবং বদ্ধ ব্যবস্থার এই ধরনের নিষেধাজ্ঞাগুলির " নতুন সফ্টওয়্যার উদ্ভাবন" দমন করার সম্ভাব্যতা ও ক্ষমতা রয়েছে বলে মনে করেন।

কিছু আইপ্যাড  ব্যবহারকারী আইওএস ৮ চালানোর সময় তাদের পারফরম্যান্স সমস্যার কথা জানায়।পরে অ্যাপল আইপ্যাড ২ এবং আইফোন ৪ এস এর জন্য আইওএস ৮.১.১ আপডেটে পারফরম্যান্স উন্নত করে । যাইহোক, এই  ২টি যন্ত্র কখনও এদের পরবর্তী মডেলের চেয়ে দ্রুততর হয় নি।

বাণিজ্যিক সমাদর[সম্পাদনা]

বিক্রয়ের প্রথম সপ্তাহান্তে, এক মিলিয়নেরও বেশি ইউনিট বিক্রি হয়েছিল। প্রথম সপ্তাহের শেষেই একটি আর্থিক সংস্থার প্রযুক্তি বিশ্লেষক অশোক কুমার ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে, ২০১১ সালে অ্যাপল ৩৫ মিলিয়ন আইপ্যাড ২ কে বিক্রি করবে।  বিনিয়োগ ব্যাংকিং ফার্ম, পাইপার জাফর আইপ্যাড ২ এর প্রাথমিক বিক্রয় পর্যবেক্ষণ করে  রিপোর্ট করেন যে, সমস্ত আইপ্যাডের ৭০% বিক্রয় হয়েছিল যারা প্রথমবারের মতো আইপ্যাড কিনেছেন তাদের কাছে, তাদের মধ্যে ৪৯% ক্রেতাদের  পিসি-র মালিকানা ছিল; যেখানে প্রথম আইপ্যাডের প্রাথমিক ক্রেতাদের মাত্র ২৬% ক্রেতার পিসির মালিকানা ছিল।  মুক্তির প্রথম দুই সপ্তাহে ১২,০০০ ইউনিট নিলামে বিক্রি করা হয়।  যখন আইফোন 4 এস মুক্তি পায় তখন তৃতীয় প্রজন্মের আইপ্যাড সম্পর্কে গুজব ছড়িয়ে পড়লে আইপ্যাড ২-র বিক্রি কমে যায়। ২০১১ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে প্রকাশিত দাপ্তরিক প্রতিবেদনে বলা হয়, অ্যাপল তৃতীয় প্রান্তিকে ১১.৪ মিলিয়ন আইপ্যাড বিক্রি করেছে, যা 2010 এর তৃতীয় প্রান্তিক থেকে ১৬৬% বেশি।  এই পণ্যটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় অ্যাপলের জন্য নতুন বড় বাজার তৈরি করতে সাহায্য করেছে ।

মহাকাশে ব্যবহার[সম্পাদনা]

২০১১ সালে অনুমোদিত  দুটি আইপ্যাড ২ ট্যাবলেট আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে গ্রহণ করা হয়েছিল।  আইএসএস-এ নেওয়া অন্যান্য অ্যাপল পণ্যের মধ্যে আইপড এবং দুটি আইফোন ৪ ও রয়েছে। আইএসএস-এ  গ্রহণ করা অন্যান্য ব্যক্তিগত কম্পিউটিং সিস্টেম হল থিঙ্কপ্যাড ল্যাপটপ (আইবিএম, পরে লেনেভো ব্র্যান্ড)-র বিভিন্ন সংস্করণ ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "Apple Announces The iPad 2: A5 Processor, Front And Back Cameras, Available March 11 – TechCrunch" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  2. "Apple unveils slim new iPad 2: release date March 11" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  3. "iPad 2 review"Engadget (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  4. "Apple's Trend Away From Tinkering - Slashdot" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  5. "iPad Sales Numbers for Q4 2011 Announced by Apple"iPad Insight (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  6. (www.dw.com), Deutsche Welle। "'আইপ্যাড ২' এর বিক্রি শুরু হচ্ছে আজ | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 11.03.2011"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  7. "Apple Delays iPad 2 Launch in Japan Following Earthquake and Tsunami" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  8. "iPad 2 supply concerns send Apple shares reeling as tsunami-hit factories struggle to keep up with demand"Mail Online। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  9. "আইপ্যাড ২ এর বদলে চতুর্থ প্রজন্মের আইপ্যাড"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬  অজানা প্যারামিটার |1= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • iPad – অফফিসিয়াল সাইট
পূর্বসূরী
আইপ্যাড (১ম প্রজন্ম)
আইপ্যাড ২
২য় প্রজন্ম
উত্তরসূরী
আইপ্যাড (৩য় প্রজন্ম)

টেমপ্লেট:Apple hardware since 1998 টেমপ্লেট:Apple hardware

টেমপ্লেট:Ebooks