শিলচর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শিলচর
Silchar

(বাংলা: শিলচর Shilchôr)
city
Aerial view of the Barak river, Silchar
শিলচর আসাম-এ অবস্থিত
শিলচরSilchar
শিলচর
Silchar
Location in Assam, India
স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৯২°৪৮′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৯২.৮° পূর্ব / 24.82; 92.8স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৯২°৪৮′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৯২.৮° পূর্ব / 24.82; 92.8
দেশ ভারত
প্রদেশ অসম
জেলা কাছাড় জেলা
উচ্চতা ২২
জনসংখ্যা (2011)
 • মোট ২২৮
ভাষা
 • সরকারী বাংলা
 • স্থানীয় সিলেটি
সময় অঞ্চল IST (ইউটিসি+5:30)
PIN 7880xx
Telephone code 91 (0) 3842
যানবাহন নিবন্ধন AS-11
ওয়েবসাইট www.cachar.nic.in

শিলচর (ইংরেজি: Silchar,বাংলা:শিলচর সিলেটি:হিলচর Hilsôr) ভারতের আসাম রাজ্যের কাছাড় জেলার সদর শহর এবং দক্ষিণ আসামের একটি প্রধান বাণিজ্যকেন্দ্র। মণিপুরের কিছু অংশ এবং মিজোরামের জন্য এই শহরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব অপরিসীম। এর ফলে শিলচরে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের ব্যবসায়ীরা বসতি স্থাপন করেছেন।

বরাক নদীর তীরে অবস্থিত এই শহর উত্তর-পূর্ব ভারতের মধ্যে শান্তিপূর্ণ জায়গা হিসেবে তখনকার ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর কাছ থেকে "শান্তির দ্বীপ" আখ্যা লাভ করেছিল। [১] তৎকালীন পূর্ববঙ্গের সিলেটিরা এই শহরের অন্যতম প্রধান জনগোষ্ঠী। ভাত এবং মাছ এখানকার লোকদের প্রধান খাদ্য। এছাড়া "শুঁটকি" এবং "চুঙ্গা পিঠা" এখানকার বিখ্যাত উপাদেয় খাদ্য।

ভৌগোলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

শিলচর আসামের দক্ষিণ সীমায় অবস্থিত।[২] বরাক নদীর তীরে অবস্থিত এই শহর চা, চাল এবং আরো নানারকম কৃষিজাত দ্রব্যের জন্য বিখ্যাত। পাঁচগ্রাম কাগজ কল, সিমেন্ট কারখানা এবং চা-পাতা উৎপাদন এখানকার প্রধান শিল্প।শিলচর আসামের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগর। শিলচর ভারতের অন্যান্য জায়গার সঙ্গে রেল, সড়ক এবং আকাশপথের মাধ্যমে যুক্ত। শিলচর শিলচর গড়পড়তা ভাবে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২২ মিটার (৭২ ফুট) উঁচুতে। [৩]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

শিলচর হচ্ছে শিলচর লোকসভা কেন্দ্রের অংশ। শিলচর থেকে সংসদের বর্তমান সদস্য হচ্ছেন সুস্মিতা দেব। যিনি হচ্ছেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রবীণ রাজনীতিবিদ সন্তোষ মোহন দেবের কনিষ্ঠ কন্যা। [৪]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

শিলচর শহরের অন্যতম দর্শনীয় স্থানসমূহ হলো:

Ruins of the Kachari Kingdom, Khaspur.
  • খাসপুর:শিলচর থেকে ২০ কিঃমিঃ দূরত্বে খাসপুর নামে দিমাসা কাছাড়ি রাজাদের একটি বিরাট ঐতিহাসিক এবং গুরুত্বপূর্ণ রাজধানী গড়ে উঠেছিল। যার নির্মাণ ১৬৯০ খ্রিস্টাব্দ মধ্যে হয়েছিল। এখানকার প্রধান আকর্ষণিয় হচ্ছে সিংহদ্বার, সূর্যদ্বার এবং প্রাচীন রাজাদের মন্দির। মূল প্রাসাদটি প্রায় অস্তিত্বহীন, কিন্তু এর অধীনস্থ, প্রধান প্রবেশদ্বার, সূর্যদ্বার, দেবালয় অক্ষত আছে। প্রবেশপথে হাতি-নিদর্শন আছে।
  • ইসকন(ISKCON –International Society for Krishna Consciousness ) মন্দির:বিশ্ব বিখ্যাত সনাতন নাটকীয় আধ্যাত্মিক সংগঠন (ইসকন) দ্বারা পরিচালিত শিলচর শহরের অম্বিকাপট্টিস্থিত ভগবান শ্রীকৃষ্ণ নিবেদিত মন্দির আছে । প্রতিষ্ঠানটির কাছাকাছি ইসকন মন্দির দ্বারা পরিচালিত “ গবিন্দভোজনালয় ” নামে একটি নিরামিষ রেস্তোরায় আছে ।
  • গান্ধীবাগ পার্ক:গান্ধীবাগ পার্ক শহরের কেন্দ্র, পার্ক রোডে অবস্থিত। পার্কটি মহাত্মা গান্ধীর নামে নামকরণ করা হয়। পার্কে ভাষা শহীদদের একটি শহীদ মিনার আছে যারা ১৯৬২ ইং-র ১৯ মে বাংলা ভাষা রক্ষার জন্য আসাম সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ তাদের জীবন উত্সৃষ্ট করেছিলেন।
  • ভুবনেশ্বর মন্দির:এই মন্দিরটি সমগ্র দক্ষিণ আসামের ভগবান শিবের সবচেয়ে সুপ্রসিদ্ধ মন্দির । শিলচর থেকে প্রায় 50 কিমি এবং উপরে ভুবন পাহাড় তীর্থস্থানটি অবস্থিত । প্রতি মার্চমাসে শিবরাত্রির সময় অনেক লোক অনেক দূর থেকে শিবের উপাসনা করতে আসেন । মন্দিরটি সমতল থেকে অন্তত ১৭ কি়ঃমিঃ উচুতে অবস্থিত ।
  • কাঁচা কান্তি কালী মন্দির: শিলচর থেকে প্রায় 11 কিমি অর্থাৎ দক্ষিণ আসামে দেবী মা "কাঁচাকান্তি"-র এক ঐতিহাসিক এবং সবচেয়ে সুপ্রসিদ্ধ মন্দির রয়েছে । তিনি দুটি শক্তিশালী হিন্দু দেবতাঃ মা দুর্গা এবং মা কালীর সংযোজন। মূল মন্দির কাছাড়ি রাজা ১৮০৬ খ্রিস্টাব্দে নির্মিত করেছিলেন । ১৮১৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দেবীর কাছে নরবলি প্রদান করা হত । পুরানো মন্দিরটি তছনছ হয়ে গিয়েছিল এবং ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দে নতুন মন্দিরটি দ্বারা পুন-প্রতিস্থাপিত করা হয়।
  • মনিহরন সুড়ঙ্গ : ভুবনেশ্বর মন্দির থেকে প্রায় 5 কিমি একটি জনপ্রিয় স্ম়তি।পবিত্র নদী ত্রিবেনী এই সুড়ঙ্গ তলদেশ দিয়ে প্রবাহিত হয় । পৌরাণিক কাহিনী মতে, এই সুড়ঙ্গ একবার ভগবান শ্রীকৃষ্ণ দ্বারা ব্যবহৃত হয় । ভগবান শ্রীকৃষ্ণ নিবেদিত মন্দিরটির মনিহরন সুড়ঙ্গ নামকরণ করা হয় ।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

গ্যালারি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

UN/LOCODE for Silchar