দ্বৈত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

হিন্দু দর্শন

Aum
শাখা

ভক্তি · যোগ · ন্যায় · বৈশেষিক · পূর্ব মীমাংসা · বেদান্ত (অদ্বৈত · বিশিষ্টাদ্বৈত · দ্বৈত · অচিন্ত্য ভেদ অভেদ)

ব্যক্তি

প্রাচীন

গৌতম · জৈমিনী · কণাদ · কপিল · মার্কণ্ডেয় · পতঞ্জলি · বাল্মীকি · ব্যাসদেব

মধ্যযুগীয়
আদি শঙ্কর · বাসব · ধ্যানেশ্বর · চৈতন্য মহাপ্রভু · জয়ন্ত ভট্ট · কবীর · কুমারিল ভট্ট · মধুসূদন · মাধব · নামদেব · নিম্বার্ক · প্রভাকর · রঘুনাথ শিরোমণি · রামানুজ · বেদান্ত দেসিকা · সমর্থ রামদাস · তুকারাম · তুলসীদাস · বাচস্পতি মিশ্র · বল্লভাচার্য

আধুনিক
অরবিন্দ · কুমারস্বামী · চিন্ময়ানন্দ · দয়ানন্দ সরস্বতী · গান্ধী · কৃষ্ণানন্দ · নারায়ণ গুরু · প্রভুপাদ · রামকৃষ্ণ · রমনা মহর্ষি · রাধাকৃষ্ণন · শিবানন্দ · বিবেকানন্দ · যোগানন্দ

দ্বৈত বেদান্ত বা ভেদবাদ বা তত্ত্ববাদ বা বিম্বপ্রতিবিম্ববাদ হিন্দু দর্শনের বেদান্ত শাখার একটি উপশাখা। মাধবাচার্য (১২৩৮-১৩১৭ খ্রিস্টাব্দ) এই মতবাদের প্রধান প্রবক্তা ছিলেন। দ্বৈত বেদান্ত অনুসারে, ঈশ্বর বা পরমাত্মা এবং জীবাত্মা ভিন্ন। মাধবাচার্যের মতে, প্রতিটি জীবাত্মা ঈশ্বর কর্তৃক সৃষ্ট নয়, কিন্তু তার অস্তিত্বের জন্য সে ঈশ্বরের উপর নির্ভরশীল। রামানুজের মতো মাধবাচার্যও একটি বৈষ্ণবীয় তত্ত্ব ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি ব্রহ্ম বা সর্বোচ্চ ঈশ্বর বলতে বিষ্ণুকেই বুঝিয়েছেন।

আদি শঙ্করাচার্যের অদ্বৈত বেদান্তরামানুজের বিশিষ্টাদ্বৈত বেদান্তের মতো মাধবাচার্যের দ্বৈত বেদান্তও হিন্দুসমাজের ধর্মবিশ্বাসের একটি অন্যতম প্রধান ভিত্তি। অপেক্ষাকৃত পরবর্তীকালের ধর্মগুরু নিম্বার্ক, বল্লভাচার্যচৈতন্য মহাপ্রভু মাধবাচার্যের দ্বৈত বেদান্ত মতের দ্বারা অল্পবিস্তর প্রভাবিত হয়েছিলেন। দ্বৈত বেদান্তের ভিত্তিতে বেদ, উপনিষদ্‌, ব্রহ্মসূত্র, মহাভারত, পঞ্চরাত্রপুরাণ গ্রন্থের নতুন ব্যাখ্যা প্রদান করা হয়।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]