গৌড়পাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গৌড়পাদ
Shri Gaudapadacharya Statue.jpg
আদি শঙ্করের পরমগুরু তথা অদ্বৈত বেদান্তের প্রথম ঐতিহাসিক প্রবক্তা গৌড়পাদ। কথিত আছে ইনিই শ্রীগৌড়পাদাচার্য মঠ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।
শিরোপা/সন্মান শ্রীগৌড়পাদাচার্য মঠের প্রতিষ্ঠাতা
দর্শন অদ্বৈত বেদান্ত দর্শন

হিন্দু দর্শন

Aum
শাখা

ভক্তি · যোগ · ন্যায় · বৈশেষিক · পূর্ব মীমাংসা · বেদান্ত (অদ্বৈত · বিশিষ্টাদ্বৈত · দ্বৈত · অচিন্ত্য ভেদ অভেদ)

ব্যক্তি

প্রাচীন

গৌতম · জৈমিনী · কণাদ · কপিল · মার্কণ্ডেয় · পতঞ্জলি · বাল্মীকি · ব্যাসদেব

মধ্যযুগীয়
আদি শঙ্কর · বাসব · ধ্যানেশ্বর · চৈতন্য মহাপ্রভু · জয়ন্ত ভট্ট · কবীর · কুমারিল ভট্ট · মধুসূদন · মাধব · নামদেব · নিম্বার্ক · প্রভাকর · রঘুনাথ শিরোমণি · রামানুজ · বেদান্ত দেসিকা · সমর্থ রামদাস · তুকারাম · তুলসীদাস · বাচস্পতি মিশ্র · বল্লভাচার্য

আধুনিক
অরবিন্দ · কুমারস্বামী · চিন্ময়ানন্দ · দয়ানন্দ সরস্বতী · গান্ধী · কৃষ্ণানন্দ · নারায়ণ গুরু · প্রভুপাদ · রামকৃষ্ণ · রমনা মহর্ষি · রাধাকৃষ্ণন · শিবানন্দ · বিবেকানন্দ · যোগানন্দ

গৌড়পাদ (খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দী) বা শ্রীগৌড়পাদাচার্য ছিলেন বৈদিক দর্শনের অদ্বৈত বেদান্ত শাখার প্রথম যুগের গুরুদের অন্যতম। প্রচলিত বিশ্বাস অনুসারে, তিনি ছিলেন আদি শঙ্করের পরমগুরু (গুরুর গুরু)।[১] তিনি বৈদিক দর্শন শাখার অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব। অপর প্রচলিত বিশ্বাস অনুসারে, তিনি শ্রীগৌড়পাদাচার্য মঠের প্রতিষ্ঠাতা তথা মাণ্ডুক্য কারিকা-র সংকলক।[২]

সময়[সম্পাদনা]

কথিত আছে, গৌড়পাদ ছিলেন আদি শঙ্করের গুরু গোবিন্দ ভাগবতপাদের গুরু। আদি শঙ্কর নিজেই এই তথ্যটি স্বীকার করেছেন এবং গৌড়পাদ যে তাঁর গুরুর গুরু ছিলেন, সেই ব্যাপারে নানা উদ্ধৃতির উল্লেখ করেছেন। আদি শঙ্কর অষ্টম শতাব্দীর ব্যক্তিত্ব হলে তাই অনুমিত হয় গৌড়পাদ খ্রিস্টীয় সপ্তম শতাব্দীর ব্যক্তিত্ব ছিলেন।[১]

অদ্বৈত গুরু-পরম্পরা[সম্পাদনা]

ভারতীয় ধর্ম ও দর্শনে, সকল জ্ঞানের উৎস ঈশ্বর এবং ঈশ্বরের থেকে বেদদ্রষ্টা ঋষিরা সেই দর্শন প্রাপ্ত হয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

গুরু-পরম্পরা[সম্পাদনা]

শাস্ত্র অনুসারে, অদ্বৈত গুরু-পরম্পরার উৎস পৌরাণিক যুগের "দৈব-পরম্পরা"। তারপর এই দর্শনে বেদজ্ঞ "ঋষি-পরম্পরা" শুরু হয় এবং শেষে "মানব-পরম্পরা" বা ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্বদের গুরু পরম্পরায় উপনীত হয়:[web ১][note ১]

দৈব-পরম্পরা
ঋষি-পরম্পরা
মানব-সম্প্রদায়

যুগ[সম্পাদনা]

শাস্ত্র অনুসারে, প্রত্যেক যুগের নিজস্ব গুরু আছেন:[৪]

শ্রীগোড়পাদাচার্য মঠ[সম্পাদনা]

শ্রীগোড়পাদাচার্য মঠ (সংস্কৃত: श्री संस्थान गौडपदाचार्य मठ) বা কবলে মঠ (कवळे मठ) হল দক্ষিণ ভারতীয় সারস্বত ব্রাহ্মণদের সবচেয়ে পুরনো মঠ।[৫][৬] এটি গোয়ার পোন্ডা পঞ্চায়েত সমিতির কবলে শহরে অবস্থিত।

৭৪০ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ গৌড়পাদ এই মঠ স্থাপন করেন।[৭] কথিত আছে, গোমন্তক (গোয়া) অঞ্চলে বসবাসকালে গৌড়পাদ নিজে এই মঠ স্থাপন করেছিলেন। তবে অন্যান্য অদ্বৈত মঠের মতো হিন্দু সমাজের সামগ্রিক অংশে এই মঠের প্রভাব দেখা যায় না। এটির এক্তিয়ার শুধুমাত্র দাক্ষিণাত্য সারস্বত ব্রাহ্মণদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

মাণ্ডুক্য কারিকা[সম্পাদনা]

রচয়িতা[সম্পাদনা]

মতবাদ[সম্পাদনা]

তত্ত্ব[সম্পাদনা]

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

আগম[সম্পাদনা]

বৈতথ্য[সম্পাদনা]

অদ্বৈত=[সম্পাদনা]

অলাতশান্তি=[সম্পাদনা]

অন্যান্য রচনা[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. The following Sanskrit Verse among Smarthas provides the list of the early teachers of the Vedanta in their order:[web ২][৩] "नारायणं पद्मभुवं वशिष्ठं शक्तिं च तत्पुत्रं पराशरं च व्यासं शुकं गौडपादं महान्तं गोविन्दयोगीन्द्रं अथास्य शिष्यम्
    श्री शंकराचार्यं अथास्य पद्मपादं च हस्तामलकं च शिष्यम् तं तोटकं वार्त्तिककारमन्यान् अस्मद् गुरून् सन्ततमानतोऽस्मि
    अद्वैत गुरु परंपरा स्तोत्रम्"
    "nārāyanam padmabhuvam vasishtam saktim ca tat-putram parāśaram ca
    vyāsam śukam gauḍapāda mahāntam govinda yogīndram athāsya śiṣyam
    śri śankarācāryam athāsya padmapādam ca hastāmalakam ca śiṣyam
    tam trotakam vārtikakāram-anyān asmad gurūn santatamānato’smi
    Advaita-Guru-Paramparā-Stotram",
    The above advaita guru paramparā verse salute the prominent gurus of advaita, starting from Nārāyaṇa through Adi Sankara and his disciples, up to the Acharyas of today.
  2. the famous redactor of the vedas, he is also traditionally identified with Bādarāyaṇa, the composer of the Brahmasūtras

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

গ্রন্থসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ Potter 1981, পৃ. 103.
  2. Nakamura 2004, পৃ. 308.
  3. Book: Shri Gowdapadacharya & Shri Kavale Math (A Commemoration volume). P. 38.
  4. Book: Shri Gowdapadacharya & Shri Kavale Math (A Commemoration volume). P. 62.
  5. Shri Gowdapadacharya & Shri Kavale Math (A Commemoration volume)। পৃ: 10। 
  6. http://www.shrikavalemath.org.in/
  7. http://www.vidya-ashramvidyaorder.org/index.V.html | Under Page: Biographical Notes About Sankara And Gaudapada

ওয়েব-সূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Advaita Vedânta Home Page - Advaita Parampara"। Advaita-vedanta.org। 1999-05-05। সংগৃহীত 2012-09-10 
  2. Under Page: BIOGRAPHICAL NOTES ABOUT SANKARA AND GAUDAPAD

সূত্র[সম্পাদনা]

  • Bhatta, Rathnakara (2013), Shree Shankarayana (May. 2013), pp. 190–380. 
  • Garfield, Jay L.; Priest, Graham (2003), NAGARJUNA AND THE LIMITS OF THOUGHT. In: Philosophy East & West Volume 53, Number 1 January 2003 1–21 
  • Kalupahana, David J. (1994), A history of Buddhist philosophy, Delhi: Motilal Banarsidass Publishers Private Limited 
  • Kochumuttom, Thomas A. (1999), A buddhist Doctrine of Experience. A New Translation and Interpretation of the Works of Vasubandhu the Yogacarin, Delhi: Motilal Banarsidass 
  • Nakamura, Hajime (2004), A History of Early Vedanta Philosophy. Part Two, Delhi: Motilal Banarsidass Publishers Private Limited 
  • Gauḍapāda Ācārya; Śaṅkarācārya; Nikhilananda, Swami; V Subrahmanya Iyer (1990)। Māṇḍūkyopaniṣad : with Gauḍapāda's Kārikā and Saṅkara's commentary। Calcutta: Advaita Ashrama। আইএসবিএন 81-7505-022-5  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  • Potter, Karl. H. (1981), Encyclopedia of Indian Philosophies: Advaita Vedānta up to Śaṃkara and his pupils, Volume 3, Delhi: Motilal Banarsidass, আইএসবিএন 81-208-0310-8 
  • Raju, P.T. (1992), The Philosophical Traditions of India, Delhi: Motilal Banarsidass Publishers Private Limited 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]