১৯৩৪-এর বিহার ভূমিকম্প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
১৯৩৪-এর বিহার ভূমিকম্প
১৯৩৪-এর বিহার ভূমিকম্প নেপাল-এ অবস্থিত
১৯৩৪-এর বিহার ভূমিকম্প
Kathmandu
Kathmandu
ইউটিসি সময়১৯৩৪-০১-১৫ ০৮:৪৩:২৫
আইএসসি ইভেন্ট৯০৪৭৪৫
ইউএসজিএস-এএনএসএসকমক্যাট
স্থানীয় তারিখ১৫ জানুয়ারি ১৯৩৪ (1934-01-15)
স্থানীয় সময়দুপুর ২:১৩ আইএসটি
মাত্রা৮.০ ṃ[১]
গভীরতা১৫ কিমি (৯.৩ মা)[১]
ভূকম্পন বিন্দু২৬°৫২′ উত্তর ৮৬°৩৫′ পূর্ব / ২৬.৮৬° উত্তর ৮৬.৫৯° পূর্ব / 26.86; 86.59স্থানাঙ্ক: ২৬°৫২′ উত্তর ৮৬°৩৫′ পূর্ব / ২৬.৮৬° উত্তর ৮৬.৫৯° পূর্ব / 26.86; 86.59[১]
ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাভারত, নেপাল
সর্বোচ্চ তীব্রতাএকাদশ (চরম)
হতাহত১০,৭০০–১২,০০০

১৯৩৪-এর বিহার ভূমিকম্প বা ১৯৩৪-এর বিহার – নেপাল ভূমিকম্প ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্পগুলির মধ্যে একটি। মুঙ্গারমুজাফফরপুর শহরগুলি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। এই ৮.০ মাত্রার ভূমিকম্প ১৫ জানুয়ারি ভারতীয় সময় প্রায় দুপুর ২ টো ১৩ মিনিটে (০৮:৪৩ ইউটিসি ) ঘটেছে এবং উত্তর বিহারনেপাল ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়।[২]

ভূমিকম্প[সম্পাদনা]

এই ঘটনার কেন্দ্রস্থল পূর্ব নেপালে এভারেস্টের প্রায় ৯.৫ কিমি (৫.৯ মা) দক্ষিণে।[৩] যে সকল অঞ্চলে জীবন ও সম্পদের সর্বাধিক ক্ষতি হয়, সেগুলি পূর্ব দিকে পূর্না থেকে পশ্চিমে চম্পারন পর্যন্ত (প্রায় ৩২০ কিমি (২০০ মা) দূরত্বে) এবং উত্তরে কাঠমান্ডু থেকে দক্ষিণে মুঙ্গার পর্যন্ত (প্রায় ৪৬৫ কিমি (২৮৯ মা) দূরত্ব) বিস্তৃত ছিল। এর প্রভাব লাসা থেকে বোম্বাই এবং আসাম থেকে পাঞ্জাব পর্যন্ত অনুভূত হয়। এই ভূমিকম্প এতটাই মারাত্মক ছিল যে ভূমিকম্পের কেন্দ্র থেকে প্রায় ৬৫০ কিমি (৪০৪ মাইল) দূরে কলকাতায় অনেকগুলি ভবন ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং সেন্ট পলের ক্যাথেড্রালের টাওয়ারটি ভেঙে পড়ে।[৪]

স্থল প্রভাব[সম্পাদনা]

এই ভূমিকম্পের একটি লক্ষণীয় বিষয় হ'ল ভূমিকম্পের কেন্দ্রিয় ফাটলগুলি জুড়ে বালু ও জলের ফাটলগুলি উপস্থিত হয়। বালুর এই বিস্ফোরণে চারপাশের জমিটি হ্রাস পায় এবং আরও বেশি ক্ষতির কারণ হয়ে ওঠে।[৪] ভূমিকম্পের সময় ৩০০ কিলোমিটার (স্ল্যাম্প বেল্ট নামে পরিচিত) অঞ্চলে মাটির তরলতা ঘটে (মাটি ও জলের দ্রবণ), ফলে অনেকগুলি কাঠামো তলিয়ে যায়।[৫]

ভূমিকম্পের পরে গান্ধী সফর করেন

মজঃফরপুরে শহরের বেশ কয়েকটি জায়গায় বালুর বিস্ফোরণ ঘটে। কূপগুলি বালির সাথে রূদ্ধ হয়। স্তূপিত বালির কারণে কূপে জলের স্তর অগভীর হয়ে যায়। মজঃফরপুরের বেশিরভাগ ভবন ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সমস্ত কাঁচা (রামশাকল) ভবন ভেঙে পড়ে এবং জমিটি ডুবে যাওয়ার ও ফাটলের কারণে পাকা (দৃঢ়ভাবে নির্মিত) ভবনগুলি ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

ক্ষতি[সম্পাদনা]

নেপালের কাঠমান্ডু উপত্যকার তিনটি বড় শহর - কাঠমান্ডু, ভক্তপুর এবং পাটান- মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং প্রায় সমস্ত ভবন ধসে পরে। মাটিতে বড় ফাটল দেখা যায় এবং কাঠমান্ডুতে বেশ কয়েকটি রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়; তবে নেপালের অভিভাবক দেবতা পশুপতিনাথের মন্দির ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পায়।[৬]

সীতামারীতে একটিও বাড়ি দাঁড়িয়ে ছিল না। ভাগলপুর জেলায় অনেক ভবন ধসে যায়। পাটনায় কেবল একটি দুর্গ দাঁড়িয়ে ছিল এবং শহরটির অন্যান্য অংশ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] মধুবানীর নিকটবর্তী রাজনগরে সমস্ত কাঁচা ভবন ধসে পড়ে। বিখ্যাত নৌলখা প্রাসাদ সহ দ্বারভাঙ্গ রাজের ভবনগুলি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়।[৬] ঝরিয়ায় ভূমিকম্পের ফলে ভূগর্ভস্থ আগুন আরও ছড়িয়ে পড়ে।[৭] কাঠমান্ডুতে টেলিফোন লাইন সহ বীরগঞ্জ শহরটি ধ্বংস করা হয়। [৮]

বিহারে নথিভুক্ত ৭,২৫৩ টি মৃত্যু[৬] সহ মোট মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১০,৭০০ থেকে ১২,০০০ টি।[৩][৯]

১৯৩৫ সালে, নেপালকো মহা ভুকম্পা ১৯৯০ শিরোনামে ভূমিকম্পের ঘটনা নথিভুক্তকারী মেজর জেনারেল ব্রহ্মা শমসেরে বলেছিল যে এটি জীবিত স্মৃতিতে নেপালের সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক ভূমিকম্প এবং ত্রাণ প্রয়াসে নেপালি সেনাবাহিনীর কাজের জন্য প্রশংসা করেন।[৮][১০]

পরিণতি[সম্পাদনা]

মহাত্মা গান্ধী বিহার রাজ্য সফর করেন। তিনি লিখেছিলেন যে বিহারের ভূমিকম্পটি অস্পৃশ্যতা নির্মূল করতে ভারতের ব্যর্থতার প্রতি দৈব প্রতিশোধ ছিল।[১১] বিহারে শ্রী বাবু (শ্রী কৃষ্ণ সিনহা) এবং অন্য এক মহান নেতা অনুগ্রহ বাবু (অনুগ্রহ নারায়ণ সিনহা ) ত্রাণ কাজে নিজে নিয়জিত করেন। [১২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ISC (২০১৫), ISC-GEM Global Instrumental Earthquake Catalogue (1900–2009), Version 2.0, International Seismological Centre 
  2. "Significant earthquake"National Geophysical Data Center। ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  3. Gunn, Angus Macleod (৩০ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Bihar, India, earthquake"Encyclopedia of Disasters: Environmental Catastrophes and Human Tragedies। Greenwood Publishing Group। পৃষ্ঠা 337–339। আইএসবিএন 978-0-313-08747-9 
  4. Nasu, Nobuji (২০ মার্চ ১৯৩৫)। "The Great Indian Earthquake of 1934" (PDF)। Earthquake Research Institute। ৬ মে ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৫ 
  5. Murty, C.V.R.; Malik, Javed N.। "Challenges of Low-to-Moderate Seismicity in India" (PDF)। ১০ জুন ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৫ 
  6. Brett, William Bailie (১৯৩৫)। A Report on the Bihar Earthquake and on the Measures Taken in Consequence Thereof Up to the 31st December 1934। Superintendent, Government Print.।  Available at The South Asia Archive
  7. Amin, Shahid; Linden, Marcel van der (১৯৯৭)। Peripheral Labour: Studies in the History of Partial Proletarianization। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 83। আইএসবিএন 978-0-521-58900-0 
  8. Dr. Bipin Adhikari. The Great Earthquake of 1934 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ মে ২০১৫ তারিখে. NewSpotLight Nepal News Magazine, Vol. 8, No. 22, 22 May 2015. Accessed 29 May 2015.
  9. U.S. Geological Survey। "Historic Earthquakes – Bihar, India – Nepal"। U.S. Department of the Interior। ২৯ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  10. Rāṇā, Brahmaśamśera Jaṅgabahādūra, and Kesar Lall. The Great Earthquake in Nepal (1934 A.D.). 1st English edition. Kathmandu: Ratna Pustak Bhandar, 2013. আইএসবিএন ৯৭৮৯৯৩৭৩৩০১৫২
  11. Chakrabarty, Bidyut (২০০৬)। Social and Political Thought of Mahatma Gandhi। Routledge Studies in Social and Political Thought। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 101। আইএসবিএন 978-0-415-36096-8 
  12. Ramaswami Venkataraman; India. Ministry of Information and Broadcasting. Publications Division (১৯৯০)। So may India be great: selected speeches and writings of President R. Venkataraman। Publication Division, Ministry of Information and Broadcasting, Govt. of India। 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]