কাঠমান্ডু উপত্যকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Kathmandu Valley krish.jpg

কাঠমন্ডু উপত্যকা (নেপালি: काठमाडौं उपत्यका), হলো নেপালে অবস্থিত এমন এক স্থান যেখানে এশিয়ার প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন পাওয়া যায় ৷ এখানে প্রায় ১৩০ টি ভাষ্কর্য আছে ও হিন্দু ও বৌদ্ধের বহু ধর্মীয় নিদর্শন আছে ৷ এই উপত্যকাতেই সাতটি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট রয়েছে ৷[১]

ঐতিহাসিকদের মতে, এই উপত্যকা ও তার আশপাশের স্থানগুলো নিয়ে একত্রে নেপাল মন্ডল গঠিত হয় ৷ পনের শতকের আগ পর্যন্ত ভক্তপুর এটার রাজধানী ছিল ৷ এরপর কাঠমন্ডু ও পাঠান নামে দুটি আলাদা রাজধানী গঠিত হয় ৷[২] গোর্খা রাজাদের দ্বারা উপত্যকাটি দখল হওয়ার পর পুনরায় উপত্যকাটিকে গোর্খা রাজত্বের রাজধানী ঘোষণা করা হয় ৷ এই শাসনামলে স্থানটির উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন সাধিত হয় ৷

কাঠমন্ডু উপত্যকা নেপালে অন্যতম উন্নত ও জনবসতিপূর্ণ স্থান ৷ স্থানটিতে বিভিন্ন অফিস ও সদরদপ্তর অবস্থিত ৷ এটি নেপালের অর্থনৈতিক কেন্দ্র হিসেবেও পরিচিতি লাভ করছে ৷ ভ্রমণপিপাসুদের কাছে খুবই জনপ্রিয় স্থান কাঠমন্ডু উপত্যকা ৷ অনন্য স্থাপত্য, দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ ও সংস্কৃতি সকলকে মুগ্ধ করে ৷

২০১৫ সালে ভূমিকম্পে উপত্যকাটি ক্ষতিগ্রস্থ হয় ৷ [৩] ভূমিকম্পে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হয় ও বহু ভবন ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় ৷

নামকরণ[সম্পাদনা]

কাঠমান্ডু দরবার ক্ষেত্র যার সংস্কৃত ভাষায় বলা হয় কাষ্ঠ মন্ডপ্ এর নামানুসারে কাঠমন্ডু শহরের নামকরণ করা হয় ৷ ২০১৫ সালের ভূমিকম্পে এটি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ৷ এখানের একটি অনন্য মন্দির মারু সাত্তল ৷ মন্দিরটি ১৫৯৬ সালে রাজা লক্ষ্মীনারায়ণ সিংহ মাল্লা নির্মাণ করেন। পুরো স্থাপনার ভেতরে কোনো লোহার ভিত্তি এমনকি লোহার টুকরারও ব্যবহার নেই। সম্পূর্ণ মন্দিরটা কাঠের তৈরী।প্রচলিত আছে যে দ্বিতলবিশিষ্ট প্যগোডাটি ১টি গাছের গুড়ি দিয়ে তৈরী হয়েছিল।

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. http://whc.unesco.org/en/list/121
  2. Slusser, Mary (1982). Nepal Mandala: A Cultural Study of the Kathmandu Valley. Princeton University. আইএসবিএন ৯৭৮-০-৬৯১-০৩১২৮-৬. Page vii.
  3. "Nepal Disaster Risk Reduction Portal"। Government of Nepal। সংগ্রহের তারিখ ৫ মে ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:কাঠমান্ডু জেলা