সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর
গঠিত১৯৭০
সদরদপ্তরঢাকা, বাংলাদেশ
যে অঞ্চলে কাজ করে
বাংলাদেশ
দাপ্তরিক ভাষা
বাংলা, ইংরেজি
ওয়েবসাইটwww.dmlc.gov.bd

সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর বাংলাদেশের সেনানিবাসসমূহের ভূমি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত সরকারের অধিদপ্তর। ফরিদ আহাম্মদ সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তরের বর্তমান মহাপরিচালক।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৭০ সালে ঢাকায় সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট পরিদপ্তর গঠিত হয়। ১৯৮২ সালে পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়। অধিদপ্তর তিনটি সার্কেলে সেনানিবাসের ভূমি সমন্বয় করে, যথাক্রমে কেন্দ্রীয় সার্কেল (ঢাকা), ইস্টার্ন সার্কেল (চট্টগ্রাম) ও নর্দান সার্কেল (বগুড়া)। প্রতিটি সেনানিবাস একটি ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড কর্তৃক পরিচালিত হয়।[২]

২০০৯ সালের ২০ এপ্রিল সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে তাঁর ঢাকা সেনানিবাসের বাড়ি ছাড়ার নোটিশ দেয়, যা তাঁর স্বামী, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান হত্যার পর তাঁকে দেওয়া হয়েছিল। খালেদা জিয়া এই নোটিশের বিরুদ্ধে আদালতে চ্যালেঞ্জ করলে আদালত ঢাকা সেনানিবাসের ভেতরে খালেদা জিয়ার বাড়ির বরাদ্দ অবৈধ বলে আদেশ দেয়।[৩][৪] ২০১০ সালের ১৪ নভেম্বর তিনি তাঁঁর সেনানিবাসের বাড়ি ছাড়ে দেন।[৫]

ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের তালিকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Farid Ahmed"dmlc.portal.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০২০ 
  2. "সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর"dmlc.gov.bd (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০২০ 
  3. "'Cantt house lease to Khaleda highly illegal'"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০২০ 
  4. "Fresh notice to Khaleda to vacate house"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ৮ মে ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০২০ 
  5. "Bangladesh's main opposition party chief vacates cantonment house - People's Daily Online"en.people.cn। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০২০