রাখিগড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রাখিগড়ি
রাখিগড়ি ভারত-এ অবস্থিত
রাখিগড়ি
ভারতে এর অবস্থান দেখাচ্ছে
বিকল্প নামরাখী গড়ি
অবস্থানহরিয়ানা, ভারত
স্থানাঙ্ক২৯°১৭′৩৫″ উত্তর ৭৬°৬′৫১″ পূর্ব / ২৯.২৯৩০৬° উত্তর ৭৬.১১৪১৭° পূর্ব / 29.29306; 76.11417স্থানাঙ্ক: ২৯°১৭′৩৫″ উত্তর ৭৬°৬′৫১″ পূর্ব / ২৯.২৯৩০৬° উত্তর ৭৬.১১৪১৭° পূর্ব / 29.29306; 76.11417
ধরনবসতি
এলাকা৮০–১০৫ হেক্টর (০.৮০–১.০৫ কিমি; ০.৩১–০.৪১ মা) (গ্রেগরী পোসেহাল, রিতা পি. রাইট, রেমন্ড লচিন, জনাথন মার্ক কেনিয়ার)
৩৫০ হেক্টর (৩.৫ কিমি; ১.৪ মা)[১]
ইতিহাস
সংস্কৃতিসিন্ধু উপত্যকা সভ্যতা
স্থান নোটসমূহ
খননের তারিখ১৯৬৩, ১৯৯৭–২০০০, ২০১১--বর্তমান

রাখিগড়ি বা রাখী গড়াই (রাখী শাহপুর + রাখী খাস), ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের হিসার জেলার একটি গ্রাম। এটি দিল্লি শহরের থেকে ১৫০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত। এটি পূর্ব-সিন্ধু উপত্যকা সভ্যতার নিষ্পত্তি স্থান, যা ৬,৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে গড়ে ওঠেছিল। [২] পরবর্তীতে, এটি ২,৬০০-১,৯০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে সিন্ধু উপত্যকা সভ্যতার অংশ ছিল।[৩] এই স্থানটি ঘাগগার-হাকরা নদীর সমভূমিতে অবস্থিত।[৪] বর্তমানে স্থানটি ঋতুকালীন ঘগগার নদী থেকে প্রায় ২৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে।

রাখিগড়িতে সাতটি ঢিবির একটি চত্বর রয়েছে এবং আশেপাশে আরো অনেকগুলি ঢিবি রয়েছে।[৫] তাদের সব একই সময়ে নির্মান করা হয় নি। ওই ঢিপিগুলির অন্তর্ভুক্তকরণের উপর ভিত্তি করে, রাখিগাড়ির আকারের অনুমানীক ৮০ থেকে ৫৫০ হেক্টর। [৬][৭][৮] ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে, অতিরিক্ত ক্ষত আবিষ্কারের ফলে এটি সিন্ধু উপত্যকা সভ্যতা সবচেয়ে বড় স্থান হয়ে উঠলো, যার ফলে মহেঞ্জোদাড়ো (৩০০ হেক্টর) থেকে প্রায় ৫০ হেক্টরের অধিক এলাকা নিয়ে গড়ে ওঠা রাখিগড়ির আয়োতন প্রায় ৩৫০ হেক্টর হয়। [৯]

রাখিগাড়ির আকার ও অনন্যতা বিশ্বজুড়ে প্রত্নতাত্ত্বিকদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। এটি অন্যান্য প্রধান স্থানগুলির চেয়ে দিল্লির নিকটতম, যা প্রাচীন ভারতের উত্তর ভারত জুড়ে সিন্ধু উপত্যকার সভ্যতার বিস্তারকে নির্দেশ করে। বেশিরভাগ এলাকা এখনও খনন করা হয়নি [১০] এবং প্রকাশিত। [১১]:২১৫ এলাকাটির সঙ্গে সম্পর্কিত আরেকটি স্থান মিতথাল, যা এখনও খননকাজের অপেক্ষায় রয়েছে।

২০১২ সালের মে মাসে, গ্লোবাল হেরিটেজ ফান্ড, এশিয়ার ১০ টি সবচেয়ে বিপন্ন ঐতিহ্যবাহী স্থানগুলির মধ্যে রাখিঘড়ির নাম ঘোষিত।[১২] "সানডে টাইমস"-এর একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এই স্থানটির নজরদারি করা হচ্ছে না, লোহার সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে গেছে এবং গ্রামবাসীরা স্থানটি থেকে খনন করে বের করে আনা জিনিসপত্র বিক্রি করছে এবং এই স্থানের এখন ব্যক্তিগত বাড়িগুলির রয়েছে। [১৩]

অবস্থান[সম্পাদনা]

এটি ঘাগগার নদী থেকে প্রায় ২৭ কিলোমিটার দূরে ঘাগগার-হাকরা নদীর সমভূমিতে অবস্থিত।[১৪] বর্তমানে, রাখিগড়ি ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের একটি ছোট গ্রাম। [১৫]

ঘগগার সমভূমির পূর্ব দিকে পুরাতন নদী উপত্যকায় এই এলাকায় আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান রয়েছে। এদের মধ্যে কালিবংগা, কুনাল, বালু, ভীর্রানা, এবং বানাওয়ালি। [৫]

জেন ম্যাকিনটোশের মতে, রাখিগড়ি শিবালিক পাহাড়গুলিতে উদ্ভূত প্রাগৈতিহাসিক দৃশ্যাদ্বাতি নদীর উপত্যকায় অবস্থিত।[১৬] চৌতঙ্গ সরস্বতি নদীর একটি উপনদী, সরস্বতি নদী আবার ঘগগার নদীর (দ্রিশাদ্বতী নদী) উপনদী।[১৭][১৮]

লোহারী রাঘো কাছাকাছি একটি ছোট স্থান।

খনন[সম্পাদনা]

এএসআই ১৯৯৭ সাল থেকে তিনটি শীতকালে জায়গাটি খনন করা হয়। অর্থের অপব্যবহার সম্পর্কে সিবিআই তদন্তের কারণে বছরের পর বছর ধরে খনন কাজ বন্ধ করা হয়েছিল। [১৯] বেশিরভাগ খননে প্রাপ্ত জিনিসপত্র ন্যাশনাল মিউজিয়ামে দান করা হয়।

১৯৬৩ সালে, প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপ (এএসআই) এই স্থানে খনন শুরু করে এবং খনন সম্পর্কে সামান্যই তথ্য সেই সময়ে প্রকাশিত হয়েছিল।[২০][২১] ১৯৯৭ ও ২০০০ সালের মধ্যে এএসআই-এর প্রত্নতত্ত্ববিদ, অমরেন্দ্র নাথের নেতৃত্বে খনন কার্য পরিচালিত হয়েছিল। [২২][note ১] ডেকান কলেজের প্রত্নতাত্ত্বিক বসন্ত সিংন্দে আরো সাম্প্রতিক খনন কার্য চালিয়েছেন। [২৩]

এএসআই এর বিস্তারিত খননকাজে হারিয়ে যাওয়া শহরটির আকার প্রকাশ পায় এবং ৫,০০০ বছরেরও বেশি বয়সী অসংখ্য নৃত্যকর্ম উদ্ধার করা হয়। রাখিগড়ি প্রাক হরপ্পা সময়ে গড়ে ওঠেছিল।[১০][২৪] পাকা রাস্তা, নিষ্কাশন ব্যবস্থা, বৃষ্টির জল সংগ্রহ, সঞ্চয় ব্যবস্থা, টেরাকোটা ইট, মূর্তি তৈরি এবং ব্রোঞ্জ ও বহুমূল্য ধাতু ব্যবহারের দক্ষতা প্রমাণিত হয়েছে। পোড়ামাটির শেল, সোনা, এবং আধা-মূল্যবান পাথর থেকে তৈরি চুড়িও পাওয়া গেছে।[২৫]

রাখিগড়িতে নয়টি ঢিবি রয়েছে যা আরজিআর-১ থেকে আরজিআর-৯ নামে পরিচিত, যার মধ্যে আরজিআর-৫ ঢিবি রাখিশহপুর গ্রামের মধ্য অবস্থিত হওয়ায় ব্যাপকভাবে জনবহুল এবং এখানে খননের কাজ করা যায় নি। আরজিআর-১ থেকে আরজিআর-৩, আরজিআর৬ থেকে আরজিআর৯ এবং আরজিআর-৪ এর কিছু অংশ খননকার্যের জন্য উপলব্ধ।[২৪][২৬][২৭]

ডেটিং[সম্পাদনা]

২০১৪ সালে প্রত্নতাত্ত্বিক অমরেন্দ্র নাথের (প্রাক-গঠনমূলক, প্রারম্ভিক হরপ্পা এবং পরিপক্ব হরপ্পা) মত অনুসারে ছয়টি রেডিওকার্বন ডেটিং ১৯৯৭ এবং ২০০০ সালের মধ্যে প্রত্নস্থল আল রাখিগারি থেকে প্রকাশিত হয়েছিল। ঢিবি আরজিআর-৬ নিম্নলিখিত দুটি তারিখের সাথে সোথী ফেজ হিসাবে মনোনীত একটি প্রাক-গঠনমূলক স্তর প্রকাশ করেছে:

নোট[সম্পাদনা]

  1. Amarendra Nath was later found guilty for forging bills during the excavation at Rakhigarhi.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sharma, Rakesh Kumar; Singh, Sukhvir (মে ২০১৫)। "Harrapan interments at Rakhigarhi" (PDF)International Journal of Informative & Futuristic Research (IJIFR)2 (9): 3403–3409। আইএসএসএন 2347-1697। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৬ 
  2. "We Are All Harappans Outlook India" 
  3. Tejas Garge (2010), Sothi-Siswal Ceramic Assemblage: A Reappraisal. Ancient Asia. 2, pp.15–40. ডিওআই:10.5334/aa.10203
  4. Wright, Rita P. (২০০৯), The Ancient Indus: Urbanism, Economy, and Society, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 133, আইএসবিএন 978-0-521-57219-4, সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩  Quote: "There are a large number of settlements to the east on the continuation of the Ghaggar Plain in northwest India. ... Kalibangan, Rakhigarhi, and Banawali are located here. Rakhigarhi was over 100 hectares in size."
  5. Nath, Amarendra, Tejas Garge and Randall Law, 2014. Defining the Economic Space of the Harappan Rakhigarhi: An Interface of the Local Subsistance Mechanism and Geological Provenience Studies, in Puratattva 44, Indian Archaeological Society, New Delhi, pp. 84 academia.edu
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Possehl2002 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. Harappa’s Haryana connect: Time for a museum to link civilisations
  8. Nath, Amarendera; et, al (২০১৫)। "Harrapan interments at Rakhigarhi"Man and EnvironmentXL (2): 11। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৬ 
  9. http://www.thehindu.com/features/friday-review/history-and-culture/rakhigarhi-the-biggest-harappan-site/article5840414.ece
  10. Possehl, Gregory L. (২০০২)। The indus civilization : a contemporary perspective (2. print. সংস্করণ)। Walnut Creek, CA: AltaMira Press। পৃষ্ঠা 63, 71, 72। আইএসবিএন 9780759101722 
  11. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; mcintosh নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  12. "Rakhigarhi likely to be developed into a world heritage site"। India Today। ৩১ মার্চ ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৮-০৮ 
  13. Archana, Khare Ghose (৩ জুন ২০১২)। "Can Rakhigarhi, the largest Indus Valley Civilisation site be saved?"Sunday Times। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১২ 
  14. Wright, Rita P. (২০০৯), The Ancient Indus: Urbanism, Economy, and Society, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 133, আইএসবিএন 978-0-521-57219-4, সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  15. Census of India, 2011
  16. Jane McIntosh, The Ancient Indus Valley: New Perspectives. Understanding ancient civilizations. ABC-CLIO, 2008 আইএসবিএন ১৫৭৬০৭৯০৭৪ p76
  17. AmbalaOnline - Rrvers of Ambala
  18. Chopra, Sanjeev (২৫ সেপ্টেম্বর ২০১০)। "Overflowing Ghaggar, Tangri inundate some villages along Punjab-Haryana border"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৭ 
  19. "Former Archaeological Survey director sentenced to jail for fraud"Hindustan Times। ১৫ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  20. Wright, Rita P. (২০০৯), The Ancient Indus: Urbanism, Economy, and Society, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 107, আইএসবিএন 978-0-521-57219-4  Quote: "Rakhigarhi will be discussed briefly in view of the limited published material" (p 107)
  21. Sinopoli, Carla M. (২০১৫), "Ancient South Asian cities in their regions", Norman Yoffee (ed.), The Cambridge World History, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 325, আইএসবিএন 978-0-521-19008-4  Quote: "Excavations have also occurred at Rakhigarhi, but only brief notes have been published, and little information is currently available on its form and organization. (page 325)"
  22. Nath, Amarendra (৩১ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Excavations at Rakhigarhi [1997-98 to 1999-2000]" (PDF)Archaeological Survey of India। Archaeological Survey of India। পৃষ্ঠা 306। ১৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  23. Shinde, Vasant; Green, Adam; Parmar, Narender; Sable, P. D. (২০১২–২০১৩)। "Rakhigarhi and the Harappan Civilization: Recent Work and New Challenges"। Bulletin of the Deccan College Research Institute। 72/73: 48। জেস্টোর 43610687(সদস্যতা নেয়া প্রয়োজন (সাহায্য)) 
  24. "Harappan Surprises"Frontline। ১৩ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৮ 
  25. "Chandigarh Newsline, 2/23/2007, 'Rakhigarhi is the Largest Harappan Site Ever Found'"। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  26. Archaeological Survey of, India। "Indian Archaeology 1997-98" (PDF)Excavation at Rakhigarhi। Archaeological Survey of INdia। ৮ মে ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১২ 
  27. "Rakhigarhi, the biggest Harappan site"। The Hindu। ২৭ মার্চ ২০১৪। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]